অম্বর রায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অম্বর রায়
অম্বর রায়.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামঅম্বর খিরিদ রায়
জন্ম(১৯৪৫-০৬-০৫)৫ জুন ১৯৪৫
কলকাতা, বাংলা, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৯৭(1997-09-19) (বয়স ৫২)
কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাব্যাটসম্যান, মাঝে-মধ্যে উইকেট-রক্ষক
সম্পর্ককাকা: পঙ্কজ রায়
কাকাতো ভাই: প্রণব রায়
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১২১)
৩ অক্টোবর ১৯৬৯ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ টেস্ট১২ ডিসেম্বর ১৯৬৯ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৩২
রানের সংখ্যা ৯১ ৭১৬৩
ব্যাটিং গড় ১৩.০০ ৪৩.১৫
১০০/৫০ -/- ১৮/৩২
সর্বোচ্চ রান ৪৮ ১৯৭
বল করেছে ১৯৫২
উইকেট ২৯
বোলিং গড় ৩৪.৮৬
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৪৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং -/- ৮৩/২
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৮ অক্টোবর ২০১৯

অম্বর খিরিদ রায় (এই শব্দ সম্পর্কেউচ্চারণ ; ৫ জুন ১৯৪৫ - ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৯৭) তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বাংলা প্রদেশের কলকাতায় জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৬৯ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে বাংলা দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, দলের প্রয়োজনে ডানহাতে মিডিয়াম বোলিংয়ের পাশাপাশি উইকেট-রক্ষণে দক্ষতা দেখিয়েছেন অম্বর রায়

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৬০-৬১ মৌসুম থেকে ১৯৭৭-৭৮ মৌসুম পর্যন্ত অম্বর রায়ের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। লড়াকু চিত্তের অধিকারী ছিলেন তিনি। তরুণ অবস্থায় অন্যতম প্রতিশ্রুতিশীল ব্যাটসম্যান হিসেবে পরিচয় পেয়েছিলেন। বামহাতে স্ট্রোকের ফুলঝুড়ি ছোটাতেন। রঞ্জী ট্রফিতে দূর্দান্ত প্রতাপে অংশ নেন। দুই দশকের অধিক সময় খেলেন। এ সময় তিনি বাংলা দলের সেরা বামহাতি ব্যাটসম্যান ছিলেন।

জাতীয় দল থেকে উপেক্ষিত হলেও ষাট ও সত্তুরের দশকে বাংলা দলের প্রধান মেরুদণ্ডকারীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। বেশ কয়েক বছর দলের শীর্ষস্থানীয় ব্যাটসম্যান ছিলেন। শুধুমাত্র রঞ্জি ট্রফিতেই ৪৯.৫৭ গড়ে ৩,৮১৭ রান তুলেছিলেন। প্রায় দুই দশকব্যাপী প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবনে ১৮ সেঞ্চুরি সহযোগে ৪৩.১৫ গড়ে ৭,১৬৩ রান তুলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে চারটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন অম্বর রায়। ৩ অক্টোবর, ১৯৬৯ তারিখে নাগপুরে সফরকারী নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ১২ ডিসেম্বর, ১৯৬৯ তারিখে কলকাতায় সফরকারী অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

নাগপুরে অভিষেক ঘটা খেলায় নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৪৮ রান তুলেছিলেন। এ ইনিংসে দশটি বাউন্ডারির মার ছিল।[১] এ পর্যায়ে ফারুক ইঞ্জিনিয়ারের সাথে অষ্টম উইকেট জুটিতে ৭৩ রানের ইনিংস খেলেন। তাসত্ত্বেও, তার দল পরাজিত হয়েছিল। তবে, পরবর্তী খেলাগুলোয় তেমন সুবিধে করতে পারেননি। ঐ মৌসুমের শেষদিকে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে দিল্লি ও কলকাতা টেস্টে অংশ নেন। কলকাতায় নিজ শহরে ১৮ ও ১৯ রান তুলেছিলেন। এটিই তার সর্বশেষ টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। খেলাগুলোয় তেমন ভালোমানের রান সংগ্রহে ব্যর্থ হন।

ফলশ্রুতিতে, দলের বাইরে রাখা হয়। এরপর আর তাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশ নিতে দেখা যায়নি।[২]

অবসর[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর ১৫ বছর বাংলা দলের নির্বাচকমণ্ডলীর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ সময়েই সৌরভ গাঙ্গুলী’র ন্যায় সেরা খেলোয়াড় বাছাইয়ে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছিলেন। এছাড়াও, ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৬ সময়কালে জাতীয় দল নির্বাচকেরও দায়িত্বে ছিলেন। ভারতের অন্যতম সুপরিচিত উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান পঙ্কজ রায়ের ভাইপো তিনি।

জীবনের শেষদিকে ম্যালেরিয়া রোগে আক্রান্ত হন। অতঃপর ১৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৭ তারিখে ৫২ বছর বয়সে কলকাতায় অম্বর রায়ের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [১] Cricinfo Scorecards: India Vs NZ 3–8 Oct. 1969 (Retrieved on 2009-06-27)
  2. [২] Cricinfo Scorecards:India Vs Australia 12–16 December 1969 (Retrieved on 2009-06-27)

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]