অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস
Angelo Mathews.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম অ্যাঞ্জেলো ডেভিস ম্যাথিউস
জন্ম (১৯৮৭-০৬-০২) ২ জুন ১৯৮৭ (বয়স ২৭)
কলম্বো, শ্রীলঙ্কা
ডাকনাম কালুয়া
উচ্চতা ৬ ফুট ০ ইঞ্চি (১.৮৩ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরণ ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরণ ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকা অল-রাউন্ডার, অধিনায়ক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক (ক্যাপ ১১২) ৪ জুলাই ২০০৯ বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট ৩ জানুয়ারি ২০১৩ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ওডিআই অভিষেক (ক্যাপ ১৩৭) ২৮ নভেম্বর ২০০৮ বনাম জিম্বাবুয়ে
শেষ ওডিআই ২৩ জানুয়ারি ২০১৩ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
২০১০ কলকাতা নাইট রাইডার্স
২০১১-বর্তমান সাহারা পুনে ওয়ারিয়র্স
২০১২-বর্তমান নাগেনাহিরা নাগাস
কর্মজীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি লিস্ট এ
ম্যাচ সংখ্যা ৩৫ ১১৩ ৭০ ১৬০
রানের সংখ্যা ২,০৫২ ২,২৯০ ৪,৭২৭ ২,৮১৮
ব্যাটিং গড় ৪৪.৬০ ৩৪.১৭ ৫১.৩৮ ৩২.৪৪
১০০/৫০ ২/১২ ০/১৬ ১১/২৩ ০/২৫
সর্বোচ্চ রান ১৫৭* ৮০* ২৭০ ৮১
বল করেছে ১,৭০৪ ৩,২৬৬ ৪,২৩৫ ৪,১৮৯
উইকেট ১২ ৬৯ ৪২ ১০০
বোলিং গড় ৭২.৪১ ৩৫.৬৩ ৪৮.৩৮ ৩১.০৯
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট n/a n/a
সেরা বোলিং ২/৬০ ৬/২০ ৫/৪৭ ৬/২০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৯/– ২৬/– ৪৪/– ৪৯/–
উত্স: ইএসপিএন ক্রিকইনফো, ৪ জানুয়ারি ২০১৪

অ্যাঞ্জেলো ডেভিস ম্যাথিউস (তামিল: அஞ்செலோ மாத்தியூஸ்; জন্ম: ২ জুন, ১৯৮৭) শ্রীলঙ্কায় জন্মগ্রহণকারী ক্রিকেটার। বর্তমানে তিনি শ্রীলঙ্কা জাতীয় ক্রিকেট দলের টুয়েন্টি২০ ক্রিকেট খেলায় অধিনায়ক হিসেবে আসীন রয়েছেন।[১] ২০০৬ সালে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলেরও অধিনায়ক ছিলেন তিনি।[২] বিখ্যাত বোলার চামিন্দা ভাসের ন্যায় তিনিও আনুষ্ঠানিক শিক্ষাগ্রহণ করেন কলম্বোর সেন্ট জোসেফ'স কলেজ থেকে। জাফনার তামিল পিতা ও সিংহলীজ মাতার সন্তানরূপে কলম্বোয় জন্মগ্রহণ করেন।

ক্রীড়া জীবন[সম্পাদনা]

ম্যাথিউস নভেম্বর, ২০০৮ সালে জিম্বাবুয়ে দলের বিপক্ষে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষিক্ত হন। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে কলকাতা নাইট রাইডার্সের পক্ষ হয়ে খেলেন। চতুর্থ মৌসুমে তিনি $৯৫০,০০০ মার্কিন ডলারের বিনিময়ে সাহারা পুনে ওয়ারিয়র্স দলের সাথে চুক্তিতে আবদ্ধ হন। ২০১১ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেটে আঘাতপ্রাপ্তি ঘটায় আট সপ্তাহের জন্য আইপিএলে অনুপস্থিত ছিলেন।

অধিনায়কত্ব[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপের পর কুমার সাঙ্গাকারাকে অধিনায়কের পদ থেকে অব্যাহতি নেন। এরপর থেকেই শ্রীলঙ্কার পরবর্তী অধিনায়করূপে বিশ্বব্যাপী সফর করতে থাকেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস।[৩] সুন্দর নেতৃত্বের গুণাবলী সাঙ্গাকারার কাছ থেকে ম্যাথিউস পাচ্ছিলেন। সাঙ্গাকারাও তার পদত্যাগের পর তাঁকে অধিনায়কত্বের তালিম দিচ্ছিলেন। তিলকরত্নে দিলশানকে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব দেয়া হয়। তাকে অবাক করে নির্বাচকমণ্ডলী থিলিনা কাদম্বীকে সহ-অধিনায়ক হিসেবে মনোনীত করা হয়। অথচ, কাদম্বী স্বল্পকালীন সময়ের জন্যে শ্রীলঙ্কা দলে খেলছেন কিংবা শ্রীলঙ্কার পক্ষ হয়ে ২০১১ সালে ইংল্যান্ড সফরে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটটি২০ দলের সহ-অধিনায়কত্ব করেছেন।[৪] কিন্তু দিলীপ মেন্ডিসের নেতৃত্বাধীন নির্বাচিত কর্তৃপক্ষ কাদম্বীর ব্যাটিংয়ের দুরবস্থায় তাঁকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন সহ-অধিনায়ক হিসেবে ম্যাথিউসের নাম প্রস্তাব করে।[৫] জুলাই, ২০১১ সালের শেষদিকে ম্যাথিউস দিলশানের সহ-অধিনায়ক হন।[৬] দিলশানকে অব্যাহতি দিলেও তিনি স্বপদে বহাল থেকে জানুয়ারি, ২০১২ সালে মাহেলা জয়াবর্ধনের পাশে দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।[৭]

আন্তর্জাতিক শতকসমূহ[সম্পাদনা]

টেস্ট শতক[সম্পাদনা]

নম্বর স্কোর প্রতিপক্ষ অবস্থান ইনিংস টেস্ট মাঠ দেশ/বিদেশ তারিখ ফলাফল তথ্যসূত্র
&10000000000001051000000 ১০৫*  অস্ট্রেলিয়া ৩/৩ সিংহলীজ স্পোর্টস ক্লাব গ্রাউন্ড (এসএসসি), কলম্বো দেশে 02011-০৯-16১৬ সেপ্টেম্বর ২০১১ ড্র [৮]
&10000000000001571000000 ১৫৭*  পাকিস্তান ১/৩ শেখ জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়াম, আবুধাবি বিদেশে 02014-০১-03৩ জানুয়ারি ২০১৪ ড্র [৯]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

একদিনের আন্তর্জাতিক পুরস্কার[সম্পাদনা]

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ পুরস্কার[সম্পাদনা]

ক্রমিক নম্বর প্রতিপক্ষ মাঠ তারিখ ম্যাচে অবদান
জিম্বাবুয়ে শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর ১২ জানুয়ারী ২০০৯ ৫২* (৯৬ বল: ১x৪, ২x৬); ৬-০-১৯-১
ভারত আর. প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো ১২ সেপ্টেম্বর ২০০৯ ১৯ (৩৭ বল: ১x৪); ৬-০-২০-৬
অস্ট্রেলিয়া মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড, মেলবোর্ন ৩ নভেম্বর ২০১০ ব্যাট করেননি; ৭৭* (৮৪ বল: ৮x৪, ১x৬);
পাকিস্তান আর. প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো ১৮ জুন ২০১২ ১০-০-৪১-০; ৮০* (৭৬ বল: ৪x৪, ২x৬);

টি-টুয়েন্টি আন্তর্জাতিক পুরস্কার[সম্পাদনা]

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ পুরস্কার[সম্পাদনা]

ক্রমিক নম্বর প্রতিপক্ষ মাঠ তারিখ ম্যাচে অবদান
ভারত বিউসেজাউর স্টেডিয়াম, গ্রস ইসলেট ১১ মে ২০১০ ৩-০-২৯-০; ৪৬ (৩৭ বল: ৩x৪, ২x৬);

সম্মাননা[সম্পাদনা]

নভেম্বর, ২০১০ সালে শ্রীলঙ্কার 'লিভিং ম্যাগাজিনের' পক্ষ থেকে বর্ষসেরা ব্যক্তিত্ব নির্বাচিত হন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mathews takes over as Sri Lanka's T20 captain"। Wisden India। 24 October 2012। 
  2. Gunaratne, Rochelle Palipane (1 September 2009)। "Angelo Mathews – A phenomenal inspiration!" (PDF)। The Island। সংগৃহীত 30 March 2013 
  3. "Sri Lanka appoint new captain, Sangakkara not retained as Test skipper"Island Cricket। সংগৃহীত 18 April 2011 
  4. "Fit-again Angelo Mathews overlooked for vice-captaincy"Island Cricket। 30 June 2011-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত 9 July 2011 
  5. "Vice captain Kandamby dropped, Karunaratne to debut"Island Cricket। সংগৃহীত 9 July 2011 
  6. "Angelo Mathews named vice-captain : Malinga out of T-20s"The Island। 31 July 2011। সংগৃহীত 6 January 2012 
  7. "Jayawardene new SL captain"Sport24। 23 January 2012। সংগৃহীত 23 January 2012 
  8. "Australia tour of Sri Lanka, 2011, 3rd Test: Sri Lanka v Bangladesh at Colombo (SSC), Mar 16-20, 2013"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 8 January 2014 
  9. "Sri Lanka tour of United Arab Emirates, 2013/14, 1st Test: Sri Lanka v Pakistan at Abu Dhabi, 31 Dec 2013- 4 Jan 2014"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 8 January 2014 
  10. "Angelo Mathews - Personality of the Year for Living magazine"Island Cricket। 13 November 2010-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত 1 December 2010 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
মাহেলা জয়াবর্ধনে
শ্রীলঙ্কান জাতীয় ক্রিকেট অধিনায়ক (টেস্ট ও ওডিআই)
২০১৩-বর্তমান


উত্তরসূরী
নির্ধারিত হয়নি