টিনটিন (চরিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(টিনটিন থেকে পুনর্নির্দেশিত)
Jump to navigation Jump to search
টিনটিন
A cartoon drawing of a young man and his white dog walking against clear background.
টিনটিন ও তার কুকুর স্নোয়ি
প্রকাশনার তথ্য
প্রকাশক কাস্টারমান (বেলজিয়াম)
প্রথম আবির্ভাব সোভিয়েত দেশে টিনটিন (১৯২৯)
in দুঃসাহসী টিন‌টিন
নির্মাতা অ্যার্জে
কাহিনীর তথ্য
পূর্ণ নাম টিনটিন
সহযোগী প্রধান চরিত্রের তালিকা

টিনটিন (ফরাসি উচ্চারণ: ত্যাঁত্যাঁ) দুঃসাহসী টিন‌টিন কমিকস সিরিজের কেন্দ্রীয় চরিত্র ও নায়ক। রিপোর্টার ও অভিযাত্রী টিনটিন তার কুকুর কুট্টুসকে/স্নোয়ি নিয়ে সারাবিশ্বে ঘুরে বেড়ায়। বেলজীয় কার্টুনিস্ট অ্যার্জে-সৃষ্ট এই চরিত্রটি প্রথম আবির্ভূত হয় ১৯২৯ সালে ল্য ভাঁতিয়েম সিয়েকল সংবাদপত্রের ল্য প্যতি ভাঁতিয়েম নামক বেলজীয় শিশুতোষ ক্রোড়পত্রে। তরুণ টিনটিনের বয়স ১৪-১৯ বছর; গোল মুখমণ্ডল আর কপালের ওপর আঁচড়ে তোলা চুল তাকে সহজেই চিনিয়ে দেয়। টিনটিন তীক্ষ্ণবুদ্ধির অধিকারী, আত্মরক্ষা করতে সক্ষম এবং সৎ, ভদ্র ও সহানুভূতিশীল। সে তার তদন্তমূলক সাংবাদিকতা, দ্রুত চিন্তা ও ভালো স্বভাবের মাধ্যমে সবসময় রহস্য সমাধান করে থাকে।

কমিকসের অন্যান্য বর্ণিল চরিত্রের বিপরীতে টিনটিন নিরপেক্ষ ব্যক্তিত্বের অধিকারী। ফলে কমিকসের পাঠক নিজেকে টিনটিন হিসেবে কল্পনা করে নিতে পারে। টিনটিনের স্রষ্টা ১৯৮৩ সালে মৃত্যুবরণ করলেও তাঁর সৃষ্টি এখনও টিকে আছে এবং বহু ভাষায় অনূদিত হয়েছে জনপ্রিয় সাহিত্যিক চরিত্র হিসেবে। টিনটিনের অভিযান নিয়ে ২০১১ সালে স্টিভেন স্পিলবার্গ চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। প্রথমদিকে বর্ণবৈষম্য, কমিউনিজম-বিদ্বেষ বা এ-জাতীয় কারণে সমালোচিত হলেও টিনটিন তার "অসাধারণ প্রাণশক্তি"-র জন্যে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়। এমনকি অনেক গবেষক কেবল টিনটিন-চর্চায় তাদের কর্মজীবন ব্যয় করেছেন। ফরাসি জেনারেল শার্ল দ্য গোল বলেছিলেন, তাঁর "একমাত্র আন্তর্জাতিক প্রতিদ্বন্দ্বী হলো টিনটিন"।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

এক সুদর্শন তরুণ, প্যাল হাল্ড, দাঁড়িয়ে আছে ধ্রুপদী রুশ স্থাপনার সামনে
প্যাল হাল্ড, ১৯২৮ সালে তার বিশ্বভ্রমণের পথে। টিনটিন সৃষ্টিতে হার্জ প্রায় সুনিশ্চিতভাবেই তার দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন।[১]

চরিত্রায়ণ[সম্পাদনা]

সমাদর[সম্পাদনা]

রূপায়ণ[সম্পাদনা]

টিনটিন-কেন্দ্রিক চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

কাহিনীচিত্র
  • ১৯৬১ : টিনটিন অ্যান্ড দ্য গোল্ডেন ফ্লিস (Tintin et le Mystère de la Toison d'or) - জিন-জ্যাক ভিয়ের্ন
  • ১৯৬৪ : টিনটিন অ্যান্ড দ্য ব্লু অরেঞ্জেস (Tintin et les Oranges bleues) - ফিলিপ কনড্রয়ার
এনিমেটেড ফিল্ম
টেলিভিশন সিরিজ
  • ১৯৫৬-১৯৬১ : হার্জেস অ্যাডভেঞ্চারস অফ টিনটিন (এনিমেটেড সিরিজ)[২]
  • ১৯৯২ : দি অ্যাডভেঞ্চার্স অফ টিনটিন (টিভি সিরিজ) (২১ এপিসোডের এনিমেশন সিরিজ)(১৩ এপিসোডের ৩টি সিরিজ)

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

উদ্ধৃতি[সম্পাদনা]

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

  • অ্যাসোলিন, পিয়ের (২০০৯) [1996]। Hergé, the Man Who Created Tintin। Charles Ruas (translator)। অক্সফোর্ড এবং নিউ ইয়র্ক: অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস। আইএসবিএন 978-0-19-539759-8 
  • Bostock, Sarah; Brennan, Jon (১০ জানুয়ারি ২০০৭)। "Talk of the toon"The Guardian। London। ২০ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৩ 
  • ফার, মাইকেল (২০০১)। টিনটিন: দ্য কমপ্লিট কমপ্যানিয়ন। লন্ডন: জন মুরে। আইএসবিএন 978-0-7195-5522-0 
  • ফার, মাইকেল (২০০৭)। Tintin & Co। London: John Murray Publishers Ltd.। আইএসবিএন 978-1-4052-3264-7 
  • ফার, মাইকেল (২০০৭a)। The Adventures of Hergé (Re-release সংস্করণ)। San Francisco: Last Gasp (first published in 2007 by John Murray Publishers Ltd.)। আইএসবিএন 978-0-86719-679-5 
  • গডিন, ফিলিপ (২০০৯)। The Art of Hergé, Inventor of Tintin: Volume 2: 1937-1949। মাইকেল ফার (অনুবাদক)। সান ফ্রান্সিস্কো: লাস্ট গ্যাস্প। আইএসবিএন 978-0-86719-724-2 
  • Jensen, Jacob Wendt (২২ ডিসেম্বর ২০১২)। "Tintin en eventyrerefter dansk forbillede" [Tintin an adventurer on the Danish model]। Berlingske Tidende (Danish ভাষায়)। Copenhagen। ১৩ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ আগস্ট ২০১৩ 
  • Junkers, Dorothee (২২ মে ২০০৭)। "Centennial of Tintin's Hergé noted"Taipei Times। Taipei। ২০ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০১৩ 
  • Liljestrand, Jens (২২ আগস্ট ২০১২)। "Palle Huld: Jorden rundt i 44 dage" [Palle Huld: Round the Earth in 44 Days]। Dagens Nyheter (Swedish ভাষায়)। Stockholm। ২৫ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  • লফিশিয়ার, জিন-মার্ক; লফিশিয়ার, র‍্যান্ডি (২০০২)। The Pocket Essential Tintin। হার্পেনডেন, হের্টফোর্ডশায়ার: পকেট এসেনশিয়ালস। আইএসবিএন 978-1-904048-17-6 
  • ম্যাকক্লাউড, স্কট (১৯৯৩)। Understanding Comics: The Invisible Art। Princeton, Wisconsin: Kitchen Sink Press। আইএসবিএন 978-0-87816-243-7 
  • পিটারস, বেনওয়া (১৯৮৯)। Tintin and the World of Hergé। লন্ডন: ম্যাথুয়েন চিলড্রেনস বুকস। আইএসবিএন 978-0-416-14882-4 
  • পিটারস, বেনওয়া (২০১২) [2002]। Hergé: Son of Tintin। টিনা এ কোভার (অনুবাদক)। বাল্টিমোর, মেরিল্যান্ড: জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটি প্রেস। আইএসবিএন 978-1-4214-0454-7 
  • Pollard, Lawrence (২২ মে ২০০৭)। "Belgium honours Tintin's creator"। London: BBC News। ৩ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০১৩ 
  • Przybylski, Eddy (২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৩)। "A 11 ans, Roland Ravez fut Tintin au théâtre" [At age 11, Roland Ravez was Tintin in theater]। Brussels: DH.be। ৩০ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  • স্যাডল, নুমা (১৯৭৫)। Tintin et moi: entretiens avec Hergé [Tintin and I: Interviews with Hergé] (French ভাষায়)। Tournai: Casterman। আইএসবিএন 978-2-08-080052-7 
  • Slater, Daniel (২৭ জুলাই ২০০৯)। "Le vrai héros de Tintin au Congo" [The Real Hero of Tintin in the Congo]। Le Soir (French ভাষায়)। Brussels। ২০ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  • থম্পসন, হ্যারি (১৯৯১)। Tintin: Hergé and his Creation। লন্ডন: হডার এবং স্টোটেন। আইএসবিএন 978-0-340-52393-3 
  • ওয়াগনার, এরিকা (৯ ডিসেম্বর ২০০৬)। "Tintin at the top"The Times। London। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১১(সদস্যতা নেয়া প্রয়োজন (সাহায্য)) 
  • Walker, Andrew (১৬ ডিসেম্বর ২০০৫)। "Faces of the week"। London: BBC News। ২০ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  • "Ce mysteriéux Monsieur Hergé" [That Mysterious Mister Hergé]। La Dernière Heure (French ভাষায়)। Brussels। ২০০৩। 
  • "De Gaulle seen by himself"Foundation Charles-de-Gaulle.org। সেপ্টেম্বর ১৯৫৮। ৪ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৩ 
  • "Hergé's Adventures of Tintin at the Barbican Theatre"Barbican.org.uk। ১ ডিসেম্বর ২০০৫। ১৩ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  • "Les 'lignes de vie' d'Hergé" [The "Life Lines" of Hergé]। La Libre Belgique (French ভাষায়)। Brussels। ২৫ অক্টোবর ২০০৭। ১০ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  • "Obituary: Georges Remi, creator of comic figure Tintin"The New York Times। New York City। ৫ মার্চ ১৯৮৩। ৮ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০০৬ 
  • "Tintin creator's centenary"The Age। Melbourne। ২৪ মে ২০০৬। ১৫ মার্চ ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০১২ 
  • "(Title unknown)"। Le Soir (French ভাষায়)। Brussels। ডিসেম্বর ১৯৪০. Researched by Michael Farr for Tintin & Co., 2007. 
  • "(Title unknown)"। Le Monde (French ভাষায়)। Paris। ফেব্রুয়ারি ১৯৭৩. Researched by Michael Farr for Tintin & Co., 2007. 
  • "(Title unknown)"। La Libre Belgique (French ভাষায়)। Brussels। ডিসেম্বর ১৯৭৫. Researched by Michael Farr for Tintin & Co., 2007. 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • Tintin.com - অফিসিয়াল ওয়েবসাইট
  • Tintinologist.org – প্রতিষ্ঠিত ইংরেজি ফ্যান-সাইট
  • Egmont.co.uk – টিনটিনের বই, যুক্তরাজ্য
  • Hachettebookgroup.com – টিনটিনের বই, যুক্তরাষ্ট্র