২০১৪ এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০১৪ এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ
টুর্নামেন্টের বিবরণ
স্বাগতিক দেশমালদ্বীপ
তারিখসমূহ৮-২৩ মার্চ
দলসমূহ

২০১৪ এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ (ইংরেজি: 2014 AFC Challenge Cup) এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন বা এএফসি'র সদস্যভূক্ত দেশসমূহের মধ্যে অনুষ্ঠিত এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ ফুটবল প্রতিযোগিতার পঞ্চম আসর। এর মাধ্যমে ভিশন এশিয়া পরিকল্পনার অধীনে উদীয়মান দেশ নির্ধারণ করা হয়।[১] প্রতিযোগিতার বিজয়ী দল ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত এশিয়ান কাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে।

মালদ্বীপে ৮-২৩ মার্চ, ২০১৪ তারিখ পর্যন্ত সময়কালে এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে।[২] প্রতিযোগিতার নিয়ম-কানুন ২০১২ সালের মতোই রাখা হয়েছে। সর্বমোট ৮টি দল চূড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহণ করবে।[৩] সর্বশেষ প্রতিযোগিতায় উত্তর কোরিয়া জাতীয় ফুটবল দল শিরোপা লাভ করে। এছাড়াও, উত্তর কোরিয়া এ পর্যন্ত সর্বাধিক দুইবার চ্যাম্পিয়ন হবার সৌভাগ্য অর্জন করেছে।

স্বাগতিক দেশ[সম্পাদনা]

এএফসি এ আসর থেকে স্বাগতিক দেশকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে যোগ্যতা অর্জনকারী দল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।[৪]

ভারত,[৫] মালদ্বীপ,[৬] ফিলিপাইন,[৭] এবং তাজিকিস্তান[৮] - এ চারটি দেশ প্রতিযোগিতার স্বাগতিক দেশ হবার আগ্রহ প্রকাশ করে। ১৩ নভেম্বর, ২০১২ তারিখে ফিলিপাইন এবং মালদ্বীপকে চূড়ান্ত তালিকায় রাখা হয়।[৯] ২৮ নভেম্বর এএফসি'র প্রতিযোগিতা কমিটি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্যে সভা আহ্বান করে। সিদ্ধান্ত মোতাবেক মালদ্বীপ স্বাগতিক দেশের মর্যাদা পায়।[১০]

যোগ্যতা নির্ধারণ[সম্পাদনা]

১১ ডিসেম্বর, ২০১২ সালে এএফসি'র সদর দফতর মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে যোগ্যতা নির্ধারণের ড্র অনুষ্ঠিত হয়।[১১] সর্বমোট বিশটি দল ৫ গ্রুপে বিভক্ত হয়ে খেলবে। প্রত্যেক গ্রুপে ৪টি দল থাকবে। প্রত্যেক গ্রুপের বিজয়ী ৫ দল ও গ্রুপের সেরা দ্বিতীয় স্থান অধিকারী দুইটি দলসহ স্বাগতিক মালদ্বীপ এশিয়ান কাপে খেলবে।

২০১২ সালের এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ বিজয়ী উত্তর কোরিয়া দল ২০১৪ সালের প্রতিযোগিতায় অংশ নিবে না বলে জানিয়েছে।[১০]

অংশগ্রহণকারী দেশসমূহ[সম্পাদনা]

দেশ যোগ্যতা অর্জন তারিখ পূর্বে অংশগ্রহণ
 মালদ্বীপ স্বাগতিক দেশ ২৮ নভেম্বর, ২০১২ (২০১২)
 আফগানিস্তান গ্রুপ সি বিজয়ী ৬ মার্চ, ২০১৩ (২০০৬, ২০০৮)
 মিয়ানমার গ্রুপ এ বিজয়ী ৬ মার্চ, ২০১৩ (২০০৮, ২০১০)
 ফিলিস্তিন গ্রুপ ডি বিজয়ী ৬ মার্চ, ২০১৩ (২০০৬, ২০১২)
 লাওস সেরা ২য় স্থান অধিকারী দল ২১ মার্চ, ২০১৩
 কিরগিজিস্তান গ্রুপ বি বিজয়ী ২১ মার্চ, ২০১৩ (২০০৬, ২০১০)
 ফিলিপাইন গ্রুপ ই বিজয়ী ২৬ মার্চ, ২০১৩ (২০০৬, ২০১২)
 তুর্কমেনিস্তান সেরা ২য় স্থান অধিকারী দল ২৬ মার্চ, ২০১৩ (২০০৮, ২০১০, ২০১২)
বাঁকা হরফে স্বাগতিক দলকে নির্দেশ করা হয়েছে

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Regulations - AFC Challenge Cup" (PDF)The-AFC.com। Asian Football Confederation। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৩-২৬ 
  2. "AFC Calendar of Competitions 2014" (PDF)The-AFC.com। Asian Football Confederation। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৪ 
  3. "AFC Challenge Cup 2014 Regulations" (PDF)। AFC। 
  4. "Tajik FF applauded for excellent hosting"The-AFC.com। Asian Football Confederation। ২০১২-১০-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৫ 
  5. "India to bid for 2014 AFC Challenge Cup"Zee News। ২০১২-১০-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৬ 
  6. Ameen Faisal (২০১২-১০-১৩)। "Maldives submits bid to host AFC Challenge Cup"। Maldives Soccer। ২০১২-১০-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-১৭ 
  7. "Philippines keen on Challenge Cup hosting"The-AFC.com। Asian Football Confederation। ২০১২-০৩-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৬ 
  8. "ФФТ подала заявку на проведение финала Кубка вызова АФК-2014"FFT.tj (Russian ভাষায়)। Tajikistan Football Federation। ২০১২-১০-২০। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৫ 
  9. "India's AFC Challenge Cup bid in doubt - report"Goal.com। ২০১২-১১-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১১-২৮ 
  10. "Maldives to host 2014 AFC Challenge Cup"The-AFC.com। Asian Football Confederation। ২৮ নভেম্বর ২০১২। 
  11. "Up for the challenge"The-AFC.com। Asian Football Confederation। ২০১২-১২-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১২-১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]