অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত ব্যবস্থা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বিশ্বের রাষ্ট্রগুলোকে সরকার ব্যবস্থা অনুযায়ী দেখানো হয়েছে1
     পূর্ণ রাষ্ট্রপতিশাসিত প্রজাতন্ত্র2      অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত প্রজাতন্ত্র2
     আইনসভা কর্তৃক নির্বাচিত অথবা মনোনীত একজন নির্বাহী-রাষ্ট্রপতিশাসিত প্রজাতন্ত্র যা সংসদীয় আস্থার অধীন হতে পারে বা নাও হতে পারে।      সংসদীয় গণতন্ত্র2
     সংসদীয় সাংবিধানিক রাজতন্ত্র      সংসদীয় অর্ধ-সাংবিধানিক রাজতন্ত্র এবং একটি পৃথক সরকার প্রধান রয়েছে কিন্তু যেখানে রাজকীয়দের উল্লেখযোগ্য নির্বাহী এবং/অথবা আইন প্রণয়ন ক্ষমতা রয়েছে।
     প্রকৃত রাজতন্ত্র      একদলীয় রাষ্ট্র
     সরকারের সাংবিধানিক বিধান স্থগিত করা হয়েছে এমন রাষ্ট্র(যেমন, সামরিক একনায়কতন্ত্র)      এমন রাষ্ট্র যেগুলো ওপরের কোনও ব্যবস্থার মধ্যে পড়ে না। (যেমন, অস্থায়ী সরকার/অস্পষ্ট রাজনৈতিক অবস্থা)
1 এই মানচিত্রটি উইকিপিডিয়ার সরকার ব্যবস্থা অনুযায়ী দেশসমূহের তালিকা অনুযায়ী সংকলন করা হয়েছে। সূত্রের জন্য সেখানে দেখুন।
2 সাংবিধানিকভাবে বহুদলীয় প্রজাতন্ত্র হিসেবে বিবেচিত বেশ কয়েকটি রাষ্ট্রকে অন্যান্য রাষ্ট্র কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্র হিসাবে চিহ্নিত করে থাকে। এই মানচিত্রটি বাস্তবত (দে ফাক্তো) গণতন্ত্রের মাত্রা অনুযায়ী নয় বরং সাংবিধানিক (দে জুরি) অবস্থার ভিত্তিতে তৈরি।

একটি অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত সরকার ব্যবস্থা বা দ্বৈত নির্বাহী সরকার ব্যবস্থা বলতে এমন এক ধরনের সরকার ব্যবস্থাকে বোঝায়, যাতে একজন রাষ্ট্রপতি একজন প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর মন্ত্রীসভার সাথে সহাবস্থান করেন এবং শেষোক্ত দুইটি রাষ্ট্রের আইনসভার কাছে জবাবদিহি করেন। একটি সংসদীয় প্রজাতন্ত্রের সাথে এই সরকার ব্যবস্থাটির পার্থক্য হল এই যে এটিতে জনগণের ভোটে নির্বাচিত একটি রাষ্ট্রপ্রধান থাকেন যিনি কেবলমাত্র একজন আনুষ্ঠানিক প্রতিমা নন। অন্যদিকে একটি রাষ্ট্রপতিশাসিত সরকার ব্যবস্থা থেকে এটির পার্থক্য হল এই যে যদিও মন্ত্রীসভা রাষ্ট্রপতি দ্বারা পদপ্রাপ্ত হয়, তার পরেও সেটি আইনসভার কাছে জবাবদিহি করে, রাষ্ট্রপতির কাছে নয়; আইনসভা একটি অনাস্থা প্রস্তাবের মাধ্যমে জোরপূর্বক মন্ত্রীসভাকে পদত্যাগে বাধ্য করতে পারে।[১][২][৩][৪]

জার্মানির দুই বিশ্বযুদ্ধ মধ্যবর্তী ভাইমার প্রজাতন্ত্র (১৯১১-১৯৩৩) ও ১৯১৯ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত ফিনল্যান্ডকে অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত সরকার ব্যবস্থার দুইটি প্রথম দিকের উদাহরণ হিসেবে গণ্য করা যায়। কিন্তু "অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত" পরিভাষাটি সর্বপ্রথম ব্যবহার করেন ফরাসি সাংবাদিক উ্যবের ব্যোভ-মেরি (Hubert Beuve-Méry), ১৯৫৯ সালে প্রকাশিত একটি নিবন্ধে।[৫] এরপর ১৯৭৮ সালে ফরাসি রাষ্ট্রবিজ্ঞানী মোরিস দ্যুভের্জে (Maurice Duverger) রচিত একটি গ্রন্থ পরিভাষাটিকে আরও জনপ্রিয় করে তোলে।[৬] উভয়েই ১৯৫৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ও অদ্যাবধি (২০২২) বিদ্যমান ফ্রান্সের ৫ম প্রজাতন্ত্রটিকে বর্ণনা করতে গিয়ে এই পরিভাষাটি ব্যবহার করেন।[১][২][৩][৪]

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

মোরিস দ্যুভের্জে-র আদি সংজ্ঞা অনুযায়ী একটি অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত সরকার ব্যবস্থাতে রাষ্ট্রপতিকে অবশ্যই জনগণের ভোটে নির্বাচিত হতে হবে, তাঁর তাৎপর্যপূর্ণ ক্ষমতা থাকবে এবং তিনি নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য কার্যনির্বাহ করবেন।[৭] আধুনিক সংজ্ঞাগুলিতে বলা হয় যে এই ব্যবস্থায় রাষ্ট্রপ্রধানকে নির্বাচিত হতে হবে, এবং স্বতন্ত্র ও সংসদীয় আস্থার উপর নির্ভরশীল একজন প্রধানমন্ত্রী নির্বাহী বিভাগকে নেতৃত্ব দেবেন।[৭]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]


টীকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Duverger (১৯৮০)। "A New Political System Model: Semi-Presidential Government"। European Journal of Political Research (quarterly)। 8 (2): 165–187। ডিওআই:10.1111/j.1475-6765.1980.tb00569.xঅবাধে প্রবেশযোগ্যThe concept of a semi-presidential form of government, as used here, is defined only by the content of the constitution. A political regime is considered as semi-presidential if the constitution which established it, combines three elements: (1) the president of the republic is elected by universal suffrage, (2) he possesses quite considerable powers; (3) he has opposite him, however, a prime minister and ministers who possess executive and governmental power and can stay in office only if the parliament does not show its opposition to them. 
  2. Veser, Ernst (১৯৯৭)। "Semi-Presidentialism-Duverger's concept: A New Political System Model" (PDF)Journal for Humanities and Social Sciences11 (1): 39–60। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৭ 
  3. Duverger, Maurice (সেপ্টেম্বর ১৯৯৬)। "Les monarchies républicaines" [The Republican Monarchies] (PDF)Pouvoirs, revue française d'études constitutionnelles et politiques (ফরাসি ভাষায়)। নং 78। Paris: Éditions du Seuil। পৃষ্ঠা 107–120। আইএসএসএন 0152-0768আইএসবিএন 2-02-030123-7ওসিএলসি 909782158। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  4. Bahro, Horst; Bayerlein, Bernhard H.; Veser, Ernst (অক্টোবর ১৯৯৮)। "Duverger's concept: Semi-presidential government revisited"European Journal of Political Research (quarterly)। 34 (2): 201–224। ডিওআই:10.1111/1475-6765.00405The conventional analysis of government in democratic countries by political science and constitutional law starts from the traditional types of presidentialism and parliamentarism. There is, however, a general consensus that governments in the various countries work quite differently. This is why some authors have inserted distinctive features into their analytical approaches, at the same time maintaining the general dichotomy. Maurice Duverger, trying to explain the French Fifth Republic, found that this dichotomy was not adequate for this purpose. He therefore resorted to the concept of 'semi-presidential government': The characteristics of the concept are (Duverger 1974: 122, 1978: 28, 1980: 166):
    1. the president of the republic is elected by universal suffrage,
    2. he possesses quite considerable powers and
    3. he has opposite him a prime minister who possesses executive and governmental powers and can stay in office only if parliament does not express its opposition to him.
     
  5. Le Monde, 8 January 1959.
  6. Duverger, Maurice (১৯৭৮)। Échec au roi। Paris: A. Michel। আইএসবিএন 9782226005809 
  7. Elgie, Robert (২ জানুয়ারি ২০১৩)। "Presidentialism, Parliamentarism and Semi-Presidentialism: Bringing Parties Back In" (PDF)Government and Opposition46 (3): 392–409। এসটুসিআইডি 145748468ডিওআই:10.1111/j.1477-7053.2011.01345.x 

উৎসপঞ্জি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]