এলভিস প্রেসলি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
এল্‌ভিস প্রেস্‌লি
Elvis Presley 1970.jpg
প্রাথমিক তথ্য
জন্ম নাম এল্‌ভিস এরোন প্রেস্‌লি
আরো যে নামে
পরিচিত
এল্‌ভিস
জন্ম (১৯৩৫-০১-০৮)৮ জানুয়ারি ১৯৩৫
টুপেলো, মিসিসিপি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
উদ্ভব মেম্ফিস, টেনেসি
মৃত্যু ১৬ আগস্ট ১৯৭৭(১৯৭৭-০৮-১৬) (৪২ বছর)
মেম্ফিস, টেনেসি
ধরন Rockabilly, রক ও রোল, গসপেল, ব্লুজ, কান্ট্রি
পেশা কণ্ঠশিল্পী, অভিনেতা
বাদ্যযন্ত্রসমূহ কণ্ঠশিল্পী, গীটার এবং পিয়ানো
কার্যকাল ১৯৫৪–১৯৭৭
লেবেল সান, আরসিএ
ওয়েবসাইট elvis.com

এল্‌ভিস প্রেস্‌লি (ইংরেজি: Elvis Presley; ৮ জানুয়ারি ১৯৩৫১৬ আগস্ট ১৯৭৭) ছিলেন মার্কিন রক সঙ্গীতশিল্পী ও অভিনেতা। তিনি বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে জনপ্রিয় গায়ক এবং সবচেয়ে বহুল বিক্রিত অ্যালবামের সঙ্গীতশিল্পীদের মধ্যে অন্যতম। তাকে "কিং অব রক অ্যান্ড রোল" বা আরও সহজভাবে "দ্য কিং" নামে অভিহিত করা হয়।

এলভিস প্রেসলির জন্ম মিসিসিপির টুপেলো শহরে। তের বছর বয়সে তিনি তার পরিবারের সাথে টুপেলো ছেড়ে টেনেসি অঙ্গরাজ্যের মেম্ফিস শহরে চলে যান। সেখানে তিনি ১৯৫৪ সালে সান রেকর্ডস নামে একটি সংগীত বিষয়ক প্রতিষ্ঠানে গান গাওয়ার মাধ্যমে তার সংগীত জীবন শুরু করেন। সান রেকর্ডসের প্রযোজক স্যাম ফিলিপস শ্রোতাদের কাছে আফ্রো-আমেরিকান সঙ্গীতের একটি জনপ্রিয় ধরন ছড়িয়ে দিতে চান। গিটার বাদক স্কটি মুর ও বেজিস্ট বিল ব্ল্যাককে নিয়ে গঠিত প্রেসলির দ্য ব্লু মুন বয়েজ সঙ্গীতদল রক ও রোল, আপটেম্পো, কান্ট্রি সঙ্গীতে ব্যাকবিট-ড্রাইভেন ফিউশন এবং রিদম ও ব্লুজ সংগীতের অগ্রপথিক হিসেবে অবতীর্ণ হন। ১৯৫৫ সালে ড্রাম বাদক ডি.জে. ফন্টানা তাদের সাথে যোগ দেন এবং প্রেসলির ব্যবস্থাপক কর্নেল টম পার্কার তাদের আরসিএ ভিক্টরের সাথে চুক্তির ব্যবস্থা করে দেন। পার্কার আরও ১২ বছর প্রেসলির ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করেন। আরসিএ'র প্রকাশনায় প্রেসলির গাওয়া প্রথম একক গান ছিলো "হার্টব্রেক হোটেল"। এটি ১৯৫৬ সালের জানুয়ারিতে প্রকাশিত হয়। সমালোচকদের মতে এই গানটির মধ্যেই প্রথম রক ও রোলের সফল ব্যবহার দেখতে পাওয়া যায়। গানটি প্রকাশিত হওয়ার পরপরই তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টপচার্টের শীর্ষে স্থান করে নেয়। এরপরে তিনি টেলিভিশনে গান গেতে শুরু করেন এবং অল্পকিছুদিনের মধ্যেই তার গান সেরা গানের তালিকার শীর্ষ স্থান দখল করে নেয় এবং তিনি সমকালীন গায়কদের মধ্যে সেরা বিবেচিত হন।

কণ্ঠশিল্পীর পাশাপাশি তিনি একজন চলচ্চিত্র অভিনেতাও ছিলেন। প্রিসলি অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্রের নাম "লাভ মি টেন্ডার"। ছবিটি ১৯৫৬ সালের নভেম্বরে মুক্তি পায়। ১৯৫৮ সালে তিনি বাধ্যতামূলকভাবে সেনাবাহিনীতে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। ২ বছর পর তিনি সেনাবাহিনী ছেড়ে আবার সংগীত জগতে ফিরে আসেন কিছু তুমুল জনপ্রিয় গানের মাধ্যমে। তিনি সেসময় মঞ্চে গাইতে শুরু করেন। এবং তার সে সময়কার গাওয়া গানগুলো বানিজ্যিকভাবে প্রচুর সফলতা পায়। মিঃ পার্কারের উৎসাহে ১৯৬০ সালে তিনি আবার হলিউডে ছবি বানানো এবং সংগীত পরিচালনা শুরু করেন কিন্তু তাঁর এসব কাজ ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয়। ১৯৬৮ সালে তিনি সাত বছর পর আবার স্টেজে গান গেতে শুরু করেন। তার এসময়ের করা ট্যুরগুলোও বানিজ্যিকভাবে সফল হয় এবং সাথে সাথে প্রচুর জনপ্রিয়তাও পায়। ১৯৭৩ সালে এলভিস প্রেসলির স্টেজে করা একটি গান প্রথমবারেরমত স্যাটেলাইট থেকে দেখা হয়। স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী প্রায় দেড় বিলিয়ন দর্শক গানটি সরাসরি উপভোগ করে। তিনি জীবনের শেষদিকে এসে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছিলেন বলে জানা যায়। অনেকেই মাদকদ্রব্যকেই তার মৃত্যুর কারণ হিসেবে অভিহিত করেন। তিনি ১৯৭৭ সালের ১৬ই আগস্ট হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

জীবনী ও ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

শৈশব ও কৈশোর (১৯৩৫-১৯৫৩)[সম্পাদনা]

টুপেলোতে শৈশব[সম্পাদনা]

এলভিস প্রেসলি ১৯৩৫ সালের ৮ই জানুয়ারি মিসিসিপ্পির টুপেলোতে জন্মগ্রহন করেন । তার বাবার নাম ভ্যারন এলভিস এবং মায়ের নাম লাভ প্রিসলি । তিনি যখন জন্মগ্রহণ করেন তখন তার বাবার বয়স ছিল ১৮ এবং মায়ের বয়স ছিল ২২ বছর । জেসে গারন প্রেসলি নামে তার একজন জমজ ভাই ছিল যিনি প্রেসলির জন্মের ৩৮ মিনিট আগে জন্ম নিয়েছিলেন।

প্রেম ও বিয়ে[সম্পাদনা]

সেনাবাহিনীতে যোগদান প্রিসলির অনিচ্ছাকৃত হলেও এই সেনাবাহিনীতে যোগদানের ফলেই দেখা পান জীবনের পরম বন্ধুর। সেনাবাহিনীর সৈন্য হিসেবে জার্মানীতে অবস্থানের সময় চৌদ্দ বছর বয়সী ওয়াগনারের প্রেমে পড়েন প্রিসলি। দীর্ঘদিন প্রেম পর্ব শেষে ১৯৬৭ সালের ১ মে তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ১৯৬৭ সালের ১ লা ফেব্রুয়ারী প্রিসলি-ওয়াগনারের সংসারে আগমন ঘটে নতুন অতিথি একমাত্র কন্যা লিস্যা ম্যারী প্রিসলির।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]