হুমায়ুন ফরহাত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হুমায়ুন ফরহাত
ہمایوں فرحت
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামহুমায়ুন ফরহাত
জন্ম (1981-01-24) ২৪ জানুয়ারি ১৯৮১ (বয়স ৪০)
লাহোর, পাকিস্তান
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক
সম্পর্কইমরান ফরহাত (ভ্রাতা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৬৮)
২৭ মার্চ ২০০১ বনাম নিউজিল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৩৬)
৮ মার্চ ২০০১ বনাম শ্রীলঙ্কা
শেষ ওডিআই২০ মার্চ ২০০১ বনাম শ্রীলঙ্কা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ৫৪ ৬০
ব্যাটিং গড় ২৭.০০ ২০.০০
১০০/৫০ -/- -/-
সর্বোচ্চ রান ২৮ ৩৯
বল করেছে - -
উইকেট - -
বোলিং গড় - -
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং -/- ৪/৩
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১

হুমায়ুন ফরহাত (উর্দু: ہمایوں فرحت‎‎; জন্ম: ২৪ জানুয়ারি, ১৯৮১) লাহোর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক পাকিস্তানি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ২০০০-এর দশকের সূচনালগ্নে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে পাকিস্তানের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন। দুই ভাইয়ের অন্যতম হিসেবে পাকিস্তানের পক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণের সুযোগ লাভ করেন। তার ভ্রাতা ইমরান ফরহাত[১] পাকিস্তানের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর পাকিস্তানি ক্রিকেটে অ্যালাইড ব্যাংক, হাবিব ব্যাংক ও লাহোর দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন তিনি।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৯৯৭-৯৮ মৌসুম থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত হুমায়ুন ফরহাতের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্ট ও পাঁচটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন হুমায়ুন ফরহাত। পাকিস্তান দলে মঈন খানরশীদ লতিফের ন্যায় উইকেট-রক্ষকদ্বয়ের উপস্থিতিই তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রতিবন্ধকতার প্রধান কারণ ছিল। ২৭ মার্চ, ২০০১ তারিখে হ্যামিল্টনে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি। অন্যদিকে, ৮ এপ্রিল, ২০০১ তারিখে শারজায় শ্রীলঙ্কা দলের বিপক্ষে একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে তার। ২০ এপ্রিল, ২০০১ তারিখে একই মাঠে ও একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ ওডিআইয়ে অংশ নেন তিনি।

মার্চ, ২০০১ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে একটিমাত্র টেস্ট খেলেন। এরফলে, টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে খেলায় তিনি কোন ডিসমিসাল না ঘটানোর অজনপ্রিয় রেকর্ডের সাথে নিজেকে যুক্ত করেন।[২]

অবসর[সম্পাদনা]

২০০৭ সালে অনুমোদনবিহীন ইন্ডিয়ান ক্রিকেট লীগে (আইসিএল) লাহোর বাদশাহের পক্ষে অংশগ্রহণ করেন। ফলশ্রুতিতে, তাকে নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়তে হয়। এছাড়াও, নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্ত হবার পর উদীয়মান কামরান আকমলের উপস্থিতিতে তাকে আর জাতীয় দলে রাখা হয়নি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Profile Retrieved 16 January 2011
  2. Walmsley, Keith (২০০৩)। Mosts Without in Test Cricket। Reading, England: Keith Walmsley Publishing Pty Ltd। পৃষ্ঠা 457। আইএসবিএন 0947540067 .

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]