ঈষৎলোনা পানি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জলের লবণাক্ততার উদাহরণ (পিপিটি)

ঈষৎলোনা পানি হলো এমন ধরনের জল যার লবণাক্ততার পরিমাণ স্বাদু জলের চেয়ে বেশি কিন্তু সমুদ্রের জলের চেয়ে কম। এই জল প্রধানতঃ সমুদ্রের সাথে নদী যেখানে মিলিত হয়েছে অর্থাৎ নদীর মোহনা বা তার নিম্নাংশে, বা জীবাশ্ম ভূগর্ভস্থ সিক্ত শিলাস্তরে দেখা যায়।[১] শব্দটি মধ্য ওলন্দাজ মূলশব্দ "ব্রেক" থেকে এসেছে। নির্দিষ্ট মনুষ্যোচিত কার্যকলাপ বিশেষ করে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং প্রকল্প যেমন পরিখা এবং উপকূলীয় জলাভূমি প্লাবীত করে স্বাদু জলের চিংড়ি চাষের জন্য ঈষৎলোনা পানির জলাশয় তৈরি করা হয়। লবণাক্ততার নতিমাত্রা নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়ার প্রাথমিক বর্জ্য হিসেবেও ঈষৎলোনা পানি পাওয়া যায়। কারণ ঈষৎলোনা পানি বেশিরভাগ স্থলজ উদ্ভিদের প্রজাতির বিকাশের প্রতিকূল, উপযুক্ত ব্যবস্থাপনা ছাড়া এটি পরিবেশের ক্ষতি করে (আরও দেখুন চিংড়ি চাষ)।

প্রযুক্তিগতভাবে লোনা জলে প্রতি লিটারে ০.৫ থেকে ৩০ গ্রাম লবন থাকে - এটিকে প্রায়শই প্রতি হাজারে ০.৫ থেকে ৩০ ভাগ (‰) হিসাবে প্রকাশ করা হয়, যার আপেক্ষিক গুরুত্ব ১.০০০৪ থেকে ১.০২২৬ এর মধ্যে হয়ে থাকে। সুতরাং, ঈষৎলোনা বিভিন্ন লবণাক্ততা ব্যবস্থাকে অন্তর্ভুক্ত করে এবং একে সংজ্ঞায়িত শর্ত হিসাবে বিবেচনা করা হয় না। এটি অনেকগুলি ঈষৎলোনা পানির পৃষ্ঠের বৈশিষ্ট্য যা তাদের লবণাক্ততা স্থান বা সময়ের সাথে যথেষ্ট পরিবর্তিত হতে পারে।

ঈষৎলোনা পানির জীবকূল[সম্পাদনা]

ঈষৎলোনা পানির মাছ: সিলভার মুনি

মোহনা[সম্পাদনা]

মিঠা জল যখন সমুদ্রের জলের সাথে মিলিত হয় তখন সাধারণত ঈষৎলোনা পানির অবস্থা তৈরি হয়। বস্তুতপক্ষে বিশ্বব্যাপী সর্বাধিক বিস্তৃত ঈষৎলোনা পানির এলাকা হলো মোহনা, যেখানে একটি নদী সমুদ্রের সাথে মিলিত হয়।

লন্ডন দিয়ে প্রবাহিত টেমস নদীর মোহনা একটি ধ্রুপদী নদীর মোহনা। লন্ডনের কয়েক মাইল পশ্চিমে টেডিংটন শহরটি টেমসের জোয়ার এবং অ-জোয়ার অংশের মধ্যে সীমানা চিহ্নিত করেছে, যদিও এটিকে একটি মিঠা জলের নদী হিসাবে বিবেচনা করা হয় এর  এর গড় লবণাক্ততা খুবই কম এবং এতে মূলত রোচ, ডেস, কার্প, পার্চ এবং পাইকের মতো মিঠা জলের প্রাণিকূল বাস করে। টেমস নদীর মোহনায় ব্যাটারসি এবং গ্রাভসেন্ডের মধ্যে ঈষৎলোনা হয়ে ওঠে এবং এখানে মিষ্টি জলের মাছের প্রজাতির বৈচিত্র্য আরও কম, প্রাথমিকভাবে রোচ এবং ডেস; ইউরিহেলিন সামুদ্রিক প্রজাতি যেমন ফ্লাউন্ডার, ইউরোপীয় সীবাস, মুলেট এবং স্মেল্ট একানে আরও বেশি সাধারণ হয়ে ওঠে। পূর্বদিকে নদীটি গ্রাভস্যান্ডে না পৌঁছানো পর্যন্ত লবণাক্ততা বৃদ্ধি পায় এবং মিঠা জলের মাছের প্রজাতিগুলি ইউরিহেলিন সামুদ্রিক প্রজাতি দ্বারা সম্পূর্ণরূপে প্রতিস্থাপিত হয়, তখন এই অবস্থার পুরোপুরি সামুদ্রিক হয়ে যায় এবং মাছের প্রজাতিটি সংলগ্ন উত্তর সাগরের সাথে মিলিত হয় এবং ইউরিহেলিন এবং স্টেনোহেলিন উভয় সামুদ্রিক প্রজাতিই এর অন্তর্ভুক্ত করে। প্রতিস্থাপনের অনুরূপ প্যাটার্নটি জলজ উদ্ভিদ এবং নদীতে বসবাসকারী ইনভার্টেব্রেট এর সাথে দেখা যায়।[২][৩]

মিঠা জল থেকে সামুদ্রিক বাস্তুসংস্থায় এই জাতীয় পরিবেশগত পারম্পর্য নদীর মোহনাগুলির বৈশিষ্ট্য। অ্যানড্রোমাস এবং ক্যাটাড্রোমাস মাছের প্রজাতি যেমন স্যামন, শ্যাড এবং ঈল স্থানান্তরিত হওয়ার সময় নদীর মোহনাগুলি গুরুত্বপূর্ণ মধ্যবর্তী অবস্থান তৈরি করে, তাদের সামাজিক দল গঠনের এবং লবণাক্ততার পরিবর্তনের সাথে সামঞ্জস্য হওয়ার সময় দেয়। স্যামন হলো অ্যানড্রোমাস, অর্থাৎ এরা সমুদ্রে বাস করে তবে নদীতে ডিম ছাড়ে; ঈল হলো ক্যাটাড্রোমাস, এরা নদী এবং স্রোতে বসবাস করে, তবে প্রজননের জন্য সমুদ্রে ফিরে আসে। প্রজাতিগুলি মোহনার মাধ্যমে স্থানান্তরিত হয়, এছাড়াও আরও অনেক মাছ রয়েছে যেগুলি ডিম ছাড়ার মোহনাকে জন্য "নার্সারি গ্রাউন্ড" হিসাবে ব্যবহার করে আবার কোথাও কোথাও অন্যত্র যাওয়ার আগে বাচ্চা মাছ প্রতিপালিত হতে এবং বৃদ্ধি পেতে এটি ব্যবহৃত হয়। বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ দুটি প্রজাতি হেরিং এবং প্লেইস এই উদ্দেশ্যে টেমস নদীর মোহনা ব্যবহার করে।

মোহনাসমূহ সাধারণত মাছ ধরার ক্ষেত্র এবং মাছ চাষ বা পালনের স্থান হিসাবে ব্যবহৃত হয়।[৪] উদাহরণস্বরূপ, আটলান্টিক স্যামন খামারগুলি প্রায়শই মোহনাগুলিতে অবস্থিত, যদিও এটি বিতর্ক সৃষ্টি করেছে, কারণ এটি করার ফলে, মাছ চাষীরা প্রাকৃতিক মাছকে প্রচুর পরিমাণে বহিরাগত পরজীবীতে যেমন সামুদ্রিক উকুনে যা খোঁয়াড় থেকে নির্গত হয় তা দ্বারা মাছগুলিতে আক্রান্ত করে।[৫]

ম্যানগ্রোভ[সম্পাদনা]

আর একটি গুরুত্বপূর্ণ ঈষৎলোনা পানির আবাসস্থল হচ্ছে ম্যানগ্রোভ জলাভূমি বা মঙ্গল। সবগুলো না হলেও অনেক ম্যানগ্রোভ জলাভূমি মোহনা এবং লেগুনের পাড়ে অবস্থিত যাতে জোয়ারের ফলে লবণাক্ততা পরিবর্তিত হয়। ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চলের সর্বাধিক বিশেষায়িত প্রাণিদের মধ্যে আছে চিড়িং মাছ, জমিতে খাবার খোজা মাছ এবং তিরন্দাজ মাছ, পার্চ জাতীয় মাছ যারা জলের ওপর নুয়ে পড়া গাছের ডাল বা জলজ উদ্ভিদের গায়ে বসে থাকা পোকামাকড় শিকার করতে "পিক" ছোড়ে এবং জলের তির খেয়ে পোকা ছিটকে পড়লে তাদের ধরে খায় তিরন্দাজ মাছ। মোহনার মতো ম্যানগ্রোভ জলাভূমিগুলিও অনেক মাছের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রজনন ক্ষেত্র, যেমন স্নেপার, হাফবিক এবং তার্পুন ডিম ছাড়ে বা পরিপূর্ণতা লাভ করে এখানে। মাছের পাশাপাশি, অন্যান্য অসংখ্য প্রাণী ম্যানগ্রোভ অঞ্চরে বাস করে, যেমন লোনা জলের কুমির, আমেরিকান কুমির, প্রবোসকিস বানর, ডায়মন্ডব্যাক টেরাপিন এবং কাঁকড়াভুক ব্যাঙ, ফেজারভেরিয়া ক্যানক্রিভোরা (সাবেক রানা ক্যানক্রিভোরা)। ম্যানগ্রোভগুলি বক, মানিকজোড়, স্পুনবিল, আইবাইস, মাছরাঙ্গা, পানিকাটা পাখি এবং সামুদ্রিক পাখির মতো অসংখ্য পাখির বাসা তৈরির জন্য গুরুত্বপূর্ণ এলাকা।

যদিও প্রায়শই অঞ্চলটি মশা এবং অন্যান্য পোকামাকড়ে পূর্ণ থাকে এবং এগুলি মানুষের জন্য অপ্রীতিকর হলেও ম্যানগ্রোভ জলাভূমিগুলি ভূমি এবং সমুদ্রের মধ্যে খুব গুরুত্বপূর্ণ নিরাপদ অঞ্চল এবং বিশেষ করে ঘূর্ণিঝড় এবং সুনামির ক্ষতির বিরুদ্ধে একটি প্রাকৃতিক প্রতিরক্ষা গড়ে তোলে।[৬]

সুন্দরবন এবং ভিতরকণিকা ম্যানগ্রোভ বঙ্গোপসাগরের উপকূলে অবস্থিত পৃথিবীর দুটি বৃহৎ ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল।

ঈষৎলোনা পানির সমুদ্র ও হ্রদ[সম্পাদনা]

কিছু সাগর এবং হ্রদ ঈষৎলোনা পানির। উত্তর সাগর সংলগ্ন বাল্টিক সাগর একটি ঈষৎলোনা পানির সাগর। মূলত প্লাইস্টোসিন যুগের আগের দুটি প্রধান নদী ব্যবস্থার সংগমস্থল, তখন থেকে এটি উত্তর সাগরের জল দ্বারা প্লাবিত হয়েছে তবে তারপরও পার্শ্ববর্তী ভূমি থেকে এতখানি স্বাদুজল পেত যে এর জল ঈষৎলোনা। যেহেতু সমুদ্র থেকে আসা লবণাক্ত জল স্বাদুজলের চেয়ে ঘন, ফলে বাল্টিকের লবনাক্ত জল স্তরিত হয়ে নীচে থাকে এবং কম ঘনত্বের মিঠা জল উপরে থাকে। জোয়ার এবং ঝড়ের অভাবের কারণে সীমিত মিশ্রণ ঘটে, ফলস্বরূপ মিশ্রণের উপরের পৃষ্ঠে মিঠা জলের মৎস প্রাণীকূল  এবং নীচের অংশে সামুদ্রিক প্রাণি বেশি থাকে। কড এমন একটি প্রজাতির উদাহরণ যা কেবলমাত্র বাল্টিকের গভীর জলে পাওয়া যায়, তবে পাইক কম লবণাক্ত পৃষ্ঠের জলে সীমাবদ্ধ থাকে।

কাস্পিয়ান সাগর পৃথিবীর বৃহত্তম হ্রদ এবং এটি ঈষৎলোনা পানি ধারণ করে, এর লবনাক্ততা সাধারণ সমুদ্রের জলের এক-তৃতীয়াংশ। কাস্পিয়ান সাগর কয়েকটি অ-সামুদ্রিক সীলগুলির একটি (কাস্পিয়ান সিল) এবং ক্যাভিয়ারের একটি প্রধান উৎস গ্রেট স্টারজেন সহ তার বৈশিষ্ট্যসূচক প্রাণিকূলের জন্য বিখ্যাত।

আর্কটিক মহাসাগরের হাডসন উপসাগর  একটি ঈষৎলোনা প্রান্তিক সমুদ্র, খোলা মহাসাগরের সাথে সীমিত সংযোগ, বৃহৎ হডসন উপসাগরের নিষ্কাশন অববাহিকা থেকে অধিক পরিমানে মিঠা জলের প্রবাহ পতিত হওয়া, এবং বছরের অর্ধেকেরও বেশি সময় ধরে পুরোপুরি বরফে আবৃত থাকার কারণে বাষ্পীভবনের নিম্ন হার প্রভৃতি কারণে এটি ঈষৎলোনা পানি ধারন করে।

কৃষ্ণ সাগরে পৃষ্ঠের জল ঈষৎলোনা, এর গড় লবনাক্ততা প্রায় ১৭-১৮ সহস্রাংশ যা মহাসাগরের লবনাক্ততা ৩০ থেকে ৪০ সহস্রাংশের তুলনায় কম।[৭] কৃষ্ণ সাগরে গভীর, স্বল্প অক্সিজেনযুক্ত পানি ভূমধ্যসাগরের উষ্ণ, লবনাক্ত জল থেকে উৎপন্ন হয়।

টেক্সোমা হ্রদ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস এবং ওকলাহোমা সীমান্তের একটি জলাধার, এটি ঈষৎলোনা পানি হ্রদের একটি বিরল উদাহরণ যা বদ্ধ অববাহিকার অংশও নয় আবার সমুদ্রের প্রত্যক্ষ বাহুর অংশও নয় যদিও এর লবণাক্ততা এখানে বর্ণিত অন্যান্য জলাশয়গুলির তুলনায় যথেষ্ট কম। জলাধারটি দক্ষিণের লোহিত নদীতে বাঁধ দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল, যা (এর বেশ কয়েকটি উপনদী সহ) উজানের অঞ্চলের সমাহিত জমা থেকে প্রাকৃতিক প্রস্রাবণের ফলে প্রচুর পরিমাণে লবণ গ্রহণ করে। এর লবণাক্ততা যথেষ্ট পরিমাণে থাকে যে স্ট্রিপড বাস (এমন একটি মাছ যা সাধারণত লবনাক্ত জলে পাওয়া যায়) এখানে পাওয়া যায়।[৮][৯]

ঈষৎলোনা জলাভূমি[সম্পাদনা]

কোনো লবণাক্ত জলাভূমিতে মিষ্টি জলে প্রবাহ এসে পতিত হলে সেটি ঈষৎলোনা জলাভূমিতে পরিণত হয়।

উল্লেখযোগ্য উদাহরণ[সম্পাদনা]

মানচিত্রে চিলিকা হ্রদ; ভারতের বৃহত্তম হ্রদ।
ঈষৎলোনা পানির সাগর
ঈষৎলোনা পানির হ্রদ

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. নূরউদ্দিন মাহমুদ (জানুয়ারি ২০০৩)। "ঈষৎলোনা পানির পরিবেশ"। সিরাজুল ইসলাম[[বাংলাপিডিয়া]]ঢাকা: এশিয়াটিক সোসাইটি বাংলাদেশআইএসবিএন 984-32-0576-6। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৮  ইউআরএল–উইকিসংযোগ দ্বন্দ্ব (সাহায্য)
  2. The River Thames – its geology, geography and vital statistics from source to sea ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১০-০৫-১৬ তারিখে, The-River-Thames.co.uk
  3. The River Thames – its natural history ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০০৬-০৮-১৮ তারিখে The-River-Thames.co.uk
  4. http://www.eattilapia.com/tilapia-farming.php ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১০ তারিখে
  5. "脱毛の口コミまとめ"saveourseatrout.com। ২০০৬-০৭-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  6. Mangrove forests 'can reduce impact of tsunamis' ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০০৬-০৬-১৮ তারিখে, Science and Development Network, December 30, 2004
  7. Lüning, K., Yarish, C. & Kirkman, H. Seaweeds: their environment, biogeography, and ecophysiology. Wiley-IEEE, 1990. p. 121. আইএসবিএন ৯৭৮-০-৪৭১-৬২৪৩৪-৯
  8. Malewitz, Jim (21 November 2013). "Communities Along Red River Seek Feds' Help." The Texas Tribune. Retrieved 25 December 2018.
  9. U.S. Geological Survey Fact Sheet 170-97. Retrieved 25 December 2018.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]