চাক বেরি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চাক বেরি
Chuck Berry (8275961).jpeg
২০০৮ সালে চাক বেরি
জন্ম
চার্লস এডওয়ার্ড অ্যান্ডারসন বেরি

(১৯২৬-১০-১৮)১৮ অক্টোবর ১৯২৬
মৃত্যুমার্চ ১৮, ২০১৭(2017-03-18) (বয়স ৯০)[১]
ওয়েন্টজভিল, মিসৌরি, যুক্তরাষ্ট্র
অন্য নামরক এ্যান্ড রোল সংগীতের জনক
পেশা
দাম্পত্য সঙ্গী
  • থেমেটা সাগস (বি. ১৯৪৮)
সন্তান
  • ডারলিন ইনগ্রিড বেরি
  • এলোহা বেরি
  • চার্লস বেরি জুনিয়র
  • মেলোডি এক্সেস বেরি-এস্ক্রিজ
পিতা-মাতা
  • হেনরি বেরি (পিতা)
  • মার্থা বেরি (মাতা)
সঙ্গীত কর্মজীবন
ধরন
বাদ্যযন্ত্রসমূহগিটার, ভোকাল
কার্যকাল১৯৫৩–২০১৬
লেবেল
  • চেস
  • মার্কারি
  • অ্যাটকো
  • ডুয়াল্টোন
সহযোগী শিল্পী
  • জনি জন্সন
  • টি-বোন ওয়াকার
  • মাডি ওয়াটারস
ওয়েবসাইটwww.chuckberry.com

চার্লস এডওয়ার্ড অ্যান্ডারসন বেরি (ইংরেজি: Charles Edward Anderson Berry) (১৮ অক্টোবর, ১৯২৬ – ১৮ মার্চ, ২০১৭); যিনি চাক বেরি নামেই অধিক পরিচিত, একজন মার্কিন গায়ক, গীতিকার এবং রক এ্যান্ড রোল সংগীতের একজন প্রবর্তক[২]। "মেবিলিন" (১৯৫৫), "রোল ওভার বিঠোফেন" (১৯৫৬), "রক এ্যান্ড রোল মিউজিক" (১৯৫৭) এবং "জনি বি. গুড" (১৯৫৮) এর মতো গান সৃষ্টি করে বেরি রিদম এ্যান্ড ব্লুজ সংগীতকে পরিমার্জিত ও উন্নত করে, যার গুরুত্বপূর্ণ কিছু উপাদান রক এ্যান্ড রোল সংগীতকে স্বাতন্ত্র‍্যসূচক করে তুলেছে। কিশোর জীবন ও স্বার্থসংরক্ষণ নিয়ে গান রচনা করে এবং গিটারে সলো অন্তর্ভুক্ত করে এমন একটি সংগীত শৈলী বিকাশ করে, যা বেরি'কে পরবর্তীতে রক সংগীতে একজন প্রভাবশালী শিল্পী হিসেবে গড়ে তুলে।

বেরি সেন্ট লুইস, মিসৌরির মধ্যবিত্ত আফ্রিকান-আমেরিকান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন[৩][৪]। অল্প বয়সেই তিনি সঙ্গীতে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন এবং সামনার উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রথম মঞ্চে গান পরিবেশন করেছিলেন। উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালে তিনি সশস্ত্র ডাকাতির দোষী সাব্যস্ত হন এবং তাকে একটি সংস্কারমূলক প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়, যেখানে তিনি ১৯৪৪ থেকে ১৯৪৭ পর্যন্ত ছিলেন। মুক্তির পর, বেরি বিবাহিত জীবনে আবদ্ধ হন এবং একটি অটোমোবাইল সমাবেশ তৈরিতে কাজ করেছিলেন। ১৯৫৩ সালের প্রথম দিকে ব্লুজ সঙ্গীতশিল্পী টি-বোন ওয়াকারের গিটার রিফ কৌশল দ্বারা প্রভাবিত হয়ে বেরি, জনি জনসন ত্রয়ীর সাথে কাজ শুরু করেন[৫]। ১৯৫৫ সালের মে মাসে শিকাগো ভ্রমণের সময় তিনি মাডি ওয়াটার্সের সাথে সাক্ষাৎ করেছিলেন, যিনি চেস রেকর্ডসের লেওনার্ড চেসের সাথে তাকে যোগাযোগের পরামর্শ দেন। চেসের সাথে তিনি "মেবিলিন" রেকর্ড করেছিলেন, যা এক মিলিয়ন কপি বিক্রি করেছিল এবং বিলবোর্ড ম্যাগাজিনের রিদম এ্যান্ড ব্লুজ চার্টে এক নম্বরে পৌছেছিল[৬]। ১৯৫০ এর দশকের শেষভাগে, বেরি বেশ কয়েকটি হিট রেকর্ড, চলচ্চিত্রের উপস্থিতি এবং আকর্ষণীয় ভ্রমণ করে একজন প্রতিষ্ঠিত তারকা হয়ে যান। তিনি নিজের সেন্ট লুইস নাইটক্লাব, বেরির ক্লাব ব্যান্ডস্ট্যান্ড প্রতিষ্ঠা করেছিলেন[৭]। মানবাধিকার আইনের অধীনে ১৯৬২ সালের জানুয়ারি মাসে তাকে তিন বছরের কারাদন্ড দেওয়া হয়েছিল — কারণ, তিনি ১৪ বছরের এক মেয়েকে রাষ্ট্রের সীমানা জুড়ে নিয়ে যান। ১৯৬৩ সালে তার মুক্তির পর, "নো পার্টিকুলার প্লেস টু গো", "ইউ নেভার ক্যান টেল" এবং "ন্যাডিন" সহ আরো কয়েকটি হিট গান বের হয়, কিন্তু তা ১৯৫০-এর দশকের গানগুলোর সমান সফলতা বা প্রভাব অর্জন করে না। ১৯৭০-এর দশকে তিনি নস্টালজিক অভিনেতা হিসাবে আরও বেশি জনপ্রিয়তা লাভ করেন, পরিবর্তনশীল মানের স্থানীয় ব্যাকআপ ব্যান্ডগুলির সাথে তার অতীত হিটগুলি বিভিন্ন ক্লাব অনুষ্ঠানে গেয়েছিলেন[৫]। ১৯৭২ সালে তিনি "মাই ডিং-এ-লিং" গানটি লিখে বিলবোর্ড ম্যাগাজিনে এক নম্বর স্থান অর্জন করেন এবং তিনি কৃতিত্বের একটি নতুন স্তর অর্জন করেন[৮]। কর ফাঁকি দেওয়ার জন্য ১৯৭৯ সালে চার মাসের কারাদন্ড ও কমিউনিটি সার্ভিসে নগদ অর্থ প্রদানের বিষয়ে তার উপর জোর দেওয়া হয়েছিল।

১৯৮৬ সালে রক এ্যান্ড রোল হল অব ফেমে অন্তর্ভুক্ত হওয়া শিল্পীদের মধ্যে বেরি ছিলেন; তিনি "শুধুমাত্র রক এ্যান্ড রোল শব্দ সৃষ্টির জন্যই না বরং একটি রক এ্যান্ড রোল ভঙ্গি তৈরির ভিত্তি স্থাপন করার" জন্য অন্তর্ভুক্ত হয়েছিলেন। বেরি রোলিং স্টোন ম্যাগাজিনের "সর্বকালের ১০০ সেরা শিল্পী" তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল ২০০৪ এবং ২০১১ সালে[৯]। উভয় তালিকায় তিনি পঞ্চম স্থানে ছিলেন। রক অ্যান্ড রোল হল অব ফেমের "৫০০ টি গান যা রক এ্যান্ড রোলকে রুপ দিয়েছে" তালিকায় বেরির "জনি বি. গুড", "মেবিলিন" এবং "রক অ্যান্ড রোল মিউজিক" অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল[১০]। বেরির "জনি বি. গুড" একমাত্র রক এ্যান্ড রোল গান যা ভয়েজের গোল্ডেন রেকর্ডের অন্তর্ভুক্ত[১১]। এনবিসি তাকে "রক অ্যান্ড রোল সংগীতের জনক" বলেছেন[১২]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

বেরি সেইন্ট লুইস, মিসৌরিতে জন্মগ্রহণ করেন[১৩] এবং ছয় সন্তানের একটি পরিবারের চতুর্থ সন্তান ছিলেন। তিনি উত্তর সেইন্ট লুইস অঞ্চলে দ্য ভিলে নামে একটি এলাকায় বড় হয়ে উঠেছিলেন। এটি এমন একটি এলাকা ছিল যেখানে অনেক মধ্যবিত্ত পরিবার বসবাস করতেন। তার পিতা, হেনরি উইলিয়াম বেরি (১৮৯৫-১৯৮৭), ছিলেন নিকটবর্তী গির্জার দীক্ষাগুরু এবং যাজক। তার মা, মার্থা বেল (১৮৯৪-১৯৮০), একটি প্রত্যয়িত পাবলিক স্কুলের অধ্যক্ষ ছিলেন[১৪]। ১৯৪১ সালে তিনি সামনার উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী থাকাকালে প্রথম জনসাধারণের সামনে গান পরিবেশন করেছিলেন[১৫]; ১৯৪৪ সালে তিনি তখনও সেই বিদ্যালয়ের একজন ছাত্র ছিলেন, যখন তাকে ক্যানসাস শহরের, মিসৌরিতে তিনটি দোকান লুট করার পর সশস্ত্র ডাকাতির জন্য এবং কিছু বন্ধুর সঙ্গে বন্দুকের ভয় দেখিয়ে গাড়ী চুরি করার জন্যে গ্রেফতার করা হয়েছিল[১৬]। তার আত্মজীবনীতে লেখা ছিল যে, তার গাড়িটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার পর, তিনি একটি চলন্ত গাড়িকে পতাকাঙ্কিত করে এবং অকার্যকরী একটি বন্দুকের ভয় দেখিয়ে গাড়িটি চুরি করেন[১৭]। তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয় এবং মিসৌরির জেফারসন সিটির কাছে আলগোয়ায় "ইন্টারমিডিয়েট রিফর্মেটরি ফর ইয়াং ম্যানে" পাঠানো হয়, যেখানে তিনি একটি গায়ক দল গঠন করেছিলেন এবং কিছু কুস্তি খেলা করেছিলেন। গায়ক দলটি যথেষ্ট সক্ষম হয়ে ওঠে যে কর্তৃপক্ষ তাদেরকে আটক সুবিধার বাইরে গান করার অনুমতি দেয়[১৮]। ১৯৪৭ সালে তার ২১তম জন্মদিনে সংস্কারক থেকে বেরি মুক্তি পান।

হুইটিয়ার সড়কে চাক বেরির ঘর, যা যুক্তরাষ্ট্রের ঐতিহাসিক স্থানগুলির নিবন্ধনে অন্তর্ভুক্ত

১৯৪৮ সালের ২৮ অক্টোবর বেরি থেমেটা "টোডি" সাগসকে বিয়ে করেছিলেন, যিনি ৩ অক্টোবর, ১৯৫০ সালে ডার্লিন ইনগ্রিড বেরির জন্ম দিয়েছিলেন[১৯]। সেন্ট লুইসে বিভিন্ন চাকরি করার মাধ্যমে বেরি তার পরিবারকে সমর্থন করেছিলেন। তিনি দুটি অটোমোবাইল সমাবেশ উদ্ভিদ কারখানার কর্মী হিসেবে কাজ করেছিলেন এবং অ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিংয়ের একজন জ্যানিটর হিসেবে তিনি এবং তার স্ত্রী বসবাস করেছিলেন। পরে তিনি এনি টার্নবো মালোনের প্রতিষ্ঠিত প্রসাধনী পোরো কলেজে একজন রুপবিশারদ হিসেবে প্রশিক্ষণ লাভ করেন[২০]। হুইটিয়ার সড়কে তিনি "একটি স্নান ঘরের সঙ্গে ছোট তিনটি কক্ষের ইটের ঘর" কিনতে ১৯৫০ সাল পর্যন্ত যথেষ্ট পরিমাণে কাজ করেন। ইটের কুটিরটি, এখন যুক্তরাষ্ট্রের ঐতিহাসিক স্থানগুলির নিবন্ধনে "চাক বেরি হাউস" হিসাবে তালিকাভুক্ত[২১]

১৯৫০ সালের শুরুর দিকে বাড়তি আয়ের জন্যে বেরি স্থানীয় কিছু ব্যান্ড দলের সাথে কাজ শুরু করেন। কিশোর বয়স থেকেই বেরি ব্লুজ এর প্রতি আগ্রহী ছিল। সে গিটার রিফ ও মঞ্চে গান পরিবেশনের শৈলী টি-বোন ওয়াকার এর মতো করার চেষ্টা করতো[২২]। তাছাড়া, সে তার বন্ধু ইরা হ্যারিসের কাছে গিটারের বিভিন্ন কৌশল শিখে নেয়, যা পরবর্তীতে তার গিটার বাজানোতে লক্ষ্য করা যায়[২৩]

১৯৫৩ সালের শুরু থেকেই সে, জনি জনসন ত্রয়ীর সাথে কাজ করা শুরু করে। পরবর্তীতে, তার সাথে বেরির একটি ভালো সম্পর্ক তৈরি হয়[২৪]। দলটি মূলত ব্লুজ ও ব্যালাড গান বাজাতো। তারা যেসব ক্লাবে বাজাতো, সেইসব ক্লাবে মূলত শ্বেতাঙ্গরাই থাকতো, আর তাদের সবচেয়ে প্রিয় ধারার গান ছিল কান্ট্রি সঙ্গীত। বেরি বলেছিল যে, "কৌতূহল আমাদের কালো শ্রোতাদের, আমাদের প্রচুর পরিমাণে কান্ট্রি সঙ্গীতের জিনিস সরবরাহ করার জন্য উদ্দীপিত করেছিল। আমাদের কিছু কালো শ্রোতা বলতো যে, 'কসমোতে ওই কালো পাগলটা কে?' তারা আমাকে নিয়ে অনেকবার হাসলো, আর পরে তারা নিজেরাই আমাকে ওই পাগলের গান গাইতে অনুরোধ করলো এবং এটিকে নাচের মাধ্যমে উপভোগ করা শুরু করলো"[৫]

সঙ্গীত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৫৫-১৯৬২: চেস রেকর্ডের সাথে চুক্তি: "মেবিলিন" থেকে "কাম অন"[সম্পাদনা]

১৯৫৮ সালে বেরি

১৯৫৫ সালের মে মাসে বেরি শিকাগোতে ভ্রমণে যায়, যেখানে তার সাথে মাডি ওয়াটার্সের সাথে দেখা হয়। ওয়াটার্স, বেরিকে চেস রেকর্ডসের মালিক লেওনার্ড চেসের সাথে কথা বলার জন্যে পরামর্শ দেয়। বেরি ভেবেছিল যে তার ব্লুজ গান চেস খুবই পছন্দ করবে, কিন্তু সেই সময়ে চেসের মন কেড়ে ছিল, বব উইলিসের "ইডা রেড" নামের একটি কান্ট্রি গান। রিদম এ্যান্ড ব্লুজ সঙ্গীতের পতন দেখে, চেস সেই ঘরানার গান থেকে সরে আসতে চাইছিল। কিন্তু সে ভেবেছিল যে, বেরি সেই ধারার গানকে আবার জনপ্রিয়তায় আনতে পারবে। "ইডা রেড" গানটির সুর নকল করে বেরি "মেবিলিন" নামের একটি গান রেকর্ড করে ২১শে মে, ১৯৫৫ সালে। সেই গানটিতে পিয়ানো বাজিয়েছিল জনি জনসন, মারাকা বাজিয়েছিল জেরোম গ্রিন, ড্রাম বাজিয়েছিল জ্যাসপার থমাস এবং বেজ গিটার বাজিয়েছিল উইলি ডিক্সন। "মেবিলিন" গানটির ১০ লক্ষ কপি বিক্রিত হয় এবং বিলবোর্ড ম্যাগাজিন এর "রিদম এ্যান্ড ব্লুজ" তালিকায় এক নম্বরে এবং "সর্বাধিক বিক্রিত গান" এর তালিকায় পাঁচ নম্বরে পৌঁছে ১০ সেপ্টেম্বর, ১৯৫৫ সালে। বেরি বলেছিলেন, "এটি ঠিক সময়ে এসেছিল যখন আফ্রো-আমেরিকান সঙ্গীত মূলধারার পপের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছিল।"

১৯৫৬ সালের জুনের শেষের দিকে "রোল ওভার বিঠোফেন" বিলবোর্ড হট ১০০ এর তালিকায় ২৯ নম্বর স্থানে পৌঁছায়। এরপরে, বেরি ১৯৫৬ সালের একজন শীর্ষ শিল্পী হিসেবে জনপ্রিয়তা অর্জন করে। বেরি এবং কার্ল পারকিনস বন্ধু হয়ে ওঠে। পারকিনস বলেছিলেন, "আমি প্রথম যখন চাকের গান শুনেছিলাম, আমি বুঝেছিলাম যে সে কান্ট্রি সংগীত দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে। আমি তার গীতিকার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছিলাম, তার রেকর্ড খুব ভালো ছিল।" একসাথে ভ্রমণ করার সময়, পারকিনস আবিষ্কার করেন যে বেরি শুধুমাত্র কান্ট্রি সঙ্গীত দ্বারা প্রভাবিত নয়, বরং পারকিনস যতো ধরনের গান করেছিলো তার সম্পর্কেও জানতেন। জিমি রজার্স তার অনেক প্রিয় একজন শিল্পী ছিল। "চাক প্রতিটি ব্লুজ গানের ধরণ বুঝতো এবং বিল মোনরোর গানের বেশিরভাগই জানতেন" বলে পারকিনস মনে করেছিলেন। পারকিনস বলেছিলেন যে, "সে আমাকে বলতো যে সে খুব দরিদ্র ছিল এবং খুবই কঠিন জীবনযাপন করেছিলো। সে একজন ভাল লোক ছিল এবং আমি তাকে সত্যিই পছন্দ করি।"

১৯৫৭ সালের "সবচেয়ে বড় তারকাদের অনুষ্ঠানে" বেরি

১৯৫৭ সালের শেষের দিকে বেরি, এলেন ফ্রিডের "১৯৫৭ সালের সবচেয়ে বড় তারকাদের অনুষ্ঠান", এ অংশ নিয়েছিল। দ্য এভারলি ব্রাদার্স, বাডি হলি এ্যান্ড দ্য ক্রিকেটস এবং আরও কিছু তারকা শিল্পীদের সাথে যুক্তরাষ্ট্র সফর করেছিল। সে এবিসি এর "গাই মিশেল শো" তে তার হিট গান "রক এ্যান্ড রোল মিউজিক" গেয়েছিল। ১৯৫৭ থেকে '৫৯ সাল পর্যন্ত বেরি, বিলবোর্ডে পৌঁছানো অনেক গান বের করে। এর মধ্যে ছিল বিলবোর্ড এর "সেরা ১০ গান" এর তালিকায় পৌঁছানো "স্কুল ডেইজ", "সুইট লিটল সিক্সটিন", "রক এ্যান্ড রোল মিউজিক" এবং "জনি বি. গুড"। প্রথম কিছু রক এ্যান্ড রোল চলচ্চিত্রেও বেরি অভিনয় করেছিল, যার মধ্যে রক রক রক (১৯৫৬) এবং গো, জনি, গো! (১৯৫৯) উল্লেখযোগ্য। নিউপোর্ট জ্যাজ ফেস্টিভালে তার গাওয়া "সুইট লিটল সিক্সটিন" গানটি চলচ্চিত্র জ্যাজ অন এ সামারস ডে তে ব্যবহৃত হয়েছিল।

১৯৫০ এর দশকের শেষভাগে, বেশ কয়েকটি হিট রেকর্ড এবং চলচ্চিত্রে উপস্থিতি এবং একটি আকর্ষণীয় ক্যারিয়ারের সাথে বেরি একটি প্রতিষ্ঠিত তারকা হিসেবে মর্যাদা লাভ করেন। তিনি জাতিগতভাবে সমন্বিত সেইন্ট লুইস নাইটক্লাব, বেরি ক্লাব ব্যান্ডস্ট্যান্ড প্রতিষ্ঠা করেন এবং রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগ করেন। কিন্তু ১৯৫৯ সালের ডিসেম্বরে "শ্বেতাঙ্গ-চাকর ট্রাফিক আইনের" অধীনে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। অভিযোগ করা হয়েছিল যে বেরি, ১৪ বছর বয়সী খাদ্য পরিবেশিকা, জেনিস এসকল্যাণ্টের সাথে যৌন সম্পর্ক সৃষ্টি করেছিল এবং যাকে তিনি রাষ্ট্রীয় সীমানা পার করিয়ে তার ক্লাবের হ্যাটচেক মেয়ে হিসাবে কাজ করাতে এনেছিলেন। ১৯৬০ সালের মার্চে দুই সপ্তাহ বিচারের পর, আদালত তাকে $৫,০০০ ডলার জরিমানা দিতে বলেছিলেন এবং পাঁচ বছর কারাদন্ড দিয়েছিলেন। বিচারক এর মন্তব্য ও মনোভাব বর্ণবাদী ছিল বলে দাবি করে তিনি এই সিদ্ধান্তের আপিল করেন। আপিল স্থগিত করা হয়, এবং দ্বিতীয় বিচারের শুনানি ১৯৬১ সালের মে এবং জুন মাসে হয়, যার ফলে অন্য একটি দন্ডাজ্ঞা দেওয়া হয় এবং বেরি কে তিন বছরের কারাদন্ড দেওয়া হয়। আরেকটি আপিল ব্যর্থ হওয়ার পর, বেরি কে ১৯৬২ সালের অক্টোবর থেকে ১৯৬৩ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেড় বছরের কারাদন্ড দেওয়া হয়। তিনি বিচার শুনানি চলাকালীন সময়েও রেকর্ডিং এবং সম্পাদনা চালিয়ে যাচ্ছিলেন, কিন্তু তার জনপ্রিয়তা হ্রাস পাচ্ছিল; কারাগারে যাওয়ার আগে তার চূড়ান্ত গান মুক্তি পায় "কাম অন"।

১৯৬৩-১৯৬৯: "ন্যাডিন" এবং মার্কারি রেকর্ডের সাথে চুক্তি[সম্পাদনা]

১৯৬৫ সালে বোন লুসি এ্যান এর সাথে বেরি

বেরি যখন ১৯৬৩ সালে কারাদন্ড থেকে মুক্তি পান, তখন তার রেকর্ডিং এবং মঞ্চে গান পরিবেশনের কাজ আরও সহজতর হয়ে গিয়েছিল, ব্রিটিশ ইনভেশন ব্যান্ড দলগুলোর কারণে, বিশেষ করে দ্য বিটলস এবং দ্য রোলিং স্টোনস—যেহেতু তারা বেরির গানগুলোর প্রতি বিশেষ আগ্রহ দেখিয়েছিল এবং গানগুলো কভার করেছিল। তাছাড়া মার্কিন রক ব্যান্ড দ্য বিচ বয়জ, তার গান "সুইট লিটল সিক্সটিন" এর সুর নকল করে তাদের "সারফিং ইউ.এস.এ" গানটি বানিয়েছিল। ১৯৬৪ ও '৬৫ সালে বেরি ৮টি গান বের করেছিল, যার মধ্যে ৩টি তুমুল জনপ্রিয়তা পায় এবং বিলবোর্ড ম্যাগাজিনের "সেরা ২০টি গান" এর তালিকায় পৌঁছেছিল—"নো পার্টিকুলার প্লেস টু গো" (এই গানটি তার "স্কুল ডেইজ" গানটির পুনর্ব্যবহার। গাড়ির আসনে বেল্ট প্রবর্তনের বিষয়ে একটি হাস্যকর গীতিকা), "ইউ নেভার ক্যান টেল" এবং "ন্যাডিন"। ১৯৬৬ থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত বেরি পাঁচটি স্টুডিও অ্যালবাম বের করেছিল মার্কারি রেকর্ডসের জন্যে এবং তার দ্বিতীয় লাইভ অ্যালবাম (এবং প্রথম সম্পূর্ণ মঞ্চে রেকর্ড করা অ্যালবাম) লাইভ এট ফিলমোর অডিটোরিয়াম বের করে।

যদিও ওই সময়টি স্টুডিও অ্যালবামের জন্যে একটি ভালো সময় ছিল না, বেরি তবুও বড় বড় সঙ্গীতানুষ্ঠানে গান পরিবেশনের ডাক পেত। ১৯৬৪ সালের মে মাসে, বেরি যুক্তরাজ্যে একটি সফল সফর করে। কিন্তু ১৯৬৫ সালের জানুয়ারিতে সে ফিরে আসার পরে তার আচরণ খারাপ হওয়ায় এবং অপ্রস্তুত স্থানীয় ব্যান্ডগুলি ব্যবহার করায় তার সফর শৈলী এবং কঠোরভাবে স্বতঃস্ফূর্ত চুক্তির কারণে তিনি কঠিন ও অযৌক্তিক শিল্পী হিসাবে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। সে উত্তর আমেরিকায় বড় বড় অনেক সঙ্গীতানুষ্ঠানে ডাক পেয়েছিলেন—যেমন ১৯৬৯ সালের জুলাই মাসে, নিউ ইয়র্কের সেন্ট্রাল পার্কের স্কেফের সঙ্গীত উৎসব এবং অক্টোবরে টরন্টো রক এ্যান্ড রোল উৎসব।

১৯৭০-১৯৭৯: পুনরায় চেস রেকর্ডের সাথে চুক্তি: "মাই ডিং-এ-লিং" থেকে হোয়াইট হাউস কনসার্ট[সম্পাদনা]

বেরি ১৯৭০ থেকে ১৯৭৫ পর্যন্ত চেস রেকর্ডের সাথে পুনরায় চুক্তি করে। তার ১৯৭০ সালের অ্যালবাম ব্যাক হোম থেকে কোন হিট গান ছিল না, কিন্তু ১৯৭২ সালে চেস রেকর্ড তার "মাই ডিং-এ-লিং" গানটির লাইভ রেকর্ডিং বের করে। এই গানটি ছিল, তার সেইন্ট লুই টু ফ্রিসকো (১৯৬৮) অ্যালবামের "মাই ট্যাম্বোরিন" গানটির একটি অভিনব সংস্করণ। গানটি তার একমাত্র এক নম্বর গান। একই বছরে "রিলিং এ্যান্ড রকিং" গানটির একটি লাইভ রেকর্ডিং প্রকাশিত হয়, যা ছিল যুক্তরাষ্ট্রে এবং যুক্তরাজ্যে তার শেষ "সেরা ৪০টি গান" এর তালিকায় পৌঁছানো গান। দু'টা গানই তার আংশিক-লাইভ, আংশিক স্টুডিও অ্যালবাম দ্য লন্ডন চাক বেরি সেশনস এ অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। চেস রেকর্ডের সাথে বেরির চুক্তি শেষ হয়েছিল তার ১৯৭৫ সালের স্টুডিও অ্যালবাম চাক বেরি দিয়ে, যা ছিল ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত তার শেষ অ্যালবাম। ১৯৭৯ সালে সে, অ্যাটকো রেকর্ডসের জন্যে রকিট অ্যালবামটি প্রকাশ করে, যা ছিল ৩৮ বছর ধরে তার শেষ স্টুডিও অ্যালবাম।

দ্য মিডনাইট স্পেশাল এর উপস্থাপক হিসেবে বেরি, ১৯৭৩ সালে

১৯৭০ এর দশকে বেরি তার পূর্বের সাফল্য ধরে রেখে ভ্রমণ করেন। অনেক বছর ধরেই সে সফর করছিলেন, কেবলমাত্র তার গিবসন গিটার বহন করে। সে নিশ্চিত ছিলো যে সে এমন একটি ব্যান্ড ভাড়া করতে পারবে যা ইতিমধ্যেই তার সংগীকে জানত, সে যেই হোক না কেন। অল মিউজিক বলেছে যে এই সময়ে তার "লাইভ পারফরম্যান্স ক্রমবর্ধমানভাবে অনিশ্চিত হয়ে ওঠে...ভয়ানক ব্যাকআপ ব্যান্ডগুলির সাথে কাজ করে এবং মাতাল চিত্তাকর্ষক পারফরম্যান্সগুলি চালু করে" যা "ছোট অনুরাগীদের ও বৃদ্ধদের মাঝে তার খ্যাতিকে নষ্ট করে"। ১৯৭২ সালের মার্চ মাসে কনসার্টের চাক বেরি-এর জন্য বিবিসি টেলিভিশন থিয়েটারে ব্যান্ড রকিং হর্স সমর্থিত একটি ৬০-দিনের ভ্রমণের অংশে তাকে চিত্রিত করা হয়েছিল। ১৯৭০-এর দশকে বেরির সাথে ব্যাকআপের ভূমিকা পালনকারী অনেক ব্যান্ড সদস্যের মধ্যে ছিলেন ব্রুস স্প্রিংস্টিন এবং স্টিভ মিলার—তখন তারা প্রত্যেকেই তাদের সঙ্গীতজীবন শুরু করেছিলেন। স্প্রিংস্টিন তথ্যচিত্র হেইল! হেইল! রক এ্যান্ড রোল এ বলেছিলো যে, বেরি ব্যান্ড সদস্যদেরকে গানের তালিকা দিতো না এবং প্রতিটি গিটার রিফ শুরুর পরে সঙ্গীতশিল্পীদের তার অনুসরণ করার আশা করতো। বেরি কনসার্টের পরে কোনদিন ব্যান্ড সদস্যদের সাথে কথা বলেনি অথবা ধন্যবাদ জানায়নি। ১৯৯৫ সালে রক অ্যান্ড রোল হল অফ ফেমের কনসার্টে স্প্রিংস্টিনের আবার বেরির সাথে গান গেয়েছিল। জিমি কার্টারের অনুরোধে বেরি ১ জুন ১৯৭৯ সালে হোয়াইট হাউসে গান পরিবেশন করেন।

১৯৮০-২০১৭: মৃত্যুবরণের আগ পর্যন্ত[সম্পাদনা]

১৯৯৭ সালে লং বিচ ব্লুজ উৎসবে বেরি

১৯৮০-এর দশকে বেরি প্রতি বছর ৭০ থেকে ১০০টি রাত্রি কন্সার্ট করা অব্যাহত রাখেন। তখনও সে একাকী ভ্রমণ করতো এবং প্রতিটি কন্সার্টেই তার একটি স্থানীয় ব্যান্ডের প্রয়োজন হতো। ১৯৮৬ সালে, টেইলর হ্যাকফোর্ড একটি তথ্যচিত্র হেইল! হেইল! রক এ্যান্ড রোল তৈর করেন। তথ্যচিত্রটি কিথ রিচার্ডস দ্বারা সংগঠিত হয়েছিল এবং তা বেরির ষাটতম জন্মদিনের উদযাপন কনসার্টের দিন প্রকাশিত হয়েছিল। তথ্যচিত্রটিতে এরিক ক্ল্যাপটন, এটা জেমস, জুলিয়ান লেনন, রবার্ট ক্রয় এবং লিন্ডা রোনাসড্যাট ও ছিলেন। উপরিউক্ত সকলেই কন্সার্টে উপস্থিত ছিল। কনসার্টের সময়, বেরি তার গিবসন ইএস-৩৫৫ এর বিলাসবহুল সংস্করণটি বাজিয়েছিল, যা সে ১৯৭০ এর দশকে তার সফরের সময়ে ব্যবহার করেছিল। রিচার্ডস একটি কালো ফেন্ডার টেলিকাস্টার কাস্টম, ক্রে এন্ড ফেন্ডার স্ট্রাটকাস্টার ব্যবহার করেছিল এবং ক্ল্যাপটন একটি গিবসন ইএস ৩৫০ বাজিয়েছিল, একই মডেল যা বেরি তার প্রথম রেকর্ডিংগুলোতে ব্যবহার করেছিল।

১৯৮০ দশকের শেষের দিকে বেরি মিসৌরির ওয়েন্টজভিলে, দ্য সাউদার্ন এয়ার নামের একটি রেস্টুরেন্ট ক্রয় করেন। ১৯৮৭ সালে, নিউ ইয়র্কের গ্রামেরসি পার্ক হোটেলে একজন মহিলার উপর হামলার অভিযোগে অভিযুক্ত হন বেরি। "মুখের মুখরোচকতা (যার জন্যে পাঁচটি সেলাই করতে হয়েছিল), দুটি দাঁত আলগা করা এবং মুখের সংকোচন করার" কারণে তাকে অভিযুক্ত করা হয়েছিল। তাকে $২৫০ ডলার জরিমানা দিতে হয়েছিল। ১৯৯০ সালে, তার বিরুদ্ধে কয়েকটি মহিলা মামলা করেছিল, যারা দাবি করেছিল যে তিনি তার রেস্টুরেন্টের বাথরুমে একটি ভিডিও ক্যামেরা লাগিয়েছিল। বেরি দাবি করেছিল যে তিনি একজন কর্মীকে ধরতে ক্যামেরা ইনস্টল করেছিলেন, যিনি রেস্টুরেন্ট থেকে চুরি করার সন্দেহ পোষণ করেছিলেন। যদিও তার অপরাধ আদালতে কখনও প্রমাণিত হয় নি, বেরি শ্রেণি কর্ম নিষ্পত্তির জন্য গ্রেপ্তার হন। তার আত্মজীবনী লেখক, ব্রুস পেগ, অনুমান করেছেন যে ৫৯ জন নারীর মামলা নিয়ে, বেরির প্রায় $১.২ মিলিয়ন ও তার বেশি ডলার আইনি ফি হিসেবে দিতে হয়েছিল। তার আইনজীবী বলেছিল যে, তার সম্পদ থেকে লাভের জন্যেই তার বিরুদ্ধে এই ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। এই সময়কালে, বেরি তার আইনজীবী হিসাবে ওয়েইন টি. শোয়েনবার্গ কে নিয়োগ করেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, তার বাড়িতে পুলিশ তল্লাশি চালিয়ে এমন কিছু ভিডিও পেয়েছে যা নারীদের কিছু আপত্তিকর ভিডিও। এছাড়াও পাওয়া যায় ৬২ গ্রাম মারিজুয়ানা। জঘন্য ড্রাগ ব্যবহার ও শিশু নির্যাতনের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল তার বিরুদ্ধে। শিশু নির্যাতনের অভিযোগ বাদ যাওয়ার পর, বেরি মারিউজানা গ্রহণের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার জন্য রাজি হন। তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছিল এবং তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে $৫০০০ ডলার দান করার আদেশ দেওয়া হয়েছিল।

২০০০ সালের নভেম্বরে, তার প্রাক্তন পিয়ানোবাদী জনি জনসন যখন তার বিরুদ্ধে মামলা করে তখন বেরি আবারও আইনী সমস্যার সম্মুখীন হন। জনসন দাবি করেছিল যে সে "নো পারটিকুলার প্লেস টু গো", "সুইট লিটল সিক্সটিন" এবং "রোল ওভার বিঠোফেন" সহ ৫০ টিরও বেশি গান বেরির সাথে লিখেছিলেন, যার কৃতিত্ব শুধুই বেরিকে দেওয়া হতো। বিচারক যখন রায় দেন যে, গানগুলি লেখার পর থেকে অনেক বেশি সময় পার হয়ে গেছে—তখন এই মামলাটি বাতিল করা হয়।

২০০৮ সালে বেরি

২০০৪ সালে বেরি ইউরোপ সফর করেন—সুইডেন, নরওয়ে, ফিনল্যান্ড, যুক্তরাজ্য, নেদারল্যান্ডস, আয়ারল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড, পোল্যান্ড এবং স্পেনের কন্সার্ট করার মাধ্যমে। ২০০৪-এর মাঝামাঝি সময়ে সে মেরিল্যান্ডের বাল্টিমোরের ভার্জিন উৎসবে অংশ নিয়েছিল। ২০১১ সালে শিকাগোতে বর্ষবরণের কন্সার্ট এর সময়, বেরি ক্লান্তি থেকে ভুগছিলেন এবং তাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হয়েছিল।

বেরি সেন্ট লুইসের প্রায় ১০ মাইল (১৬ কিলোমিটার) পশ্চিমে লেডু, মিসৌরিতে বসবাস করতেন। মিসৌরির ওয়েন্টজভিলের কাছে "বেরি পার্ক" নামের একটি বাড়ি ছিল তার, যেখানে তিনি ৫০-এর দশকের পর থেকে আংশিক সময় ছিলেন এবং যে বাড়িতে তিনি মারা যান। এই বাড়িতে, গিটারের আকারের একটি সুইমিং পুল ছিল, যা হেইল! হেইল! রক এন্ড রোল চলচ্চিত্রের শেষের দৃশ্যগুলিতে দেখা যায়। ১৯৯৬ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত নিয়মিতভাবে প্রতি মাসের একটি বুধবারে, সেইন্ট লুইসের ডেলমার লুপের রেস্টুরেন্ট এবং বার ব্লুবেরি হিলে গান পরিবেশন করতো বেরি।

বেরি তার ৯০তম জন্মদিনে ঘোষণা করেছিলেন যে ১৯৭৯ সালে রকিট অ্যালবামের ৩৮ বছর পর তার প্রথম স্টুডিও অ্যালবাম, চাক শিরোনামে মুক্তি পাবে ২০১৭ সালে। ওই অ্যালবামটিতে তার সন্তান চার্লস বেরি জুনিয়র এবং ইনগ্রিড গিটার এবং হারমোনিকা বাজিয়েছিল। অ্যালবামটি তার স্ত্রী থেমেটা "টোডি" সাগসকে উৎসর্গ করা হয়েছিল।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২০১৭ সালের ১৮ মার্চে, মিসৌরির সেইন্ট চার্লস কাউন্টিতে পুলিশকে ওয়েন্টজভিলের কাছে বেরির বাড়ীতে ডাকা হয়, যেখানে পুলিশ বেরির কাছ থেকে কোন জবাব পায়নি। ৯০ বছর বয়সী বেরি কে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। টিএমজেড তাদের ওয়েবসাইটে একটি অডিও রেকর্ডিং প্রকাশ করেছিল যার মধ্যে ৯১১ অপারেটরকে বেরির বাড়ি থেকে ফোন করে বলা হয় যে "বেরির হৃদপিন্ডজনিত সমস্যা হয়েছে"।

মিসৌরির সেইন্ট লুইস শহরে অবস্থিত, দ্য পিজেন্ট নামের একটি রেস্তোরাঁয় ৯ এপ্রিল ২০১৭-এ বেরির অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয়েছিল। দ্য পিজেন্টে বেরির পরিবারের সদস্যরা, বন্ধু-বান্ধব, এবং ভক্তরা বেরিকে শেষবারের মতো দেখতে এসেছিল। তার লাল রঙের গিটার তার সাথে কফিনের ভিতরে রাখা হয়েছিল এবং গিটারের আকারের একটি ফুল পাঠানো হয়েছিল দ্য রোলিং স্টোনস এর পক্ষ থেকে। পরে বেরির জীবন উদযাপন করে ক্লাবটিতে একটি ব্যক্তিগত পরিষেবা অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে তার পরিবার জনসাধারণের ৩০০ জনকে আমন্ত্রণ জানায়। কিস ব্যান্ড এর জিন সিমন্স, বেরির অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে অপ্রস্তুত হয়ে একটি প্রশংসামূলক বক্তৃতা দিয়েছিলেন। লিটল রিচার্ড এর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া মিছিলের নেতৃত্ব দেওয়ার কথা ছিল, কিন্তু অসুস্থতার কারণে তিনি যোগ দিতে পারেননি। রাতের বেলা, সেইন্ট লুইসের অনেক বারে রেস্তোরাঁয় বেরি এর সম্মানে রাত ১০টায় টোস্ট অনুষ্ঠিত হয়।

বেরি এর একজন আইনজীবি এর আনুমানিক হিসাবমতে, বেরির সম্পত্তির পরিমাণ ছিল $৫০ মিলিয়ন ডলার (৳৪২৩ কোটি টাকা), যার মধ্যে $১৭ মিলিয়ন ডলার (৳১৪৩ কোটি টাকা) তার সঙ্গীত প্রকাশনা থেকে এসেছে। বেরি এস্টেট বেরির প্রায় অর্ধেক গানের (বেশিরভাগ তার পরবর্তী ক্যারিয়ার থেকে) মালিকানাধীন, আর বিএমজি রাইটস ম্যানেজমেন্টটি অন্য অর্ধেকের মালিকানাধীন; বেরির রেকর্ডিংয়ের বেশির ভাগ বর্তমানে ইউনিভার্সাল মিউজিক গ্রুপের নিয়ন্ত্রণে। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে, ডুয়ালটোন, যে লেবেলটি বেরির চূড়ান্ত অ্যালবাম চাক প্রকাশ করেছিল, তারা যুক্তরাষ্ট্রে বেরির সবগুলো গান প্রকাশ করতে রাজি হয়েছিল।

প্রাপ্তি[সম্পাদনা]

রক এ্যান্ড রোলের একজন প্রবর্তক হিসেবে, বেরি রক এ্যান্ড রোল সঙ্গীত এবং সংগীতটির মনোভাব উভয়ের বিকাশের উপর একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব ছিল। "মেবিলিন" (১৯৫৫), "রোল ওভার বিঠোফেন" (১৯৫৬), "রক এ্যান্ড রোল মিউজিক" (১৯৫৭) এবং "জনি বি. গুড" (১৯৫৮) এর মতো গান সৃষ্টি করে বেরি, রিদম এ্যান্ড ব্লুজ সংগীতকে পরিমার্জিত ও উন্নত করে, যার গুরুত্বপূর্ণ কিছু উপাদান রক এ্যান্ড রোল সংগীতকে স্বাতন্ত্র‍্যসূচক করে তুলেছে। কিশোর জীবন ও স্বার্থসংরক্ষণ নিয়ে গান রচনা করে এবং গিটারে সলো অন্তর্ভুক্ত করে এমন একটি সংগীত শৈলী বিকাশ করে, যা বেরি'কে পরবর্তীতে রক সংগীতে একজন প্রভাবশালী শিল্পী হিসেবে গড়ে তুলে। এইভাবে, একজন গায়ক ও গীতিকার হিসেবে বেরি, সমালোচক জন পারেলেসের মতে, "রক সঙ্গীতকে কিশোর-কিশোরীদের পছন্দের একটি সঙ্গীতে পরিণত করেছিল এবং কিশোরদের মনে এমন আশা জাগিয়েছিল যে, তারা সবসময় খুশি থাকতে পারবে (এমনকি, তাদের পিছে পুলিশ ছুটলেও)"। বেরি, রক সঙ্গীতে তিনটি উপাদান যোগ করেছিল: একটি অপ্রতিরোধ্য সদম্ভ চাল, গিটার রিফের উপর প্রাথমিক সুরের মতো মনযোগ দেওয়া এবং গান লেখাকে গল্পের মতো করে লেখা। বেরির মঞ্চে গান পরিবেশনার নিয়মগুলো অন্যান্য অনেক রক গিটার বাদকদের উপর বড় প্রভাব ফেলেছে, বিশেষ করে তার এক পায়ে লাফানোর নিয়ম, যা "ডাক ওয়াক" নামেই অধিক পরিচিত। তিনি তা প্রথম আবিষ্কার করেছিলেন শিশু বয়সে, যখন প্রথমবারের মতো হাঁটু গেড়ে হাঁটছিলেন, তখন একটি বল উদ্ধার করার জন্য তার টেবিলের নিচে মাথা উল্লম্ব হিসাবে ব্যবহার করেছিলেন, এবং তার পরিবার এটিকে বিনোদনমূলক বলে মনে করেছিলেন। নিউ ইয়র্কে একটি কন্সার্টে এটি ব্যবহার করেছিল, এবং কিছু সাংবাদিক এটিকে "ডাক ওয়াক" নামে অভিহিত করেন।

ইতিহাসের কিছু জনপ্রিয় শিল্পী ও ব্যান্ড দলের উপর তার গানগুলো অনের প্রভাব ফেলেছে:

  • এলভিস প্রেসলি তার "টু মাচ মানকি বিজনেস" গানটি কভার করেছিল।
  • জিমি হেনড্রিক্স তার "জনি বি. গুড" গানটি কভার করেছিল।
  • দ্য বিটলস তার অনেক গান কভার করেছিল, যার মধ্যে "রক এ্যান্ড রোল মিউজিক", "রোল ওভার বিঠোফেন" এবং "মেমফিস, টেনেসি" এর কভারগুলো উল্লেখযোগ্য।
  • দ্য রোলিং স্টোনস তার "কাম অন" এবং "লেট ইট রক" গানগুলো কভার করেছিল।
  • দ্য বিচ বয়জ তার "সুইট লিটল সিক্সটিন" গানটির সুর নকল করে তাদের গান "সারফিং ইউ.এস.এ" বানিয়েছিল।
  • কার্ল পারকিনস তার "রোল ওভার বিঠোফেন" এবং "জনি বি. গুড" গানগুলো কভার করেছিল।
  • ইলেকট্রিক লাইট অর্কেস্ট্রা তার "রোল ওভার বিঠোফেন" গানটি কভার করেছিল।
  • স্ট্যাটাস কুও তার "ইউ নেভার ক্যান টেল" গানটি কভার করেছিল।
  • এসি/ডিসি তার "স্কুল ডেইজ" গানটি কভার করেছিল।
  • দ্য ইয়ার্ডবার্ডস তার "গিটার বুগি" গানটিকে "জেফস বুগি" হিসেবে কভার করেছিল।
  • বাডি হলি তার "ব্রাউন আইড হ্যান্ডসাম ম্যান" গানটি কভার করেছিল।
হলিউড ওয়াক অব ফেমে বেরির তারা

রক সঙ্গীত সমালোচক রবার্ট ক্রিস্টগাউ বেরিকে "সর্বকালের সবচেয়ে সেরা রক এ্যান্ড রোলার" বলেছেন। জন লেনন বলেছিল যে, "যদি তুমি রক এ্যান্ড রোলকে অন্য আরেকটি নামে ডাকতে চাও, তাহলে তুমি এটিকে চাক বেরি ডাকতে পারো।" বব ডিলান চাক বেরিকে "রক এ্যান্ড রোল সঙ্গীতের শেক্সপিয়র" বলেছেন। টেড নাজেন্ট বলেছিল যে, "যদি তুমি চাক বেরির প্রতিটা গিটার সুর না জানো, তাহলে তুমি রক গিটার বাজাতে পারবে না।" অ্যরোস্মিথ-এর গিটার বাদক জো পেরি বিখ্যাত ব্যান্ডগুলোর চাক বেরির গান গাওয়া নিয়ে বলেছিলেন, "মানুষ সবসময়ই চাক বেরির গান বাজাবে। যখন ব্যান্ডগুলো তাদের বাড়ির কাজ করে, সবসময়ই তারা চাক বেরি’র গান শোনে। তুমি যদি রক অ্যান্ড রোল শিখতে চাও, এর সম্পর্কে জানতে চাও, তোমাকে চাক বেরি শুনতে হবে।"[৮]

২০০০ সালে কেনেডি সেন্টার সম্মাননা পুরস্কার গলায় বেরি

বেরি যেসব সম্মাননা পেয়েছিল তার মধ্যে ছিল, গ্র্যামি আজীবন সম্মাননা পুরস্কার ১৯৮৪ সালে[২৫] এবং কেনেডি সেন্টার সম্মাননা ২০০০ সালে। টাইম ম্যাগাজিনের "সর্বকালের সেরা ১০ জন ইলেকট্রিক গিটার বাদক" এর তালিকায় তাকে সাত নম্বরে স্থান দিয়েছিল[২৬]। ২০০২ সালের ১৪ মে, বেরিকে সম্মাননা দেওয়া হয়েছিল বিএমআই আইকন হিসেবে বিএমআই এর ৫০তম পপ পুরস্কারে। তাকে পুরস্কারটি বিএমআই অনুমোদনকারী বো ডিডলেই এবং লিটল রিচার্ডের সাথে দেওয়া হয়েছিল। ২০১৪ সালের আগস্টে বেরিকে পোলার সঙ্গীত উৎসবের বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল[২৭]। ১৯৮৬ সালে রক অ্যান্ড রোল হল অব ফেমে অন্তর্ভুক্ত হওয়া শিল্পীদের মধ্যে বেরি ছিলেন। রক অ্যান্ড রোল হল অব ফেমের "৫০০ টি গান যা রক এ্যান্ড রোলকে রুপ দিয়েছে" তালিকায় বেরির "জনি বি. গুড", "মেবিলিন" এবং "রক অ্যান্ড রোল মিউজিক" অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। বেরির "জনি বি গুড" একমাত্র রক এ্যান্ড রোল গান যা ভয়েজের গোল্ডেন রেকর্ডের অন্তর্ভুক্ত।

রোলিং স্টোন ম্যাগাজিনের অনেকগুলো তালিকায় তাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ২০০৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ম্যাগাজিনটির "সর্বকালের ১০০ সেরা গিটার বাদক" এর তালিকায় তাকে সাত নম্বরে স্থান দেওয়া হয়েছে[২৮]। নভেম্বরে তার সংকলিত অ্যালবাম দ্য গ্রেট টোয়েন্টি এইট, রোলিং স্টোন ম্যাগাজিনের "সর্বকালের ৫০০ সেরা অ্যালবাম" এর তালিকায় ২১ নম্বরে স্থান পেয়েছিল[২৯]। ২০০৪ সালের মার্চ মাসে ম্যাগাজিনটির "দ্য ইমর্টালস – সর্বকালের ১০০ সেরা শিল্পী" এর তালিকায় পাঁচ নম্বরে স্থান দেওয়া হয়েছিল। ডিসেম্বরে তার ছয়টি গান ম্যাগাজিনটির "সর্বকালের ৫০০ সেরা গান" এর তালিকায় স্থান পেয়েছিল: "জনি বি. গুড" (#৭), "মেবিলিন" (#১৮), "রোল ওভার বিঠোফেন" (#৯৭), "রক এ্যান্ড রোল মিউজিক" (#১২৮), "সুইট লিটল সিক্সটিন" (#২৭২) এবং "ব্রাউন আইড হ্যান্ডসাম ম্যান" (#৩৭৪)[৩০]। ২০০৮ সালের জুন মাসে তার গান "জনি বি. গুড", "১০০ সেরা গিটার গান" এর তালিকায় এক নম্বরে স্থান পেয়েছিল।

ডিস্ক তালিকা[সম্পাদনা]

  • ১৯৫৭: আফটার স্কুল সেশনস
  • ১৯৫৮: ওয়ান ডজন বেরিজ
  • ১৯৫৯: চাক বেরি ইজ অন টপ
  • ১৯৬০: রকিং এট দ্য হপস
  • ১৯৬১: নিউ জুক বক্স হিটস
  • ১৯৬৪: টু গ্রেট গিটারস
  • ১৯৬৪: সেইন্ট লুইস টু লিভারপুল
  • ১৯৬৫: চাক বেরি ইন লন্ডন
  • ১৯৬৫: ফ্রেশ বেরি'জ
  • ১৯৬৭: চাক বেরি'জ গোল্ডেন হিটস
  • ১৯৬৭: চাক বেরি ইন মেমফিস
  • ১৯৬৮: সেইন্ট লুইস টু ফ্রিসকো
  • ১৯৬৯: কনসার্টো বি. গুড
  • ১৯৭০: ব্যাক হোম
  • ১৯৭১: স্যান ফ্রান্সিসকো ডুয়েস
  • ১৯৭২: দ্য লন্ডন চাক বেরি সেশনস
  • ১৯৭৩: বাইও
  • ১৯৭৫: চাক বেরি
  • ১৯৭৯: রকিট
  • ২০১৭: চাক

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. "চলে গেলেন রক এ্যান্ড রোল এর জনক, চাক বেরি"প্রথম আলো। ১৯ মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১৯ 
  2. "চাক বেরি, কিংবদন্তি ও রক এ্যান্ড রোলের কথক"বণিক বার্তা। ১৮ মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মে ২০১৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. "চাক বেরি – রক এ্যান্ড রোল হল অব ফেম"দ্য রক এ্যান্ড রোল হল অব ফেম। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৯ 
  4. পেগ (২০০৩, pp. ১১৯–১২৭)
  5. "চাক বেরি - ব্রিটানিকা"ব্রিটানিকা (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০১৯ 
  6. "রক এ্যান্ড রোল সঙ্গীতের প্রবর্তক, চাক বেরি, ৯০ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেছেন"বিলবোর্ড (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৯ 
  7. "রক এ্যান্ড রোল সঙ্গীতের একজন প্রবর্তক, চাক বেরি মৃত্যুবরণ করেছেন"দ্য সল্ট লেক ট্রিবিউন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৯ 
  8. Ul Ibad, Mahid (১৯ মার্চ ২০১৭)। "চাক বেরির অজানা দশ"। bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৯ 
  9. "রোলিং স্টোনস ম্যাগাজিনের সর্বকালের ১০০ সেরা শিল্পীর তালিকা"রোলিং স্টোনস (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৯ 
  10. "৫০০ টি গান যা রক এ্যান্ড রোলকে রুপ দিয়েছে"রক এ্যান্ড রোল হল অব ফেম (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৯ 
  11. "ভয়েজার গোল্ডেন রেকর্ড"জেট প্রপালসন ল্যাবরেটরি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৯ 
  12. "রক এ্যান্ড রোল সঙ্গীতের জনক, চাক বেরি আর নেই"এনবিসি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৯ 
  13. "চাক বেরি" (ইংরেজি ভাষায়)। হিস্টোরি অব রক। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৪ 
  14. "আফ্রিকান আমেরিকান মানুষদের জীবন"Books.google.ca (ইংরেজি ভাষায়)। ২৯ এপ্রিল ২০০৪। পৃষ্ঠা ৭১। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৯ 
  15. Ul Ibad, Mahid। "মধুর সুর এবং রক এ্যান্ড রোল"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৪ 
  16. গিটার ঈশ্বর: ২৫ জন গিটার বাদক যারা রক সঙ্গীতে ইতিহাস বানিয়েছিল। এবিসি-ক্লাইও। ২০০৯। পৃষ্ঠা ৩২। আইএসবিএন 9780313358067। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৯ 
  17. পেগ (২০০৩, p. ১৪)
  18. বেরি, চাক. তার আত্মজীবনী. (page needed.)
  19. আর্লি, জেরাল্ড লিন (১৯৯৮)। কিন্তু একটি স্থান নয়: সেইন্ট লুইস সম্পর্কে আফ্রিকান-আমেরিকানদের লেখা একটি গ্রন্থ (ইংরেজি ভাষায়)। মিসৌরি ইতিহাস যাদুঘর। পৃষ্ঠা ১৬৬। আইএসবিএন 9781883982287। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৯ 
  20. পেগ (২০০৩, p. ২০-২২)
  21. "সেইন্ট লুইসের দ্য ভিলের ভিতরে চাক বেরির বাড়ি নিয়ে খবর" (ইংরেজি ভাষায়)। outside.in। ২১ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৯ 
  22. কোন, লরেন্স; আল্ডিন, মেরি ক্যাথারিন; বাস্টিন, ব্রুস (১৯৯৩)। ব্লুজ ছাড়া কিছুই না: সঙ্গীতটি এবং সঙ্গীতশিল্পীরা (ইংরেজি ভাষায়)। এ্যাবেভিল প্রেস। পৃষ্ঠা ১৭৪। আইএসবিএন 978-1-55859-271-1 
  23. "চাক বেরির ওয়েবসাইট" (ইংরেজি ভাষায়)। chuckberry.com। ২০ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৯ 
  24. Ul Ibad, Mahid। "জনি জন্সনকে মনে রেখেছেন চাক বেরি" (ইংরেজি ভাষায়)। firstcoastnews.com। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  25. "আজীবন সম্মাননা পুরস্কার" (ইংরেজি ভাষায়)। National Academy of Recording Arts and Sciences। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৯ 
  26. "সর্বকালের সেরা ১০ জন ইলেকট্রিক গিটার বাদক"টাইম। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৯ 
  27. "পোলার সঙ্গীত উৎসবের পুরস্কার জিতলেন চাক বেরি"। hawkerbd.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৯ 
  28. "সর্বকালের ১০০ সেরা গিটার বাদক – রোলিং স্টোন"রোলিং স্টোন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৯ 
  29. "সর্বকালের ৫০০ সেরা অ্যালবাম – রোলিং স্টোন"রোলিং স্টোন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৯ 
  30. "সর্বকালের ৫০০ সেরা গান – রোলিং স্টোন"রোলিং স্টোনস (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৯ 

গ্রন্থ-পঁজী

  • পেগ, ব্রুস (২০০৩)। Brown Eyed Handsome Man: The Life and Hard Times of Chuck Berry (ইংরেজি ভাষায়)। রোউটলেজ। আইএসবিএন 0-415-93751-5 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]