কুমিল্লার রসমালাই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

কুমিল্লার রসমালাই বাংলাদেশের বিখ্যাত রসমালাই। কুমিল্লা জেলা শহরের নামে এই রসমালাই পরিচিতি লাভ করেছে। এর মধ্যে মাতৃভান্ডারের রসমালাই জনপ্রিয়। রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ভিনদেশি ও দেশি আমন্ত্রিত অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয় নগরের মনোহরপুর এলাকার মাতৃভান্ডারের রসমালাই দিয়ে। পাশাপাশি একই এলাকার ভগবতী প্যাড়া ভান্ডার, শীতল ভান্ডার, পোড়াবাড়ি, জেনিস, জলযোগ, কুমিল্লা মিষ্টি ভান্ডারের রসমালাইও জনপ্রিয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আনুমানিক ১৯০০ সালের দিকে কুমিল্লা অঞ্চলে রসমালাই তৈরি শুরু হয়। ১৯৩০ সালে কুমিল্লার মাতৃ ভাণ্ডার রসমালাই বানিয়ে নাম করে। শংকর সেনগুপ্তের হাতে এটি বিকশিত হয়।[১]

পদ্ধতি[সম্পাদনা]

বিভিন্ন গোয়ালার কাছ থেকে সংগৃহীত দুধ চুলায় নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় জ্বাল দেওয়া হয়। কমপক্ষে দুই ঘণ্টা জ্বাল দেওয়ার পর দুধ ঘন হয় ও ছানায় রূপ নেয়। এরপর ছানা কেটে ছোট ছোট দানাদার মিষ্টির মতো বানানো হয়। পরে রসের মধ্যে দিয়ে তা রসমালাইতে পরিণত করা হয়।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "কুমিল্লার রসমালাই"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০২১