মির্জা আব্বাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মির্জা আব্বাস
গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১১ অক্টোবর ২০০১ – ২৭ অক্টোবর ২০০৬
পূর্বসূরীআব্দুল মুয়ীদ চৌধুরী
উত্তরসূরীধীরাজ কুমার নাথ
ঢাকা-৬ সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
২০ মার্চ ১৯৯১ – ৩০ মার্চ ১৯৯৬
প্রধানমন্ত্রীখালেদা জিয়া
পূর্বসূরীআব্দুর রহিম[১]
উত্তরসূরীসাবের হোসেন চৌধুরী[২]
কাজের মেয়াদ
১ অক্টোবর ২০০১ – ২৮ অক্টোবর ২০০৬
প্রধানমন্ত্রীখালেদা জিয়া
পূর্বসূরীসাবের হোসেন চৌধুরী
উত্তরসূরীকাজী ফিরোজ রশীদ[৩]
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1951-02-07) ৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৫১ (বয়স ৬৮)
কিশোরগঞ্জ, বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
দাম্পত্য সঙ্গীআফরোজা আব্বাস[৪]
প্রাক্তন শিক্ষার্থীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
পেশারাজনীতিবিদ

মির্জা আব্বাস উদ্দিন আহমেদ যিনি মির্জা আব্বাস (জন্ম ৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৫১) নামে অধিক পরিচিত হলেন একজন বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদী দলের রাজনীতিবিদ। তিনি ১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র ছিলেন। ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি ঢাকা-৬ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০৬ সাল পর্যন্ত এ দায়িত্ব পালন করেন। একই সময়ে তিনি খালেদা জিয়ার মন্ত্রীসভায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালযয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির (সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী কমিটি) সদস্য।[৫][৬]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

আব্বাস ১৯৫১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম আব্দুর রাজ্জাক ও মাতার নাম কমলা খাতুন। স্থানীয় বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা শেষ করে তিনি ১৯৬৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৯৭২ সালে তিনি বানিজ্য শাখা থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন।[৭]

কর্মজীবনের প্রথমে আব্বাস মির্জা এন্টারপ্রাইজ নামে তাদের পারিবারিক ব্যবসায় যুক্ত হন।[৮] তিনি ঢাকা ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৫ সালে তাকে ঢাকা ব্যাংকের বিকল্প পরিচালক হিসেবে অফিসিয়ালি পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। ২৯শে সালের ২৯শে মার্চ তিনি ব্যাংকের পরিচালক হিসেবে নিযুক্ত হন।

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

জিয়াউর রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল গঠনের পর মির্জা আব্বাস এ দলে যোগদান করেন এবং তিনি দলটির প্রথমদিককার একজন নেতা। ১৯৮০-এর দশকে হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের শাসনামলে তিনি স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশের আন্দোলনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ সংগঠক হিসেবে কাজ করেন।

১৯৯১ সালে তিনি ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে নিযুক্ত হন।[৯] ১৯৯৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি ঢাকা-৬ আসন থেকে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন এবং ১১ অক্টোবর ২০০১ থেকে ২৭ অক্টোবর ২০০৬ পর্যন্ত গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান।[৯][১০] তার সময়কালেই ২০০৬ সালের ডিসেম্বরে ইমারত নির্মাণ বিধিমালা সংশোধীত আইন পাশ হয়।

আব্বাস, ঢাকার শাহজাহানপুরে ১৯৮০ সালে নারী শিক্ষার জন্য মির্জা আব্বাস মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন।[৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of 4th parliament members
  2. List of 7th parliament members
  3. List of 10th parliament members
  4. "Afroza Abbas to lead BNP's women front"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৯-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-২০ 
  5. prothomalo.com (২০১৩-০৭-৩১)। "বিএনপির স্থায়ী কমিটির ১৭ সদস্যের নাম ঘোষণা"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-০৩ 
  6. "জাতীয় স্থায়ী কমিটি ২০১৬ –"বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল – বিএনপি। ২০১৬-১১-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-০৩ 
  7. "Affidavit of Mirza Abbas" (PDF)। Election Commission। ২০০৮-০৯-০৮। ২০১৬-০৩-০৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৪-০৭ 
  8. "Mr. Mirza Abbas Uddin Ahmed"। Dhaka Bank Limited। ২০০৮-০৯-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৪-০৭ 
  9. "বিএনপির ভরসা মির্জা আব্বাস"সমকাল। ২০১৮-১২-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-০৩ 
  10. "সাবেক মন্ত্রীদের নামের তালিকা"গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৯