মৃত্যু সংক্রান্ত ইসলামি দৃষ্টিভঙ্গি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ইসলামী পরিভাষায় মৃত্যু হচ্ছে জাগতিক জীবনের সমাপ্তি এবং মৃত্যু পরবর্তী জীবন তথা আখিরাত এর প্রবেশদ্বার। মৃত্যু হচ্ছে জাগতিক দেহ হতে আত্মার পৃথকীকরন এবং একই সাথে এই আত্মার জাগতিক দুনিয়া হতে আখিরাত এর উদ্দেশ্যে যাত্রা করা। সুতরাং মৃত্যু হচ্ছে চলমান জীবন প্রক্রিয়ার একটি পরিবর্তনীয় অবস্থা। ইসলামী দৃষ্টিকোন হতে সকল জীবিত প্রাণীর জন্যই মৃত্যু একটি সর্বোচ্চ ভয়াবহ অভিজ্ঞতা।

মৃত্যু সংক্রান্ত ইসলামী ব্যাখ্যা এতটাই ব্যাপক যেন এটা একটা ছবির মতই পরিষ্কার। ইসলাম মৃত্যুকালীন, মৃত্যু পরবর্তী জীবনকে বেশ স্পষ্ট করেই বর্ণনা করেছে। মৃত্যুর ফেরেশতা (মালাক উল মউত, যাকে আজরাইল ও বলা হয়) মৃত ব্যক্তির রুহ তথা আত্মা শরীর থেকে বের করে নিয়ে যান, এবং তার সাথে থাকেন আরও অন্যান্য ফেরশতারা. মৃত ব্যক্তির জাগতিক জীবনাচারের উপর ভিত্তি করে তার মৃত্যুর আয়োজন ঠিক করা হয়। সৎ পথে চালিত মু'মিন (বিশ্বাসী) ব্যাক্তির জন্য ফেরেশতারা খুবই দয়ালু এবং কোমল আচরন করেন এবং তার মৃত্যু হয় অপেক্ষাকৃত কম কষ্টদায়ক, অপর দিকে অসত্‍ কিংবা অবিশ্বাসী ব্যক্তিদের প্রতি ফেরেশতারা খুবই কঠোর আচরন করেন এবং তাদের মৃত্যু হয় অসীম যন্ত্রনাদায়ক। মৃত ব্যক্তির শেষকৃত্য সম্পাদনার পর তার নিকট মুনকার - নকীর নামক নীল চোখ এবং কালো গাত্রবর্ন বিশিষ্ট দুইজন প্রশ্নকারী ফেরেশতার অগমন ঘটে। তাঁরা মৃত ব্যক্তির ঈমান তথা বিশ্বাস পরীক্ষার জন্য তাকে প্রশ্ন করে থাকেন। সৎ বিশ্বাসী ব্যক্তিগন তাদের প্রশ্নের সঠিক উত্তর প্রদান করতে পারবে এবং তারা মৃত্যু পরবর্তী জীবনে শান্তিতে বসবাস করেত পারবে। কিন্ত অসৎ অবিশ্বাসী ব্যক্তিগন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবে না ফলে ফেরেশতারা তাদের জন্য কঠিন শাস্তির আয়োজন করবেন। মৃত্যুর পরবর্তী এই জীবনের শুরু হতে পুনরুত্থান কালীন সময় পর্যন্তকে বলা হয় বরযখআত্মহত্যা, কিংবা হত্যা ইসলামে অত্যন্ত ঘৃনিত এবং নিষিদ্ধ কাজ এবং কবিরা গুনাহ বা বড় ধরনের অপরাধ।

মৃত্যুর নিশ্চয়তা

ইসলামী দর্শন এবং ভাবধারায় মৃত্যু একটি নিশ্চিত এবং অবশ্যম্ভাবী ব্যাপার। এর দ্বারা শুধুমাত্র জীবনের পরিসমাপ্তি বুঝায় না বরং এর দ্বারা বুঝায় আত্মার অবস্থার পরিবর্তন। ইসলামী বিশ্বাস মতে সৃষ্টিকর্তা (আল্লাহ) এই জগত এবং জীবন সৃষ্টি করেছেন পরীক্ষা এবং মৃত্যু পরবর্তী জীবনের প্রস্তুতি পর্ব হিসেবে; এবং মৃত্যুর দ্বারা এই জাগতিক জীবনের সমাপ্তি ঘটে। এভাবে, প্রত্যেক ব্যক্তিই একটি মাত্র সুযোগ পায় তার পরবর্তী জীবনকে প্রস্তুত করবার এবং সৃষ্টিকর্তার সামনে দাড়াবার যেখানে তিনি প্রত্যেক ব্যক্তিরই আলাদা আলাদা হিসাব নেবেন এবং তাদের জাগতিক কর্মকান্ড এবং বিশ্বাসের ভিত্তিতে হয় তাদের পুরষ্কৃত করবেন নতুবা শাস্তি দেবেন। এবং মৃত্যু হচ্ছে জাগতিক জীবনের পরিসমাপ্তি এবং আখিরাত জগতের প্রবেশদ্বার। ইসলামী বিশ্বাস মতে, সকল প্রাণীরই মৃত্যুর সময় এবং স্থান পূর্বনির্ধারিত এবং তার মৃত্যুর সময় শুধুমাত্র আল্লাহই জানেন। সকল মুসলমানই আশা করেন তাদের শেষ কথা হবে তাদের বিশ্বাসের স্বীকৃতি স্বরুপ বিশেষ কালেমা ("আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে আল্লাহ ছাড়া কোন উপাস্য নেই এবং মুহাম্মদ [সাঃ] আল্লাহর রসূল")। এই কারনে মৃত ব্যক্তির নিকট উপস্থিত ব্যক্তিরা তাকে এই পড়বার জন্য উৎসাহিত করে থাকে। এবং তার নিকট বারবার এই বাক্য পাঠ করা হয়।