তিমুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
তিমুর
চিত্র:Timor island2.png
১৯৮৯ সালে আকাশ থেকে তিমুরের একটি দৃশ্য
Timor-map.png
তিমুর ইন্দোনেশিয়া-এ অবস্থিত
তিমুর
তিমুর
শীর্ষ: ইন্দোনেশিয়া এবং পূর্ব তিমুরের মধ্যে তিমুরের রাজনৈতিক বিভাগ
নীচে: ইন্দোনেশিয়ার তিমুরের অবস্থান
ভূগোল
অবস্থানদক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া
স্থানাঙ্ক৯°১৪′ দক্ষিণ ১২৪°৫৬′ পূর্ব / ৯.২৩৩° দক্ষিণ ১২৪.৯৩৩° পূর্ব / -9.233; 124.933স্থানাঙ্ক: ৯°১৪′ দক্ষিণ ১২৪°৫৬′ পূর্ব / ৯.২৩৩° দক্ষিণ ১২৪.৯৩৩° পূর্ব / -9.233; 124.933
আয়তন৩০,৭৭৭ কিমি (১১,৮৮৩ মা)
আয়তনে ক্রম৪৪তম
সর্বোচ্চ উচ্চতা২৯৬৩ মি (৯৭২০ ফিট)
সর্বোচ্চ বিন্দুরামেলাউ
প্রশাসন
পূর্ব তিমুর
বৃহত্তর বসতিদিলি (জনসংখ্যা ২২২,৩২৩ ২০১৫ মোতাবেক)
ইন্দোনেশিয়া
প্রদেশপূর্ব নুসা তেনগারা
বৃহত্তর বসতিকুপং (পশ্চিম তিমুর) (জনসংখ্যা ৩৪৯,৩৪৪ ২০১১ মোতাবেক)
জনপরিসংখ্যান
জনসংখ্যা৩১৮২৬৯৩ (২০১৪)
জনঘনত্ব৯৪.৫ /কিমি (২৪৪.৮ /বর্গ মাইল)

তিমুর হল তিমুর সাগরের উত্তর তীরে এবং দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত একটি দ্বীপ। দ্বিপটি পূর্ব অংশে পূর্ব তিমুরের সার্বভৌম রাজ্য এবং পশ্চিম অংশ ইন্দোনেশিয়ার অংশ হিসাবে বিভক্ত। ইন্দোনেশিয়ান অংশ, পশ্চিম তিমুর নামেও পরিচিত, পূর্ব অংশটি নুসা তেনগারা প্রদেশের অংশ। পশ্চিম তিমুরের মধ্যে অবস্থিত ইস্ট টিয়ার্সের একটি ছিটমহল রয়ে যাকে ওইকেসেস জেলা বলা হয়। দ্বীপটি ৩০,৭৭৭ বর্গ কিলোমিটার (১১,৮৮৩ বর্গ মাইল) এলাকা জুড়ে বিস্তৃত রয়েছে। দ্বীপের নাম "টাইমুর" শব্দের থেকে এসেছে, মলয় ভাষাতে তিমুর শব্দের অর্থ হল পূর্ব; দ্বীপটির এরূপ নামকরণের কারণ দ্বীপটির অবস্থান। কারণ দ্বীপটি লেসা সুন্দা দ্বীপপুঞ্জের পূর্ব দিকে অবস্থিত।

ভাষা, জাতিগত গোষ্ঠী এবং ধর্ম[সম্পাদনা]

 

তিমুরের ভাষা মানচিত্র

মনুষ্যবিজ্ঞান তিমুরের ১১ টি বিশিষ্ট জাতিগত ভাষাগত গোষ্ঠীগুলিকে চিহ্নিত করেছে। ১১ টি গোষ্ঠীর মধ্যে প্রধান গোষ্ঠীগুলি হল পশ্চিম তিমুরের অটিনি এবং কেন্দ্রীয় ও পূর্ব তিমুরের তেতুম[১] বেশিরভাগ আদিবাসী টিমোরিস ভাষা ব্যবহার করে, যা কিনা ইন্দোনেশিয়ান দ্বীপপুঞ্জ জুড়ে কথিত অস্ট্রোনেসিয়ান ভাষার তিমুর-বাবার শাখার অন্তর্গত। যদিও লেক্সনিক প্রমাণের অভাব রয়েছে,[২] তিমুরের অ-অস্ট্রোনেসিয়ান ভাষাগুলি হালমহারা এবং পশ্চিম নিউ গিনিতে কথিত ভাষাগুলির সাথে সম্পর্কিত বলে মনে করা হয়।[১] কিছু ভাষা মিশ্রিত হয়ে আছে তাই তা বলা কঠিন যে, ভাষাগুলি কোন ভাষা পরিবার থেকে এসেছে।

পূর্ব তিমুরের মূল ভাষা তেতুম এবং পর্তুগিজ, যখন পশ্চিম তিমুরে মূল ভাষা ইন্দোনেশিয়ানপূর্ব তিমুরে ইন্দোনেশীয় ভাষা ব্যাপকভাবে কথিত।

তিমুর দ্বীপে মোট জনসংখ্যার প্রায় ৯০% জনসংখ্যা নিয়ে খ্রিস্টধর্ম দ্বীপটির প্রভাবশালী ধর্ম, কিন্তু পশ্চিম তিমুরের ৫৮% প্রটেস্ট্যান্ট এবং ৩৭% ক্যাথলিক এবং পূর্ব তিমুরে ৯৮% ক্যাথলিক এবং ১% প্রটেস্ট্যান্ট। ইসলাম ও অন্যান্য ধর্মগুলি দ্বীপের মধ্যে প্রায় ৫% জনগণের ধর্ম।

ভূগোল[সম্পাদনা]

তিমুর অস্ট্রেলিয়ার উত্তরে অবস্থিত, এবং পূর্বাঞ্চলীয় সুন্দা দ্বীপপুঞ্জের দ্বীপগুলির মধ্যে একটি। সুম্বা, বাবর এবং সংশ্লিষ্ট ছোট দ্বীপগুলির সঙ্গে তিমুরের উত্তরের সুন্দা দ্বীপের দক্ষিণ দিকের বাইরের দ্বীপপুঞ্জটি ফ্লোরাস, আলোর এবং অভ্যন্তরের দ্বীপগুলির সাথে এবং তাদের পাশে সুলভিসী দ্বীপ মিলিত ভাবে একটি দ্বীপমালা গঠন করে।

তিমুর দ্বীপ বাহ্যিক বান্দা আর্কের প্রধান দ্বীপ, যা অস্ট্রেলিয়ান মহাদেশের সাথে সংঘর্ষের দ্বারা সৃষ্টি হয়েছে। তিমুরের বেশিরভাগ ভূতত্ত্ব অনেক প্রাচীন। উত্তরের সুন্দা দ্বীপপুঞ্জের দ্বীপগুলোতে যেমন আগ্নেয়গিরি-প্রকৃতি রয়েছে, এখানে তা নেই। দ্বীপের প্রধান অক্ষের অভিযোজন এছাড়াও তার প্রতিবেশী দ্বীপের থেকে পৃথক। এই বৈশিষ্ট্যগুলি ইন্দো-অস্ট্রেলিয়ান প্লেটের উত্তর প্রান্তে থাকার ফলাফল হিসাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে কারণ এটি ইউরেশীয় প্লেটের সাথে মিলিত হয় এবং দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় প্রবেশ করে।[৩] দীর্ঘ শুষ্ক মৌসুম এবং সেইসাথে অস্ট্রেলিয়া হতে আগত গরম বায়ু প্রবাহ দ্বীপের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য। দ্বীপে নদী হিসাবে পূর্ব তিমুরের দক্ষিণাঞ্চল ও উত্তর লাওলো নদীগুলি অন্তর্ভুক্ত।

দ্বীপের বৃহত্তম শহরগুলি হল, ইন্দোনেশিয়াযর পশ্চিম তিমুর প্রদেশের রাজধানী কুপং এবং পূর্ব তিমুরের রাজধানী দিলি (যা একটি পর্তুগিজ ঔপনিবেশিক শহর) এবং বাকাওউ। দরিদ্র রাস্তাগুলি পূর্ব তিমুরের অভ্যন্তরস্থ অঞ্চলের জন্য পরিবহন ব্যবস্থাকে কঠিনতর করে তুলেছে।[৪] পূর্ব তিমুর একটি দরিদ্র দেশ, যেখানে ম্যালেরিয়া ও ডেঙ্গু জ্বরসহ স্বাস্থ্যগত সমস্যা রয়েছে। পূর্ব তিমুরের ক্ষেত্রে রাজস্ব হিসাবে তিমুর সাগরে গ্যাস ও তেল, কফি উৎপাদন এবং পর্যটন গুরুত্বপূর্ণ।

উদ্ভিদ ও প্রাণীজগত[সম্পাদনা]

তিমুর এবং এর সমুদ্র উপকূলের কাছের দ্বীপসমূহ যেমন আতৌরো, তার সৈকত ও প্রবালের জন্য ক্রমশ পরিচিত, সেইসাথে জ্যাকো দ্বীপ এবং উত্তরে তার অদূরবর্তী দ্বীপ বারাট দায়া সহ তিমুর এবং জল পর্ণমোচী অরণ্য গঠন করে। দ্বীপটি অতিতে গাছপালা, লতাগুল্মের জঙ্গলের সঙ্গে ক্রান্তীয় শুষ্ক পর্ণমোচী অরণ্য ছিল এবং বন্যপ্রাণীর জন্য খাদ্য উপযুক্ত সমৃদ্ধ ঘাসের অরণ্য ছিল। কিন্তু বেশিরভাগ মূল বন চাষের জন্য কেটে পরিষ্কার করা হয়েছে, বিশেষত তিমুরের উপকূল এবং আতৌরো মত ছোট দ্বীপগুলিতে। তিমুর দ্বীপের মাঝখানে একটি বড় অরণ্য এলাকা ছাড়াও বাগান রয়েছে। এই জীববৈচিত্র্যপূর্ণ এলাকাটি ওয়ালাসিয়ার অংশ। সেইসাথে এশীয় এবং অস্ট্রেলাসিয় অঞ্চলের উদ্ভিদ ও প্রাণির মিশ্রণও এখানে বিদ্যমান। এটি ওয়ালাসিয়ার পশ্চিম অংশে অবস্থিত। এখানে এশীয় প্রজাতিরই আধিক্য রয়েছে।

অধিকাংশ উদ্ভিদই পর্ণমোচী ধরণের, অর্থাৎ গাছের পাতা শুকনো মৌসুমে ঝরে যায়। তবে মূল ভূখণ্ডের বনভূমিতে চিরহরিৎ ও কাঁটাগাছও রয়েছে। নিম্নভূমি অঞ্চলের সাধারণ গাছগুলির মধ্যে রয়েছে Sterculia foetida, Calophyllum teysmannii এবং Aleurites moluccanus

প্লাইস্টোসিন যুগের সময় তিমুর কুমোডো ড্রাগনের মত বিলুপ্ত দৈত্য মনিটর লেজারের আবাসস্থল ছিল। ফ্লোরস, সুম্বা এবং সুলভিসির মতো তিমুরও একসময় হাতির নিকট আত্মীয় বিলুপ্ত বামপন্থী স্টিগোডটনের আবাসস্থল ছিল।

আজকের জীববৈচিত্র্যের বেশ কয়েকটি প্রাণীর প্রজাতি তিমুরে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, যেমন — তিমুর শাওন এবং তিমুর ইঁদুর। উত্তরের সাধারণ ককেসা এবং অস্ট্রেলিয়ান বংশোদ্ভূত মার্সুপিয়াল্স পাশাপাশি দেখা যায় এখানে।[৫] দ্বীপটিতে বেশ কয়েকটি পাখির প্রজাতি আছে, এগুলি প্রধানত এশীয় বংশের এবং কিছু অস্ট্রালাসিয় বংশের সাথে সম্পর্কযুক্ত। তিমুরে ২৫০টি প্রজাতি যার মধ্যে ২৪ টি প্রজাতি স্থানীয়। তিমুরের আপেক্ষিক বিছিন্নতার কারণে পাঁচটি প্রজাতি হুমকির মধ্যে রয়েছে। এর কারণ আপেক্ষিকভাবে তিমুরের বিচ্ছিন্নতা। এই প্রজাতি গুলি হল — কাঁকড়া-কুচি-ঘুঘু, জলাভূমি ঘোড়া, তিমুরের সবুজ পায়রা, তিমুর রাজকীয় পায়রা, এবং আইরিস লরিকিট।[৬]

তিমুরের জলাভূমিগুলিতে সমুদ্রের কুমির পাওয়া যায়, তিমুরের বনভূমিতে এবং তৃণভূমিগুলোতে রেটিকুলেটেড অজগর খুঁজে পাওয়া যায়। তবে, জনসংখ্যার আকার এবং অবস্থা এখনও অজানা।

তিমুরের ব্যাঙের প্রজাতিগুলির মধ্যে রয়েছে Duttaphrynus melanostictus, Hoplobatrachus tigerinus, Limnonectes timorensis, Litoria everetti এবং Polypedates leucomystax[৭] সম্প্রতি তিমুরে কালুলা গণের অন্তর্গত একটি মাইক্রোলাইহাইড ব্যাঙের নতুন প্রজাতি আবিষ্কৃত হয়েছে। [৮]

ক্রেটাসিয়াস পরবর্তী যুগের সামুদ্রিক মেরুদণ্ডী প্রাণীর জীবাশ্ম পূর্ব তিমুরের পাওয়া গেছে। জীবাশ্ম প্রাণীগুলির মধ্যে রয়েছে Globidens timorensis, ল্যাম্নিফর্মের শার্কস, কোয়েলাকাঁথ এবং চরিস্টোডরে চম্পসোসরাস।[৯]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আরও দেখুন: পূর্ব তিমুরের ইতিহাস এবং ইন্দোনেশিয়ার ইতিহাস
১৯৭৫ সালের জার্মানির এসএমএস গাজেল ' এর অভিযানের রিপোর্ট থেকে কোপাং এলাকার একটি তিমোরিসে যোদ্ধার প্রতিকৃতি।
টিমোর উপকূল বরাবর নৌকা

তিমুর দ্বীপ সম্পর্কে সবচেয়ে প্রাচীন ঐতিহাসিক বিবরণ ১৪ শতকের নাগরক্রেটাগামা, ক্যান্টো ১৪, থেকে জানা যায়। সেই সময় মাজাপিত রাজ্যের মধ্যে একটি দ্বীপ হিসাবে তিমুর চিহ্নিত ছিল। তিমুর প্রাচীন জাভা যুগের অন্তর্ভুক্ত ছিল, ১৪ তম শতাব্দীর চীনাভারতীয় মধ্যে সুগন্ধযুক্ত স্যান্ডেলউড, স্লেভ, মধু এবং মোম প্রভৃতি পন্যের বাণিজ্যের জন্য তিমুর দ্বীবে যোগাযোগ গড়ে ওঠে এবং ১৬ শতকের শেষের দিকে পর্তুগিজ এবং ডাচ উভয়ের দ্বারা এলাকাটি দখলকৃত হয়। ১৭ শতকের মাঝামাঝি কুপং-এ ডাচ জনবসতি গড়ে ওঠে এবং বিশ্বের কাছে পরিচিত হয়।

এ সময়ে ইউরোপীয় বসতি স্থাপিত হয় দ্বীপটিতে। তিমুর দ্বীপ ১৭৮৯ সালে বৌদ্ধদের কুখ্যাত বিদ্রোহের পর উইলিয়াম ব্লেগে এবং তার সাথে অনুগতের গন্তব্য ছিল। এটিই সেই স্থান্ম যেখানে ১৭৯১ সালে গ্রেট ব্যারিয়ার রিফের মধ্যে এইচ.এম.এস. প্যানডরা নামে একটি জাহাজ ডুবে যায়।

দ্বীপটি শতাব্দী ধরে রাজনৈতিকভাবে দুই ভাগে বিভক্ত। ডাচ ও পর্তুগিজ দ্বীপটির নিয়ন্ত্রণের জন্য ১৯৫২ সালে চুক্তির দ্বারা দ্বীপটিকে বিভক্ত করে, কিন্তু তারা ১৯১২ সালের চুক্তি না হওয়া পর্যন্ত সীমান্তের বিষয়টিকে আনুষ্ঠানিকভাবে সমাধান করে নি। পশ্চিম তিমুর ১৯৪৯ সাল পর্যন্ত ডাচ তিমুর নামে পরিচিত ছিল, যখন এটি ইন্দোনেশিয়ান তিমুর হয়ে উঠেছিল, তখন এই এলাকাটি ইন্দোনেশিয়া জাতির একটি অংশ হয়ে উঠেছিল যা পুরাতন নেদারল্যান্ডস ইস্ট ইন্ডিজ থেকে গঠিত হয়েছিল; পূর্ব তিমুর ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত পর্তুগিজ কলোনিতে পর্তুগিজ তিমুর নামে পরিচিত ছিল। পশ্চিম তিমুরের মধ্যে ওকুসী-অ্যামেনো-ছিটমহল অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

জাপান বাহিনী ১৯৪২ থেকে ১৯৪৫ পর্যন্ত সমগ্র দ্বীপটিকে দখল করে নিয়েছিল। প্রাথমিকভাবে অস্ট্রেলিয়ান কমান্ডোদের দ্বারা পরিচালিত গেরিলা অভিযান তাদেরকে প্রতিহত করেছিল।

১৯৭৪ সালে পর্তুগিজের সামরিক অভ্যুত্থানের পর পর্তুগিজরা তিমুর থেকে প্রত্যাবর্তন শুরু করে, পরবর্তীতে অভ্যন্তরীণ অস্থিরতা এবং কমিউনিস্ট ফ্রিলিলিন পার্টির ভয় ইন্দোনেশিয়াকে তিমুর আক্রমণে উৎসাহ দেয়, যারা একটি স্বাধীন পূর্ব তিমুর ধারণাটির বিরোধিতা করেছিল। ১৯৭৫ সালে, পূর্ব তিমুর ইন্দোনেশিয়ার সঙ্গে সংযুক্ত হয় এবং তিমুর তিমুর বা 'টিম-টিম' নামে পরিচিত হয়ে ওঠে। জাতিসংঘের (জাতিসংঘ) বা পর্তুগাল কর্তৃক এটি স্বীকৃত ছিল না।

পূর্ব তিমুরের জনগণ ফালিন্টিলের সামরিক শাখার মাধ্যমে একটি দীর্ঘমেয়াদি গেরিলা যুদ্ধের দ্বারা ৩৫,০০০ ইন্দোনেশিয়ার সৈন্যদের প্রতিহত করেছিল। কিন্তু ইন্দোনেশিয়া ও পর্তুগালের মধ্যে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে কৃত চুক্তির অধীনে ১৯৯৯ সালে অনুষ্ঠিত গণভোট পর্যন্ত সমগ্র দ্বীপ ইন্দোনেশিয়ার নিয়ন্ত্রণে ছিল। ইন্দোনেশিয়ার জনগণের দ্বারা স্বায়ত্বশাসনের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান হওয়ার পরে, জাতিসংঘ দ্বারা অস্থায়ীভাবে পূর্ব তিমুর শাসিত হয়, যতক্ষন না পর্যন্ত পূর্ব তিমুর ২০০২ সালে তিমুর-লেস্টে হিসাবে ফালিন্টিল নেতা জনানা গাসমুও-এর রাষ্ট্রপতিত্বের অধীন স্বাধীন হয়ে ওঠে। যদিও রাজনৈতিক শত্রুতা অব্যাহত নতুন জাতি দারিদ্রের সঙ্গে সমস্যা সামলাচ্ছেন জাতিসংঘের উপস্থিতি অনেক কমে যায়।

তিমুরের ইন্দোনেশিয়ান অংশের একটি দল ২০০১ সাল থেকে একটি গ্রেট তিমুর রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার চেষ্টায় সক্রিয় হয়েছে।[১০] যাই হোক, পশ্চিম তিমুরের মানুষ, যাদের বেশিরভাগই পূর্ব তিমুরের ঐতিহ্যগত শত্রু যারা অটোনি জাতিভুক্ত, তাদের উপজাতীয় শত্রুদের সাথে যোগদানের ব্যাপারে কোনও আগ্রহ আছে কি না এমন কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তৎকালীন পূর্ব তিমুরের স্বাধীনতা আন্দোলন কখনোই ইন্দোনেশিয়ার আগ্রাসনের আগে বা তার পরেই পশ্চিম তিমুরের দাবির মুখোমুখি হয়নি। একইভাবে, পূর্ব তিমুর সরকার সম্পূর্ণ ইন্দোনেশিয়ার বিদ্যমান সীমানাকে স্বীকৃতি হিসেবে গ্রহণ করে যা নেদারল্যান্ড ইস্ট ইন্ডিজ থেকে উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত। এটি পশ্চিম নিউ গিনির সাথে সম্পর্কিত পাপুয়া নিউ গিনির অবস্থানের অনুরূপ, যখন তারা প্রাক্তন অস্ট্রেলিয়া থেকে স্বাধীন হয়ে ওঠে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Taylor, Jean Gelman (২০০৩)। Indonesia: Peoples and Histories। New Haven and London: Yale University Press। পৃষ্ঠা 378। আইএসবিএন 0-300-10518-5 
  2. Gary Holton; Laura C. Robinson (২০১৪)। "The linguistic position of the Timor-Alor-Pantar languages"। Klamer, Marian। The Alor-Pantar languages 
  3. Audley-Charles, M.G. (1987) "Dispersal of Gondwanaland: relevance to evolution of the Angiosperms" In: Whitmore, T.C. (ed.) (1987) Biogeographical Evolution of the Malay Archipelago Oxford Monographs on Biogeography 4, Clarendon Press, Oxford, pp. 5–25, আইএসবিএন ০-১৯-৮৫৪১৮৫-৬
  4. 15: 502–513। doi:10.2307/4029980 (নিষ্ক্রিয় ২০১৭-০১-১৫)। জেস্টোর 4029980  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  5. IUCN Red List: Northern Common Cuscus accessed 17 June 2010
  6. টেমপ্লেট:WWF ecoregion
  7. Kaiser H, Ceballos J, Freed P, Heacox S, Lester B, Richards S, Trainor C, Sanchez C, O’Shea M (2011) The herpetofauna of Timor-Leste: a first report. ZooKeys 109: 19-86. https://doi.org/10.3897/zookeys.109.1439
  8. O'Shea, Marc and Sanchez, Caitlin. 2015. Herpetological Diversity of Timor-Leste: Updates and a Review of Species Distributions. Asian Herpetological Research, 6(2): 73-131. https://doi.org/10.16373/j.cnki.ahr.140066
  9. J. H. F. Umbgrove, Structural History Of The East Indies
  10. etan.org

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • উইকিঅভিধানে তিমুর-এর আভিধানিক সংজ্ঞা পড়ুন
  • উইকিভ্রমণ থেকে তিমুর ভ্রমণ নির্দেশিকা পড়ুন
  • উইকিমিডিয়া কমন্সে তিমুর সম্পর্কিত মিডিয়া দেখুন