ব্যাক্টেরিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Bacteria
সময়গত রেঞ্জ: টেমপ্লেট:Long fossil range
Scanning electron micrograph of Escherichia coli bacilli
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
Domain: Bacteria
Phyla[১]

Actinobacteria (high-G+C)
Firmicutes (low-G+C)
Tenericutes (no wall)

Aquificae
Deinococcus-Thermus
FibrobacteresChlorobi/Bacteroidetes (FCB group)
Fusobacteria
Gemmatimonadetes
Nitrospirae
PlanctomycetesVerrucomicrobia/Chlamydiae (PVC group)
Proteobacteria
Spirochaetes
Synergistetes

  • অজানা / অগোষ্ঠীভুক্ত

Acidobacteria
Chloroflexi
Chrysiogenetes
Cyanobacteria
Deferribacteres
Dictyoglomi
Thermodesulfobacteria
Thermotogae

ব্যাকটেরিয়া (ইংরেজি: Bacteria; /bækˈtɪəriə/ ( শুনুন); একবচন: bacterium) হলো এক প্রকারের এককোষী অণুজীব। এরা এবং (আরকিয়ারা) হল প্রোক্যারিয়ট (প্রাক-কেন্দ্রিক) অর্থাৎ এদের কোষে সংগঠিত নিউক্লিয়াস নেই, আছে ঝিল্লিহীন নিউক্লিয়য়েড, যার মধ্যে রৈখিক ক্রোমোজোম নেই আছে বৃত্তাকার ডিএনএ, ঝিল্লি (মেমব্রেন) ওয়ালা কোন অঙ্গাণু নেই এবং নেই কোন সাইটোকঙ্কাল। মানুষের দেহে কয়েক ট্রিলিয়ন কোষ আছে, তবে ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা এর থেকে ১০-১০০ গুণ বেশি। গ্রাম স্টেইন দ্বারা দুরকম ব্যাকটেরিয়াকে সাধারণতঃ আলাদা করা যায়।
এক গ্রাম মাটিতে ৪০ মিলিয়ন এবং এক মিলিলিটার পানিতে ১ মিলিয়ন ব্যাকটেরিয়াল কোষ থাকতে পারে। পৃথিবীতে প্রায় ৫×১০৩০ টি ব্যাকটেরিয়া আছে।[২]

গ্রাম পজিটিভ ব্যাক্টেরিয়া[সম্পাদনা]

বেশী আদিম। ঝিল্লির আবরণ একটি। পুরু পেপ্টাইডোগ্লাইকেন আস্তরণ তার বাইরে যার সঙ্গে টিকোয়িক এসিড যুক্ত।

গ্রাম নেগেটিভ ব্যাক্টেরিয়া[সম্পাদনা]

ঝিল্লির আবরণ দুটি। পাতলা পেপ্টাইডোগ্লাইকেন আস্তরণ দুটি ঝিল্লির মাঝখানে।

গঠন[সম্পাদনা]

ব্যাকটেরিয়ার অসংখ্য কোষীয় গঠন ও বিন্যাস রয়েছে

ব্যাকটেরিয়ার কোষ সুকেন্দ্রিক কোষের এক-দশমাংশ এবং দৈর্ঘ্যে সাধারণত .৫ - ৫.০ মাইক্রোমিটার। তবে কিছু ব্যাকটেরিয়া ( যেমন- Thiomargarita namibiensis এবং Epulopiscium fishelsoni ) অর্ধেক মিলিমিটারের বেশি দৈর্ঘ্য এবং স্বাভাবিক চোখে দৃশ্যমান।[৩] Epulopiscium fishelsoni দৈর্ঘ্যে ০.৭ মিলিমিটার পর্যন্ত হতে পারে।[৪] সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম ব্যাকটেরিয়াগুলো Mycoplasma গণের সদস্য, এরা দৈর্ঘ্যে মাত্র ০.৩ মাইক্রোমিটার হয় যা বৃহত্তম ভাইরাস গুলোর আকারের সমান।[৫] কিছু ব্যাকটেরিয়া আরও ক্ষুদ্র হয়। এই অতিকায় ক্ষুদ্র ব্যাকটেরিয়া সম্পর্কে খুব বেশি জানা যায়নি।[৬]
গোলাকার ব্যাকটেরিয়াগুলোকে বলা হয় cocci(একবচনে coccus। গ্রীক- kókkos ,দানা, বীজ। দণ্ডাকৃতি ব্যাকটেরিয়াগুলোকে বলা হয় bacilli(একবচনে bacillus, লাতিন- baculus, লাঠি)। কমা (,) আকৃতির ব্যাকটেরিয়াগুলোকে বলা হয় vibrio

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bacteria (eubacteria)"Taxonomy Browser। সংগৃহীত 2008-09-10 
  2. Whitman WB, Coleman DC, Wiebe WJ (1998)। "Prokaryotes: the unseen majority"। Proceedings of the National Academy of Sciences of the United States of America 95 (12): 6578–83। ডিওআই:10.1073/pnas.95.12.6578পিএমআইডি 9618454পিএমসি 33863বিবকোড:1998PNAS...95.6578W 
  3. Schulz HN, Jorgensen BB (2001)। "Big bacteria"। Annu Rev Microbiol 55: 105–37। ডিওআই:10.1146/annurev.micro.55.1.105পিএমআইডি 11544351 
  4. Williams, Caroline (2011)। "Who are you calling simple?"। New Scientist 211 (2821): 38–41। ডিওআই:10.1016/S0262-4079(11)61709-0 
  5. Robertson J, Gomersall M, Gill P (1975)। "Mycoplasma hominis: growth, reproduction, and isolation of small viable cells"। J Bacteriol. 124 (2): 1007–18। পিএমআইডি 1102522পিএমসি 235991 
  6. Velimirov, B. (2001)। "Nanobacteria, Ultramicrobacteria and Starvation Forms: A Search for the Smallest Metabolizing Bacterium"। Microbes and Environments 16 (2): 67–77। ডিওআই:10.1264/jsme2.2001.67