বুড়োশিব মন্দির, নবদ্বীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বুড়োশিব মন্দির, নবদ্বীপ
বুড়োশিব মন্দির
বুড়োশিবের মূর্তি
নবরত্ন ধারার বুড়োশিব মন্দির ও অনন্য ধারার বুড়োশিবের মূর্তি
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিহিন্দু ধর্ম
অবস্থান
অবস্থাননবদ্বীপ, নদিয়া, পশ্চিমবঙ্গ
স্থাপত্য
ধরনবাংলার মন্দির স্থাপত্য, নবরত্ন
সৃষ্টিকারীতারাপ্রসন্ন চূড়ামণি

বুড়োশিব মন্দির নবদ্বীপ শহরের একটি দ্বিশতাধিক প্রাচীন শিব মন্দির। বাংলার মন্দির স্থাপত্য রীতির নবরত্ন ধারায় মন্দিরটি নির্মিত হয়েছে। নবদ্বীপের বুড়োশিবতলায় মন্দিরটি অবস্থিত। মন্দিরটি দ্বিশতাধিক প্রাচীন হলেও শিব মূর্তিটি আরো বেশি প্রাচীনত্বের স্মৃতি বহন করছে।[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বুড়োশিবের আদি প্রাচীন মন্দিরটি নবদ্বীপ পৌরসভার প্রথম কমিটির সদস্য কৃষ্ণকান্ত শিরোমণি ১৮৮২ খ্রিস্টাব্দের পূর্বে প্রতিষ্ঠা করেন। পরে ১৯০৭ খ্রিস্টাব্দে তারাপ্রসন্ন চূড়ামণির প্রচেষ্ঠায় বর্তমান "নবরত্ন' মন্দিরটি নির্মাণ করেন। মন্দিরগাত্রের উৎকীর্ত ফলক থেকে জানা যায় যে মন্দিরটি ১৩১৬ বঙ্গাব্দে সংস্কৃত হয়। নবদ্বীপের প্রবীণ নাগরিকদের কাছ থেকে জানা যায় যে, মন্দিরের বারান্দা এবং চূড়াগুলির নির্মাণ ১৯০৭ খ্রিস্টাব্দে হলেও গর্ভগৃহটি প্রাচীন, পাতলা টালি ইটের নির্মিত।

প্রাচীনত্ব[সম্পাদনা]

বুড়োশিব

নবদ্বীপের বুড়োশিব মন্দিরটি প্রায় দ্বিশতাধিক প্রাচীন। তবে বুড়োশিব মূর্তিটি আরো অনেক পুরোনো। মনে করা হয় যে, সপ্তদশ শতকে বুড়োশিব মূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়। অষ্টাদশ শতকে রচিত কিছু গ্রন্থে এই বুড়োশিবের উল্লেখ পাওয়া যায়। অষ্টাদশ শতকে রচিত 'শ্রীশ্রীগৌরচরিত চিন্তামণি' গ্রন্থে সুস্পষ্টভাবে বুড়োশিবের কথা আছে। আবার ১৭৭০ খ্রিস্টাব্দে রচিত বিজয়রামসেন বিশারদের তীর্থমঙ্গলে বুড়োশিবের উল্লেখ পাওয়া যায়[২]-

আবার নরহরি চক্রবর্তী রচিত শ্রীশ্রীগৌরচরিত চিন্তামণি গ্রন্থে বলা হয়েছে-

ফলে সুস্পষ্টভাবে বলাই যায় যে বুড়োশিব নবদ্বীপে প্রায় ৩০০-৩৫০ বছর ধরে পূজিত হয়ে চলেছে।[১]পোড়ামাতলায় হত শিবের বিয়ে। বাসন্তীপুজোর দশমীর ভোরে বুড়োশিব আর যোগনাথ শিবের জোড়া বিয়ে হত। বিয়েতে স্ত্রী আচার, জলসাধা থেকে কোঁচানো ধুতি পরে বরযাত্রী যাওয়া কিংবা মালাবদল, কোনও কিছুই বাদ যেত না। তারপর চলত ঢালাও ভুরিভোজ। পোলাও, চাটনি, পায়েস ,মিষ্টি, লুচি-মণ্ডা থেকে খিচুড়ি-আলুর দম বাদ যেত না কিছুই। শিবের বিয়ে নবদ্বীপের অন্যতম নিজস্ব লোক উৎসব। সব মিলিয়ে বৈষ্ণবতীর্থ চৈত্র মাসে যেন শিবক্ষেত্র হয়ে উঠত। আজও চলছে সেই ঐতিহ্য। বরং নতুন মোড়কে পুরোনো উৎসব জমে উঠছে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. নবদ্বীপের ইতিবৃত্ত। নবদ্বীপ, নদিয়া: মৃত্যুঞ্জয় মণ্ডল। জানুয়ায়ী ২০১৩। পৃষ্ঠা ৩৩৪–৩৩৫।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. তীর্থমঙ্গল-বিজয়রামসেন বিশারদ, বঙ্গীয় সাহিত্য় পরিষদ, শ্লোক-১৩৩