অবসর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরকারী উদ্যানগুলো সাধারণতঃ বিনোদন এবং অবসরকাল অতিক্রমণের জন্য তৈরী করা হয়।

অবসর (ইংরেজি: Leisure) ব্যক্তির নির্ধারিত মুক্ত সময় অর্থাৎ যখন যা খুশী মনে চায়, করে নিয়ে যাওয়া যায়। অর্থাৎ, ব্যবসা, কর্মজীবন, গৃহস্থালী কাজ থেকে দূরে থাকার অলস সময়টুকুই অবসর সময় নামে বিবেচিত হয়। এছাড়াও, খাওয়া-দাওয়া, ঘুমের পূর্ববর্তী কিংবা পরবর্তী সময়কালও অবসর সময় নামে গণ্য করা হয়। ব্যক্তির চাকুরী পরবর্তীকালের অবসরকালীন সময়ে প্রতিষ্ঠান বা কর্মক্ষেত্রে গমনে বাঁধার পরিবেশ থাকে না। এ সময়ে বিভিন্ন বিনোদনমূলক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ, পারিবারিক সান্নিধ্যলাভ অথবা অন্যান্য শখের কাজগুলোয় মনোনিবেশ ঘটানো যায়।

অবসর এবং আবশ্যকীয় কর্মকাণ্ডের মধ্যেকার পার্থক্যকে হাল্কাভাবে প্রয়োগ করা হয়। সাধারণ জনগণ মাঝেমাঝে কর্মোপযোগী কাজগুলো দীর্ঘ মেয়াদের জন্যে অবসরকালীন সময়ে মনের আনন্দে করে থাকে।[১]

কর্মপন্থা নির্ধারণ[সম্পাদনা]

বিনোদন অথবা অবসরকালীন সময়ের সাধারণ কর্মকাণ্ডের মধ্যে রয়েছে -

ছুটি অথবা ছুটির দিনে অবসরের জন্য নির্দিষ্ট সময় ব্যক্তি কর্তৃক নির্ধারিত হয়। পূর্ব পরিকল্পনামাফিক ছুটিতে কিছু ব্যক্তি একাকী কিংবা পারিবারিক বা দলগতভাবে দেশের অভ্যন্তরে কিংবা দেশের বাইরে নির্ধারিত স্থানে ভ্রমণের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়েন। সাধারণতঃ হোটেলেই রাত্রি কাটান এবং এমন অনেক কিছু করেন যা বাড়ীতে কিংবা বাড়ীর কাছাকাছি করা সম্ভব নয়। আবার কিছু লোক ছুটিকালীন সময়ে বাড়ীতে অবস্থান করে নিজ সম্প্রদায়ের লোকদের সাথে সময় কাটানোকেই অগ্রাধিকার দেন।

সাংস্কৃতিক ভিন্নতা[সম্পাদনা]

অবসর সময়কালের ব্যবহার এক সংস্কৃতি থেকে অন্য সংস্কৃতিতে পৃথক হতে পারে। নৃ-তাত্ত্বিকগণ অধিকতর জটিল সমাজের চেয়ে সাধারণ সমাজে দলবদ্ধভাবে শিকার করার দিকে অগ্রসরতা হবার প্রবণতা লক্ষ্য করেছেন। কালাহারি মরুভূমির স্যান জনগোষ্ঠী তাঁদের নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য, আশ্রয় এবং অন্যান্য বিষয়াদির প্রতুলতা সত্ত্বেও দলবদ্ধভাবে শিকার করতে পছন্দ করে। নৃ-তাত্ত্বিকগণ অন্যান্য ক্ষুদ্র সমাজে একই ধরণের সমার্থক মিলের সন্ধান পেয়েছেন। এ স্তরের জনগোষ্ঠী শহুরে, শিল্পাঞ্চলভিত্তিক সমাজের তুলনায় অধিক অবসর সময় উপভোগ করতে সক্ষম হন।

ক্রীড়াক্ষেত্র[সম্পাদনা]

প্রতিযোগিতামূলক ক্রীড়ায় ব্যক্তিগত ইভেন্টে আঘাত কিংবা অসুস্থতাজনিত কোন কারণে খেলতে অসমর্থ হলে ঐ খেলোয়াড় মাঠের বাইরে চলে যান। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে খেলায় ফিরে আসতে ব্যর্থ হলে প্রতিপক্ষীয় খেলোয়াড়কে বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ব্যাডমিন্টন, টেনিস প্রভৃতি ক্রীড়ায় টুর্ণামেন্টের নিয়ম অনুযায়ী খেলোয়াড়ের নামের পাশে বা অন্য কোথাও অবসর শব্দটি লেখা হয়। দলগত ক্রীড়া হিসেবে ক্রিকেট খেলায় একজন ক্রিকেটার প্রয়োজনে পুণরায় মাঠে ফিরে আসতে পারেন। অন্যথায় তার নামের পাশে রিটায়ার্ড হার্ট শব্দটি লেখা হয়।

অবসরবিদ্যা[সম্পাদনা]

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অন্যতম শাখা হিসেবে অবসরবিদ্যার প্রচলন রয়েছে। এতে অবসরকে বুঝা ও ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণপূর্বক সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি তুলে ধরা হয়। পর্যটন এবং বিনোদন সাধারণ বিষয়রূপে অবসর গবেষণায় স্থান পেয়েছে।

দ্য জার্নাল অব লেজার রিসার্চ[২] এবং জার্নাল অব পার্ক এন্ড এডমিনিস্ট্রেশন[৩] আমেরিকার শিক্ষানুক্রমিক সাময়িকীরূপে অবসরবিদ্যার উপর নিয়মিতভাবে প্রকাশিত হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Goodin, Robert E.; Rice, James Mahmud; Bittman, Michael; & Saunders, Peter. (2005). "The time-pressure illusion: Discretionary time vs free time". Social Indicators Research 73(1), 43–70. (JamesMahmudRice.info, "Time pressure" (PDF))
  2. http://www.sagamorepub.com/t/periodicals-slash-journals/journal
  3. http://wilderdom.com/journals/journalsRecreation&Leisure.htm

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Peter Borsay, A History of Leisure: The British Experience since 1500, Palgrave Macmillan, 2006, ISBN 0-333-93082-7
  • Cross, Gary S. 2004. Encyclopedia of recreation and leisure in America. The Scribner American civilization series. Farmington Hills, Michigan: Charles Scribner's Sons.
  • Harris, David. 2005. Key concepts in leisure studies. London: Sage. ISBN 0-7619-7057-6.
  • Jenkins, John M., and J.J.J. Pigram. 2003. Encyclopedia of leisure and outdoor recreation. London: Routledge. ISBN 0-415-25226-1.
  • Rojek, Chris, Susan M. Shaw, and A.J. Veal (Eds.) (2006) A Handbook of Leisure Studies. Houndmills, UK: Palgrave Macmillan. ISBN 978-1-4039-0278-8.
  • Huzinga, Johannes. ____. Homo Ludens
  • Grudin, Robert. ____. Time and the Art of Living
  • Pieper, Josef. ____. Leisure, Basis of Culture
  • Poser, Stefan: Leisure Time and Technology, European History Online, Mainz: Institute of European History, 2011, retrieved: October 25, 2011.
  • Czikszentmihaly, Mihaly. ____. Flow

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]