কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ
Qazi Kholiquzzaman Ahmad.jpg
সভাপতি পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন
কাজের মেয়াদ
২০০৯ – বর্তমান
সভাপতি ঢাকা স্কুল অব ইকোনমিক্স
কাজের মেয়াদ
২০১০ – বর্তমান
পূর্বসূরীপদ সৃষ্টি
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1943-03-12) ১২ মার্চ ১৯৪৩ (বয়স ৭৬)
সিলেট, আসাম, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি (বর্তমান বাংলাদেশ)
জাতীয়তাবাংলাদেশী
দাম্পত্য সঙ্গীডঃ জাহেদা আহমদ
প্রাক্তন শিক্ষার্থীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স
জীবিকাঅর্থনীতিবিদ
পরিবেশবিদ
ধর্মইসলাম
ওয়েবসাইটঅফিসিয়াল ওয়েবসাইট

কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ (জন্ম: ১২ মার্চ, ১৯৪৩) হলেন একজন স্বনামধন্য বাংলাদেশী অর্থনীতিবিদ, উন্নয়ন চিন্তাবিদ ও পরিবেশকর্মী।[১][২] তিনি বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবিধানিক ইনস্টিটিউট ঢাকা স্কুল অব ইকোনমিক্স এর সভাপতি এবং পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর সভাপতি।[৩][৪] দারিদ্য বিমোচনে অবদানের জন্য ২০০৯ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে একুশে পদকে ভূষিত করে।[৫]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

খলীকুজ্জমান ১৯৪৩ সালের ১২ মার্চ তৎকালীন বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির আসামের (বর্তমান বাংলাদেশ) সিলেট জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মুমতাজুল মুহাদ্দিসিন মাওলানা মোঃ মুফাজ্জল হুসাইন ১৯৪৬ সাল থেকে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত আসামের এমএলএ[৬] এবং পরবর্তীতে কলেজের অধ্যাপক ছিলেন। আহমদ স্কুলে যাওয়ার পূর্বে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত তার পিতার কাছেই পাঠ গ্রহণ করেন। তিনি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ভালো ফলাফল অর্জন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখান থেকে তিনি অর্থনীতি বিষয়ে ১৯৬১ সালে ব্যাচেলর ডিগ্রি ও ১৯৬২ সালে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। পরে তিনি লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স থেকে জাতীয় মেধা ফেলোশিপ লাভ করেন এবং সেখান থেকে অর্থনীতি বিষয়ে এমফিল ও পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।

আহমদ ১৯৬০ এর দশকে বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী চেতনা প্রচারণায় সক্রিয় ছিলেন এবং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন বাংলাদেশের নির্বাসিত সরকারের পরিকল্পনা শাখায় কাজ করেন।[৭][৮]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

খলীকুজ্জামান ২৩ বছর যাবত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ ডেভলপমেন্ট স্টাডিজ (বিআইডিএস) এবং এর পূর্বতন পাকিস্তান ইনস্টিটিউট অফ ডেভলপমেন্ট ইকোনোমিক্সে (পিআইডিই) গবেষণা পেশায় এবং কয়েক বছর গবেষণা পরিচালক হিসেবেও নিয়োজিত ছিলেন। তিনি ১৯৮৭ সালে বিআইডিএসের গবেষণা থেকে ইস্তফা দেন এবং ১৯৮০ সালে বাংলাদেশ উন্নয়ন পরিষদ প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখেন এবং এর প্রধান নির্বাহী হিসেবে যোগ দেন। তিনি ২০০৯ সালের নভেম্বর মাসে পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি পদ লাভ করার[৯] পর বাংলাদেশ উন্নয়ন পরিষদ থেকে ইস্তফা নেন। তিনি ঢাকা স্কুল অব ইকোনমিক্সের প্রতিষ্ঠাতা, যা ২০১০ সালের আগস্ট মাসে প্রতিষ্ঠিত হয়। তিনি ২০০২ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত টানা তিনবার বাংলাদেশের অর্থনীতিবিদদের সর্বোচ্চ পরিষদ বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন।

তিনি বর্তমানে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলনের গঠনতন্ত্রের বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন চুক্তি দলের সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করছেন।[১০][১১] তিনি ২০১৫ পূর্ব টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার জাতিসংঘের ওপেন ওয়ার্কিং গ্রুপে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন।[১২] এছাড়া তিনি কিয়োটো প্রোটোকল-এর এক্সিকিউটিব বোর্ড অফ ক্লিন ডেভলপমেন্টের সদস্য হিসেবে নন-অ্যানেক্স-১ দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন।।[১৩]

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

  • ২০০৯: ট্যাকলিং সোশ্যাল এক্সক্লুশন: সাউথ এশিয়া, ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিটিউট।
  • ২০০৮: ইন্টারলিংকিং অফ রিভারস ইন ইন্ডিয়া: ইস্যুজ অ্যান্ড কনসার্ন্‌স, সিআরসি প্রেস, ২৮ জুলাই ২০০৮।
  • ২০০৭: সোশিও-ইকোনমিক অ্যান্ড ইন্ডেটনেস-রিলেটেড ইমপ্যাক্ট অফ মাইক্রো-ক্রেডিট ইন বাংলাদেশ, অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ, আইএসবিএন ৯৮৪-০৫১৭-৭৮-৩
  • ২০০৫: ইমার্জিং ইকোনমিক অর্ডার অ্যান্ড দ্য ডেভলপিং কান্ট্রিজ, (সম্পাদক), ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড (ইউপিএল), আইএসবিএন ৯৮৪-০৫১৭-৫৭-০
  • ২০০৫: ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড ওয়াটার রিসোর্সেস ইন সাউথ এশিয়া, (সহ-সম্পাদক), ফ্রান্সিস অ্যান্ড টেইলর, আইএসবিএন ০-৪১৫-৩৬৪৪২-৬
  • ২০০১: গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা রিজিয়ন: অ্যা ফ্রেমওয়ার্ক ফর সাসটেইনেবল ডেভলপমেন্ট, (সহ-সম্পাদক), ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড (ইউপিএল), আইএসবিএন ৯৮৪০৫১৬০৮৬
  • ১৯৯৬: দ্য ইমপ্লিকেশন্স অফ ক্লাইমেট অ্যান্ড সী-লেভেল চেঞ্জ ফর বাংলাদেশ, (সহ-সম্পাদক), ক্লুওয়ার অ্যাকাডেমিক পাবলিশার্স, আইএসবিএন ০৭৯২৩৪০০১৯
  • ১৯৮৪: রুরাল পোভার্টি অ্যালিভেশন ইন বাংলাদেশ এক্সপেরিয়েন্সেস অ্যান্ড পলিসিস, (সহ-সম্পাদক)।

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Socio-economic progress and shaping the future, article by QK Ahmad"দ্য ডেইলি স্টার। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ 
  2. "Call for low to ensure food, discussion led by QK Ahmad"দ্য ডেইলি স্টার। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ 
  3. "Archived copy"। ৫ জুলাই ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ , Chairman of PKSF
  4. "Microcredit 'death trap' for Bangladesh's poor, Precipitated by Chairman of PKSF"বিবিসি বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ 
  5. "কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ 
  6. [১], Member (MLA) of the Assam Legislative Assembly from 1946–52
  7. Ashfaque Hossain, History of Liberation War of Moulvibazar District, published by Syed Mofassir Ali, Moulvibazar, Bangladesh, 1997. (Liberation War 1971)
  8. Planning Cell of Bangladesh Government-in-Exile during Bangladesh liberation war in 1971
  9. "পিকেএসএফের নতুন সভাপতি কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ"দৈনিক প্রথম আলো। ৪ ডিসেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ 
  10. UNFCCC: Coordinator of Bangladesh, ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস।
  11. UNFCCC: Climate change coordinator of Bangladesh, ইউএনএফসিসিসি।
  12. Represents Bangladesh in the UN Open Working Group (OWG), আইআইএসডি।
  13. Executive Board member of Clean Development Mechanism (CDM), ইউএনএফসিসিসি।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]