সিক্কিম (প্রামাণ্যচিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(সিক্কিম (চলচ্চিত্র) থেকে পুনর্নির্দেশিত)
সিক্কিম
পরিচালকসত্যজিৎ রায়
প্রযোজকসিকিমের চোগিয়াল পালডেন থোন্ডুপ নামগিয়াল
রচয়িতাসত্যজিৎ রায়
বর্ণনাকারীসত্যজিৎ রায়
সুরকারসত্যজিৎ রায়
চিত্রগ্রাহকসৌমেন্দু রায়
সম্পাদকদুলাল দত্ত
দৈর্ঘ্য৬০ মিনিট
দেশভারত
ভাষাইংরেজি

সিক্কিম হল ১৯৭১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সত্যজিৎ রায় পরিচালিত একটি ভারতীয় প্রামাণ্যচিত্র। সিকিম জাতিকে নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মিত হয়। চীন এবং ভারত উভয়ের কারণে সিকিমের সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে রয়েছে মনে করে, সিকিমের চোগিয়াল (রাজা) সত্যজিৎ রায়কে প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মাণের অনুমতি দেন। সত্যজিৎ রায় সিকিমের সার্বভৌমত্ব নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মাণ করেন।[১] ১৯৭৫ সালে ভারতের সাথে সিকিম একীভূত হলে, ভারত সরকার প্রামাণ্যচিত্রটিকে নিষিদ্ধ করে।[২] ২০০০ সালে প্রামাণ্যচিত্রটির কপিরাইট সিকিমের শিল্প ও সংস্কৃতি ট্রাস্টের কাছে স্থানান্তরিত করা হয়। ২০১০ সালের সেপ্টেম্বরে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রামাণ্যচিত্রটির উপর থাকা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেয়।[৩][৪] ২০১০ সালের নভেম্বর মাসে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের পরিচালক জানান যে প্রথমবারের মতো প্রামাণ্যচিত্রটির প্রদর্শনের পর, তিনি সিকিমের আদালতের কাছ থেকে আবার প্রামাণ্যচিত্রটি নিষিদ্ধ করার আদেশ পেয়েছেন।[৫]

নির্মাণ[সম্পাদনা]

সত্যজিৎ রায় রাজস্থানের ইলোরার নৃত্যশিল্পীদের মতো করে, সিকিমের লোকদের নিয়ে বেশ কয়েকটি তথ্যচিত্র নির্মাণ করার পরিকল্পনা করেছিলেন, কিন্তু শেষ পর্যন্ত কেবল একটি তৈরি করেন। দার্জিলিংয়ে বসবাস করা সত্যজিৎ রায়ের চাচাতো ভাই, সিকিমের চোগিয়াল পালডেন থোন্ডুপ নামগিয়াল এবং তার মার্কিন স্ত্রী হোপ কুকের সাথে পরিচিত ছিলেন। তারা প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের অনুমতি দেন এবং সত্যজিৎ রায়ের চাচাতো ভাই রায়কে প্রকল্পটি গ্রহণ করতে রাজি করান।[৬]

আলোকপাত[সম্পাদনা]

নিষেধাজ্ঞার কারণে কোন পর্যালোচক প্রামাণ্যচিত্রটি তখন দেখেননি, তবে সত্যজিৎ রায় নিম্নলিখিত ভাবে এটির বর্ণনা করেছেন: "যখন তারা এই বিন্দুতে পৌঁছাচ্ছিল, আমি দৃশ্যটি কেটে টেলিগ্রাফ তারের দিকে ক্যামেরা নেই। বৃষ্টি হচ্ছে এবং নীচের দিকে দুই ফোঁটা বৃষ্টি নেমে আসছে। এটি খুবই কাব্যিক সাত মিনিট এবং সমাপ্তিও খুব প্রাণবন্ত, আশাবাদী হওয়ার মত, বাচ্চারা রয়েছে, সবাই খুশি, হাসছে, গান গাচ্ছে। পুরো জিনিসটি জায়গাটির জন্য প্রশংসার বন্দনা রচনা করে।"

ষোড়শ কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে ৩৯ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো প্রামাণ্যচিত্রটি সকলের কাছে প্রদর্শিত হয়। দ্য স্টেটসম্যানের সাংবাদিক মাথুরেস পল তার পর্যালোচনায় লিখেছিলেন, "প্রতিদ্বন্দ্বী, সীমাবদ্ধ এবং অসনি সংকেতের মধ্যে মিশ্রিত এটি, সিকিম সুন্দর, এটি যেন অনেকটা রায়ের যুগের একটি নামী ভ্রমণ সাময়িকীর একটি প্রবন্ধ এবং এর সাথে বিস্তারিত ছবি রয়েছে"।[৭]

পুনরুজ্জীবন[সম্পাদনা]

চোগিয়াল পরিবারকে দেখানো ছাড়া, প্রামাণ্যচিত্রটি কখনই আনুষ্ঠানিকভাবে মুক্তি পায়নি। অনেক বছর ধরে ভাবা হয়েছিল যে প্রামাণ্যচিত্রটি হারিয়ে গিয়েছে। জানুয়ারি ২০০৩ সালে জানা যায় যে, ব্রিটিশ ফিল্ম ইনস্টিটিউটে প্রামাণ্যচিত্রটির একটি ভাল প্রিন্ট সংস্করণ রয়েছে।[৮] কলকাতার সত্যজিৎ রায় সোসাইটি ও চোগিয়ালের পরিবার একটি কপি খুঁজে পেলেও, তা মেরামতের অযোগ্য ছিল। ২০০৭ সালে একাডেমি ফিল্ম আর্কাইভ লন্ডনে থাকা কপি খুঁজে বের করে এবং পুনরুদ্ধার করে।[৯] পুনরুদ্ধারকৃত সংস্করণটি ২০০৮ সালে ফ্রান্সের নান্তেস তিন মহাদেশ চলচ্চিত্র উৎসবে দেখানো হয়।

সরকার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর, পুনরুদ্ধারকৃত কপিটি সেপ্টেম্বর ২০১০ সালে গ্যাংটক ভিত্তিক সিকিমের শিল্প ও সংস্কৃতি ট্রাস্টের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়। তারা ২০০০ সালে প্রামাণ্যচিত্রটির প্রিন্ট এবং অধিকার পেয়েছিল।[৩]

অনেক বিতর্কের মধ্যে, নভেম্বর ২০১০ সালে কলকাতায় একটি চলচ্চিত্র উৎসবে এটি প্রদর্শন করা হয়। সিকিমের একটি আদালত এই তথ্যচিত্র প্রদর্শনের উপর স্থগিতাদেশের আদেশ প্রদান করলে, একটি মাত্র অনুষ্ঠানের পর এটি আবার অপসারণ করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রায়, সত্যজিৎ (২০০৭)। বার্ট কার্ডোলো, সম্পাদক। Satyajit Ray: interviews Conversations with Filmmakers Series। মিসিসিপি বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস। পৃষ্ঠা xxxii। আইএসবিএন 978-1-57806-937-8 
  2. "সিক্কিম"কালের কণ্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০২১ 
  3. "After 29 years, Ray's Sikkim film sees light of day"ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস (ইংরেজি ভাষায়)। ১৬ সেপ্টে ২০১০। 
  4. "Ban on Satyajit Ray film lifted"। বিবিসি নিউজ, কলকাতা। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১০। 
  5. ব্যানার্জি, সৌম্যদীপ্ত (২০১০-১১-১৩)। "Ban on Satyajit Ray film reimposed"ডিএনএ ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১৭ 
  6. রবিনসন, অ্যান্ড্রু (১৯৮৯)। "26 Documentaries"। Satyajit Ray: the inner eyeবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস। পৃষ্ঠা 275আইএসবিএন 0-520-06946-3Sikkim documentary -inpublisher:icon. 
  7. "Lost in hibernation"। দ্য স্টেটসম্যান। ৩০ নভেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১০ 
  8. Screen India archives
  9. "Preserved Projects"একাডেমি ফিল্ম আর্কাইভ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]