হারিস চৌধুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হারিস চৌধুরী
হারিস চৌধুরী.jpg
প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব[১]
কাজের মেয়াদ
২০০১ – ২০০৬
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মআবুল হারিস চৌধুরী
১৯৪৭
সিলেট
মৃত্যু৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
ঢাকা
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
দাম্পত্য সঙ্গীজোসনা আরা চৌধুরী
সন্তাননায়েম শাফি চৌধুরী
সামীরা তানজীন চৌধুরী
প্রাক্তন শিক্ষার্থীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
নটর ডেম কলেজ

হারিস চৌধুরী (১৯৪৭ - ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১) একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ, মুক্তিযোদ্ধা ও ব্যবসায়ী ছিলেন। পুরো নাম আবুল হারিছ চৌধুরী, তবে তিনি হারিছ চৌধুরী নামেই পরিচিত ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সদস্য এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব ছিলেন।[২][৩][৪]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

হারিস চৌধুরী ১৯৪৭ সালে সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার দিঘিরপাড় পূর্ব ইউনিয়নের দর্পনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার নানাবাড়ি ভারতের আসামে করিমগঞ্জ জেলার বদরপুরে। তিনি ঢাকার নটর ডেম কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও লোকপ্রশাসন বিভাগ থেকে এমএ পাশ করেন।[৫]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

হারিস চৌধুরীর রাজনৈতিক জীবন শুরু ছাত্রলীগের মাধ্যমে। ১৯৭৭ সালে জিয়াউর রহমানের জাগদলে যোগ দেন। বিএনপি গঠনের পর সংগঠনের সিলেট জেলা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক, সহসভাপতি, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও যুগ্ম মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[৫]

১৯৭৯ সালের দ্বিতীয়১৯৯১ সালের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৫ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে পরাজিত হন তিনি। তবে ১৯৯১ সালে খালেদা জিয়া সরকার গঠন করলে তিনি তার বিশেষ সহকারী নিযুক্ত হন। ২০০১ সালে সরকার গঠন করে খালেদা জিয়া হারিছ চৌধুরীকে রাজনৈতিক সচিব হিসেবে নিয়োগ দেন।[৬]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় অবৈধ সম্পদ অর্জনের জন্য অভিযুক্ত করা হয় হারিস চৌধুরীকে।[৭] তিনি ২০০৭ সালে বাংলাদেশ ত্যাগ করেন।[৮]  তবে তার মৃত্যুর পর লন্ডন বাংলা ভয়েসকে যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক জানান তিনি ঢাকাতেই ছিলেন।[৯]

তাকে তিন বছর জেল দণ্ডিত করা হয়, তত্ত্বাবধায়ক সরকার দ্বারা গঠিত একটি বিশেষ দুর্নীতি বিরোধী ট্রাইব্যুনালে।[১০] তাকে ২০০৫ সালে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়।[১১] এছাড়াও তিনি ২১শে আগস্ট ২০০৪ ঢাকা গ্রেনেড হামলা এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত হন।[১২] ২১ ডিসেম্বর ২০১৪ সালে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।[১৩] ২০১৬ সালে বাংলাদেশের উচ্চ আদালত তার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন।[১৪]

পরিবার[সম্পাদনা]

হারিস চৌধুরীর স্ত্রী জোসনা আরা চৌধুরী ও মেয়ে সামীরা তানজীন চৌধুরী যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন। সামীরা তানজীন চৌধুরী ব্যারিস্টারি পাশ করে ব্রিটিশ সরকারের লিগ্যাল ডিপার্টমেন্টের আইনজীবী হিসেবে কাজ করেন। ছেলে নায়েম শাফি চৌধুরী জনি লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস থেকে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করে জুরিখে একটি তেল কম্পানিতে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেন।[১৫]

পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে তিনি বড়। তার ছোট ভাই সেলিম চৌধুরী (আমরান হোসাইন চৌধুরী ও চৌধুরী এএইচ নামেও পরিচিত। তার বড় বোনের নাম হচ্ছে আখলাসুন নাহার। কামাল চৌধুরী থাকেন সিলেটের কানাইঘাটে গ্রামের বাড়িতে।[১৬][১৭] তার চাচাতো ভাই সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ও কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আশিক চৌধুরী।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

হারিস চৌধুরী ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ সালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। পারিবারিক ভাবে ঢাকায় আজিমপুর কবরস্থানে তার দাফন করা হয়।[১৮][১৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "High Court rejects former prime minister Khaleda Zia's plea"dnaindia.com। Daily News & Analysis। ৭ এপ্রিল ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  2. "Harris Chy among 9 charged with Kibria murder"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ১৩ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  3. Manik, Julfikar Ali; Khan, Sharier। "Harris Chowdhury"archive.thedailystar.net। The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  4. আবু সাঈদ আনসারী (১৬ জানুয়ারি ২০২২)। "হারিস চৌধুরী-এক মুক্তিযোদ্ধাকে যেমন দেখেছি"জাস্ট নিউজ বিডি ডটকম। ২৭ জানুয়ারি ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০২২ 
  5. News, Somoy। "হারিছ চৌধুরীর মৃত্যু নিয়ে নতুন তথ্য | বাংলাদেশ"Somoy News। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৭ 
  6. "Sacked Sylhet mayor Ariful out of jail on bail"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  7. "Jail term for Khaleda Zia adviser"news.bbc.co.uk। BBC NEWS। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  8. "Harris the fortune-maker"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ আগস্ট ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  9. "ব্রেকিং নিউজ: হারিছ চৌধুরীর মৃত্যু হয়েছে ঢাকায়, লন্ডনে নয় দাবী যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতির"লন্ডন বাংলা ভয়েস। ১২ জানুয়ারি ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০২২ 
  10. "Three more top Bangladeshis held"news.bbc.co.uk। BBC NEWS। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  11. "Deputy speaker blames failure to try policemen's killers for Liton murder, seeks security for MPs"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  12. "Khaleda's ex-political secretary Harris Chowdhury implicated in Kibria murder"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  13. "Arrest warrants for Harris Chowdhury, BNP mayors in Kibria murder"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  14. "Court orders impounding of assets of 10 fugitives in explosives case over ex-minister Kibria murder"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  15. "লন্ডনে হারিছ চৌধুরী, আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়! | কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। ২০২১-০৮-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৭ 
  16. Manik, Julfikar Ali (২০০৮-০৮-১৫)। "Harris the fortune-maker"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৭ 
  17. Manik, Julfikar Ali (২০০৮-০৮-১৫)। "Harris the fortune-maker"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৭ 
  18. প্রতিনিধি। "হারিছ চৌধুরী যুক্তরাজ্যে মারা গেছেন, জানালেন চাচাতো ভাই"Prothomalo। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৭ 
  19. "BNP leader Harris Chowdhury dies"risingbd.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৭