মোবাইল ব্যাংকিং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মোবাইল ব্যাংকিং হল মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের যাবতীয় কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করার সুবিধাযুক্ত সেবা।[১] এটি এমন একটি পদ্ধতি যেখানে কোন একটি অনুমোদিত ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের যেকোন আর্থিক লেনদেন একটি মোবাইল ডিভাইসের মাধ্যমে সম্পন্ন করার ব্যবস্থা রয়েছে।

১৯৯৯ সালে মোবাইল ওয়াপ পদ্ধতির মাধ্যমে স্মার্টফোন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে ইউরোপীয়ান ব্যাংকে চালু করা হয় মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থার।[২]

যে পদ্ধতিতে একজন গ্রাহক মোবাইল বা ট্যাব ব্যবহার করে আর্থিক লেনদেন সম্পন্ন করতে পারেন তাকে মোবাইল ব্যাংকিং বলে। খুব সহজে এবং দ্রুত টাকা এক স্থান থেকে আরেক স্থানে পাঠানোর এই মাধ্যম এখন অনেকেই পছন্দ করছেন। ২০১০ সালে ডাচ-বাংলা ব্যাংক বাংলাদেশে সর্বপ্রথম মোবাইল ব্যাংকিং চালু করে। মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দেয়ার ক্ষেত্রে নেতৃত্বের ভূমিকায় রয়েছে ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ‘বিকাশ’।

মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা[সম্পাদনা]

মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবহার করে একজন গ্রাহক যেসব সুবিধাগুলো পেতে পারেন তা নিচে তুলে ধরা হলো:

  • ২৪ ঘন্টা, ৩৬৫ দিন একাউন্টে লগইন করার সুবিধা। গ্রাহক চাইলে যেকোনো মুহূর্তে একাউন্টে লগইন করতে পারবে।
  • একাউন্টের ব্যালেন্স জানা।
  • এক একাউন্ট থেকে অন্য একাউন্টে টাকা পাঠানো। তবে বাংলাদেশে এ সুবিধা শুধু একই ব্যাংকের মধ্যে সীমাবদ্ধ।
  • নিজের একাধিক একাউন্টের মধ্যে টাকা পাঠানো যায়।
  • ইউটিলিটি বিল। যেমন– বিদ্যুৎ, গ্যাস, ফোন, পানি ইত্যাদি পরিশোধ করা যায়।
  • একাউন্টের আয়-ব্যয়, উত্তোলন ইত্যাদি সম্পর্কে জানতে পারা।
  • চেক বই এর জন্য আবেদন ও চেক এর পেমেন্ট বাতিল করা যায়।
  • সুদের হার, বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হার ইত্যাদি জানা যায়।

বাংলাদেশে সব ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা নেই, তবে নিচের কয়েকটি ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের এ সুবিধা ২০১০ সাল থেকে দিয়ে আসছে। তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো: ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। এখন সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এ কার্যক্রমের আওতায় তার গ্রাহকদেরকে এ সুবিধা প্রদান শুরু করেছে।

মোবাইল ব্যাংকিং এর অসুবিধা[সম্পাদনা]

অনেক সময় পাসওয়ার্ড অন্যে জানার ফলে একাউন্টের গোপনীয়তা বজায় রাখা সম্ভব হয় না। এছাড়া কর যারা ফাঁকি দেয় তারা এ ব্যাংকিং এর সুবিধা বেশি ভোগ করতে পারে। সুতরাং সুবিধার ন্যায় অসুবিধা থাকলেও আধুনিক সমাজে মোবাইল ব্যাংকিং এর ভূমিকা অনেক গুরুত্ব বহন করে।

অনলাইন ব্যাংকিং এবং মোবাইল ব্যাংকিং এর মধ্যে পার্থক্য[সম্পাদনা]

অনলাইন ব্যাংকিং এবং মোবাইল ব্যাংকিং এর মধ্যে বেশ পার্থক্য বিদ্যমান।

  • মোবাইল ব্যাংকিং বিদ্যমান মোবাইল সাবস্ক্রাইবার আইডেন্টিফিকেশন মডিউল নম্বর থেকেই ব্যাংক হিসেব নাম্বার নির্ধারিত হয়।
  • অপরপক্ষে অনলাইন ব্যাংকিং আপনার মূল ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার বহন করে।
  • মোবাইল ব্যাংকিং মোবাইলের তরঙ্গ (নেটওয়ার্ক) ব্যবহার করেই কাজ করতে পারে।
  • অনলাইন ব্যাংকিং ব্যবহার করতে হলে অবশ্যই ইন্টারনেটে যুক্ত থাকতে হবে।
  • মোবাইল ব্যাংকিংয়ে যে কোন মুহূর্তে যে কোন জায়গায় টাকা পাঠানো যায়।
  • অনলাইন ব্যাংকে যে কোন স্থানে টাকা পাঠানো যায় কিন্তু তার আগে বেনিফিশিয়ারি এ্যড করে নিতে হয়।
  • অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে মোবাইল ব্যাংকিং এর যেকোনো মুহূর্তে টাকা টান্সফার করা যায়, কিন্তু মোবাইল ব্যাংকিং থেকে অনলাইন ব্যাংকিং এ টাকা পাঠানো দুরূহ।
  • অনলাইন ব্যাংকিংয়ে মানিট্রান্সফার অংক অনেক বেশি, কিন্তু মোবাইল ব্যাংকিং এর লিমিট সীমিত।
  • মোবাইল ব্যাংকিং এ টাকা এনক্যাশ করতে এজেন্ট অর্থাৎ third-party লাগে, কিন্তু অনলাইন ব্যাংকিংয়ে এটা লাগেনা।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. নাগরিকদের জানা ভাল; মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান; পৃষ্ঠা নম্বর: ১৪৯; দ্বিতীয় মুদ্রণ: ফেব্রুয়ারি ২০১৫; প্রথমা প্রকাশন
  2. "The World's first WAP Bank is Norwegian"। itavisen.no। ১৯৯৯-০৯-২৪। ২০১১-০৫-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-১৮ 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]