আব্দুল জব্বার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(আব্দুল জব্বার (কণ্ঠশিল্পী) থেকে পুনর্নির্দেশিত)
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
একই নামের অন্য ব্যক্তিবর্গের জন্য, আবদুল জব্বার (দ্ব্যর্থতা নিরসন) দেখুন।
আব্দুল জব্বার
আব্দুল জব্বার.jpg
জন্ম মোহাম্মদ আব্দুল জব্বার
(১৯৩৮-১১-০৭)নভেম্বর ৭, ১৯৩৮
কুষ্টিয়া জেলা, ব্রিটিশ ভারত (বর্তমান বাংলাদেশ)
মৃত্যু আগস্ট ৩০, ২০১৭(২০১৭-০৮-৩০) (৭৮ বছর)[১]
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
জাতীয়তা বাংলাদেশি
জাতিসত্তা বাঙালি
পেশা সঙ্গীত শিল্পী
ধর্ম ইসলাম
দাম্পত্য সঙ্গী শাহীন জব্বার
রোকেয়া জব্বার মিতা (বি. ২০০৮-২০১৩)[২]
সন্তান মিথুন জব্বার
পুরস্কার একুশে পদক
স্বাধীনতা পুরস্কার

আব্দুল জব্বার (৭ নভেম্বর, ১৯৩৮ - ৩০ আগস্ট, ২০১৭) একজন বাংলাদেশি সঙ্গীত শিল্পী। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র হতে প্রচারিত সালাম সালাম হাজার সালাম, জয় বাংলা বাংলার জয়সহ অনেক উদ্বুদ্ধকরণ গানের গায়ক হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন।[৩]

তাঁর গাওয়া তুমি কি দেখেছ কভু জীবনের পরাজয়, সালাম সালাম হাজার সালামজয় বাংলা বাংলার জয় গান তিনটি ২০০৬ সালে মার্চ মাস জুড়ে অনুষ্ঠিত বিবিসি বাংলার শ্রোতাদের বিচারে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ ২০টি বাংলা গানের তালিকায় স্থান করে নেয়।[৪] এছাড়া তিনি বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত দুটি সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার একুশে পদক (১৯৮০) ও স্বাধীনতা পুরস্কারে (১৯৯৬) ভূষিত হন।[৫]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

আব্দুল জব্বার ১৯৩৮ সালের ৭ নভেম্বর তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের (বর্তমান বাংলাদেশ) কুষ্টিয়া জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।[৬][৫] ১৯৫৬ সালে তিনি মেট্রিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন।[৩] তিনি সঙ্গীতের তালিম গ্রহণ করেন ওস্তাদ ওসমান গনি এবং ওস্তাদ লুৎফুল হকের নিকট।[৭]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

জব্বার ১৯৫৮ সাল থেকে তৎকালীন পাকিস্তান বেতারে তালিকাভুক্ত হন। তিনি ১৯৬২ সালে প্রথম চলচ্চিত্রের জন্য গান করেন। ১৯৬৪ সাল থেকে তিনি বিটিভির নিয়মিত গায়ক হিসেবে পরিচিতি পান।[৭] ১৯৬৪ সালে জহির রায়হান পরিচালিত তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম রঙ্গিন চলচ্চিত্র সংগমের গানে কণ্ঠ দেন। ১৯৬৮ সালে এতটুকু আশা ছবিতে সত্য সাহার সুরে তার গাওয়া "তুমি কি দেখেছ কভু" গানটি জনপ্রিয়তা অর্জন করে। একই বছর ঢেউয়ের পর ঢেউ ছবিতে রাজা হোসেন খানের সুরে "সুচরিতা যেওনাকো আর কিছুক্ষণ থাকো" গানে কণ্ঠ দেন। রবীন ঘোষের সুরে তিনি পীচ ঢালা পথ (১৯৭০) ছবিতে "পীচ ঢালা এই পথটারে ভালবেসেছি" এবং নাচের পুতুল (১৯৭১) ছবির শিরোনাম গান "নাচের পুতুল"-এ কণ্ঠ দেন।

১৯৭৮ সালে সারেং বৌ চলচ্চিত্রে আলম খানের সুরে "ও..রে নীল দরিয়া" গানটি দর্শকপ্রিয়তা পায়।[৮] ২০১৭ সালে এই সঙ্গীত শিল্পীর প্রথম মৌলিক গানের অ্যালবাম কোথায় আমার নীল দরিয়া মুক্তি পায়।[৯] অ্যালবামটির গীতিকার মোঃ আমিরুল ইসলাম, সুরকার গোলাম সারোয়ার।[১০]

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদান[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল ও প্রেরণা যুগাতে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে সালাম সালাম হাজার সালামজয় বাংলা বাংলার জয়সহ অংসখ্য গানে কণ্ঠ দিয়েছেন।[১১] তাঁর গানে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেকেই মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলেন। এছাড়া যুুদ্ধের সময়কালে তিনি প্রখ্যাত ভারতীয় কণ্ঠশিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে মুম্বাইয়ের বিভিন্ন স্থানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষে জনমত তৈরিতে কাজ করেন।[১২]তৎকালীন সময়ে কলকাতাতে অবস্থিত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধাদের ক্যাম্প ঘুরে হারমোনি বাজিয়ে গণসঙ্গীত পরিবেশন করেছেন যা মুক্তিযুদ্ধাদের প্রেরণা যুগিয়েছে।[১১] তিনি স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের ত্রাণ তহবিলে সেসময় বিভিন্ন সময় গণসঙ্গীত গেয়ে প্রাপ্ত ১২ লাখ রুপি দান করেছিলেন।[১৩]

পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

আব্দুল জব্বারের প্রথম স্ত্রী গীতিকার শাহীন জব্বার যার গানে কণ্ঠ দিয়েছিলেন আব্দুল জব্বার, সুবীর নন্দী, ফাতেমা তুজ জোহরার মত জনপ্রিয় বাংলাদেশি সঙ্গীতশিল্পীরা। তাদের সন্তান মিথুন জব্বারও একজন সঙ্গীতশিল্পী।[৮][১৪] জব্বারের দ্বিতীয় স্ত্রী রোকেয়া জব্বার মিতা যিনি ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৩ আত্মহত্যার চেষ্টা করেন[১৫][১৬]ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৩ সালে মৃত্যুবরণ করেন।[২]

ডিস্কোগ্রাফি[সম্পাদনা]

প্লেব্যাক[সম্পাদনা]

অ্যালবাম[সম্পাদনা]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

জব্বার ২০১৭ সালের জুলাই মাস থেকে কিডনি, হার্ট, প্রস্টেটসহ বিভিন্ন জটিলতায় আক্রান্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ১ আগস্ট নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়।[১২] ৩০ আগস্ট তিনি এই হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।[১][২১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "শিল্পী আবদুল জব্বার আর নেই"দৈনিক প্রথম আলো। ৩০ আগস্ট, ২০১৭। সংগৃহীত ৩০ আগস্ট, ২০১৭ 
  2. "চলে গেলেন কণ্ঠশিল্পী আব্দুল জব্বারের স্ত্রী মিতা"। ১২-৩০-২০১৩। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি, ২০১৭ 
  3. "Abdul Jabbar: Inspiring the nation in ’71 through songs"The Daily Star। ১৫ মার্চ ২০১৩। সংগৃহীত ১৫ মার্চ ২০১৩ 
  4. "সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাংলা গান"বিবিসি। মে ০৩, ২০০৬। সংগৃহীত মার্চ ০৯, ২০১৫ 
  5. "বিজয় দিবস উপলক্ষে বেতারে আব্দুল জব্বারের গান"দ্য ডেইলি স্টার। ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৬। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি, ২০১৭ 
  6. "আজ কালজয়ী গানের স্রষ্টা মোহাম্মদ আব্দুল জব্বার এর শুভ জন্মদিন"সঙ্গীতাঙ্গন। ৭ নভেম্বর, ২০১৬। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি, ২০১৭ 
  7. "বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী আব্দুল জব্বারের ইন্তেকাল,কাল দাফন"বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থাআসল থেকে ৩০ আগস্ট, ২০১৭-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ৩০ আগস্ট ২০১৭ 
  8. বিউটি, রওশন আরা (১৫ নভেম্বর, ২০১২)। "কালজয়ী গানের স্রষ্টা মোহাম্মদ আব্দুল জব্বার"দৈনিক আজাদী। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি, ২০১৭ 
  9. "দেশবরেণ্য শিল্পী আব্দুল জব্বারের গানের প্রথম অ্যালবাম মুক্তি পেয়েছে"বাসস। ১৬ জুন, ২০১৭। সংগৃহীত ১৭ জুলাই, ২০১৭ 
  10. "আব্দুল জব্বারের ‘কোথায় আমার নীল দরিয়া’ | বিনোদন প্রতিদিন"দৈনিক ইত্তেফাক। ২৪ জুন, ২০১৭। সংগৃহীত ৩০ আগস্ট ২০১৭ 
  11. "শিল্পী আবদুল জব্বার নিবিড় পর্যবেক্ষণে"দৈনিক ইত্তেফাক। ২ আগস্ট, ২০১৭। 
  12. "কালজয়ী শিল্পী আব্দুল জব্বার আইসিইউতে"ডেইলি সান। ২ আগস্ট, ২০১৭। সংগৃহীত ৩০ আগস্ট, ২০১৭ 
  13. "আইসিইউতে কণ্ঠশিল্পী আব্দুল জব্বার"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ২ আগস্ট, ২০১৭। 
  14. "আব্দুল জব্বার পুত্রের অ্যালবাম প্রকাশনা"দৈনিক ইত্তেফাক। ৬ আগস্ট, ২০১৩। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি, ২০১৭ 
  15. "কণ্ঠশিল্পী আব্দুল জব্বারের স্ত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা"রাইজিংবিডি ডট কম। ২০১৩-১২-২৬। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি, ২০১৭ 
  16. "আব্দুল জব্বারের স্ত্রী মিতার আত্মহত্যার চেষ্টা"যায়যায়দিন। ডিসেম্বর ২৭, ২০১৩। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি, ২০১৭ 
  17. "আব্দুল জব্বারের 'কোথায় আমার নীল দরিয়া'"দৈনিক ইত্তেফাক। ২৪ জুন, ২০১৭। সংগৃহীত ১৮ জুলাই, ২০১৭ 
  18. "আব্দুল জব্বারের 'কোথায় আমার নীল দরিয়া'"দৈনিক সমকাল। ১৬ জুন, ২০১৭। সংগৃহীত ১৮ জুলাই, ২০১৭ 
  19. "List of Independence Awardees"। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, বাংলাদেশ সরকার। আসল থেকে ৪ ডিসেম্বর ২০১২-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ২৯ নভেম্বর ২০১২ 
  20. আফসার আহমেদ (২৮ জুন ২০০৪)। "32nd BACHSAS Awards: A glitzy night: Recognition of outstanding media talents"দ্য ডেইলি স্টার (বাংলাদেশ)। সংগৃহীত ৬ অক্টোবর ২০১৫ 
  21. "মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে হেরে গেলেন আব্দুল জব্বার"দৈনিক ইত্তেফাক। সংগৃহীত ৩০ আগস্ট ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]