সিলন অধিরাজ্য

স্থানাঙ্ক: ৬°৫৬′০৪″ উত্তর ৭৯°৫০′৩৪″ পূর্ব / ৬.৯৩৪৪৪° উত্তর ৭৯.৮৪২৭৮° পূর্ব / 6.93444; 79.84278
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সিলন[১]

১৯৪৮–১৯৭২
১৯৪৮ থেকে ১৯৫১ পর্যন্ত সিলনের পতাকা
১৯৫১ থেকে ১৯৭২ পর্যন্ত সিলনের পতাকা
উপরে: পতাকা (১৯৪৮–১৯৫১)
নিচে: পতাকা (১৯৫১–১৯৭২)
সিলনের জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
জাতীয় সঙ্গীত: শ্রীলঙ্কা মাতা (১৯৫১–১৯৭২)

গড সেইভ দ্য কিং/কুইন (১৯৪৮–১৯৫১)
সিলনের অবস্থান
রাজধানী
ও বৃহত্তম নগরী বা বসতি
কলম্বো
৬°৫৬′০৪″ উত্তর ৭৯°৫০′৩৪″ পূর্ব / ৬.৯৩৪৪৪° উত্তর ৭৯.৮৪২৭৮° পূর্ব / 6.93444; 79.84278
প্রচলিত ভাষাসিংহল · তামিল · ইংরেজি
ধর্ম
বৌদ্ধধর্ম · হিন্দুধর্ম · খ্রিস্টধর্ম · ইসলাম
জাতীয়তাসূচক বিশেষণসিলনীয়
সরকারএকক সংসদীয় সাংবিধানিক রাজতন্ত্র
সম্রাট 
• ১৯৪৮–১৯৫২
ষষ্ঠ জর্জ
• ১৯৫২–১৯৭২
দ্বিতীয় এলিজাবেথ
গভর্নর-জেনারেল 
• ১৯৪৮–১৯৪৯
স্যার হেনরি মনক-মেসন মুর
• ১৯৪৯–১৯৫৪
লর্ড সোলবেরি
• ১৯৫৪–১৯৬২
স্যার অলিভার আর্নেস্ট গুনিতিলেকে
• ১৯৬২–১৯৭২
উইলিয়াম গোপালাওয়া
প্রধানমন্ত্রী 
• ১৯৪৮–১৯৫২
ডি. এস. সেনানায়ক
• ১৯৫২–১৯৫৩
ডুডলি সেনানায়ক
• ১৯৫৩–১৯৫৬
জন কোটেলাওয়ালা
• ১৯৫৬–১৯৫৯
সলোমন বণ্ডারনায়ক
• ১৯৬০–১৯৭২
সিরিমাবো বণ্ডারনায়ক
আইন-সভাসিলনের সংসদ
সিনেট
প্রতিনিধি পরিষদ
ইতিহাস 
৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮
১৯৭১
২২ মে ১৯৭২
আয়তন
১৯৫৬[২]৬৫,৬১০ বর্গকিলোমিটার (২৫,৩৩০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা
• ১৯৫৬[২]
৮,১০৪,০০০
মুদ্রাসিলনীয় রুপি
পূর্বসূরী
উত্তরসূরী
ব্রিটিশ সিলন
শ্রীলঙ্কা
"Sri Lanka"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১০ 
"Ceylon Independent, 1948–1956"। World History at KMLA। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১০ 

সিলন[১][৩] ১৯৪৮ থেকে ১৯৭২ সালের মধ্যে কমনওয়েলথ অফ নেশনসের অধীনে একটি স্বাধীন দেশ ছিল যেটি কমনওয়েলথের অন্যান্য আধিপত্যের পাশাপাশি একজন রাজার অধীনস্থ ছিলো। ১৯৪৮ সালে সিলনের ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক সিলন স্বাধীনতা লাভ করে। ১৯৭২ সালে, দেশটি কমনওয়েলথের একটি প্রজাতন্ত্রে পরিণত হয় ও এর নাম পরিবর্তন করে শ্রীলঙ্কা রাখা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

স্বাধীনতা ও প্রবৃদ্ধি[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর স্বাধীনতার জন্য জনসাধারণের চাপ বৃদ্ধি পায়। সিলনের ব্রিটিশ শাসিত উপনিবেশ ৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮-এ স্বাধীনতা অর্জন করে, একই তারিখে একটি সংশোধিত সংবিধান কার্যকর হয়। সিলন স্বাধীনতা আইন ১৯৪৭-এর অধীনে স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছিল। যুক্তরাজ্যের সাথে সামরিক চুক্তিগুলো দেশে অক্ষত ব্রিটিশ বিমান ও সমুদ্র ঘাঁটি সংরক্ষণ করে; ব্রিটিশ কর্মকর্তারাও সিলন সেনাবাহিনীর বেশিরভাগ উচ্চ পদ পূরণ করতে থাকে। ডি. এস. সেনানায়ক সিলনের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন। পরবর্তীতে ১৯৪৮ সালে সিলন জাতিসংঘের সদস্যপদ পাওয়ার জন্য আবেদন করলে সোভিয়েত ইউনিয়ন আবেদনে ভেটো প্রদান করে। এটি ছিল আংশিকভাবে কারণ সোভিয়েত ইউনিয়ন বিশ্বাস করেছিল যে সিলন শুধুমাত্র নামমাত্র স্বাধীন ছিল ও ব্রিটিশরা এখনও এটির উপর নিয়ন্ত্রণ প্রয়োগ করেছিল কেননা সরকারের উপর শ্বেতাঙ্গ, শিক্ষিত অভিজাতদের নিয়ন্ত্রণ ছিল।[৪] ১৯৪৯ সালে শ্রীলঙ্কার তামিল নেতাদের সম্মতিতে ইউএনপি সরকার ভারতীয় তামিল বাগান কর্মীদের ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করে।[৫][৬] ১৯৫০ সালে সিলন কলম্বো পরিকল্পনার মূল সদস্যদের একজন হয়ে ওঠে ও শ্রীলঙ্কার সদস্য হিসেবে রয়ে যায়।

ডন সেনানায়ক ১৯৫২ সালে মারা যান ও তার পুত্র ডুডলি তার স্থলাভিষিক্ত হন। যাইহোক, ১৯৫৩ সালে ইউএনপি-র বিরুদ্ধে বামপন্থী দলগুলোর ব্যাপক সাধারণ ধর্মঘট বা 'হরতাল'-এর পরে ডুডলি সেনানায়ক পদত্যাগ করেন। তার পরে ছিলেন একজন উর্ধ্বতন রাজনীতিবিদ, সামরিক কমান্ডার ও ডুডলির চাচা জেনারেল স্যার জন এল. কোটেলাওয়ালা। কোটেলাওয়ালার ব্যক্তিগত প্রতিপত্তি বা ডিএস সেনানায়কের ন্যায় রাজনৈতিক বুদ্ধি ছিল না।[৭] ডিএস সেনানায়ক যে জাতীয় ভাষার ইস্যু স্থগিত করেছিলেন তা তিনি সামনে আনেন। সিলনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ১৯৫৪ সালে ১০ থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দ্বীপটি সফর করেছিলেন (দেশটি প্রজাতন্ত্র হওয়ার পর তিনি ২১ থেকে ২৫ অক্টোবর ১৯৮১ সালেও সফর করেছিলেন[৮])।

১৯৫৬ সালে ইউএনপি নির্বাচনে মহাজানা একসাথ পেরামুনার কাছে পরাজিত হয়েছিল, যার মধ্যে সলোমন বণ্ডারনায়কের নেতৃত্বে শ্রীলঙ্কা ফ্রিডম পার্টি (এসএলএফপি) ও ফিলিপ গুনাওয়ার্দেনের ভিপ্লভাকারি লঙ্কা সম সমাজ পার্টি অন্তর্ভুক্ত ছিল। বন্দরনায়েকে একজন রাজনীতিবিদ যিনি ১৯৩০ সাল থেকে সিংহলি জাতীয়তাবাদকে লালন-পালন করতেন। তিনি ইংরেজির পরিবর্তে সিংহলকে সরকারি ভাষা হিসেবে ঘোষণা করেন। তিনি ছিলেন প্রধান সিংহলীয় মুখপাত্র যিনি জি জি পোন্নামবালাম দ্বারা প্রকাশিত সাম্প্রদায়িক রাজনীতির বিরুদ্ধে লড়াই করার চেষ্টা করেছিলেন।[৫] বিলটি শুধুমাত্র সিংহলী বিল নামে পরিচিত ছিল ও সিংহল ভাষাকে বিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হয়। এটি তামিল দাঙ্গার কারণ ছিলো, কেননা তারা তামিল ভাষায় কথা বলত যা একটি সরকারি ভাষা হিসাবে স্বীকৃত ছিল না। এই দাঙ্গার পরিসমাপ্তি ঘটে প্রধানমন্ত্রী বন্দরনায়ককে হত্যার মধ্য দিয়ে। তার বিধবা স্ত্রী সিরিমাবো তার স্বামীর স্থলাভিষিক্ত হন এসএলএফপির নেতা হিসেবে এবং বিশ্বের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হন। ১৯৫৭ সালে ব্রিটিশ ঘাঁটি অপসারণ করা হয় ও সিলন আনুষ্ঠানিকভাবে একটি "অসংলগ্ন" দেশে পরিণত হয়। ফিলিপ গুনাওয়ার্দেনার মস্তিষ্কপ্রসূত ধান ভূমি আইন পাশ করা হয়েছিল যা জমিতে কর্মরতদের অনুপস্থিত জমির মালিকদের তুলনায় আরও বেশি অধিকার প্রদান করে।[৯]

সংশোধন[সম্পাদনা]

জুলাইয়ের নির্বাচনে সিরিমাবো বণ্ডারনায়ক বিশ্বের প্রথম নির্বাচিত মহিলা সরকার প্রধান হন। তার সরকার তামিলদের সাথে আরও সংঘর্ষ এড়ায়, কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সাম্যবাদ-বিরোধী নীতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য বন্ধ করে দেয় যা সিলনে একটি ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক সংকটের দিকে পরিচালিত করে। ইউএনপিকে আবার ক্ষমতায় আনার অভিপ্রায়ে প্রধানত অবৌদ্ধ ডানপন্থী সেনাবাহিনী ও পুলিশ কর্মকর্তাদের দ্বারা একটি অভ্যুত্থানের চেষ্টার পর, বণ্ডারনায়ক তেল কোম্পানিগুলো জাতীয়করণ করেন। এটি তেল কার্টেল দ্বারা দেশকে বয়কটের দিকে পরিচালিত করে, যা কানসাস তেল উৎপাদনকারী সমবায়ের সহায়তায় ভেঙে দেওয়া হয়েছিল।

১৯৬২ সালে এসএলএফপির আমূল নীতির অধীনে অনেক পশ্চিমা ব্যবসায়িক সম্পত্তি জাতীয়করণ করা হয়েছিল। জব্দ করা সম্পদের জন্য ক্ষতিপূরণ নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের সাথে বিরোধ সৃষ্টি করেছিল। এই ধরনের নীতির ফলে এসএলএফপির ক্ষমতার সাময়িক পতন ঘটে ও ইউএনপি সংসদে আসন লাভ করে। যাইহোক, ১৯৭০ সালের দিকে এসএলএফপি আবার প্রভাবশালী শক্তি হয়ে উঠেছিলো।[১০]

১৯৬৪ সালে বণ্ডারনায়ক অর্থমন্ত্রী হিসেবে ডক্টর এনএম পেরেরাকে নিয়ে একটি ট্রটস্কিস্ট পার্টি এলএসএসপির সাথে একটি জোট সরকার গঠন করেন। তা সত্ত্বেও সিরিমাভো কট্টর বামপন্থীদের সন্তুষ্ট করতে ব্যর্থ হওয়ার পর, মার্কসবাদী জনতা বিমুক্তি পেরুমানা ১৯৭১ সালে সরকারকে উৎখাত করার চেষ্টা করে।

১৯৭২ সালে ব্রিটিশ, সোভিয়েত ও ভারতের সহায়তায় বিদ্রোহ দমন করা হয় এবং পরবর্তীতে ১৯৭২ সালে বর্তমান সংবিধান গৃহীত হয় ও দেশের নাম পরিবর্তন করে শ্রীলঙ্কা করা হয়।[১০] ১৯৭২ সালে দেশটি আনুষ্ঠানিকভাবে কমনওয়েলথের একটি প্রজাতন্ত্রে পরিণত হয় ও উইলিয়াম গোপালাওয়া শ্রীলঙ্কার প্রথম রাষ্ট্রপতি হন।

সরকার ও রাজনীতি[সম্পাদনা]

ডন সেনানায়ক, সিলনের প্রথম প্রধানমন্ত্রী

সিলনের সংবিধান একটি সংসদীয় গণতন্ত্র তৈরি করে যার মধ্যে একটি দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট আইনসভা হয়, যার মধ্যে একটি সিনেট ও একটি প্রতিনিধি পরিষদ ছিলো,[১১] জনপ্রিয় নির্বাচিত কক্ষকে পরোক্ষভাবে সিনেট বলা হতো।[১২] এই রাষ্ট্রের প্রধান ছিলেন ব্রিটিশ রাজা, গভর্নর জেনারেল দ্বারা দেশটির প্রতিনিধিত্ব করা হতো। সিলনের সরকারের প্রধান ছিলেন প্রধানমন্ত্রী, এবং তিনি/তিনি ও তাঁর মন্ত্রিসভা আইনসভার বৃহত্তম রাজনৈতিক দল নিয়ে গঠিত হতো।

প্রাথমিকভাবে এর প্রধান দল ছিল ইউএনপি তথা ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টি। প্রথম সংসদীয় নির্বাচনে ইউএনপি উপলব্ধ ৯৫টি আসনের মধ্যে ৪২টি আসন লাভ করে ও ১৯৫২ সালের নির্বাচনেও জয়লাভ করে। প্রথম প্রধানমন্ত্রী ডি. এস. সেনানায়ক মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে মারা যাওয়ায় তার ছেলে কৃষিমন্ত্রী ডুডলি সেনানায়ক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হন। ১৯৫৬ সালে উগ্র সমাজতান্ত্রিক এসএলএফপি (শ্রীলঙ্কা ফ্রিডম পার্টি) নির্বাচনে জয়লাভ করে ও সলোমন বণ্ডারনায়ক ক্ষমতা দখল করে। ১৯৫৯ সালে একজন বৌদ্ধ সন্ন্যাসী তাকে হত্যা করে ও তার বিধবা সিরিমাবো এসএলএফপির নেতা হিসেবে তার স্থলাভিষিক্ত হন। তিনি ১৯৬০ ও ১৯৬৫-১৯৭০ এর ইউএনপির ক্ষমতায় থাকা দুটি ব্যতিক্রম ছাড়া ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। তার শাসনামলে তিনি জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনের অংশ হিসেবে জাতীয়করণ ও ভূমি সংস্কারের একটি আমূল অর্থনৈতিক কর্মসূচি, একটি সিংহলিপন্থী শিক্ষা ও কর্মসংস্থান নীতি এবং একটি স্বাধীন পররাষ্ট্র নীতি বাস্তবায়ন করেছিলেন।[১৩]

১৯৪৮ সালে যখন সিলন যুক্তরাজ্য থেকে স্বাধীনতা অর্জন করে তখন এর গভর্নরকে একজন গভর্নর-জেনারেল দিয়ে প্রতিস্থাপিত করা হয়। গভর্নর-জেনারেল লন্ডনের কাছে নয় বরং সিলনের রাজা, স্থানীয় সরকার ও স্থানীয় সংসদের কাছে দায়বদ্ধ ছিলেন। গভর্নর-জেনারেলের এই ভূমিকাটি সাধারণত আনুষ্ঠানিক ছিল, তবে এটি ক্রাউনের 'সংরক্ষিত ক্ষমতা' নিয়ে এসেছিল যা গভর্নর জেনারেলকে উদাহরণ স্বরূপ প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত করার অনুমতি দেয় (যেমন ক্ষমতা সহ, গভর্নর-জেনারেলকে দায়িত্বশীল অরাজনৈতিক হিসাবে কাজ করতে হয়েছিল। সরকারের 'রেফারি', জাতীয় সংবিধানকে 'রুলবুক' হিসাবে ব্যবহার করে)। রাজার নিম্নলিখিত শৈলী এবং উপাধি ছিল:

  • ১৯৪৮-১৯৫২: মহামান্য জর্জ ষষ্ঠ, ঈশ্বরের কৃপায়, গ্রেট ব্রিটেন, আয়ারল্যান্ড ও ব্রিটিশ আধিপত্য সমুদ্রের ওপারে, বিশ্বাসের রক্ষক।
  • ১৯৫২-১৯৫৩: মহামান্য দ্বিতীয় এলিজাবেথ, ঈশ্বরের কৃপায়, গ্রেট ব্রিটেন, আয়ারল্যান্ড ও ব্রিটিশ আধিপত্য সমুদ্রের ওপারে, বিশ্বাসের রক্ষক।
  • ১৯৫৩-১৯৭২: মহামহিম দ্বিতীয় এলিজাবেথ, সিলনের রানী ও তার অন্যান্য রাজ্য ও অঞ্চলের, কমনওয়েলথের প্রধান।

রাজ্যাভিষেক শপথে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন "তাদের নিজ নিজ আইন এবং রীতি অনুযায়ী সিলন ... জনগণকে শাসন করার . . ."[১৪] রাজ্যাভিষেকে সিলনের স্ট্যান্ডার্ড স্যার এডউইন এপি উইজেয়েরত্ন বহন করেছিলেন।[১৫]

রাষ্ট্রপ্রধানদের তালিকা[সম্পাদনা]

১৯৪৮ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত সিলন রাজ্যের প্রধান ছিলেন যুক্তরাজ্যের রাজার মতো একই ব্যক্তি। সিলনের গভর্নর-জেনারেল রাষ্ট্রপ্রধানের দায়িত্ব পালন করেন।

সম্রাট[সম্পাদনা]

সিলনের সম্রাট, ১৯৪৮–১৯৭২
চিত্র নাম জন্ম শাসন মৃত্যু সহধর্মী/সহধর্মিণী পূর্বসূরীর সাথে সম্পর্ক রাজবংশ
King George VI LOC matpc.14736 A (cropped).jpg ষষ্ঠ জর্জ ১৪ ডিসেম্বর ১৮৯৫ ৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮
 –
৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২
৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২ দ্বিতীয় এলিজাবেথ নেই (পদ সৃষ্টি হয়েছে) উইন্ডসর
Queen Elizabeth II 1959.jpg দ্বিতীয় এলিজাবেথ ২১ এপ্রিল ১৯২৬ ৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২
 –
২২ মে ১৯৭২
জীবিত রাজপুত্র ফিলিপ ষষ্ঠ জর্জের কন্যা

গভর্নর-জেনারেল[সম্পাদনা]

চিত্র নাম

(জন্ম–মৃত্যু)

দায়িত্ব গ্রহণ অবসর নিয়োগকারী
সিলনের গভর্নর-জেনারেল, ১৯৪৮–১৯৭২
Unknown person.jpg স্যার হেনরি মনক-মেসন মুর
GCMG KStJ
(১৮৮৭–১৯৬৪)
৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮ ৬ জুলাই ১৯৪৯ ষষ্ঠ জর্জ
Herwald Ramsbotham, 1st Viscount Soulbury.jpg হেরওয়াল্ড রামসবোথাম, ১ম ভিসকাউন্ট সোলবারি
GCMG GCVO ওবিই এমসি PC
(১৮৮৭–১৯৭১)
৬ জুলাই ১৯৪৯ ১৯৫৩
দ্বিতীয় এলিজাবেথ
Unknown person.jpg Acting
জাস্টিস আর্থার উইজেবর্ডেনা
(১৮৮৭–১৯৬৪)
১৯৫৩ ১৯৫৩
Herwald Ramsbotham, 1st Viscount Soulbury.jpg হেরওয়াল্ড রামসবোথাম, ১ম ভিসকাউন্ট সোলবারি
GCMG GCVO ওবিই এমসি PC
(১৮৮৭–১৯৭১)
১৯৫৩ ১৯৫৩
Unknown person.jpg ভারপ্রাপ্ত

জাস্টিস সি. নাগলিঙ্গম
KC
(১৮৯৩–১৯৫৮)

১৯৫৪ ১৯৫৪
Herwald Ramsbotham, 1st Viscount Soulbury.jpg হেরওয়াল্ড রামসবোথাম, ১ম ভিসকাউন্ট সোলবারি
GCMG GCVO ওবিই এমসি PC
(১৮৮৭–১৯৭১)
১৯৫৪ ১৭ জুলাই ১৯৫৪
Sir Oliver Goonetilleke.gif স্যার অলিভার আর্নেস্ট গুনিতিলেকে
GCMG KCVO KBE
(১৮৯২–১৯৭৮)
১৭ জুলাই ১৯৫৪ ২ মার্চ ১৯৬২
William Gopallawa.jpg উইলিয়াম গোপালাওয়া
এমবিই
(১৮৯৭–১৯৮১)
২ মার্চ ১৯৬২ ২২ মে ১৯৭২

সমস্যা[সম্পাদনা]

সিলন সরকারের বেশ কিছু সমস্যা ছিল, প্রধান সমস্যা হল সরকার জনসংখ্যার শুধুমাত্র একটি ছোট অংশের প্রতিনিধিত্ব করত, প্রধানত ধনী, ইংরেজি-শিক্ষিত অভিজাত গোষ্ঠী। সিংহলিতামিল সংখ্যাগরিষ্ঠরা উচ্চবিত্তের মূল্যবোধ এবং ধারণাগুলো গ্রহণ করেনি এবং এটি প্রায়শই দাঙ্গার দিকে পরিচালিত করে।[১৩][১৬]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

সিলনের অর্থনীতি ছিল প্রধানত কৃষি, চা, রাবার এবং নারকেল সমন্বিত প্রধান রপ্তানি ভিত্তিক। এগুলো বিদেশী বাজারে ভাল বাণিজ্য করেছে, যা মূল্যের ভিত্তিতে রপ্তানি অংশের ৯০%।[১২] ১৯৬৫ সালে সিলন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় চা রপ্তানিকারক হয়ে ওঠে যখন বছরে ২০০,০০০ টন চা আন্তর্জাতিকভাবে পাঠানো হতো।[১৭] রপ্তানি প্রাথমিকভাবে ভাল বিক্রি হয়েছিল, কিন্তু চা ও রাবারের দাম কমে যাওয়ায় আয় কমে যায়, দ্রুত বর্ধিত জনসংখ্যা সেই মুনাফাগুলোকে আরও কমিয়ে দেয়। ১৯৭০-এর দশকের গোড়ার দিকে সিলন সরকার নবনির্বাচিত সরকারের সমাজতান্ত্রিক নীতির অংশ হিসাবে ব্যক্তিগতভাবে থাকা অনেক সম্পত্তি জাতীয়করণ করে।[১৮]

১৯৭২ সালের ভূমি সংস্কার আইন ব্যক্তিগতভাবে মালিকানাধীন হতে পারে এমন সর্বোচ্চ বিশ হেক্টর জমি আরোপ করেছে ও ভূমিহীন শ্রমিকদের সুবিধার জন্য অতিরিক্ত জমি পুনরায় বরাদ্দ করার চেষ্টা করেছে। যেহেতু সরকারি কোম্পানীর মালিকানাধীন দশ হেক্টরের কম জমির আয়তন আইন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল, একটি উল্লেখযোগ্য পরিমাণ জমি যা অন্যথায় পুনর্বণ্টনের জন্য উপলব্ধ ছিল তা আইনের অধীন ছিল না। ১৯৭২ থেকে ১৯৭৪ সালের মধ্যে নতুন আইন দ্বারা গঠিত ভূমি সংস্কার কমিশন প্রায় ২২৮,০০০ হেক্টর দখল করেছিল, যার এক তৃতীয়াংশ ছিল বন ও বাকি বেশিরভাগ চা, রাবার বা নারকেল দিয়ে রোপণ করা হয়েছিল। কিছু ধানক্ষেত প্রভাবিত হয়েছিল কারণ তাদের প্রায় ৯৫ শতাংশ সর্বোচ্চ সীমার নীচে ছিল। সরকার কর্তৃক অধিগ্রহণকৃত জমির খুব কমই ব্যক্তিদের নিকট হস্তান্তর করেছে। বেশিরভাগই বিভিন্ন সরকারি সংস্থা বা সমবায় সংস্থার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিল, যেমন আপ-কান্ট্রি কো-অপারেটিভ এস্টেট ডেভেলপমেন্ট বোর্ড। ১৯৭২ সালের ভূমি সংস্কার আইন শুধুমাত্র অধিষ্ঠিত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ছিলো। এটি যৌথ-স্টক কোম্পানিগুলোর মালিকানাধীন বাগানগুলোকে অস্পৃশ্য রেখে গেছে, যার মধ্যে অনেকগুলো ছিলো ব্রিটিশ মালিকানাধীন। ১৯৭৫ সালে ভূমি সংস্কার (সংশোধন) আইন এই এস্টেটগুলোকে রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। এই আইনের অধীনে ৩৯৫টি এস্টেট সমন্বিত ১৬৯,০০০ হেক্টরেরও বেশি দখল করা হয়েছে। এই জমির বেশির ভাগই চা ও রাবার লাগানো হয়েছে। ফলস্বরূপ চা চাষ করা জমির প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ রাষ্ট্রীয় খাতে রাখা হয়েছিল। রাবার ও নারকেলের জন্য স্বতন্ত্র অনুপাত ছিল ৩২ ও ১০ শতাংশ। সরকার ১৯৭২ ও ১৯৭৫ উভয় আইনের অধীনে দখলকৃত জমির মালিকদের কিছু ক্ষতিপূরণ দিয়েছে। ১৯৮৮ সালের গোড়ার দিকে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বৃক্ষরোপণগুলো দুটি ধরণের সত্ত্বার একটি দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল, জনতা এস্টেটস ডেভেলপমেন্ট বোর্ড বা শ্রীলঙ্কা স্টেট প্ল্যান্টেশন কর্পোরেশন।[১৯] উপরন্তু শিক্ষার একটি পরিমার্জিত ব্যবস্থা দক্ষ কর্মীদের একটি আধিক্য তৈরি করেছে যারা কর্মসংস্থান খুঁজে পায়নি।

মুদ্রা[সম্পাদনা]

সিলনের সরকারি মুদ্রা ছিল সিলনীয় রুপি। রুপি ভারতীয় রুপি থেকে বিবর্তিত হয়েছিল, যখন ১৯২৯ সালে ভারতীয় রুপি থেকে আলাদা হয়ে একটি নতুন সিলনীয় রুপি গঠিত হয়েছিল।[২০] ১৯৫০ সালে ভারতীয় মুদ্রা ব্যবস্থার একটি অংশ হিসাবে ১৮৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত মুদ্রা বোর্ড শ্রীলঙ্কার কেন্দ্রীয় ব্যাংক দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছিল, যা দেশটিকে মুদ্রার উপর আরও বেশি নিয়ন্ত্রণ প্রদান করে। ১৯৫১ সালে সিলনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ১ ও ১০ টাকার নোট প্রবর্তন করে কাগুজে অর্থ প্রদানের দায়িত্ব নেয়। এরপর ১৯৫২ সালে ২, ৫, ৫০ ও ১০০ টাকার নোট এসেছিলো। ১ রুপির নোট ১৯৬৩ সালে ধাতব মুদ্রা দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছিল। ১৯৬৩ সালে একটি নতুন ধাতব মুদ্রা চালু করা হয়েছিল যা রাজার প্রতিকৃতি বাদ দিয়েছিল। ইস্যুকৃত ধাতব মুদ্রাগুলো হলো অ্যালুমিনিয়াম ১ ও ২ পয়সা, নিকেল ব্রাস ৫ ও ১০ পয়সা এবং পিতল-নিকেল ২৫ ও ৫০ পয়সা ও ১ টাকা। ১৯৬৩ সাল থেকে জারি করা ধাতব মুদ্রার অগ্রভাগে কুলচিহ্ন রয়েছে। যাইহোক, ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত সিলন রুপি ১:১ মূল্যে ভারতীয় রুপির সাথে বিনিময়যোগ্য ছিল। ১৯৬৬ সালে সিলনীয় রুপি মার্কিন ডলারে ৪.৭৬ হারে নির্ধারণ করা হয়েছিল।[২১]

সামরিক বাহিনী[সম্পাদনা]

সেনাবাহিনী[সম্পাদনা]

দ্য আর্ল অফ ক্যাথনেস একটি গার্ড ইউনিট পরিদর্শন করছে

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে সিলন সেনাবাহিনীর পূর্বসূরি সিলন প্রতিরক্ষা বাহিনী বন্ধ হতে শুরু করে। স্বাধীনতার পর সিলন ১৯৪৭-এর দ্বি-পার্শ্বিক অ্যাংলো-সিলোনীউ প্রতিরক্ষা চুক্তিতে প্রবেশ করে। এটি সেনা আইন নং ১৭ অনুযায়ী হয়েছিলো যার মধ্যে ১১ এপ্রিল ১৯৪৯ তারিখে সংসদে পাস হয়েছিল ও ১০ অক্টোবর ১৯৪৯-এর গেজেট এক্সট্রাঅর্ডিনারি নং ১০০২৮-এ আনুষ্ঠানিক রূপ দেওয়া হয়েছিল। এটি একটি নিয়মিত ও স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী নিয়ে গঠিত সিলন সেনাবাহিনীর সৃষ্টিকে চিহ্নিত করেছে যা পরবর্তীটি ভেঙে যাওয়া সিলন প্রতিরক্ষা বাহিনীর উত্তরসূরি।[২২][২৩] ১৯৪৭ সালের প্রতিরক্ষা চুক্তিটি আশ্বাস দেয় যে ব্রিটিশরা সিলনকে বিদেশী শক্তি দ্বারা আক্রমণ করার ক্ষেত্রে সাহায্য করতে আসবে ও দেশটির সামরিক বাহিনী গড়ে তোলার জন্য ব্রিটিশ সামরিক উপদেষ্টাদের প্রদান করবে। ব্রিগেডিয়ার জেমস সিনক্লেয়ার, দ্য আর্ল অফ ক্যাথনেস, সিলন সেনাবাহিনীর কমান্ডিং জেনারেল অফিসার হিসাবে নিযুক্ত হন, যেমন সিলন আর্মির প্রথম কমান্ডার হন।

কোন বড় বহিঃহুমকির অভাবের কারণে সেনাবাহিনীর বৃদ্ধি স্থবির ছিল ও সেনাবাহিনীর প্রাথমিক দায়িত্বগুলি দ্রুত ১৯৫০-এর দশকের মাঝামাঝি অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার দিকে চলে যায়। সিলন সেনাবাহিনীর প্রথম অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা অভিযান, কোড নাম অপারেশন মন্টি, ১৯৫২ সালে রাজকীয় সিলন নৌবাহিনীর উপকূলীয় টহল ও পুলিশ অভিযানের সমর্থনে চোরাকারবারীদের দ্বারা আনা অবৈধ দক্ষিণ ভারতীয় অভিবাসীদের অনুপ্রবেশ মোকাবেলা করার জন্য শুরু হয়েছিল। এটি ১৯৬৩ সালে টাস্ক ফোর্স অ্যান্টি-ইলিসিট ইমিগ্রেশন হিসাবে প্রসারিত ও পুনঃনামকরণ করা হয়েছিল এবং ১৯৮১ পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। ১৯৫৩ সালের হরতাল, ১৯৫৬ সালের গল ওয়া উপত্যকার দাঙ্গার সময় প্রাদেশিক জরুরী প্রবিধানের অধীনে শান্তি পুনরুদ্ধার করতে পুলিশকে সাহায্য করার জন্য সেনাবাহিনীকে সংগঠিত করা হয়েছিল ও ১৯৫৮ সালে দাঙ্গার সময় এটি প্রথমবারের মতো দ্বীপ জুড়ে জরুরী প্রবিধানের অধীনে[২৪] সেনাবাহিনী কাজে লাগানো হয়েছিল।

১৯৬২ সালে বেশ কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক কর্মকর্তা একটি সামরিক অভ্যুত্থানের চেষ্টা করেছিলেন, যা চালু হওয়ার কয়েক ঘন্টা আগে বন্ধ করা হয়েছিল। এই অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা সামরিক বাহিনীকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করেছিল; যেহেতু সরকার সামরিক বাহিনীকে অবিশ্বাস করেছিল, তাই এটি সেনাবাহিনীর আকার ও বৃদ্ধি হ্রাস করে, বিশেষ করে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর, বেশ কয়েকটি ইউনিট ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। ১৯৭২ সালের মে মাসে সিলনকে একটি প্রজাতন্ত্র ঘোষণা করা হয় ও সিলন থেকে এর নাম পরিবর্তন করে "শ্রীলঙ্কা প্রজাতন্ত্র" এবং ১৯৭৮ সালে "শ্রীলঙ্কার গণতান্ত্রিক সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র" করা হয়। সেই অনুসারে সমস্ত সেনা ইউনিটের নাম পরিবর্তন করা হয়েছিল।

নৌবাহিনী[সম্পাদনা]

স্বাধীনতা লাভের পর কৌশলবিদরা বিশ্বাস করতেন যে নৌবাহিনীকে গড়ে তুলতে হবে ও পুনর্গঠন করতে হবে। পূর্ববর্তী নৌবাহিনী সিলন নৌ স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী ও সিলন রয়্যাল নেভাল ভলান্টিয়ার রিজার্ভ নিয়ে গঠিত ছিলো। ৯ ডিসেম্বর ১৯৫০-এ প্রাক্তন সিলন রয়্যাল নেভাল ভলান্টিয়ার রিজার্ভ নিয়ে গঠিত প্রধান বাহিনী নিয়ে রাজকীয় সিলন নৌবাহিনী তৈরি করা হয়েছিল। প্রথম জাহাজটি যেটি চালু করা হয়েছিল তা হল একটি আলজেরিন-শ্রেণীর মাইনসুইপার এইচএমসিএস বিজয়া। এ সময় নৌবাহিনী বেশ কয়েকটি যৌথ নৌ মহড়ায় অংশ নেয় ও সুদূর পূর্বাঞ্চলে একটি শুভেচ্ছা সফর করে। যাইহোক, ১৯৬২ সালে নৌবাহিনীর সম্প্রসারণ নাটকীয়ভাবে বন্ধ হয়ে যায় যখন সামরিক অভ্যুত্থানের চেষ্টার সময় নৌবাহিনীর অধিনায়ককে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল। সরকারের প্রতিশোধের ফলে নৌবাহিনীর অনেক ক্ষতি হয়েছে, যার ফলে তার বেশ কয়েকটি জাহাজ বিক্রি হয়ে গেছে, সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে অফিসার ক্যাডেট এবং নাবিকদের নিয়োগ বন্ধ করে, গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি ও ব্যারাকের ক্ষতি এবং ইংল্যান্ডে প্রশিক্ষণ বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে এর আকার হ্রাস পেয়েছে। ফলস্বরূপ, ১৯৭১ সালে যখন ১৯৭১-এর জেভিপি বিদ্রোহ শুরু হয় তখন নৌবাহিনীকে তাদের নাবিকদের বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে স্থল যুদ্ধ অভিযানের জন্য পাঠাতে হয়েছিল।

১৯৭২ সালে "সিলন" "শ্রীলঙ্কার গণতান্ত্রিক সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র" হয়ে ওঠে ও রাজকীয় সিলন নৌবাহিনী শ্রীলঙ্কা নৌবাহিনীতে পরিণত হয়। ফ্ল্যাগ অফিসারদের পতাকা সহ নৌবাহিনীর পতাকা পুনরায় নকশা করা হয়। নৌবাহিনী আইনে প্রবর্তিত "নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন" শব্দটি অন্য দুটি পরিষেবা দ্বারা গৃহীত পরিভাষার সাথে সামঞ্জস্য রেখে "নৌবাহিনীর কমান্ডার"-এ পরিবর্তিত হয়েছিল। অবশেষে, "হার ম্যাজেস্টিস সিলন শিপস" (এইচএমসিস) হয়ে ওঠে "শ্রীলঙ্কান নেভাল শিপস" (এসএলএনএস)।

১৯৭০-এর দশকে নৌবাহিনী কার্যকর উপকূলীয় টহল চালানোর জন্য চীন থেকে সাংহাই শ্রেণীর গানবোট অধিগ্রহণের মাধ্যমে তার শক্তি পুনর্গঠন শুরু করে ও আঞ্চলিক বন্দরে বেশ কয়েকটি ক্রুজ পরিচালনা করে।

বিমান বাহিনী[সম্পাদনা]

প্রথমদিকের প্রশাসন এবং আরএএফ প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা ও অন্যান্য কর্মীদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল, যারা নতুন রাজকীয় সিলন বিমানবাহিনীর সাথে ছিল। লএর প্রথম বিমান ছিল ডি হ্যাভিল্যান্ড কানাডা ডিএইচসি-১ চিপমঙ্কস, যা মৌলিক প্রশিক্ষক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এগুলোর পর বোল্টন পল ব্যালিওল টি.এমকে.২এস ও এয়ারস্পিড অক্সফোর্ড এমকে.১এস দ্বারা পরিবহণ ব্যবহারের জন্য ডি হ্যাভিল্যান্ড ডোভস ও ডি হ্যাভিল্যান্ড হেরোন্সের সাথে পাইলট এবং এয়ার ক্রুদের উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য, যা সমস্ত ব্রিটিশদের দ্বারা সরবরাহ করা হয়েছিল। ১৯৫৬ সালে সিলনে ব্রিটিশ ঘাঁটি বন্ধ করার ফলে বিমান বাহিনী প্রাক্তন আরএএফ ঘাঁটি দখল করে নেয়; কাতুনায়ক ও চায়না বে সিলন রাজকীয় বিমানবাহিনীর অপারেশনাল স্টেশনে পরিণত হউ যখন সহায়ক ফাংশন দিয়াতলাওয়া ও একলাতে পরিচালিত হয়েছিল।

১৯৫৯ সালে ডি হ্যাভিল্যান্ড ভ্যাম্পায়ার জেট বিমান অধিগ্রহণ করা হয়েছিল। যাইহোক, এটি সিলন রাজকীয় বিমানবাহিনী তাদের অপারেশনাল কাজে লাগায়নি ও শীঘ্রই ব্রিটিশদের কাছ থেকে প্রাপ্ত পাঁচটি হান্টিং জেট প্রভোস্ট দিয়ে তাদের প্রতিস্থাপন করে, যেগুলো জেট স্কোয়াড্রনে গঠিত হয়েছিল।

রাজকীয় সিলন বিমানবাহিনী প্রথম যুদ্ধে যায় ১৯৭১ সালে যখন মার্কসবাদী জেভিপি ৫ এপ্রিল দ্বীপ-ব্যাপী একটি অভ্যুত্থান শুরু করে। সিলন সশস্ত্র বাহিনী অবিলম্বে ও দক্ষতার সাথে প্রতিক্রিয়া জানাতে পারেনি; প্রাথমিক হামলায় দ্বীপ জুড়ে পুলিশ স্টেশন এবং একলাতে আরসিওয়াইএফ ঘাঁটি আঘাত হানে। পরে, বিমান বাহিনী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউএসএসআর থেকে অতিরিক্ত বিমান গ্রহণ করে।[২৫][২৬]

১৯৭১ সালের বিদ্রোহের পরিপ্রেক্ষিতে সামরিক ব্যয়ের জন্য তহবিলের ঘাটতির কারণে ৪নং হেলিকপ্টার স্কোয়াড্রন হেলিটার্স নামে বিদেশী পর্যটকদের জন্য বাণিজ্যিক পরিবহন পরিষেবা পরিচালনা শুরু করে।[২৭] ১৯৮৭ সালে সক্রিয় রিজার্ভ সহ বিমান বাহিনীর মোট ৩,৭০০ জন কর্মী ছিল। বাহিনীটি তার প্রাথমিক বছরগুলিতে ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেয়েছিল, ১৯৬০-এর দশকে ১,০০০-এর কিছু বেশি কর্মকর্তা ও নিয়োগপ্রাপ্তদের কাছে পৌঁছেছিল। ৩১ মার্চ ১৯৭৬-এ এসএলএএফ রাষ্ট্রপতির রঙে ভূষিত হয়েছিল। একই বছর এসএলএএফ ডিটাচমেন্ট, যা পরে এসএলএএফ স্টেশনে পরিণত হয়, উইরাউইলা, ভাভুনিয়া ও মিনেরিয়াতে প্রতিষ্ঠিত হয়।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. The Sri Lanka Independence Act 1947 uses the name "Ceylon" for the new dominion; nowhere does that Act use the term "Dominion of Ceylon", which although sometimes used was not the official name.
  2. Havinden, Michael A.; Meredith, David (২০০২-০৬-০১)। Colonialism and Development: Britain and its Tropical Colonies, 1850-1960 (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। পৃষ্ঠা 9। আইএসবিএন 978-1-134-97738-3 
  3. International treaties ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ মার্চ ২০১৭ তারিখে also referred to the state as "Ceylon", not the "Dominion of Ceylon"; "Ceylon" was also the name used by the UN for the state.
  4. Jennings, W. Ivor। Ceylonজেস্টোর 2752358 
  5. Dr. Jane Russell, Communal Politics under the Donoughmore constitution. Tsiisara Prakasakyo, Dehivala, 1982
  6. "Welcome to UTHR, Sri Lanka"। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  7. "Sri Lanka – United National Party "Majority" Rule, 1948–56"। Countrystudies.us। ১২ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  8. "Commonwealth visits since 1952"। Official website of the British monarchy। ১২ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১৫ 
  9. Kelegama, Saman (২০০৪)। Economic policy in Sri Lanka: Issues and Debates। SAGE। পৃষ্ঠা 207, 208। 
  10. "Dominion of Ceylon definition of Dominion of Ceylon in the Free Online Encyclopedia"। Encyclopedia2.thefreedictionary.com। ২ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  11. "Ceylon Independent, 1948–1956"। World History at KMLA। ১১ সেপ্টেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১০ 
  12. "Sri Lanka : Independent Ceylon (1948–71) – Britannica Online Encyclopedia"। Britannica.com। ৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮। ১১ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  13. "WHKMLA : History of Ceylon, 1956–1972"। Zum.de। ৩০ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  14. "The Form and Order of Service that is to be performed and the Ceremonies that are to be observed in the Coronation of Her Majesty Queen Elizabeth II in the Abbey Church of St. Peter, Westminster, on Tuesday, the second day of June, 1953"। Oremus.org। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  15. https://www.thegazette.co.uk/London/issue/40020/supplement/6240 The London Gazette, no. 40020 of 20 November 1953, pp. 6240 ff.
  16. "Ceylon's Democracy Faces New Test in Wake of Strife; Ceylon's Democracy Confronts New Challenge in Wake of Strife"The New York Times। ১৩ জুলাই ১৯৫৮। ২২ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১০ 
  17. "Archived copy" (PDF)। ১০ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০১০ 
  18. "Features"। Priu.gov.lk। ১৯ জানুয়ারি ২০০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  19. "Sri Lanka – Land Tenure"। Country-data.com। ২৯ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  20. "Archived copy"। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  21. "No Ceylon Devaluation"The New York Times। ৮ জুন ১৯৬৬। ১৫ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১০ 
  22. "Establishment, Sri Lanka Army"Sri Lanka Army। ২৬ মার্চ ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৬ 
  23. "Sergei de Silva-Ranasinghe looks back at the early days of the Sri Lanka Army"। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১০ 
  24. Sergei de Silva-Ranasinghe (২০০১)। "An evolving army and its role through time"। Plus। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১০ 
  25. The Night of April 5th ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে
  26. Air Attack ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৮ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে
  27. Helitours ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৮ জানুয়ারি ২০০৮ তারিখে