সিড পেগলার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সিড পেগলার
সিড পেগলার.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসিডনি জেমস পেগলার
জন্ম(১৮৮৮-০৭-২৮)২৮ জুলাই ১৮৮৮
ডারবান, নাটাল প্রদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা
মৃত্যু১০ সেপ্টেম্বর ১৯৭২(1972-09-10) (বয়স ৮৪)
কেপ টাউন, কেপ প্রদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৭০)
২৬ ফেব্রুয়ারি ১৯১০ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৬ আগস্ট ১৯২৪ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৬ ১০৩
রানের সংখ্যা ৩৫৬ ১৬৭৭
ব্যাটিং গড় ১৫.৪৭ ১২.৭০
১০০/৫০ ০/০ ০/৫
সর্বোচ্চ রান ৩৫* ৭৯
বল করেছে ২৯৮৯ ১৯৬৬৩
উইকেট ৪৭ ৪২৫
বোলিং গড় ৩৩.৪৪ ১৯.৫৮
ইনিংসে ৫ উইকেট ৩২
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৭/৬৫ ৮/৫৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/- ৫৬/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৬ আগস্ট ২০১৭

সিডনি জেমস পেগলার (ইংরেজি: Sid Pegler; জন্ম: ২৮ জুলাই, ১৮৮৮ - মৃত্যু: ১০ সেপ্টেম্বর, ১৯৭২) নাটাল প্রদেশের ডারবানে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি মিডিয়াম বোলিং করতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিংয়ে নামতেন সিড পেগলার। ১৯১০-এর দশকের শুরুতে ভগলারসোয়ার্জের ন্যায় গুগলি বোলারদের ছন্দপতনের পর তিনি উদীয়মান বোলাররূপে আবির্ভূত হন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৯০৮ থেকে ১৯১০ সময়কালের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকায় বেশ কম প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নেয়ার সুযোগ ঘটলেও ১৯১০-১১ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম টেস্ট সফরে যাবার জন্য মনোনীত হন। এরপর থেকেই টেস্ট দলের নিয়মিত খেলোয়াড় হিসেবে অংশগ্রহণ করতে থাকেন। তিন গুগলি বোলার ভগলার, সোয়ার্জ ও অব্রে ফকনারের পাশে অস্ট্রেলিয়ার শক্ত পিচে তিনি অসহায় ছিলেন।

ঐ টেস্ট সিরিজে কেবলমাত্র সাত উইকেট পেয়েছিলেন। তাস্বত্ত্বেও ১৯১২ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রি-দেশীয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য তাঁকে দলে রাখা হয়। এ সফরে পেগলার প্রভূতঃ সফলতা পান। সবগুলো খেলাতেই অংশগ্রহণ ছিল তাঁর। সাঁইত্রিশটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশগ্রহণকারী তিনজনের একজন ছিলেন। ১৮৯টি প্রথম-শ্রেণীর উইকেট পান। শীর্ষস্থানীয় ইংরেজ বোলার কলিন ব্লাইদের চেয়েও এগারোটি বেশী ছিল। ছয় টেস্টে তিনি ঊনত্রিশ উইকেট দখল করেন। তবে, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কেবলমাত্র একবারই দুই ইনিংসে অল-আউট করতে সক্ষম হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা দল। সমগ্র সফরে নিচেরসারির ব্যাটসম্যানরূপে পনেরোর অধিক গড়ে ৬৪৩ রান তুলেন। সোয়ানসীতে সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে ৭৯ ও নর্দাম্পটনশায়ারের শক্তিশালী বোলিং আক্রমণ রুখে দিয়ে ৫২ রান তুলতে পেরেছেন। ১৯১০-১১ মৌসুমের এ সফরটিতে দ্রুততম সময়ে প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অর্ধ-শতক করেন। তাসমানিয়ার বিপক্ষে মাত্র চৌদ্দ মিনিটে ৫০ রান তুলেন তিনি। তাঁর তুলনায় কেবলমাত্র ১৯৩৮ সালে জিম স্মিথ ও ২০০০-০১ মৌসুমে খালেদ মাহমুদ এগিয়ে রয়েছেন।[১]

মিডিয়াম-পেস লেগ কাটার সহযোগে পেগলারের বোলিং ভঙ্গীমা গড়ে উঠেছে।[২] শূন্যে ভাসমান ছিল না তাঁর টসগুলো কিন্তু ব্রেক-ব্যাক ও দ্রুতগতিসম্পন্ন বলে তিনি বোলিংয়ে বেশকিছু ভিন্নতর বোলিংয়ে সক্ষমতা দেখিয়েছেন। ১৯১২ সালের প্রতিযোগিতাটিতে এগুলোর উভয়টি প্রয়োগ করে অনেক উইকেট পেয়েছিলেন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ধারনা করা হয়েছিল যে, সামনের দিনগুলোয় দক্ষিণ আফ্রিকার প্রধান বোলিং আক্রমণ মেরুদণ্ডের কেন্দ্রবিন্দুতে পেগলার অবস্থান করবেন। এ সময় তাঁর বয়স ছিল মাত্র চব্বিশ।[৩] কিন্তু, নায়াসাল্যান্ডে ঔপনিবেশিক জেলা প্রশাসক মনোনীত হওয়ায় পেগলার আর দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রত্যাবর্তন করতে পারেননি। ১৯১৩ সালে ট্রান্সভালের পক্ষে একটি খেলায় অংশ নিয়েছিলেন তিনি। ১৯১২ সালের পর আর একটি টেস্টে অংশ নেন ১৯২৪ সালের সফরে যাতে তিনি মূল একাদশে ছিলেন না। কিন্তু তিনি তেমন সফলতা দেখাতে পারেননি। বুস্টার নুপেনের ন্যায় বোলারদের স্মরণীয় সাফল্য ম্যাটিং পিচে দেখতে হয়েছিল তাঁকে।

১৯৩০ সালে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে অবসর নেন তিনি। ব্যবস্থাপক হিসেবে এ ক্রীড়ায় কাজ করতে থাকেন। ১৯৫১ সালে ইংল্যান্ড সফরে দল ব্যবস্থাপনার সাথে জড়িত থাকেন তিনি।

১০ সেপ্টেম্বর, ১৯৭২ তারিখে কেপ প্রদেশের কেপ টাউনে ৮৪ বছর বয়সে সিড পেগলারের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Fastest innings"। ১১ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ আগস্ট ২০১৭ 
  2. Pardon, Sydney H. (editor); John Wisden Cricketer's Almanac, Jubilee Edition (1913); Part II; p. 64; published by John Wisden & Co.
  3. Sid Pegler

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]