প্রকৌশলে নারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০০৯-এ কম্পিউটার চিপ ডিজাইনার এবং আবিষ্কারক জেরি এলসওয়ার্থ

আধুনিক ও ঐতিহাসিক সময়ে প্রকৌশলের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীদের অবদান রয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং প্রকৌশল ক্ষেত্র উভয়েই নারীরা প্রায়ই প্রতিনিধিত্ব করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] লিঙ্গ বৈষম্যের প্রথা বুঝতে এবং এর বাধা অতিক্রম করতে বেশ কয়েকটি সংগঠন এবং কর্মসূচি তৈরি করা হয়েছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মেশিন ও কাঠামোর ডিজাইনার এবং নির্মাতা হিসেবে নারীদের ইতিহাস একটি বাণিজ্য হিসাবে প্রকৌশলের উন্নয়নের ইতিহাসের চেয়েও পুরোনো । ১১ শতাব্দীতে "প্রকৌশলী" শব্দটি সৃষ্টির পূর্বে, সারা বিশ্ব জুড়ে সমাজের প্রযুক্তিগত অগ্রগতিতে নারীরা অবদান রেখেছিল, এদের মধ্যে রয়েছে আলেক্সান্দ্রিয়ার হাইপেশিয়া (৩৫০ অথবা ৩৭০–৪১৫ AD), যার নাম ঘনত্বমাপক আবিষ্কারের সঙ্গে জড়িত । ঊনবিংশ শতাব্দীতে, নারীরা যারা প্রকৌশলের কাজ করতো তাদের প্রায়ই গণিত বা বিজ্ঞানের একডেমিক প্রশিক্ষণ থাকতো। অ্যাডা লাভলেস (১৮১৫–১৮৫২) গৃহশিক্ষকের অধীনে গণিত শিখেছেন চার্লস ব্যাবেজের সঙ্গে এনালিটিক্যাল ইঞ্জিন আবিষ্কারে তার সহযোগিতা শুরুর পূর্বে যেটি তাকে খেতাব দিয়েছে পৃথিবীর "প্রথম কম্পিউটার প্রোগ্রামার" হিসেবে। বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে, অল্প পরিমান নারীই প্রকৌশলের বিষয় গুলিতে ভর্তি হতো, কিন্তু তাদের আগ্রহ লক্ষ্য করা যেত যখন পুরুষরা এসকল বিষয়গুলি অধ্যয়ন করতো।

প্রকৌশলে নারীদের প্রথম স্নাতক ডিগ্রি প্রদান করে ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া, বার্কলে। ১৮৭৬ সালে এলিজাবেথ ব্র্যাগ পুরকৌশল-এ স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম নারী প্রকৌশলী হন।[১] ১৯ শতকের আগে, নারীদের কোনও ক্ষেত্রে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের ঘটনা খুব বিরল ছিল কারণ তাদের লিঙ্গ বৈষম্যের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে ভর্তি হওয়ার সুযোগ ছিল না। কিছু বিশ্ববিদ্যালয় ১৮০০ সালের গোড়ার দিকে এবং মধ্য ১৮০০ এর মাঝামাঝি সময়ে তাদের কলেজগুলিতে নারীদের প্রবেশ করাতে শুরু করে এবং তারা তাদের প্রকৌশলসহ সমস্ত একাডেমিক প্রোগ্রামগুলিতে ভর্তি করাতে শুরু করে।[১]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রবেশ প্রকৌশলে মেধার ঘাটতি সৃষ্টি করে, পুরুষেরা সশস্ত্র বাহিনীগুলোতে চলে যেতে থাকে। জেনারেল ইলেকট্রিক গনিত,পদার্থে ডিগ্রিসহ মহিলাদের জন্য প্রকৌশলে চাকরীর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে এবং কার্টিস-রাইট প্রকৌশল প্রোগ্রামে "কার্টিস-রাইট ক্যাডেটেস" চালু করে।[২][যাচাই প্রয়োজন][৩] কোম্পানিটি কর্নেল ইউনিভার্সিটি, পেন্সিলভেনিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটি, পারডু বিশ্ববিদ্যালয়, মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাস অ্যাট অস্টিন, আরপিআই, এবং আইওয়া স্টেট ইউনিভার্সিটি এর সহযোগী হয় একটি প্রকৌশল পাঠক্রম তৈরি করতে যা অবশেষে ৬০০ নারীর নাম নথিভুক্ত করতে ভূমিকা রাখে। পাঠক্রমটি দশ মাস টিকে ছিল এবং প্রাথমিকভাবে বিমান নকশা এবং উৎপাদনের উপর বিশেষায়িত ছিল।[২]

এই সময়ে, যেহেতু প্রকৌশল ক্ষেত্রে নারীদের প্রতিনিধিত্ব ছিল, তাই নারীদের উপর প্রকাশ্য অভিক্রমণও হতো। বিশেষত, এই অভিক্রমণগুলি প্রতিষ্ঠানগুলির ভিতরে গোপন রাখা হতো এ কারণে যে প্রকৌশল ক্ষেত্রে পুরুষদের এবং নারীদের মধ্যে লিঙ্গ বৈসাদৃশ্য পরিবর্তন করার জন্য মহিলাদের পূর্বপাক্ষিক চাপ ছিল না। আরেকটি কারণ এই যে “হামলাগুলি” অপ্রকাশ্য রাখা হতো, কারন পুরুষদের বিশ্বাস ছিল যে প্রকৌশল ক্ষেত্রে পুরুষ আধিপত্য বন্ধ হওয়া অসম্ভব।[৪]

প্রকৌশল ক্ষেত্রে নারী শ্রমিকদের কর্মকাণ্ড, বিশেষত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দ্বিতীয় পর্বের সময়কালে ব্যাপক পরিবর্তিত হয়। বেশি বয়সে মেয়েরা বিয়ে করতে শুরু করলে, কম বাচ্চা নিতে শুরু করে, আরও ঘন ঘন বিবাহবিচ্ছেদ করে এবং অর্থনৈতিক সহায়তার জন্য পুরুষের উপর নির্ভরতা বন্ধ হয়ে যায়, তাদের বেতন পুরুষদের তুলনায় কম হওয়া সত্বেও তারা প্রকৌশল ক্ষেত্রে আরও সক্রিয় হতে শুরু করে।[৫]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এনিয়াক নির্মাণকাল হতে শুরু করে পরবর্তী কয়েক দশকে নারীরা এর প্রোগ্রামিং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। মূলত ১৯৪৩ সালে সেনাবাহিনী দ্বারা নিয়োগ করা হয়, নারী এনিয়াক প্রোগ্রামাররা প্রোগ্রামিংয়ের কৌশলগুলিতে যথেষ্ট অগ্রগতি সাধন করেছে, যেমন ব্রেকপয়েন্টের আবিষ্কার, যা এখন একটি প্রমিত ডিবাগিং টুল।[৬]

প্রকৌশলীদের যুদ্ধকালীন ঘাটতি ছাড়াও, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে ধীরে ধীরে নারী শিক্ষার্থীদের ভর্তি করানোর কারনে নারীরাও প্রকৌশল ক্ষেত্রে অগ্রগতি লাভ করে । উদাহরণস্বরূপ, জর্জিয়া টেক ১৯৫২-এ নারী প্রকৌশলী শিক্ষার্থী ভর্তি করানো শুরু করে, এবং প্যারিসের ইকলে পলিটেকনিক প্রথম ১৯৭২ সালে নারী শিক্ষার্থীদের ভর্তি শুরু করে।

নারীদের অংশগ্রহণ কমায় অবদানকারী উপাদান[সম্পাদনা]

জেন্ডার স্টেরিওটাইপ্স[সম্পাদনা]

স্টেরিওটাইপ্স হুমকি প্রকৌশলে নারীদের কম প্রতিনিধিত্ব সৃষ্টি করতে পারে। যেহেতু প্রকৌশল একটি ঐতিহ্যগতভাবে পুরুষ-আধিপত্য ক্ষেত্র, এতে নারীরা তাদের ক্ষমতার ব্যাপারে কম আস্থাশীল হতে পারে, এমনকি সমানভাবে কাজ করার সময়ও।[৭] অল্প বয়সে, মেয়েরা প্রকৌশলে ছেলেদের মতো এতটা আগ্রহ প্রকাশ করে নাহ, সম্ভবত লিঙ্গ ছকের কারণে।[৮] মহিলা প্রকৌশলীদের বিরুদ্ধে নিরবিচ্ছিন্ন পক্ষপাতের অবশিষ্ট উপস্থিতির উল্লেখযোগ্য প্রমাণ রয়েছে, বিশ্বাস করা হয় যে পুরুষরা গাণিতিকভাবে উচ্চতর এবং প্রকৌশল কাজের জন্য অধিক উপযুক্ত।[৮] যেসব নারীরা অটলভাবে এই সমস্যা সমাধান করতে সক্ষম, তারা প্রকৌশল পেশায় পরিপূর্ণ এবং ফলপ্রসূ অভিজ্ঞতা লাভ করতে পারে।[৯]

এই পক্ষপাতের কারণে, কলেজে প্রকৌশল ক্ষেত্রে নারীদের প্রবেশ পটভূমির সাথে অত্যন্ত সম্পর্কযুক্ত এবং হাই স্কুলে গণিত এবং অন্যান্য বিজ্ঞান কোর্সের ক্ষেত্রেও এর পভাব রয়েছে । বেশিরভাগ নারীরাই ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে পছন্দ করেন যে ধরনের কোর্স সম্পর্কে তাদের নিজেদের ভাল অভিজ্ঞতা রয়েছে এবং ফলস্বরূপ, তারা একজন পুরুষ-আধিপত্যের ক্ষেত্রগুলিতে অধ্যয়ন করতে সক্ষম বলে মনে করে।[১০]

নারীর স্ব-কার্যকারিতা লিঙ্গ ছকের ভূমিকা পালন করে যা প্রকৌশলে নারীদের অন্তর্নিহিত উপস্থাপনায় একটি ভূমিকা পালন করে। নারীর সক্ষমতা মনে করা হয় যে তারা সফল হতে পারে এবং সাফল্য অর্জন করতে পারে যা একটি কলেজ কর্মজীবন নির্বাচন করার সময় তাদের পছন্দগুলির সাথে সম্পর্কযুক্ত। উচ্চ স্ব-কার্যকারিতার ব্যক্তিত্ব প্রদর্শনকারী নারীরা প্রকৌশল ক্ষেত্র বাচাইয়ে আরো প্রবণ হয়। স্ব-কার্যকারিতা এছাড়াও লিঙ্গ ভূমিকার সাথে সম্পর্কযুক্ত কারণ পুরুষরা প্রায়ই মহিলাদের তুলনায় অধিক আত্ম-কার্যকারিতা উপস্থাপন করে, যা নারীদের প্রকৌশলকে প্রধান পছন্দ হিসেবে বাচাইয়ে অনুৎসাহিত করে।[১০]

প্রকৌশল ডিগ্রী প্রোগ্রামে নারী শিক্ষার্থীদের নিম্ন হার[সম্পাদনা]

কর্মক্ষেত্রের মতো প্রকৌশল ডিগ্রী প্রোগ্রামেও নারী শিক্ষার্থীরা কম প্রতিনিধিত্ব করে (পরিসংখ্যান দেখুন)। কতজন নারী প্রকৌশলী হতে যাচ্ছে সেক্ষেত্রে উচ্চ মাধ্যমিক প্রকৌশল প্রোগ্রামে নারীর তালিকাভুক্তি এবং স্নাতকের হার খুবই গুরুত্বপূর্ণ নির্ধারক। যেহেতু স্নাতক ডিগ্রীগুলি "বৈজ্ঞানিক ক্ষেত্রে প্রবেশযোগ্য বিন্যাসের সর্বশেষ বিন্দু" হিসাবে স্বীকৃত হয় তাই স্নাতক প্রোগ্রামে নারীদের কম প্রতিনিধিত্ব বৈজ্ঞানিক ক্ষেত্রগুলিতে নারীদের কম প্রতিনিধিত্ব সৃষ্টি করে।[১১] উপরন্তু, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, যেসকল নারী বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং প্রকৌশল ক্ষেত্রের ডিগ্রী অর্জন করেছে, তাদের সেই ক্ষেত্রের মধ্যে চাকরির জন্য পুরুষের তুলনায় কম সম্ভাবনা রয়েছে।।[১২]

এই ডিগ্রী অসমতা ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়মানুবর্তিতা জুড়ে পরিবর্তিত হয়। নারীরা সামাজিক ও মানবিক উন্নয়ন আছে এমন প্রকৌশল বিষয়গুলিতে আরো আগ্রহী হতে থাকে, যেমন কৃষি এবং পরিবেশগত প্রকৌশল। এ কারনে তারা তারা পরিবেশগত এবং বায়োমেডিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি প্রোগ্রামে ভালভাবে প্রতিনিধিত্ব করে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে (২০১৪-১৫ সালে) প্রদত্ত সম্মানিত ডিগ্রীর ৪০-৫০% অর্জন করেছে নারীরা। যন্ত্র, তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক এবং কম্পিউটার বিজ্ঞান এসকল ক্ষেত্র থেকে ডিগ্রী অর্জনে নারীদের অনেক কম সম্ভাবনা থাকে।[১২][১৩]

হার্ভার্ড ব্যবসা পর্যালোচনা কর্তৃক এক গবেষনায় আলোচনা করা হয়েছে, কেন প্রকৌশল ক্ষেত্রে নারীদের প্রতিনিধিত্বের হার এখনও কম। গবেষণায় দেখা গেছে যে প্রকৌশল ক্ষেত্রে বিভিন্ন দিকের সহযোগীতার কারনে প্রকৌশল প্রোগ্রামে নারী ছাত্রীদের হার ক্রমাগত হয়। গবেষনার ফলাফলে প্রধানত নির্ধারিত হয় কিভাবে দলগত কাজগুলিতে নারীদের প্রতি ভিন্নভাবে আচরণ করা হয়, যেখানে মহিলা সদস্যদের তুলনায় পুরুষ বেশি পুরুষ এবং কিভাবে পুরুষ সদস্যরা "বাস্তব প্রকৌশল কর্ম থেকে নারীদের বাদ দেয়"। এই ছাড়াও, এই গবেষণায় নারীরা বর্ণনা করেছে “শুধুমাত্র তারা নারী বলে” কিভাবে শিক্ষকরা তাদের সাথে ভিন্ন আচরন করেছে।[১৪]

সারা দেশে প্রকৌশল কর্মসূচীগুলিতে কম সংখ্যক নারী যোগদান করেছে তা সত্ত্বেও, স্টেম-ভিত্তিক পেশায় নারীদের প্রতিনিধিত্ব সম্ভাব্য বৃদ্ধি পেতে পারে যখন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসক নারীদের জন্য পরামর্শমূলক কর্মসূচী এবং কর্ম জীবন নীতি বাস্তবায়নে কাজ করে। গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, এই হার একটি কঠিন সময় বৃদ্ধি পেয়েছে কারন অনুমান-অনুসারে "পুরুষের কাজে" নারীদের পুরুষদের তুলনায় কম সক্ষম হিসাবে গণ্য করা হয়।[১৫]

প্রকৌশল সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

প্রকৌশল ক্ষেত্রে অল্প নারী অংশগ্রহণের আরেকটি সম্ভাব্য কারণ হল কর্মক্ষেত্র সংস্কৃতিতে পুরুষ লিঙ্গগত ভূমিকার সাথে যুক্ত মানগুলির প্রসার।[১৩] উদাহরণস্বরূপ, প্রকৌশল ক্ষেত্রে কিছু নারী পিরিয়ডের পরে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশে সমস্যা অনুভব করে। কারণ পরিবার বাড়ানোর জন্য পুরুষরা বেশি সময় কাটায় না, এটি সামঞ্জস্যহীনভাবে নারীদের প্রভাবিত করে।[১৬]

কর্মক্ষেত্রে নেতৃত্বের ভূমিকা গ্রহণের সাথে পুরুষরাও যুক্ত। নারীর উপর ক্ষমতার একটি অবস্থান অধিষ্ঠিত করে রাখলে, পুরুষরা তাদের জন্য অস্বস্তিকর পরিবেশ তৈরি হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ঝুঁকি গ্রহণ এবং একটি দ্রুত গতির, আক্রমনাত্মক পরিবেশ পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের দ্বারা কম অনুকূল হতে পারে।

কর্মক্ষেত্রে পুরুষদের এবং মহিলাদের মধ্যে বিভক্তির জন্য যোগাযোগ একটি অন্যতম উপাদান। একজন পুরুষ থেকে আরেকজন পুরুষের মধ্যে যোগাযোগকে প্রত্যক্ষ যোগাযোগ বলা হয়,[১৭] কিন্তু যখন একজন পুরুষ একজন নাারীকে একটি কাজ ব্যাখ্যা করে, তখন তারা কথা বলতে নিচে ঝোঁকে। এটি স্টেরিওটাইপ্স ধারনা থেকে আসে কারন ভাবা হয় পুরুষরা প্রকৌশলের জন্য নারীদের তুলনায় আরো যোগ্যতাসম্পন্ন, এর থেকে ধারনা আসে যে পুরুষদের তুলনায় নারীদেরকে সমানভাবে পরিবর্তিত করে তুলতে হবে।

প্রকৌশল ক্ষেত্রে পুরুষ আধিপত্যের অংশ প্রকৌশলের প্রতি তাদের নিজের উপলব্ধি দ্বারা ব্যাখ্যা করা হয়। ১৯৬৪ সালে একটি গবেষণায় দেখা যায় যে নারী ও পুরুষ উভয়ই বিশ্বাস করত যে প্রকৌশল আসলে একটি পুরুষোচিত ক্ষেত্র ছিল।[১৮]

প্রকৌশল বিষয়ক ক্ষেত্র এবং ক্ষেত্রগুলিতে পুরুষোচিত প্রভেদ প্রমাণ করে যে পরুষেরা নিজেদের বিশ্বাস করে যে তারা গণিত এবং বিজ্ঞান সম্পর্কিত ক্ষেত্রগুলিতে "স্বাভাবিকভাবেই" উৎকৃষ্ট, যেখান নারীরা "স্বাভাবিকভাবেই" ভাষাবিদ্যা এবং লিবারেল আর্টস-এ উৎকৃষ্ট। গত কয়েক দশকে, নারীরা স্টেম কর্মক্ষেত্রে প্রতিনিধিত্ব প্রতিনিধিত্ব করে আসছে, বিশেষভাবে প্রকৌশলে, উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত হয়েছে। ১৯৬০ সালে মোট প্রকৌশলীদের ১% ছিল নারী এবং ২০০০ সালে এ হার বেড়ে দাড়ায় ১১% ।[১৫]

বেশিরভাগ কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় দেশব্যাপী তাদের কর্মসূচিতে আরও নারী নিয়োগের মাধ্যমে প্রকৌশল ক্ষেত্রে পুরুষদের এবং নারীদের মধ্যে লিঙ্গগত বৈষম্য হ্রাস করতে চায়। আরো নারী স্নাতক শিক্ষার্থী নিয়োগের জন্য ব্যবহৃত কৌশলগুলো হল: উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে নারীদের STEM-কোর্সের উন্মুক্ততা বৃদ্ধি করা, প্রকৌশল সংস্কৃতি থেকে লিঙ্গ সম্পর্কিত ইতিবাচক ধারণাটি রোপণ করা, শ্রেণীকক্ষের ভিতরে এবং বাইরে একটি আরো নারী-বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশ তৈরি করা। এই কৌশলগুলি সংস্থাগুলিকে আরো বেশি নারীদেরকে প্রকৌশল কর্মসূচি এবং অন্যান্য STEM ভিত্তিক ক্ষেত্রগুলিতে ভর্তি করাতে সাহায্য করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলি তাদের স্নাতক প্রোগ্রামে ভর্তির জন্য নারীদের উত্সাহিত করতে, প্রতিষ্ঠানগুলিকে নারীদের নিয়োগের গুরুত্বে জোর দিতে হবে, স্নাতক পর্যায়ে STEM শিক্ষার গুরুত্বকে জোর দিতে হবে, আর্থিক সহায়তা প্রদান করে এবং নারীদের তাদের কর্মসূচিগুলিতে নিয়োগের জন্য আরো কার্যকর পদ্ধতিগুলি বিকাশ করতে হবে।[১৯]

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নারীদের দ্বারা মোট স্নাতকোত্তর প্রকৌশল ডিগ্রি অর্জনের শতকরা হার[১৩]
দেশ % নারীদের বছর
অস্ট্রেলিয়া ১৪.১% ২০০৪
কানাডা ১৮.৫% ২০০৪
যুক্তরাজ্য ৯.৫% ২০০৫-০৬
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯.৩% ২০০৫-০৬

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র[সম্পাদনা]

প্রকৌশল ও প্রকৌশলীদের কাজে উভয় স্নাতক ছাত্রীদের নিম্ন উপস্থিতি পরিলক্ষিত হয়।[২০][২১] নারীদের স্নাতক ডিগ্রী প্রদানের সংখ্যা ২০০৩-এ ২০.৪% থেকে ২০০৯-এ ১৭.৮%-এ নেমে আসে এবং ২০১২-এ ১৮.৯%-এ ফেরত আসে।[২২] প্রকৌশল কর্মক্ষেত্রে নারীদের কম উপস্থিতি বিভিন্ন ক্ষেত্রের দ্বারা পরিবর্তিত হয়। ২০০৮-এ কর্মক্ষেত্রের নারী যন্ত্র প্রকৌশলীর সংখ্যা ৬.৭% , তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক এবং ইলেক্ট্রনিক্স ৭.৭%, মহাকাশ এবং পুরকৌশল ১০.৪%, রসায়ন ১৩.১% এবং কম্পিউটার এবং সফ্টওয়্যার প্রকৌশলী ২০.৯% এর অধিক হয়েছে। ডক্টরেট ধরে রাখা নারীর সংখ্যার পরিমাণ বাড়ানোর সময় এই মানগুলি আরও বেশি সংখ্যক সংখ্যাযুক্ত হয়।[১৫]

নারীদের প্রদত্ত মাস্টার্স ডিগ্রির ক্ষেত্রে ২০০৩ (২২.৩%) থেকে ২০১২ (২৩.১%) এই সময়ে শতাংশে খুব বেশি পরিবর্তন হয়নি।[২২] প্রকৌশল ক্ষেত্রে নারীদেরকে প্রদত্ত ডক্টরেট ডিগ্রি ১৯৯৫ সালের ১১.৬% থেকে বেড়ে ২০০৪ সালে ১৭.৪%, ২০০৮ সালে ২১.১% তারপর ২০১২ সালে ২২.২%।[২৩] [২৪][২২]

১৯৯৭ সাল থেকে, প্রকৌশল বিষয়গুলিতে এশীয় নারীদের ভর্তির হার প্রায় ৩০% থেকে ৩৪% এ বৃদ্ধি পেয়েছে কিন্তু কোনো প্রকারে ২০০২ সালে কমে যায়। আফ্রিকান আমেরিকান নারীরা একই সময়ের মধ্যে ২১% থেকে ৩৩% পর্যন্ত প্রকৌশলে তাদের প্রতিনিধিত্ব বৃদ্ধি করেছে। মেক্সিকান আমেরিকান (চিকানা) এবং পুয়ের্তো রিকান নারীরা তাদের প্রতিনিধিত্ব ২৫% থেকে ৩১% বৃদ্ধি করেছে। এমনকি যদি এই পরিসংখ্যানগুলিতে জাতিগোষ্ঠীগুলো অন্তর্ভুক্ত করা হয়, সমস্ত জাতিগোষ্ঠী থেকে পুরুষরা এখনও প্রকৌশল স্নাতক প্রোগ্রামে ভর্তি নারীদের অনুপাতকে অতিক্রম করেছে।[১৯]

স্নাতক ডিগ্রি অর্জনকারী নারীদের সংখ্যা এবং যারা গ্র্যাজুয়েট স্কুলে স্নাতক পরবর্তীতে ভর্তি হয় তাদের মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য পরিমান ঝড়ে পড়ার হার রয়েছে। গত ৩৫ বছর ধরে, পুরুষদের তুলনায় নারীদের তাদের স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পরই স্নাতকোত্তর স্কুলে ভর্তি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। নারীরা যারা স্নাতক ডিগ্রী অর্জনের পরই গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রামে ভর্তি হয়না তাদের যত্নশীল হতে হয় পরিবারে নারী হওয়া সত্বে এবং তাদের কর্ম-পরিবার দ্বন্দ্বের সম্মুখীন হতে হয়।[২৫] এতে করে কর্মক্ষেত্রে নারীদের কম প্রতিনিধিত্ব রয়ে যায়। ২০০৯ সালে, মোট কর্মক্ষেত্রে নারীরা ৪৮% অন্তর্ভূক্ত ছিল, কিন্তু মাত্র ১৪% নারীরা প্রকৌশল কর্মক্ষেত্রে।[১২]

অস্ট্রেলিয়া[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়ায় মাত্র ১৪% প্রকৌশলী নারী।[২৬] এছাড়াও মহিলা প্রকৌশলীদের ধারণক্ষমতা সামঞ্জস্যহীনভাবে কম; ২০০৬-এ, প্রকৌশল পেশায় যোগ্যতাসম্পন্ন পুরুষ প্রকৌশলীদের ৬২.৬% নিয়োগ করা হয়, বিপরীতে ৪৭.১% যোগ্যতাসম্পন্ন নারীকে।[২৭]

কানাডা[সম্পাদনা]

যদিও কানাডায় অর্ধেকেরও কম সংখ্যক নারী স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করে, প্রকৌশলে নারীদের সংখ্যা অপ্রত্যাশিতভাবে কম।[২৮] যেখানে ২০০১ সালে, প্রকৌশল প্রোগ্রামে ২১ শতাংশ শিক্ষার্থী নারী ছিল, ২০০৯ সালে এটি ১৭ শতাংশে নেমে এসেছে।[২৮] একজন ভাষ্যকার এই হার নেমে যাওয়ার জন্য কয়েকটি কারণকে দায়ী করেছেন, যেমন: কিভাবে প্রকৌশল অন্যদের জীবনে উন্নতি করতে পারে তা ব্যাখ্যা করতে উচ্চ শিক্ষার কর্মসূচির ব্যর্থতা, প্রকৌশলীরা কি করছে তার সচেতনতার অভাব, এবং একটি পুরুষ-আধিপত্য পরিবেশে নারীর অস্বস্তি এবং উপলব্ধি করা উচিত যে নারীরা নিজেদের সেখানে খাপ খাওয়াতে পারবে।[২৮]

১৯৯০ এর দশকে, প্রকৌশলে নারীদের স্নাতকোত্তরে ভর্তির হার ১৭% থেকে ১৮%-এ উঠানামা করে, যেখানে ২০০১-এ, এটি বেড়ে ২০.৬% হয়ে ওঠে।[২৯] ২০১০-এ, স্নাতক প্রকৌশল শিক্ষার্থীদের ১৭.৭% ছিল নারী।[৩০]

২০১০-এ কানাডায় তৃতীয় পর্যায়ের শিক্ষা প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত নারীদের হার[৩০]
প্রদেশ অস্নাতক স্নাতক ডক্টরেট
অ্যালবার্টা ২২% ২৩.৩% ২৩.৩%
ব্রিটিশ কলাম্বিয়া ১৬.৫% ২৭.৫% ২৭.৫%
ম্যানিটোবা ১৬% ২২.৯% ২২.৯%
নিউ ব্রান্সউইক ১৫.৯% ১৯.৩% ১৯.৩%
নিউফাউন্ডল্যান্ড ও লাব্রাডর ২০.৯% ২০.৬% ২০.৬%
উত্তরপশ্চিম অধীনস্থ অঞ্চলসমূহ
নোভা স্কোশিয়া ১৮.৭% ১৫.৮% ১৫.৮%
নুনাভুট
অন্টারিও ১৭.৭% ২১.৪% ২১.৪%
প্রিন্স এডওয়ার্ড দ্বীপ
কেবেক ১৬.৩% ২০.৪% ২০.৪%
সাসক্যাচুয়ান ১৯% ২৭.৯% ২৭.৯%
ইউকন
কানাডা ১৭.৭% ২১.৯% ২১.৯%

২০১০-এ নারীরা স্নাতক ডিগ্রি প্রোগ্রামে ভর্তিতে সর্বোচ্চ ছিল পরিবেশগত, জৈবপ্রযুক্তি, এবং ভূতাত্ত্বিক প্রকৌশল-এ।[৩০]

অস্নাতক, স্নাতক, এবং ডক্টরেট প্রকৌশল প্রোগ্রামে ভর্তি নারীদের সংখ্যা প্রদেশ অনুযায়ী বিভিন্ন হয়, সাসক্যাচুয়ান, অ্যালবার্টা এবং ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় এ সংখ্যা সর্বোচ্চ।[৩০]

গড়ে, ১১% প্রকৌশল অনুষদ নারী এবং নারীদের দ্বারা পরিচালিত নেতৃত্বের ভূমিকা গড়ে ৯%।[৩০] টরন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে কানাডার সর্বোচ্চ নারী অনুষদ, যার হার ১৭% এবং ইকলে পলিটেকনিক ডি মন্ট্রিয়াল, ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়া, এবং ডালহৌসি বিশ্ববিদ্যালয় এইগুলোর সবগুলোতে নারী অনুষদের হার ১৩%।[৩০]

CCWE1992 goals for 1997 and actual 2009 percentage of women involved in engineering in Canada
মহিলাদের মধ্যে... ১৯৯৭ ২০০৯
১ম বর্ষ অধীন স্নাতক ২৫-২৫%
অধীন স্নাতক প্রোগ্রাম ১৭.৪%
মাস্টার্স অধ্যয়ন ২০% ২৪.১%
ডক্টরাল স্টাডিজ ১০% ২২%
অনুষদ সদস্য: অধ্যাপক ৫% সম্পূর্ণ: ৭%
সহযোগী: ১১%
সহকারী: ১৮%
প্রকৌশল ডিগ্রি স্নাতক ১৮% ১৭.৬%
পেশা ১০.৪%

২০১১-এ, কানাডিয়ান কমিটি অফ উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং (CCWE+২০) INWES শিক্ষা এবং গবেষণা ইনস্টিটিউটে (ERI) একটি জাতীয় কর্মশালার আয়োজন করে, সেখানে কানাডার প্রকৌশল ক্ষেত্রে নারীদের সংখ্যা বৃদ্ধির উপায় নির্ধারণের জন্য আলোচনা করা হয়।[৩১] CCWE+২০ ২০১৬-এর মধ্যে সহযোগিতা এবং বিশেষ প্রকল্পগুলিতে আরও বেশি প্রণোদনার মাধ্যমে প্রকৌশলে নারীদের আগ্রহ আরো ২.৬ হার বৃদ্ধির মাধ্যমে মোট ২৫ শতাংশে উন্নিত করার লক্ষ্য নির্ধারন করে।[৩১] কর্মশালাতে অন্যান্য বিষয়গুলি ছাড়াও প্রধান বাধাগুলির মধ্যে প্রাথমিক শিক্ষাকেও চিহ্নিত করা হয়, যেমন: "তাদের প্রজন্মের জনপ্রিয় সংস্কৃতি, উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে কোর্স নির্বাচন নিয়ে তারা যে নির্দেশনা পেয়েছে এবং তাদের বাবা-মা, শিক্ষক ও পরামর্শদাতারা নারীদের জন্য উপযুক্ত এবং বৈধ কর্মজীবন পছন্দ হিসাবে প্রকৌশলকে স্বীকৃতি দেয়।"[৩১] কর্মশালার প্রতিবেদনটি ২০০৯ সালের প্রকৃত তথ্যের সাথে ১৯৯৭ সালে চিহ্নিত লক্ষ্যের নিয়োগ, শিক্ষণ এবং পেশাদারী পরিসংখ্যানের তুলনা করে, উন্নতির ক্ষেত্রগুলির রূপরেখা (টেবিল দেখুন, ডানে)।

প্রকৌশলে নারীদের প্রচারে পেশাদার প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

সংগঠন দেশ
বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে আফ্রিকান নারী (AWSE) কেনিয়া, তানজানিয়া, উগান্ডা
আনিতা বোরগ ইনস্টিটিউট ফর উইম্যান অ্যান্ড টেকনোলজি বিশ্বব্যাপী
অ্যাসোসিয়েশন অব ফ্রান্সফোন উইম্যান ইন স্টেম (AFFESTIM) কানাডা
কোরিয়া নারী বিজ্ঞানী ও ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন দক্ষিণ কোরিয়া
নাইজেরিয়া পেশাদার মহিলা ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন (APWEN) নাইজেরিয়া
অ্যাসোসিয়েশন অফ সাউথ আফ্রিকান উইম্যান ইন সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং দক্ষিন আফ্রিকা
অস্সসিজিওনে ইতালিয়ান ডোনা ইঙেগনেরই এ অর্চিকেটটি (AIDIA) ইতালি
জার্মান অ্যাসোসিয়েশন অফ উইম্যান ইঞ্জিনিয়ার্স জার্মানি
গ্লোবাল উইমেন ইনভেন্টরস অ্যান্ড ইনোভেটরস নেটওয়ার্ক বিশ্বব্যাপী
গ্রেস হোপা সেলেব্রেশন অফ উইমেন ইন কম্পিউটিং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
ইনস্টিটিউট অফ ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ার্স (IEEE) উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্বব্যাপী
ইন্টারন্যাশনাল নেটওয়ার্ক অফ উইমেন ইঞ্জিনিয়ার্স এন্ড সায়েন্টিস্টস জাপান (INWES জাপান) জাপান
অন্টারিও নেটওয়ার্ক অফ উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কানাডা
রোবোগলস অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ আফ্রিকা, কানাডা, জাপান, ফিলিপাইন
সোসাইটি অব উইমেন ইঞ্জিনিয়ার্স মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
স্টেমেটিস যুক্তরাজ্য
ভিয়েতনাম এসোসিয়েশন ফর ইন্টেলেকচুয়াল উইমেন ভিয়েতনাম
ওয়াইস যুক্তরাজ্য
WomEng বিশ্বব্যাপী
উইমেন ইন এভিয়েশন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
উইমেন ইন বিল্ডিং সার্ভিসেস ইঞ্জিনিয়ারিং যুক্তরাজ্য
উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রোএক্টিভ নেটওয়ার্ক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং স্টুডেন্ট সোসাইটি যুক্তরাজ্য
উইমেন ইন সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (WiSE) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
উইমেন ইন সাইন্স, টেকনোলজি, ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড ম্যাথমেটিক্স (WSTEM) মঙ্গোলিয়া মঙ্গোলিয়া
উইমেন ইন সেট যুক্তরাজ্য
উইমেন ইন টেকনোলজি ইন্টারন্যাশনাল বিশ্বব্যাপী
উইমেন'স ইঞ্জিনিয়ারিং সোসাইটি যুক্তরাজ্য
উইমেন অফ স্টেম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Society of Women Engineers Blog। "History of Women Engineers"All Together Society Of Women Engineers। Society of Women Engineers। ১ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ নভেম্বর ২০১৭ 
  2. Bix, Amy Sue, "'Engineeresses' Invade Campus: Four decades of debate over technical coeducation." IEEE Technology and Society Magazine, Vol. 19 Nr. 1 (Spring 2000), 21.
  3. "In Memoriam: Pilot and Physics Teacher"। The Penn Stater। জুলাই–আগস্ট ২০১৩। Fenton...arrived at Penn State in 1942 as part of the Curtiss-Wright Engineering Program, which was training women to replace male engineers who were fighting in World War II. [After] work[ing] at Curtiss-Wright, [she] enlist[ed] in the Navy, including a stint at...Wright-Patterson... She later taught physics at Cal State-Sacramento for 38 years. 
  4. Bix, Amy Sue (২০১৩)। Girls coming to tech! : a history of American engineering education for women। Cambridge, Mass.: MIT Press। পৃষ্ঠা 14–43। আইএসবিএন 9780262019545 [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  5. Yang, Juemei (২০১৬)। The impact of power status on gender stereotypes, sexism, and gender discrimination toward women in the workplace and the career identity development of women। The University of North Dakota: The University of North Dakota। পৃষ্ঠা 1–20। 
  6. Abbate, Janet। "Recoding Gender: Women's Changing Participation in Computing"। MIT Press। 
  7. Jones, Brett D.; Ruff, Chloe; Paretti, Marie C. (২০১৩)। "The impact of engineering identification and stereotypes on undergraduate women's achievement and persistence in engineering"। Social Psychology of Education An International Journal 
  8. Hill, Catherine. "Why So Few?: Women in Science, Technology, Engineering and Mathematics". AAUW.
  9. Buse, Kathleen; Bilimoria, Diana; Perelli, Sheri (২০১৩)। "Why they stay: women persisting in US engineering careers"। Career Development International18.2: 139–154। 
  10. Blaisdell, Stephanie (১৯৯৪)। "Factors In The Underrepresentation Of Women In Science and Engineering: A Review Of The Literature"Penn State University: 167-168। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  11. Fox, Mary; Sonnert, Gerhard; Nikiforova, Irina (২০১১)। "Programs for Undergraduate Women in Science and Engineering: Issues, Problems, and Solutions"। Gender & Society25 (5): 591। doi:10.1177/0891243211416809 
  12. Yoder, Brian L. (২০১৫)। "Engineering by the Numbers" (PDF)। American Society for Engineering Education। 
  13. Franzway, Suzanne; Sharp, Rhonda; Mills, Julie E; Gill, Judith (২০০৯)। "Engineering Ignorance: The Problem of Gender Equity in Engineering"। Frontiers: A Journal of Women Studies30 (1): 90। doi:10.1353/fro.0.0039 
  14. Silbey, Susan S.। "Why Do So Many Women Who Study Engineering Leave the Field?"Harvard Business Review। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  15. Hill, Ph.D., Catherine; Corbett, Christiane; St. Rose, Ed.D., Andresse। "Why So Few?: Women In Science, Technology, Engineering and Mathematics"ERIC Institute of Education Sciences। AAUW। 
  16. Evetts, Julia (১৯৯৩)। "Women and management in engineering: The 'glass ceiling' for"। Women in Management Review8.7 
  17. Dutta, Debalina1. "Sustaining The Pipeline: Experiences Of International Female Engineers In U.S. Graduate Programs." Journal of Engineering Education 104.3 (2015): 326-344. Education Source.
  18. Blaisdell, Stephanie (১৯৯৪)। "Factors In The Underrepresentation Of Women In Science And Engineering: A Review Of The Literature"। Penn State University: 169–170। 
  19. Committee on the Guide to Recruiting and Advancing Women Scientists and Engineers in Academia, Committee on Women in Science and Engineering, and National Research Council (২০০৬)। To Recruit and Advance : Women Students and Faculty in U.S. Science and Engineering। National Academic Press। পৃষ্ঠা 26–26। 
  20. "Data on Women in S&E" (PDF)। পৃষ্ঠা 4। আগস্ট ১৯, ২০০৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  21. "Committee on Women in Science, Engineering, and Medicine"। Committee on Women in Science, Engineering, and Medicine। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১২ 
  22. Yoder, Brian। "Engineering by the Numbers" (PDF)ASEE। American Society for Engineering Education। 
  23. "Table 2. Doctorates awarded to women, by field of study: 1995–2004" (PDF)। National Science Foundation। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১২ 
  24. Scott Jaschik, Women Lead in Doctorates, Inside Higher Ed, September 14, 2010 (accessed June 18, 2013)
  25. Committee on the Guide to Recruiting and Advancing Women Scientists and Engineers in Academia; Committee on Women in Science and Engineering; National Research Council। To Recruit and Advance : Women Students and Faculty in U.S. Science and Engineering। পৃষ্ঠা 14–47। 
  26. "Who, What, Why"। Robogals। ২ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১২ 
  27. Kaspura, Andre (২০১৪)। "THE ENGINEERING PROFESSION: A STATISTICAL OVERVIEW"11। Engineers Australia: 117। 
  28. Myers, Jennifer (৯ নভে ২০১০)। "Why more women aren't becoming engineers"। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০১৩ 
  29. "Women in Engineering"। Engineers Canada। ২৩ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১২ 
  30. "Canadian Engineers for Tomorrow: Trends in Engineering Enrolment and Degrees Awarded 2006 to 2010" (PDF)। Engineers Canada। ১৮ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১২ 
  31. "Canada needs more women engineers—how do we get there?"। University of Ottawa। ২৬ জুলাই ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০১৩ 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Bix, Amy Sue. Girls Coming to Tech!: A History of American Engineering Education for Women (MIT Press, 2014)
  • Rosser, Sue (২০১৪)। Breaking into the Lab: Engineering Progress for Women in Science। NYU Press। আইএসবিএন 978-1479809202