ম্যুরাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জীন-আন্দ্রে রিক্সেনস কৃত ছাদ চিত্রকলা। সালে ডি ইলাস্ট্রেস, লা ক্যাপিটোল, টোলাউস, ফ্রান্স

ম্যুরাল হল একটি চিত্রকলা, যা দেওয়াল, ছাদ বা অন্যান্য স্থায়ী পৃষ্ঠতলগুলিতে আঁকা হয় বা সরাসরি প্রয়োগ করা হয়। ম্যুরাল চিত্রকলার একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য হল প্রদত্ত স্থানটির স্থাপত্য উপাদানগুলি সাদৃশ্যপূর্ণভাবে ছবিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

কিছু দেওয়াল চিত্র বড় ক্যানভাসে আঁকা হয়, তারপর সেগুলি দেওয়ালে সংযুক্ত করা হয় (যেমন, ম্যারোফ্ল্যাজ), ঊনবিংশ শতকের শেষের দিক থেকে এই কৌশলটি সাধারণ ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অজন্তা গুহায় জাতকের গল্প, সপ্তদশ শতাব্দী, আজকের মহারাষ্ট্র, ভারত

অন্তিম প্রস্তর যুগের সময় থেকে ম্যুরালের মত জিনিস পাওয়া গেছে, যেমন বোর্নিওর লুবাং জেরিজি সালেহ গুহায় গুহাচিত্র (৪০,০০০-৫২,০০০ বছর আগের), দক্ষিণ ফ্রান্সের আর্ডেশ বিভাগের শভেট গুহার চিত্র (প্রায় ৩২,০০০ বছর আগের)। প্রাচীন মিশরের সমাধির মধ্যে অনেক প্রাচীন ম্যুরাল (প্রায় ৩১৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) পাওয়া গেছে,[২] এছাড়াও মিনোয়ান রাজবাড়িতে (মধ্যযুগীয় তৃতীয় নিওপ্যালেশিয়াল ভাগে, ১৭০০–১৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে), অক্সটোশিটলান গুহায় এবং মেক্সিকোর জুক্সটলাহুয়াকা (প্রায় ১২০০-৯০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) ও পম্পেইতে (প্রায় ১০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে – ৭৯ খ্রিস্টাব্দে) পাওয়া গেছে। মধ্যযুগের সময় সাধারণত ম্যুরালগুলি শুকনো প্লাস্টার (সেকো) দিয়ে করা হ্ত। চতুর্দশ শতকের কেরালা ম্যুরাল চিত্রের বিশাল সংগ্রহ ফ্রেস্কো সেকো ম্যুরালের উদাহরণ।[৩][৪] ইতালিতে, ভেজা প্লাস্টারের ওপর ফ্রেস্কো চিত্রকলা, সিরকা ১৩০০ র কৌশলটি পুনঃপ্রবর্তিত হয়েছিল এবং ম্যুরাল চিত্রকলার মানের উল্লেখযোগ্য উন্নতি ঘটে।[৫]

দেওয়াল চিত্রকলা, বারাণসী, ভারত, ১৯৭৪।

আধুনিক যুগে, শব্দটি মেক্সিকান ম্যুরালিজম শিল্প আন্দোলনের সাথে সাথে সুপরিচিত হয়ে ওঠে (দিয়েগো রিভেরা, ডেভিড সিকিওরোস এবং জোস অরোজকো)। অঙ্কনের অনেকগুলি শৈলী এবং কৌশল রয়েছে। সর্বাধিক পরিচিত সম্ভবত ফ্রেস্কো, যেখানে ভিজে লাইম ওয়াশের সঙ্গে জলে দ্রবণীয় রঙ ব্যবহার করা হয়, এই দ্রবনটি খুব তাড়াতাড়ি সম্পূর্ণ পৃষ্ঠতলে লাগিয়ে নেওয়া হয়, অথবা কখনো কখনো কিছু অংশে লাগানো হয়। শুকিয়ে গেলে রং হালকা হয়ে যায়। ম্যারোফ্ল্যাজ পদ্ধতিটি হাজার বছর ধরে ব্যবহার করা হচ্ছে। আজকাল তেল বা জল ভিত্তিক মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন উপায়ে ম্যুরাল আঁকা হয়। শৈলীগুলি বিমূর্ত থেকে শুরু করে ট্রম্প-ল'ইল (trompe-l'œil) পর্যন্ত ( "চোখকে ঠকান বা বোকা বানানো" বোঝানোর জন্য একটি ফরাসি শব্দ) হতে পারে। ১৯৮০ এর দশকে গ্রাহাম রাস্ট বা রেনার মারিয়া লাজকের মত ম্যুরাল শিল্পীদের কাজ দিয়ে শুরু হয়ে, ট্রম্প-ল'ইল চিত্রকলা ইউরোপে ব্যক্তিগত ও সরকারী ভবনগুলিতে পুনর্বাসনের সম্মান লাভ করেছে। আজকাল, একটি কৌশলের মাধ্যমে, একটি প্রাচীর ম্যুরালের সৌন্দর্য আরো ব্যাপকভাবে পাওয়া যায়, যেখানে একটি অঙ্কন বা একটি আলোকচিত্র পোস্টার কাগজ বা ক্যানভাসে স্থানান্তরিত করা হয় এবং এরপরে তা দেওয়ালে আটকে দেওয়া হয় (দেখুন ওয়ালপেপার ফ্রেস্কোগ্রাফি)। এতে একটি হাতে আঁকা ম্যুরাল বা বাস্তবসম্মত দৃশ্যের প্রভাব পাওয়া যায়।

একটি বিশেষ ধরনের ম্যুরাল চিত্র হল লুফতমালেরি, এখনও যা আল্পাইন উপত্যকার গ্রামে ব্যবহার করে আঁকা হয়। ১৮শ ও ১৯শ শতাব্দীর আঁকা এই সব ম্যুরাল দেখতে পাওয়া যায় মিত্তেনওয়াল্ড, গার্মিশ, আন্টারাম্মেরগাউ এবং ওবেরামেরগাউ অঞ্চলের বাড়ির সিংহদরজায়।

প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

সিরিয়ার মারির রাজপ্রাসাদে আবিষ্কৃত ইনভেস্টিট্যুর অফ জিমরিম, খ্রীস্টপূর্ব অষ্টাদশ শতাব্দীর ফ্রেসকো

ম্যুরালের ইতিহাসে বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করে ম্যুরাল তৈরি করা হয়েছে:

ইতালিয়ান শব্দ এফ্রেসস্কো থেকে আসা একটি ফ্রেস্কো চিত্র, যা ফ্রেস্কো ("তাজা") বিশেষণ থেকে উদ্ভূত। এই পদ্ধতিতে দেওয়াল বা ছাদের প্লাস্টারের উপর রং প্রয়োগ করা হয়।

বুয়ন ফ্রেস্কো পদ্ধতিটিতে পিগমেন্ট জলে ভিজিয়ে, সিক্ত, টাটকা পাতলা লাইম মর্টার (রাজমিস্ত্রির কাজে ব্যবহৃত) অথবা প্লাস্টারে লাগানো হয়। পিগমেন্ট ভিজে প্লাস্টার দ্বারা শোষিত হয়। কয়েক ঘন্টা পরে, প্লাস্টার শুকিয়ে যায় এবং বায়ুর সঙ্গে বিক্রিয়া করে: এই রাসায়নিক বিক্রিয়ার ফলে পিগমেন্ট প্লাস্টারের সঙ্গে আটকে যায়। এর পর, চিত্রটি উজ্জ্বল এবং চমৎকার রং নিয়ে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে ঠিক থাকে।

ফ্রেস্কো-সেকো চিত্র শুকনো প্লাস্টারের (সিকো 'ইতালিয় ভাষায় "শুষ্ক") ওপর করা হয়। এই ক্ষেত্রে পিগমেন্টগুলির আটকে থাকার জন্য কিছু মাধ্যমের প্রয়োজন হয়। মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করা হয় ডিম (রঙিন প্রলেপ), আঠা এবং তেলমিজো-ফ্রেস্কো প্রায় শুকনো প্লাস্টারে আঁকা হয়, ষোড়শ শতাব্দীর লেখক ইগনাজিও পজো যাকে বলেছেন যে "একটি অঙ্গুষ্ঠ ছাপ না পড়ার মত যথেষ্ট শক্ত"। এতে পিগমেন্ট প্লাস্টারের মধ্যে সামান্যই ঢোকে। ষোড়শ শতকের শেষ নাগাদ "বুয়ন ফ্রেস্কো" পদ্ধতিটি বেশি ব্যবহার হতে থাকে, এবং গিয়ানব্যাতিস্তা টাইপোলো বা মাইকেলেঞ্জেলোর মতো চিত্রশিল্পীদের দ্বারা ব্যবহৃত হয়েছিল। এই পদ্ধতিতে সেকো কাজের সুবিধাদি পাওয়া যেত, যদিও কম মাত্রায়।

উপাদান[সম্পাদনা]

গ্রেকো-রোমান সময়ে, প্রধানত ঠান্ডা অবস্থায় লাগানো এনকস্টিক রং প্রয়োগ করা হত।[৬][৭]

টেম্পেরা চিত্র ম্যুরাল চিত্রের প্রাচীনতম পদ্ধতিগুলির মধ্যে একটি। টেম্পেরাতে, পিগমেন্টগুলি, জলে পাতলা করে নেওয়া কোন অ্যালবুমিন মাধ্যম যেমন ডিমের কুসুম বা ডিমের সাদা অংশে মেশানো হয়।

ষোড়শ শতকের ইউরোপে, ম্যুরাল চিত্রের একটি সহজ পদ্ধতি ছিল ক্যানভাসে তৈল চিত্র। এর একটি বিশেষ সুবিধা এই যে, শিল্পীর স্টুডিওতেই কাজটি সম্পন্ন করা যেতে পারে এবং তারপরে তার গন্তব্যে স্থানান্তরিত করে দেওয়াল বা ছাদে আটকানো যেতে পারে। তৈল চিত্র ম্যুরালের জন্য খুব একটি সন্তোষজনক মাধ্যম নয়, কারণ এতে রঙের সেই উজ্জ্বলতা পাওয়া যায়না। এছাড়াও, পিগমেন্টগুলি হলুদ হয়ে যায় বা সহজেই পারিপার্শ্বিক বায়ুমন্ডলীর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিভিন্ন ম্যুরাল চিত্রকর তাঁদের পছন্দের মাধ্যম এবং পরিকল্পনায় তুলি, রোলার বা এয়ারব্রাশ/এরেসোল ব্যবহার করায় বিশেষজ্ঞ হয়ে যেতেন, তা সে তেল রং, ইমালসন বা অ্যাক্রাইলিক রং যাই হোক না কেন।[৮] খরিদ্দার প্রায়ই একটি নির্দিষ্ট শৈলী পছন্দ করতেন এবং শিল্পী সেই শৈলীর সাথে সমন্বয় সাধন করতেন।[৯]

ম্যুরালিস্ট কাজ শুরু করার আগে আলোচনা করে খরিদ্দারের প্রস্তাবিত ম্যুরালের বিস্তারিত নকশা এবং বিন্যাস ঠিক করা হত। যেখানে আঁকা হবে সেই অংশটিতে মাপমত খোপ বা জালিকা এঁকে ছবির সাথে মিলিয়ে একেবারে সঠিক মাপ দিয়ে ধাপে ধাপে অঙ্কন করা হত। কিছু কিছু ক্ষেত্রে, নকশাটি দেওয়ালের ওপর সরাসরি রেখে পেন্সিল দিয়ে চিহ্নিত করে আঁকা শুরু করা হত। কেউ কেউ কোনো পূর্ব পেন্সিল চিহ্ন ছাড়া সরাসরি আঁকা পছন্দ করতেন, স্বতঃস্ফূর্ত কৌশল তাঁদের পছন্দ ছিল। ম্যুরাল তৈরী শেষ হয়ে গেলে বার্নিশ বা সুরক্ষা প্রদানকারী এক্রাইলিক গ্লেজের প্রলেপ দেওয়া যায়, যা অতি বেগুনী রশ্মি এবং উপরিতলের ক্ষয় থেকে কাজটিকে রক্ষা করে।

আধুনিক কালে, দ্রুত ম্যুরাল তৈরীর জন্য, তরুণ উৎসাহীরা আঠা মিশ্রিত মাটি ব্যবহার ক'রে ক্যানভাস বোর্ডে পছন্দসই আকৃতি তৈরি করে। ক্যানভাসটি মাটি শুকানোর জন্য রেখে দেওয়া হয়। শুকিয়ে গেলে, ক্যানভাস এবং আকৃতিতে নিজের পছন্দমত রং করে পরে বার্নিশের প্রলেপ দেওয়া যায়।

রেনার মারিয়া লাজকের সিএএম পরিকল্পিত ফ্রেস্কোগ্রাফি, ডিজিটালভাবে ক্যানভাসে মুদ্রিত

একটি হাতে বা বায়ুচালিত তুলিতে রং করা ম্যুরালের বিকল্প হিসাবে, ডিজিটালভাবে মুদ্রিত ম্যুরালও উপরিতলে প্রয়োগ করা যেতে পারে। ইতিমধ্যে বিদ্যমান ম্যুরালের ছবি তুলে তারপর মূল মানের কাছাকাছি একটি ম্যুরালের পুনরুৎপাদন করা যেতে পারে।

প্রাক-বানানো ম্যুরালের পুনরুৎপাদনের অসুবিধাগুলি হল সেগুলি প্রায়ই অনেকগুলি করে তৈরী করা হয় এবং সেগুলিতে মূল কাজের ঝলমলানি এবং বিশিষ্টতা থাকেনা। সেগুলি প্রায়শই খরিদ্দারের দেওয়ালের মাপমত হয়না এবং তাদের ব্যক্তিগত ধারণা বা ইচ্ছা সেই ম্যুরালে তৈরী করে দেওয়া যায়না। ফ্রেস্কোগ্রাফি কৌশলটি, রেনার মারিয়া লাজকে দ্বারা উদ্ভাবিত একটি ডিজিটাল উৎপাদন পদ্ধতি (ক্যাম (সিএএম)), যেখানে ব্যক্তিগতকরণ এবং আকারে সীমাবদ্ধতার কিছুটা সমাধান করা যায়।

ডিজিটাল কৌশল সাধারণত বিজ্ঞাপনে ব্যবহার করা হয়। একটি "দেওয়াল চিত্র" হল একটি বড় বাড়ির বাইরের দেওয়ালের উপর লাগানো একটি বড় বিজ্ঞাপন। দেওয়াল চিত্র একটি ম্যুরাল হিসাবে দেওয়ালে সরাসরি আঁকা যায়, অথবা একটি ভিনাইলের উপর ছাপিয়ে বিলবোর্ডে লাগিয়ে দেওয়ালে সংযুক্ত করা হয়। যদিও এগুলিকে ম্যুরাল হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা যায়না, কিন্তু বড় মাধ্যমে এই কাজটিকে প্রায়ই এইভাবে উল্লেখ করা হয়। বিজ্ঞাপন ম্যুরালগুলি আগে ঐতিহ্যগতভাবে ভবন এবং দোকানের সম্মুখে আঁকা হত, পরে এগুলি বড় মাপের উৎপাদনের জন্য পোস্টার বিলবোর্ড করা হয়।

তাৎপর্য[সম্পাদনা]

জনসাধারণের মধ্যে শিল্পচেতনা নিয়ে আসে ম্যুরালগুলি, তাই তারা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। একটি ম্যুরালের যে আকার হয়, এবং তা তৈরিতে যে খরচ, এবং কার্যক্ষমতা লাগে তার জন্য ম্যুরালশিল্পীদের কোন সাহায্যদাতা ছাড়া কাজ করা প্রায় অসম্ভব। প্রায়ই স্থানীয় সরকার বা কোন ব্যবসা থেকে সাহায্য পাওয়া যায়, কিন্তু অনেক ম্যুরালই পৃষ্ঠপোষকতার সাহায্যে তৈরী করা হয়। শিল্পীরা বিস্তৃত পরিসরের সেই সব দর্শকদের কাছে তাঁদের কাজ নিয়ে যেতে পারেন, যাঁরা অন্যথায় শিল্প গ্যালারীতে পা রাখেন না। শিল্পের সৌন্দর্য দ্বারা একটি শহর লাভবান হয়।

একটি ম্যুরাল সামাজিক মুক্তির বা রাজনৈতিক লক্ষ্য অর্জনের একটি অপেক্ষাকৃত কার্যকর হাতিয়ার হতে পারে।[১০] কখনও কখনও আইনের বিরুদ্ধে গিয়ে ম্যুরাল তৈরি করা হয়েছে, অথবা স্থানীয় বার এবং কফি দোকানে বসানো হয়েছে। প্রায়ই, ম্যুরালের চাক্ষুষ প্রভাব, সামাজিক সমস্যার প্রতি সাধারণের মনোযোগ আকর্ষণের একটি উপায়। রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতায় সাধারণের জন্য শিল্প প্রদর্শন, বিশেষত ম্যুরালগুলি, প্রচারের একটি হাতিয়ার হিসাবে প্রায়ই সর্বগ্রাসী শাসনব্যবস্থা দ্বারা ব্যবহৃত হয়। যাইহোক, এই রকম প্রচারক চরিত্র সত্ত্বেও, তাদের এখনও কিছু শৈল্পিক মান আছে। লোকালয়ে ম্যুরাল লাগানো হলে পথচারীদের ওপর সচেতন বা অবচেতনভাবে ম্যুরালের একটি নাটকীয় প্রভাব পড়তে পারে। এটিও যুক্তিযুক্ত করা যেতে পারে যে, লোকালয়ে বৃহৎ ম্যুরালগুলির উপস্থিতি, ঐ স্থানের বাসিন্দাদের বা কর্পোরেট কর্মচারীদের দৈনন্দিন জীবনে নান্দনিক উন্নতি আনতে পারে।

অন্যান্য বিশ্বখ্যাত ম্যুরালগুলি মেক্সিকো, নিউ ইয়র্ক শহর, ফিলাডেলফিয়া, বেলফাস্ট, ডেরি, লস অ্যাঞ্জেলেস, নিকারাগুয়া, কিউবা এবং ভারতে দেখতে পাওয়া যায়। [১] দ্বন্দ্বের সময় এগুলি সামাজিক ও জাতিগতভাবে বিভক্ত সম্প্রদায়ের সদস্যদের মধ্যে যোগাযোগের একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসাবে কাজ করেছে। এগুলি সংলাপ শুরু করা ও চালানোর জন্য একটি কার্যকর উপায় হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে, অতএব বিভেদ মেটানোর এটি একটি সমাধান হতে পারে। ভারতের কেরলে কিছু বিশেষ রকম ম্যুরাল আছে। কেরলের ম্যুরাল চিত্রগুলি হিন্দু মন্দিরের দেওয়ালে রয়েছে। সেগুলি খ্রিস্ট পরবর্তী নবম শতকের হতে পারে।

গুয়াতেমালার মায়া সভ্যতার সান বার্তোলোর ম্যুরালগুলি, মেসোআমেরিকায় এই শিল্পের প্রাচীনতম উদাহরণ এবং এটি ৩০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের বলে মনে হয়।

আয় বৃদ্ধি করার উদ্দেশ্যে পর্যটন আকর্ষণ বাড়ানোর জন্য অনেক গ্রামীণ শহর ম্যুরাল ব্যবহার শুরু করেছে। এমন একটি শহর হল কলকিট, জর্জিয়া। ২০১০ এর গ্লোবাল ম্যুরাল কনফারেন্স আয়োজন করার জন্য কলকিটকে নির্বাচন করা হয়েছিল। শহরে বারোটি ম্যুরাল তৈরী সম্পন্ন হয়েছে, এবং দোথান, আলাবামা, এবং ব্লাকলি, জর্জিয়ার সঙ্গে সম্মেলন আয়োজন করবে। ২০১০ এর গ্রীষ্মে, কলকিট তাদের আইকন ম্যুরালের কাজ শুরু করবে।

রাজনীতি[সম্পাদনা]

১৯৩০ এর দশকে মেক্সিকান ম্যুরাল আন্দোলন সামাজিক ও রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসাবে ম্যুরালগুলির নতুন গুরুত্ব তুলে ধরে। দিয়েগো রিভেরা, জোস ওরোজকো এবং ডেভিড সিক্যুইরসর মত অন্যতম বিখ্যাত শিল্পীরা এই আন্দোলনে ছিলেন। ১৯৩২ এবং ১৯৪০ এর মধ্যে, রিভেরা সান ফ্রান্সিস্কো, ডেট্রয়েট, এবং নিউ ইয়র্ক শহরের মত জায়গায় ম্যুরাল আঁকেন। ১৯৩৩ সালে তিনি ডেট্রয়েট ইনস্টিটিউট অফ আর্টস এ একটি অভ্যন্তরীণ দেওয়ালের উপর ডেট্রয়েট ইন্ডাস্ট্রি শিরোনামে বিশিষ্ট সাতটি ফ্রেসকো প্যানেলের একটি বিখ্যাত ক্রম সম্পন্ন করেছিলেন। [১১] ১৯৫০ এর ম্যাকার্থিজম এর সময়, ম্যুরালগুলির শৈল্পিক মেধার স্বীকৃতিকে রক্ষা করতে, একটি বড় চিহ্ন আঙ্গিনায় স্থাপন করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর রাজনীতিকে "ঘৃণ্য" বলে আক্রমণ করা হয়েছিল। ১৯৪৮ সালে, আমেরিকার জন্য মার্শাল প্ল্যান প্রতিষ্ঠা করতে কলম্বিয়া সরকার নবম প্যান আমেরিকান সম্মেলন আয়োজন করেছিল। অনুষ্ঠানের স্মরণে কলম্বিয়ার কংগ্রেস ভবনটিতে একটি ম্যুরাল আঁকতে, ওইএ এবং কলম্বিয়া সরকার সান্তিয়াগো মার্টিনেজ ডেলগাদো কে এনেছিলেন। মার্টিনেজ ঠিক করেছিলেন কুকুটা কংগ্রেসকে নিয়ে কিছু আঁকবেন। তিনি স্যানটান্ডারের সামনে বলিভারের ছবি আঁকেন। এতে উদারপন্থীরা ক্ষুব্ধ হন। জর্জ এলিজার গায়তানের হত্যার কারণে এল বোগোতাজোর জনতা আইনসভা ভবন পুড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল, কিন্তু কলম্বিয়ার সেনাবাহিনী তাদের থামিয়ে দেয়। অনেক বছর পর, ১৯৮০ র দশকে, যখন উদারপন্থীরা কংগ্রেসের দায়িত্বে ছিল, তারা প্রধান ম্যুরালটি পাশের দিকে স্থাপন করার জন্য পুরো উপবৃত্তাকার কক্ষের পুরো ঘরটি ৯০ ডিগ্রী ঘুরিয়ে দেবার একটি প্রস্তাব পাস করে এবং আলেজান্ড্রো ওব্রেগনকে পরাবাস্তববাদ শৈলীতে একটি অ-পক্ষপাতী ম্যুরাল আঁকার জন্য নিয়ে আসে।

উত্তর আয়ারল্যান্ডে বিশ্বের কিছু বিখ্যাত রাজনৈতিক ম্যুরাল রয়েছে।[১২] ১৯৭০ এর দশকে উত্তর আয়ারল্যান্ডে প্রায় ২,০০০ টি ম্যুরাল নথিভুক্ত করা হয়েছে।[১৩] সাম্প্রতিক কালে, অনেক ম্যুরালই অসাম্প্রদায়িক, সেগুলি মূলতঃ রাজনৈতিক ও সামাজিক বিষয়গুলি যেমন বর্ণবাদ ও পরিবেশবাদ বিষয়ে এবং অনেকগুলিই একেবারে অরাজনৈতিক, যা দৈনন্দিন জীবনে বাচ্চাদের খেলা এবং সুন্দর দৃশ্য চিত্রিত করে। (দেখুন উত্তর আইরিশ ম্যুরাল।) লিবিয়ায় বার্দিয়া পাহাড়ের শীর্ষস্থানে একটি পুরানো জেলখানা ভবনের একটি প্রাচীর জুড়ে একটি অরাজনৈতিক, কিন্তু সামাজিক, ম্যুরাল আছে। এটি ১৯৪২ সালের এপ্রিলে শিল্পী দ্বারা চিত্রিত এবং স্বাক্ষরিত হয়, এর কয়েক সপ্তাহ পরেই এল আলামিনের প্রথম যুদ্ধে তাঁর মৃত্যু হয়। বার্দিয়া মুরাল নামে পরিচিত এই ম্যুরালটি ইংরেজ শিল্পী, জন ফ্রেড্রিক ব্রিল এঁকেছিলেন।[১৪]

১৯৬১ সালে পূর্ব জার্মানি পূর্ব ও পশ্চিম বার্লিন এর মধ্যে একটি প্রাচীর স্থাপন শুরু করেছিল, যা বার্লিন প্রাচীর নামে বিখ্যাত হয়ে উঠেছিল। যদিও পূর্ব বার্লিনের দিকে কোন ছবি আঁকার অনুমতি দেওয়া হয় নি, ৮০ এর দশকের মাঝামাঝি থেকে ১৯৮৯ সালে প্রাচীরের পতন না হওয়া পর্যন্ত শিল্পীরা প্রাচীরের পশ্চিম দিকে চিত্রাঙ্কন করে গেছেন।

অনেকে অজানা শিল্পী এবং থিয়েরি নইরকিথ হারিং এর মত পরিচিত শিল্পীরা প্রাচীরের উপর এঁকেছেন, যার পরিচিতি ছিল "বিশ্বের দীর্ঘতম ক্যানভাস" বলে। কখনও কখনও বিস্তারিত শিল্পকর্ম কয়েক ঘন্টা বা এক দিনের মধ্যে আঁকা হয়ে যেত। পশ্চিম দিকের দিকের প্রাচীরে কোন পাহারা ছিল না, তাই সবাই সেখানে আঁকতে পারত। ১৯৮৯ সালে বার্লিন প্রাচীর পতনের পর, দেওয়ালের পূর্ব দিকটিও বহু ম্যুরাল এবং গ্রাফিতি শিল্পীর জনপ্রিয় "ক্যানভাস" হয়ে উঠেছিল। সার্ডিনিয়ার অর্গোসোলো ম্যুরাল রাজনীতির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র।

ম্যুরাল গ্রাফিতি একটি স্মারক হিসাবে ব্যবহার করা খুব সাধারণ ব্যাপার। "সামবডি টোল্ড মি" বইটিতে, রিক ব্র্যাগ, প্রধানত নিউইয়র্কের কিছু সম্প্রদায় সম্পর্কে লিখেছেন, যারা মৃত ব্যক্তিদের দেওয়াল উৎসর্গ করত।[১৫] এই স্মৃতিস্তম্ভগুলি, যেখানে লেখা এবং ম্যুরাল থাকত, সম্প্রদায়ের মৃতদের নামে রাখা হত। ব্র্যাগ বলেছেন যে, "ম্যুরালগুলি ওই শহর এবং স্থানীয় অঞ্চলের বুননে বোনা হত।" এই স্মৃতিস্তম্ভগুলি শহরে সহিংসতার কারণে মৃত ব্যক্তিদের স্মরণ করিয়ে দেয়।

সমসাময়িক আভ্যন্তরীণ নকশা[সম্পাদনা]

ঐতিহ্যগত[সম্পাদনা]

ইংল্যান্ডের বাড়িতে ওয়ান রেড শু দ্বারা কৃত বনভূমির ম্যুরাল, ২০০৭

অনেকেই শিল্পীকে দিয়ে তাদের ঘরে একটি ম্যুরাল আঁকিয়ে বিশেষত্ব প্রকাশ করতে পছন্দ করে। এটি একচেটিয়াভাবে বড় বাড়ির মালিকদের জন্যই শুধু নয়। একজন ম্যুরাল শিল্পীকে তাঁর পারিশ্রমিকটি দিলেই চলে এবং সেইজন্য একটি সহজ ম্যুরাল কোন ছোট দেওয়ালেও লাগানো যায়।

ব্যক্তিগত ম্যুরাল খাবার ঘর, স্নান ঘর, বসার ঘর বা প্রায়শই বাচ্চাদের শোবার ঘরে লাগানো হয়। সন্তানের ঘরটি, কল্পনামূলক খেলা এবং শিল্পের সচেতনতাকে উৎসাহিত করে, অরণ্য বা দৌড়োনোর পথ এর 'কল্পনাপ্রসূত বিশ্ব' রূপে রূপান্তরিত করা যেতে পারে।

ম্যুরালের বর্তমান প্রবণতা যুক্তরাজ্যে ম্যুরালিস্টদের চাহিদা বাড়িয়েছে। একটি বড় হাতে আঁকা ম্যুরাল একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর নকশা করা যেতে পারে, ব্যক্তিগত ছবি এবং উপাদান অন্তর্ভুক্ত হতে পারে এবং অঙ্কনের সময় অবশ্যই এগুলির পরিবর্তন করা যেতে পারে। খরিদ্দার এবং ম্যুরালশিল্পীর মধ্যে ব্যক্তিগত কথাবার্তা প্রায়শই কারোর জন্য একটি অনন্য অভিজ্ঞতা হতে পারে যার সাথে শিল্পের কোন সম্পর্ক থাকেনা।

১৯৮০ এর দশকে, ব্যক্তিগত বাড়িতে বিভ্রমমূলক দেওয়াল অঙ্কনে একটি রেনেসাঁ বা বিপ্লব এসেছিল। অভ্যন্তরীণ নকশার ক্ষেত্রে এই পরিবর্তনের কারণ, মূলতঃ ব্যক্তিগত বসবাসের জায়গা কমে যাওয়া। ভুল স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য, পাশাপাশি প্রাকৃতিক দৃশ্যাবলী এবং ছবি, দেয়ালের 'খোলার' প্রভাব দেখানোর জন্য হতে পারে। ঘনবসতিপূর্ণ বাড়ির জন্য জনসাধারণের মনে হত প্রকৃতির মুক্ত প্রকৃতি পরিবেশ থেকে তারা দূরে চলে গেছে। এই ধরনের একটি ম্যুরাল লাগিয়ে প্রকৃতির সাথে ভারসাম্য পুনঃনির্মাণ করার জন্য কিছু লোকের এটি একটি প্রচেষ্টা হতে পারে।

স্কুল, হাসপাতাল, এবং অবসর গৃহে ম্যুরাল লাগিয়ে একটি আনন্দময় এবং অভ্যর্থনাসূচক পরিবেশ নিয়ে আসা যায়। অন্যান্য জনসাধারণের জন্য ভবনগুলিতেও ম্যুরাল লাগানো একটি সাধারণ ঘটনা।

দেওয়াল লিখন-শৈলী[সম্পাদনা]

মিন্ট ও সার্ফ এস হোটেল, নিউ ইয়র্ক শহর

সম্প্রতি, গ্রাফিতি এবং খোলা রাস্তায় শিল্প, সমসাময়িক দেওয়াল চিত্রকলায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। কিথ হ্যারিং, শেপার্ড ফেইরি, অ্যাবভ, মিন্ট এবং সার্ফ, ফিউচুরা ২০০০, ওস জেমিওস এবং ফেইলিদের মত গ্রাফিতি শিল্পীরা শহুরে ভূদৃশ্য অতিক্রম করে, ব্যক্তিগত এবং কর্পোরেট খরিদ্দারের কাছে তাঁদের শিল্পকে সফলতার সঙ্গে নান্দনিকভাবে উপস্থাপন করেছেন। গ্রাফিতি শিল্প ১৯৯০ এর দশকের শেষের দিকে আরও মূলধারায় মিশে যাচ্ছিল। যুব-ভিত্তিক দল যেমন নাইকি এবং রেড বুল, উইডেন কেনেডি, গ্রাফিতি শিল্পীদের দিয়ে তাদের নিজ নিজ অফিসের দেওয়াল সাজিয়ে নিয়েছিল। এই প্রবণতা ২০০০ সাল জুড়ে অব্যাহত ছিল এবং গ্রাফিতি শিল্প বিশ্বব্যাপী শিল্প প্রতিষ্ঠান থেকে আরো স্বীকৃতি অর্জন করে।

জাতিগত[সম্পাদনা]

রাজস্থানী উপাদানে ম্যুরাল, কক্ষ্যচিত্র, মুম্বই ২০১৪

অনেক গৃহস্থ তাদের সমাজের ঐতিহ্যবাহী শিল্প এবং সংস্কৃতির ইতিহাস বা তাদের ইতিহাসের ঘটনাগুলি প্রদর্শন করতে পছন্দ করে। জাতিগত ম্যুরাল অভ্যন্তরীণ গৃহসজ্জায় একটি গুরুত্বপূর্ণ আকার নিয়েছে। ওরলি চিত্রকলা ম্যুরাল ভারতের দেওয়াল সজ্জার একটি পছন্দের ধরন হয়ে উঠেছে। ওরলি চিত্রকলা একটি প্রাচীন ভারতীয় শিল্পকলা। এটি উপজাতীয় মানুষেরা তাদের মাটির ঘরের দেওয়ালে তাদের জীবনের বিভিন্ন পর্যায় বর্ণনা করতে ব্যবহার করে।

টালি[সম্পাদনা]

জর্জ কোলাকো (১৯২২) দ্বারা গ্লেজেড টালির প্যানেলটি আলজুবারোটার যুদ্ধে (১৩৮৫) পর্তুগিজ এবং ক্যাসাইলিয়ান বাহিনীর যুদ্ধের একটি পর্বের বর্ণনা দেয়। লিসবন, পর্তুগাল

পাথর, সিরামিক, চীনামাটির বাসন, গ্লাস এবং ধাতু দিয়ে তৈরী টালিগুলি বাড়ির ভিতর বা বাইরের দেওয়ালে বসিয়ে ম্যুরালে রূপান্তরিত করা হয়। এগুলি মেঝেতেও বিছানো চলে। ম্যুরাল টাইলগুলি সাধারণত আঁকা, গ্লেজেড, ঊর্ধপাতন দ্বারা মুদ্রিত (নীচে বর্ণিত) বা আরও ঐতিহ্যগতভাবে টুকরো টুকরা বা ভাঙ্গা হয়। উপরে বর্ণিত ঐতিহ্যগতভাবে আঁকা ম্যুরালের বদলে, টালি ম্যুরালের জন্য সবসময় টালি ব্যবহার করা হয়।

মোজাইক ম্যুরালগুলি ছোট আকারের ১/৪" থেকে ২" আকারের রঙিন পাথর, সিরামিক, বা কাচের টাইল মিশ্রিত করে তৈরি করা হয় যা পরে একটি ছবির আকার পায়। বাণিজ্যিক মোজাইক ম্যুরাল নির্মাতারা আধুনিক দিনের প্রযুক্তিতে কম্পিউটার প্রোগ্রাম ব্যবহার ক'রে ছবিগুকে রঙে আলাদা করে স্বয়ংক্রিয়ভাবে কেটে জালের চাদরের উপর লাগিয়ে দেয় এবং ম্যুরালগুলি নিখুঁতভাবে দ্রুত এবং প্রচুর পরিমাণে তৈরি করে।

আজুলেজো (পর্তুগিজ উচ্চারণ: [ɐzuˈleʒu], স্পেনীয় উচ্চারণ: [aθuˈlexo]) দিয়ে পর্তুগীজ বা স্প্যানিশ, টিন-গ্লেজেড, সিরামিক টালির কাজের একটি সাধারণ রূপকে বোঝায়। তারা পর্তুগিজ সংস্কৃতির একটি সাধারণ দৃষ্টিভঙ্গি হয়ে উঠেছে, যা কোন বাধা ছাড়াই পাঁচ শতাব্দী ধরে শিল্পের ধারাবাহিক প্রবণতাগুলি প্রকাশ করে।

আজুলজোগুলি গির্জা, প্রাসাদ, সাধারণ বাড়ি এবং এমনকি রেলওয়ে স্টেশন বা পাতাল রেল স্টেশনের ভিতরে এবং বাইরে দেখা যায়।

সেগুলি শুধুমাত্র একটি আলঙ্কারিক শিল্পের ধরন হিসাবে ব্যবহার করা হত না, কিন্তু বাড়ীতে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার কার্যকরী ক্ষমতাও এগুলির ছিল। অনেক আজুলজো পর্তুগীজ ইতিহাসের ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক দিককে ক্রমানুসারে তুলে ধরে।

খরিদ্দারের পছন্দ অনুযায়ী মুদ্রিত টালি ম্যুরালগুলি ডিজিটাল ছবি ব্যবহার করে রান্নাঘরের দেওয়াল, দেওয়াল প্রদর্শন, এবং মেঝের জন্য উৎপাদিত করা যেতে পারে। ডিজিটাল ফটো এবং শিল্পকর্মগুলি, যে জায়গাটি সাজানো হবে তার মাপ অনুযায়ী পুনঃনির্ধারণ করে মুদ্রণ করা যেতে পারে। খরিদ্দারের পছন্দ অনুযায়ী টালি মুদ্রণ, ডাই সাবলিমেশন এবং সিরামিক-টাইপ লেজার টোনার সহ বিভিন্ন ধরনের কৌশল ব্যবহার করে করা হয়। পরের কৌশলটি দীর্ঘ মেয়াদী বহিঃ প্রদর্শনের জন্য উপযুক্ত টালি তৈরী করে যা সময়ের সঙ্গে ঔজ্জ্বল্য হারানোকে প্রতিরোধ করে।

উল্লেখযোগ্য ম্যুরালশিল্পীরা[সম্পাদনা]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Clare A. P. Willsdon (২০০০)। Mural Painting in Britain 1840-1940: Image and Meaning। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 394। আইএসবিএন 978-0-19-817515-5। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০১২ 
  2. Only after 664 BC are dates secure. See Egyptian chronology for details."Chronology"। Digital Egypt for Universities, University College London। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৩-২৫ 
  3. Menachery, George (ed.): The St. Thomas Christian Encyclopaedia of India, Vol. II, 1973; Menachery, George (ed.): Indian Church History Classics, Vol. I, The Nazranies, Saras, 1998
  4. "'Pallikalile Chitrabhasangal'" (PDF)। ২০১৫-০৬-২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Péter Bokody, Mural Painting as a Medium: Technique, Representation and Liturgy, in Image and Christianity: Visual Media in the Middle Ages, Pannonhalma Abbey, 2014, 136-151
  6. Selim Augusti. La tecnica dell'antica pittura parietale pompeiana. Pompeiana, Studi per il 2° Centenario degli Scavi di Pompei. Napoli 1950, 313-354
  7. Jorge Cuní; Pedro Cuní; Brielle Eisen; Rubén Savizki; John Bové। "Characterization of the binding medium used in Roman encaustic paintings on wall and wood"। Analytical Methods। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  8. "As used by Eric Cumini Murals"। Eric Cumini। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  9. "Toronto Mural Painting"Technical aspects of mural painting। Toronto Muralists। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  10. Sebastián Vargas। "Seizing public space"। D+C, development and cooperation। সংগ্রহের তারিখ ২১ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  11. "Diego Rivera"। Olga's Gallery। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৯-২৪ 
  12. Maximilian Rapp and Markus Rhomberg: Seeking a Neutral Identity in Northern Ireland´s Political Wall Paintings. In: Peace review 24(4).
  13. Maximilian Rapp and Markus Rhomberg: The importance of Murals during the Troubles: Analyzing the republican use of wall paintings in Northern Ireland. In: Machin, D. (Ed.) Visual Communication Reader. De Gruyter.
  14. Commonwealth War Graves Commission। "Last Resting Place"। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০০৬ 
  15. Bragg, Rick. Somebody Told Me: The Newspaper Stories of Rick Bragg. New York: Vintage Books, 2001.
  16. "The Corn Parade"History MattersGeorge Mason University। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১০ 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Artists related to Mexican muralism