টুয়েলভ ইয়ার্স আ স্লেইভ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
টুয়েলভ ইয়ার্স আ স্লেইভ
টুয়েলভ ইয়ার্স আ স্লেইভ চলচ্চিত্রের পোস্টার.jpg
পোস্টার
পরিচালকস্টিভ ম্যাকুইন
প্রযোজক
  • ব্র্যাড পিট
  • ডিড গার্ডনার
  • জেরেমি ক্লেইনার
  • বিল পোলাড
  • স্টিভ ম্যাকুইন
চিত্রনাট্যকারজন রিডলি
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকারহান্স জিমার
চিত্রগ্রাহকশন ববিট
সম্পাদকজো ওয়াকার
প্রযোজনা
কোম্পানি
সামিট এন্টারটেইনমেন্ট
রিজেন্সি এন্টারপ্রাইজ
রিভার রোড এন্টারটেইনমেন্ট
প্ল্যান বি এন্টারটেইনমেন্ট
নিউ রিজেন্সি প্রডাকশন্স
ফিল্মফোর প্রডাকশন্স
পরিবেশকফক্স সার্চলাইট পিকচার্স (উত্তর আমেরিকা)
লায়ন্সগেট / সামিট এন্টারটেইনমেন্ট
মুক্তি৩০ আগস্ট ২০১৩
দৈর্ঘ্য১৩৪ মিনিট[১]
দেশ
  • যুক্তরাষ্ট্র
  • যুক্তরাজ্য
ভাষাইংরেজি
নির্মাণব্যয়২২ মিলিয়ন ডলার[২]
আয়১৮৭.৭ মিলিয়ন ডলার[৩]

টুয়েলভ ইয়ার্স আ স্লেইভ ২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া জীবনীমূলক চলচ্চিত্র। সলোমন নর্থাম্প নামের একজন কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান ভদ্রলোকের ভাগ্যের ফেরে দাস হয়ে বারো বছর কাটানোর কাহিনী। সলোমন নর্থাম্প এর একই নামের লেখা বই থেকে ভিত্তি করে চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়েছে।

কাহিনী সংক্ষেপ[সম্পাদনা]

১৮৪১ সালে আমেরিকার দাস প্রথার যুগ। কালো মানুষ আফ্রিকান-আমেরিকান সলোমন নর্থাম্প। স্থানীয় আইন অনুসারে একজন স্বাধীন মানুষ। ভায়োলিন বাজিয়ে, স্ত্রী অ্যান আর দুই সন্তান মার্গারেট আর আলোনযো-কে নিয়ে আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরে থাকতেন। স্বাভাবিক জীবনই পার করছিলেন সেখানে। একদিন দুই অচেনা ব্যক্তি তাকে ভালো বেতনে এক জায়গায় কাজের প্রস্তাব দেয়। রাজি হয় সলোমন। কিন্তু দুজন তাকে এক দাস ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করে দেয়। মুহূর্তের মধ্যে পাল্টে যায় সলোমনের জীবন। বিভীষিকাময় পরিস্থিতিতে পড়ে যায় সে। তার নাম পর্যন্ত পাল্টে ফেলা হয়। নতুন নাম রাখা হয় প্ল্যাট। নানান ঘটনা, দুর্ঘটনার মধ্য দিয়ে কাহিনী এগিয়ে চলে।

কুশীলব[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "12 YEARS A SLAVE (15)"Fox Searchlight Picturesব্রিটিশ বোর্ড অব ফিল্ড ক্লাসিফিকেশন। ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৪ 
  2. "2013 Feature Film Production Report" (PDF)Film L.A.। মার্চ ৬, ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৮, ২০১৪ 
  3. "12 Years a Slave (2013)"বক্স অফিস মোজো। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১০, ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]