উপুল থারাঙ্গা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
উপুল থারাঙ্গা
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ওয়ারুশাভিথানা উপুল থারাঙ্গা
জন্ম (১৯৮৫-০২-০২) ২ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৫ (বয়স ২৯)
বালাপিতিয়া, শ্রীলঙ্কা
ব্যাটিংয়ের ধরণ বামহাতি
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক ১৮ ডিসেম্বর ২০০৫ বনাম ভারত
শেষ টেস্ট ১৮ ডিসেম্বর ২০০৭ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক ২ আগস্ট ২০০৫ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই ১৮ জানুয়ারি ২০১৩ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
২০০০-০১ সিংহ স্পোর্টস ক্লাব
২০০৩-বর্তমান নন্দেস্ক্রিপ্টস ক্রিকেট ক্লাব
২০০৭-বর্তমান রুহুনা
কর্মজীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৫ ১৬৪ ৯২ ২৫২
রানের সংখ্যা ৭১৩ ৫,১৫৩ ৫,৫২৬ ৭,৭৭২
ব্যাটিং গড় ২৮.৫২ ৩৪.৮১ ৩৭.৮৪ ৩৩.৭৯
১০০/৫০ ১/৩ ১৩/২৮ ১৩/২১ ১৮/৪৩
সর্বোচ্চ রান ১৬৫ ১৭৪* ২৬৫* ১৭৪*
বল করেছে ১৮
উইকেট
বোলিং গড়
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ০/৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১১/– ৩২/– ৬৪/১ ৬৪/২
উত্স: Cricinfo, ২ জুলাই ২০১৩

ওয়ারুশাভিথানা উপুল থারাঙ্গা (তামিল: உபுல் தரங்க; জন্ম: ২ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৫) বালাপিতিয়ায় জন্মগ্রহণকারী শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার। সচরাচর তিনি উপুল থারাঙ্গা নামেই সমধিক পরিচিত। শ্রীলঙ্কা দলে একাধারে বামহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান এবং উইকেট-রক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে থাকেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

আম্বালাঙ্গোদা এলাকার ধর্মসোকা কলেজে অধ্যয়ন করেন উপুল থারাঙ্গা। বিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন কিশোর অবস্থাতেই ক্রিকেটের সাথে জড়িয়ে পড়েন। ১৫ বছর বয়সে নন্দেস্ক্রিপ্টস দলে খেলেন। এরপর শ্রীলঙ্কার অনূর্ধ্ব-১৫, অনূর্ধ্ব-১৭ ও অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেন। ২০০৪ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে সফলভাবে অংশগ্রহণ করেন। এরপর শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটিং বোর্ডের তরফে এসেক্সের লটন ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষ হয়ে লীগ ক্রিকেট খেলেন।

২০০৫ সালটি মিশ্রভাবে কাটে থারাঙ্গা’র। এ বছরই যেমন শ্রীলঙ্কার জাতীয় দলে ডাক পান, তেমনি এশীয় সুনামিতে তার পরিবার গৃহহীন হয়ে পড়ে। এরফলে তিনি কুমার সাঙ্গাকারা’র খেলার সরঞ্জামাদি ব্যবহার করতে বাধ্য হয়েছেন। এ দল থেকে উত্তোরণ ঘটিয়ে পূর্ণাঙ্গ দলের সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

আন্তর্জাতিক অঙ্গন[সম্পাদনা]

২০০৬ সালের ইংল্যান্ড সফরে একদিনের ক্রিকেটে বেশ উন্নয়ন ঘটে থারাঙ্গা’র। সিরিজে তিন শতাধিক রান করলেও স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে ৫-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হয় শ্রীলঙ্কা দল। তবে চূড়ান্ত খেলায় সনাথ জয়াসুরিয়া’র সাথে প্রথম উইকেট জুটিতে নতুন রেকর্ড গড়েন। ঐ খেলায় তিনি ১০২ বলে ১০৯ রান করেন।

২০০৭ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেটে তার ক্রীড়াশৈলী দূর্বলতর হতে থাকে। প্রতিযোগিতায় তিনি কেবলমাত্র নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে অর্ধ-শতক করেন। এরপর ২০০৭ সালে নিজ দেশে অনুষ্ঠিত ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এ ধারা অব্যাহত থাকে। প্রায়শঃই ১০ম ওভারের পূর্বে আউট হয়ে যাওয়ায় মাঝারী-সারির পতন হতে থাকে। এরফলে দলে থাকাবস্থায় একদিনের ক্রিকেটে মালিন্দা ওয়ার্নাপুরা এবং টেস্ট ক্রিকেটে মাইকেল ভ্যানডর্টের কাছে নিজ স্থানচ্যুত হন।

কীর্তিগাঁথা[সম্পাদনা]

তিলকরত্নে দিলশান এবং উপুল থারাঙ্গা’র ১ম উইকেট জুটিতে ২৮২ রান আসে। ২৬ মার্চ, ২০১১ সালে পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত খেলায় জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের এ সর্বোচ্চ রানের জুটি গড়েন।[১]

বিশ্ব ক্রিকেটের ইতিহাসে ২য় ব্যাটসম্যান হিসেবে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সাতবার দুই শতাধিক রানের জুটি গড়েছেন থারাঙ্গা।[২] তার পূর্বে এ কৃতিত্ব গড়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রথিতযশা ব্যাটসম্যান ও অধিনায়ক রিকি পন্টিং

২ জুলাই, ২০১৩ তারিখে শ্রীলঙ্কার একদিনের ক্রিকেট ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অপরাজিত ১৭৪* রান করেন ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুষ্ঠিত ত্রি-দেশীয় সিরিজে ভারতের বিরুদ্ধে। একই দলের বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কার পক্ষে সর্বোচ্চ রানের কৃতিত্ব রয়েছে সনাথ জয়াসুরিয়া’র ১৮৯ রান। এ রান করার পথে শ্রীলঙ্কার ৯ম ব্যাটসম্যান হিসেবে পাঁচ সহস্রাধিক রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]