এলিউসিনীয় রহস্যবাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এলিউসিসের স্যাংকচুয়ারিতে আবিষ্কৃত খ্রিস্টপূর্ব মধ্য ৪র্থ শতকের এলিসিনীয় রহস্যবাদের উপাদান চিত্রিত নিনিওন ট্যাবলেট নামক একটি ব্রতমূলক বা শপথমূলক ফলক

এলিউসিনীয় রহস্যবাদ (Eleusinian Mysteries) ( গ্রিক: Ἐλευσίνια Μυστήρια ) ছিল ডেমেতের এবং পার্সিফোনের উপাসক সম্প্রদায়ের জন্য প্রতি বছর প্রাচীন গ্রিসের এলিউসিসের প্যানহেলেনিক বা সকল গ্রিকের জন্য উন্মুক্ত স্যাংকচুয়ারি ভিত্তিক একটি দীক্ষাদানভিত্তিক ধর্ম বা রহস্যবাদ। তারা হ'ল "প্রাচীন গ্রিসের গোপন ধর্মীয় আচারের মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত"।[১] এই রহস্যবাদের ভিত্তি ছিল একটি পুরাতন কৃষিবাদী উপাসক সম্প্রদায়,[২] এবং এটির মাইসিনীয় পর্যায়ের ধর্মীয় অনুশীলন থেকে উদ্ভূত হবার কিছু সাক্ষ্যপ্রমাণও রয়েছে। [৩] [৪] এই রহস্যবাদ পাতালপুরীর রাজা হেডিসের দ্বারা দেমেতেরের থেকে তার কন্যা পারসিফোনের অপহরণের পুরাণকে প্রতিফলিত করে, যে ঘটনাটি তিনটি পর্যায়ের একটি চক্রে সাধিত হয় : অবতরণ (descent বা হারানো), অনুসন্ধান, এবং উত্তোরণ (ascent বা άνοδος); যেখানে এর মূল সারভাবটি উত্তোরণ যখন পারসিফোনের সাথে তার মা দেমেতেরের পুনর্মিলনী ঘটে। এটি হেলেনবাদী পর্যায়ের একটি প্রধান উৎসব ছিল এবং পরে রোমেও ছড়িয়ে পড়ে। [৫] একই ধরণের ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলি নিকট প্রাচ্য এবং মিনোয়ান ক্রিটের কৃষিভিত্তিক সমাজেও দেখা যায়। কৃষ্ণাঙ্গ সমিতিতে এবং মিনোয়ান ক্রেটে দেখা যায়

আচার, অনুষ্ঠান এবং বিশ্বাসগুলি অ্যান্টিকুইটি বা প্রাচীন যুগ থেকে গোপনে এবং ধারাবাহিকভাবে সংরক্ষণ করা হত। দীক্ষিতদের জন্য, পার্সিফোনের পুনর্জন্ম প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তর প্রবাহিত জীবনের অমরত্বকে প্রতীকায়িত করত, এবং পরকালে তারা পুরস্কৃত হবে বলে বিশ্বাস করত।[৬] অনেক চিত্রকর্ম এবং মৃৎশিল্পের টুকরো রয়েছে যা রহস্যগুলির বিভিন্ন দিক চিত্রিত করে। রহস্যগুলি পরকালীন জীবন দেখানো বা সামনে নিয়ে আসার সাথে সম্পর্কিত ছিল বলে কোন কোন পণ্ডিত মনে করেন, এলিউসিনীয় রহস্যবাদের ক্ষমতা ও এতদিন ধরে টিকে থাকার পেছনে যে দুই হাজার বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে চলা আচার, অনুষ্ঠান ও অভিজ্ঞতা রয়েছে তার পেছনে সাইকেডেলিক ড্রাগ বা মানসিক অবস্থা পরিবর্তনকারী ঔষদ বা এনথিওজেনের ভূমিকা রয়েছে।[৭] শহরটির নাম এলিউসিস শব্দটিকে গ্রিকপূর্ব বলে মনে হয়, এবং এটি এলিসিয়াম ও গ্রিক দেবী ইলিথিয়া এর নামের সাথে সম্পর্কিত বলে মনে হয়।[৮]

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

ইলিউসিস নগরের রহস্যবাদকেই এলিউসিনীয় রহস্যবাদ ( গ্রিক: Ἐλευσίνια Μυστήρια) বলা হয়।

এলিউসিস নামটি গ্রিক-পূর্ব বা গ্রিক ভাষার পূর্বে সেই অঞ্চলে যে ভাষা ছিল সেই ভাষার, এবং নামুটি দেবী ইলিথিয়া এর সাথে সম্পর্কিত হয়ে থাকতে পারে।[৯] তার নাম Ἐλυσία ( এলিসিয়া ) ল্যাকোনিয়া এবং মেসিনি অঞ্চলে তার নাম ছিল এলিসিয়া (Ἐλυσία), যা সম্ভবত ইলেউসিনিওস এবং এলিউসিস মাসের নামের সাথে সম্পর্কিত, [১০] তবে এটি বিতর্কিত। [১১]

প্রাচীন গ্রীক শব্দ "mystery" ( μυστήριον ) এর অর্থ "রহস্য বা গোপনীয় অনুষ্ঠান" [১২] এবং এটি ক্রিয়াপদ mueō ( μυέω) এর সাথে সম্পর্কিত যার অর্থ হচ্ছে রহস্যবাদে দীক্ষালাভ, [১৩] এবং এর বিশেষ্য হচ্ছে mustēs (μύστης) যার অর্থ হচ্ছে দীক্ষাপ্রাপ্ত ব্যক্তি। [১৪] mustikós (μυστικός ) শব্দটির দ্বারা বোঝায় "রহস্যবাদের সাথে সংযুক্ত", বা "ব্যক্তিগত, গোপন" (আধুনিক গ্রীকেও এর অর্থ একই)। [১৫]

দেমেতের এবং পার্সিফোন[সম্পাদনা]

ন্যাশনাল আর্কিওলজিকাল মিউজিয়াম অফ অ্যাথেন্সে সংরক্ষিত খ্রিস্টপূর্ব ৫ম শতকের কারুশিল্পে দেমেতের ট্রিপ্টোলেমাসকে গমের গুচ্ছ দিচ্ছেন, এবং পার্সিফোন তাকে আশির্বাদ দিচ্ছেন

এলিউসিনীয় রহস্যবাদ হোমারীয় স্তোত্রের (আনু. খ্রিস্টপূর্ব ৬৫০ অব্দ) একটিতে বর্ণিত কৃষি ও উর্বরতার দেবী দেমেতের সম্পর্কিত একটি পৌরাণিক কাহিনীর সাথে সম্পর্কিত। স্তোত্রটি অনুসারে দেমেতেরের কন্যা পার্সিফোনকে (যাকে কোরে নামেও ডাকা হয়) পৃথিবীর সকল ফুলকে রং করার দায়িত্ব অর্পন করা হয়। কিন্তু এই কাজ শেষ করার আগে, তাকে পাতালপুরীর দেবতা হেডিস অপহরণ করে নিয়ে যান। বিক্ষিপ্ত দেমেতের তার মেয়েকে সারা পৃথিবীতে খুঁজে বেড়ান। তিনি পৃথিবীতে ভয়ঙ্কর খরার সৃষ্টি করেন, যার ফলে মানুষ অনাহারে ভোগে এবং দেবদেবীদের জন্য বলি দেয়া ও তাদের পূজা করা বন্ধ করে দেয়, এর ফলে জিউস বাধ্য হয়ে এবং দেমেতেরের দুর্দশা দেখে তার মেয়ে পার্সিফোনকে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেবার ব্যবস্থা করেন।[১৬]

পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, তার অনুসন্ধানের সময় দেমেতের দীর্ঘ পথ ভ্রমণ করেছিল এবং এই পথে অনেক ছোট ছোট অভিযান কাহিনী ছিল। একটিতে তিনি ট্রিপ্টোমেলাসকে কৃষির গোপন বিষয় শিখিয়েছিলেন। [১৭] শেষ পর্যন্ত, জিউসের সাথে আলোচনার পর দেমেতের তার মেয়ের সাথে পুনরায় মিলিত হয়েছিলেন এবং পৃথিবী তার পূর্বের শ্যামলিমা এবং সমৃদ্ধি - প্রথম বসন্তে ফিরে আসে।

জিউস এবং অন্যান্য দেবদেবীরা ক্ষুধার্ত মানুষের আর্ত চিৎকারে ও যন্ত্রণার শুনতে পেরেছিলেন, এতে হেডিস বাধ্য হয়ে পার্সিফোনকে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু গ্রিক নিয়তিদেবীর একটি নিয়ম ছিল, যেই পাতালপুরী থেকে কোন খাবার বা পানীয় গ্রহণ করবে তাকে সেখানে অনন্তকাল কাটাতে হবে। পার্সিফোনকে তার পুনরুদ্ধারের জন্য প্রেরণ করা হার্মিসের কাছে ছেড়ে দেওয়ার আগে হেডিস তাকে ডালিমের বীজ খেতে (কাহিনী অনুসারে ছয়টি বা চারটি) প্ররোচিত করেছিলেন, যার জন্য তাকে প্রতি বছর কয়েক মাসের জন্য পাতালপুরীতে ফিরে যেতে হয়। তিনি ছয় বা চার মাস (বীজ প্রতি এক মাস) হেডিসের সাথে থাকতে বাধ্য থাকেন এবং বছরের বাকি সময়টি মায়ের সাথে মাটির উপরে থাকেন। এর ফলে একটি দীর্ঘ সময় ধরে দেমেতের পার্সিফোনের অনুপস্থিতির কারণে দুঃখের কারণে পৃথিবীতে চাষে অবহেলা করেন।পার্সিফোন যখন ফিরেআসেন, দেমেতের তখন আনন্দিত হন এবং পুনরায় পৃথিবীর যত্ন নেন।

রহস্যবাদটির কেন্দ্রীয় ভিত্তি ছিল দেমেতের নিয়ে হোমারীয় স্তোত্রের ৪১৫ নং বাক্য, যেখানে শীতকালে পার্সিফোনের হেডিসের কাছে থাকার এবং বসন্তে ফিরে আসার কথা বলা হয়েছে: "এই সেই (পার্সিফোনের ফিরে আসার) দিন, উদার বসন্ত ঋতুর একেবারের শুরুর সময়।"[১৮] এই কথাটি ভূমধ্যসাগরীয় ঋতু পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত। প্রত্যেক ভূমধ্যসাগরীয় কৃষকই জানে, নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রকৃতি মূলত সুপ্তাবস্থায় থাকে।

পার্সিফোনের এভাবে পুনর্জন্ম সমস্ত উদ্ভিদজীবনের পুনর্জন্মের প্রতীক এবং তাই এটি এক প্রজন্ম থেকে অন্য প্রজন্মে জীবনের প্রবাহের মাধ্যমে বয়ে চলা জীবনের অমরত্বেরও প্রতীক।[১৯]

তবে, একজন পণ্ডিত একটি ভিন্ন সংস্করণ প্রস্তাব করেছেন [২০], যা অনুসারে পার্সিফোন হেডিসের সাথে যে চার মাস থাকেন তা গ্রীক শুষ্ক গ্রীষ্মের সাথে মিলে যায়, এই সময়কালে খরা হওয়ার আশঙ্কাও দেখা যায়। [২১] কিন্তু ভূমধ্যসাগরীয় গ্রীষ্মের ফলের প্রাচুর্যতা এবং শীতের কোন ফসল না জন্মানোর বাস্তবতার সাথে এই সংস্করণটি মেলে না।

রহস্যবাদ[সম্পাদনা]

দেমেতের সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হয়ে হাত প্রসারিত করে এলিউসিনের রাণী হাঁটু গেড়ে বসা মেটানেইরাকে আশির্বাদ করছেন, মেটানেইরা দেমেতেরকে ট্রাইউন হুইট বা গমের তিনটি চাড়াকে একত্রে দান করছেন, গমের এই ট্রাইউন এলিউসিনীয় রহস্যবাদের একটি প্রতীকে পরিণত হয় যা বারবার দেখা যায়। (ভারিস পেইন্টারের আনু. ৩৪০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে তৈরি একটি হাইড্রিয়া, যেখানে রেড-ফিগার মৃৎশিল্পের শৈলী ব্যবহার করা হয়েছে, এটি আপুলিয়ায় পাওয়া গেছে)।

এলিউসিনিয়ার রহস্যগুলি যথেষ্ট পুরাকালের বলে মনে করা হয়। অ্যাটিকার এলিউসিনিয়ন মন্দিরের কয়েকটি অনুসন্ধানে বোঝা যায় যে তাদের ভিত্তি ছিল একটি পুরানো কৃষিভিত্তিক কাল্ট।[২২] রহস্যের কিছু অনুশীলন মাইসিনীয় পর্যায়ের ধর্মীয় অনুশীলন দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল, আর তাই গ্রীক অন্ধকার যুগের পূর্বে এর অস্তিত্ব ছিল। [৩] [৪] খননকাজগুলি দেখিয়েছিল যে মাইসিনীয় আমলে টেলেস্টেরিয়নের অধীনে একটি ব্যক্তিমালিকানাধীন বা প্রাইভেট দালানের অস্তিত্ব ছিল, এবং মনে হয় উৎপত্তিগতভাবে দেমেতেরের কাল্টটি গোপন বা প্রাইভেটই ছিল, অর্থাৎ তাতে সকলের অংশগ্রহণ ছিলনা। হোমারীয় স্তোত্রে রাজা সিলেয়াসের রাজপ্রাসাদের কথার উল্লেখ করা হয়েছে। [২৩]

আধুনিক পণ্ডিতদের কেউ কেউ মনে করেন, এই রহস্যবাদের উদ্দেশ্য ছিল "মানুষকে মানবীয় জগৎ থেকে ঐশ্বরিক জগতে উন্নীত করা, যাতে তার মুক্তি নিশ্চিত হয় এবং তার উপর অমরত্ব প্রদত্ত হয়।"[২৪] তুলনামূলক অধ্যয়ন এই গ্রীক আচার এবং অনুরূপ ব্যবস্থার মধ্যে সমান্তরালতা দেখায় — তাদের মধ্যে কিছু কিছু প্রবীনতর — নিকট প্রাচ্যের ধর্মীয় আচার। এই কাল্টগুলোর মধ্যে রয়েছে মিশরের আইসিস এবং ওসিরিসের রহস্যবাদ, সিরিয়া এর ধর্মের অ্যাদোনীয় কাল্ট, পারস্যের রহস্যবাদ এবং ফ্রিজীয় কাবেইরীয় রহস্যবাদ।[২৫]

কিছু পণ্ডিত যুক্তি দিয়েছিলেন যে এলিউসিনিয়ান ধর্মটি একটি মিনোয়ান কাল্টের ধারাবাহিকতা ছিল, [২৬] এবং দেমেতের ছিলেন পপি দেবী যিনি ক্রিট থেকে থেকে এলিউসিসে পপি নিয়ে এসেছিলেন।[২৭] [২৮] মাইসিনীয় পর্যায়ের কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ডেসপোইনা (যার ধারণা পরে পার্সিফোনের ধারণার সাথে মিশে যায়) ও ইলিথিয়ার (সন্তান প্রসবের দেবী) কাল্ট অধ্যয়ন থেকে নেয়া যায়। লিউকোসুরায় ডেসপোইনার মেগারন এলিউসিসের টেলেস্টেরনের সাথে অনেকটাই মিলে যায়,[২৯] এবং দেমেতের পোসেইডনের সাথে মিলিত হয়ে ডেসপোইনা উপাধির (কর্ত্রী বা মিস্ট্রেস) এক কন্যার জন্ম দেন যার নাম উচ্চারণ করা যায়না।[৩০] ক্রিটের অ্যামনিসসের গুহায় দেবী ইলিথিয়া ঐশ্বরিক পুত্রের বার্ষিক জন্মের সাথে সম্পর্কিত, এবং তিনি এনেসিডাওন (পৃথিবীর কম্পনকারী)[৩১] এর সাথে সম্পর্কিত, যিনি পোসেইডনের পাতালপুরীর রূপ।[৩২]

এলিউসিসের শিলালিপিগুলোতে ট্রিপ্টোলেমস (সম্ভবত গাইয়াওশেনাসের পুত্র) এর সহচর হিসেবে "দেবীগণ" এর উল্লেখ রয়েছে[৩৩] এবং ইউবুলিয়াস এর সহচর হিসেবে "দেব ও দেবী" (পার্সিফোনহেডিস) এর উল্লেখ রয়েছে যারা পাতালপুরী থেকে ফিরে আসার পথের নেতৃত্ব দেয়। [৩৪] পৌরাণিক কাহিনীটি তিনটি পর্যায় সহ একটি চক্রের মধ্যে উপস্থাপিত হয়েছিল: "অবতরণ", "অনুসন্ধান", এবং "উত্তোরণ" (গ্রীক "আনোডোস")। এই পর্যায়গুলোর মধ্যে দুঃখ থেকে সুখের পর্যায়ক্রমিক আবেগ নিহিত ছিল, যার ফলে একজন দীক্ষিত পরমানন্দ লাভ করতে পারতেন। মূল সারভাবটি ছিল পার্সিফোনের আরোহণ এবং তার মা দেমেতেরের সাথে পুনর্মিলন। [৩৫] ভোজের শুরুতে পুরোহিতেরা দুটি বিশেষ পাত্র পূর্ণ করে আবার সেগুলো ঢেলে দিয়ে খালি করতেন, একটিকে পূর্বদিকে ও একটিকে পশ্চিম দিকে খালি করা হত। মানুষ আকাশ এবং পৃথিবী উভয়ের দিকে তাকিয়ে একটি যাদুকরী ছড়াতে চিৎকার করে বলতেন "বৃষ্টি এবং গর্ভধারণ"। একটি আচারে শিশুকে চুলা (ঐশ্বরিক আগুন) থেকে দীক্ষা দেয়া হয়েছিল। মাইসিনীয় শিলালিপিতে পাইস (শিশু) নামটি দেখা যায়, [৩৬] এটি ছিল "ঐশ্বরিক শিশুর" আচার, যে শিশুটি উৎপত্তিগতভাবে ছিল প্লুটাস। হোমেরিক স্তোত্রে আচারটি কৃষি সম্পর্কিত দেবতা ট্রিপ্টোলেমাস এর পুরাণের সাথে সম্পর্কিত।[৩৭] প্রকৃতির দেবী এই রহস্যাবাদে টিকে ছিলেন যেখানে এই শব্দগুলো উচ্চারিত হত: "শক্তিশালী পটনিয়া, একজন মহান সন্তানের জন্ম দিন"।[৩] পটনিয়া ( লিনিয়ার বি po-ti-ni-ja : লেডি বা সম্ভ্রান্ত স্ত্রীলোক, মিস্ট্রেস বা গৃহের কর্ত্রী) একটি মাইসিনীয় উপাধি যা দেবদের উপর প্রযুক্ত হত,[৩৮] এবং সম্ভবত গ্রিক-পূর্ব যুগের কোন অনুরূপ উপাধির অনুবাদ ছিল।[৩৯] উদযাপনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তটি ছিল "নীরবে একটি শস্যের মঞ্জরি কাটা" ("an ear of grain cut in silence"), যা নতুন জীবনের শক্তির প্রতিনিধিত্ব করত। শুরুতে এই রহস্যবাদে অমরত্বের ধারণা ছিল নাম কিন্তু দীক্ষিতরা মনে করত পাতালপুরীতে তাদের অধিকতর ভাল ভাগ্য থাকবে। মৃত্যু একটি বাস্তবতা ছিল, তবে একই সাথে ভূমিতে রোপিত বীজ থেকে জন্ম নেয়া বৃক্ষেরমত নতুন সূচনাও তাদের কাছে বাস্তব ছিল।[৪] ফেইস্টসের প্রাচীন প্রাসাদের একটি চিত্র পার্সিফোনের "অ্যানোডোস" এর চিত্রের খুব কাছের। সেখানে একটি বাহুহীন ও পদহীন দেবী ভূমি থেকে জন্ম নিয়েছেন এবং তার মাথা বিশাল ফুলে পরিণত হয়েছে। অবাস্তব দেবতা মাটি থেকে বেড়ে ওঠে এবং তার মাথাটি একটি বৃহত ফুলের দিকে পরিণত হয়। [৪০]

মাইলোনাসের মতে, এলিউসিনীয় রহস্যবাদ দু ধরণের ছিল, ক্ষুদ্রতর রহস্যবাদ ও বৃহত্তর রহস্যবাদ। "ক্ষুদ্রতর রহস্যবাদ প্রতি বছর একবার করে, বসন্তের প্রথমদিকের ফুলের মাস অ্যান্থেস্টেরিয়নে সংঘটিত হত।" এদিকে "বৃহত্তর রহস্যবাদ প্রতিবছর ও প্রতি চার বছর পরপর বিশেষভাবে জাকজমকপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হত, যার নাম ছিল পেন্টেটেরিস "।[৪১] কেরেনেই এই মূল্যায়নের সাথে একমত: "অ্যান্থেস্টেরিয়ন মাসে আগ্রাইতে লেজার রহস্য অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যে মাসটি আমাদের কাছে ফেব্রুয়ারী....দীক্ষাপ্রাপ্তগণ (যারা প্রথমবারের মত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করছেন) দীক্ষাপ্রাপ্তির বছরে এপোপটিয়া -তে (বৃহত্তর রহস্যবাদ) অংশগ্রহণ করতে পারতেন না, তাদেরকে পরের বছর সেপ্টেম্বরে তারা সেটা পালন করত।" [৪২] এই চক্রটি প্রায় দুই সহস্রাব্দ সময় ধরে চলতে থাকে। দেমেতেরের উদ্দেশ্যে রচিত হোমারীয় স্তোত্র অনুসারে, রাজা সেলেয়াস এই রহস্যবাদের গোপন আচার সম্পর্কে শিক্ষাপ্রাপ্তদের মধ্যে একজন ছিলেন। ডিওক্লেস, ইউমোলপাস, পলিক্সিনাস এবং পুত্র ট্রিপ্টোলেমাসের মতো তিনি একই সাথে এলিউসীয় রহস্যবাদের উৎপত্তিগত পুরোহিতদের মধ্যে একজন ছিলেন, যেখানে ট্রিপ্টোলেমাস দেমেতেরের কাছ থেকে কৃষিকার্য শিখেছিলেন।[৪৩]

অ্যাথেন্সের পিসিস্ট্রাটোসের অধীনে, এলিউসিনীয় রহস্যবাদ সর্বহেলেনীয় হয়ে ওঠে, এবং গ্রিস ও তার বাইরে থেকেও তীর্থযাত্রীরা অংশ নিতে সেখানে অংশগ্রহণ করতে আসতেন। খ্রিস্টপূর্ব ৩০০ অব্দের দিকে, রাষ্ট্র এই রহস্যবাদগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়; তারা দুটি পরিবার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হত, ইউমোলপিডি এবং কেরিকেস। এর ফলে দীক্ষাপ্রাপ্তের সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পায়। সদস্যপদের জন্য প্রয়োজনীয় ছিল কেবলমাত্র এই যে, সদস্য হতে হলে "রক্তপাপ" থেকে মুক্ত থাকতে হবে[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] (অর্থাৎ কখনও কাউকে হত্যা করা করেন নি এমন ব্যক্তি হতে হবে), এবং বর্বর হওয়া যাবে না (অর্থাৎ গ্রিক ভাষায় কথা বলতে পারতে হবে)। পুরুষ, নারী এমনকি দাসদেরও দীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। [৪৪]

অংশগ্রহণকারীরা[সম্পাদনা]

এই রহস্যবাদে অংশ নিতে হলে গোপনীয়তার ব্রত নিতে হত।

চার শ্রেণীর লোক এলিউসিনীয় রহস্যবাদে অংশগ্রহণ করতেন:

  1. যাজক, পুরোহিত এবং হিয়োরোফ্যান্ট
  2. দীক্ষাপ্রাপ্ত, যারা প্রথমবারের মত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করছে।
  3. অন্যরা যারা ইতিমধ্যে একবার অন্তত একবার অংশ নিয়েছিলেন। তারা চতুর্থ বিভাগের জন্য যোগ্য ছিলেন।
  4. যারা এপোপটেইয়া (গ্রীক: ἐποπτεία) (ইংরেজি: "অনুধ্যান") অর্জন করেছিলেন, যারা দেমেতেরের বৃহত্তর রহস্যবাদ শিখেছিলেন।

যাজকত্ব[সম্পাদনা]

এলিউসিনীয় রহস্যবাদে ও মন্দিরে (স্যাংকচুয়ারি) কার্যবাহী যাজকত্বকে বিভিন্ন কার্যক্রম অনুযায়ী বিভিন্ন কার্যালয়ে ভাগ করা হত, নারী ও পুরুষ সকলেই যাজক হতে পারতেন।

এলিউসিনীয় রহস্যবাদে ছয় রকমের যাজক থাকতেন:

  1. হিয়েরোফ্যান্টেস, মহাযাজক, ফিলেইডি এবং ইউমোলপিডি পরিবার উত্তরাধিকারসূত্রে এই কার্যালয় অধিকার করত।[৪৫]
  2. দেমেতেরের মহাযাজিকা, ফিলেইডি এবং ইউমোলপিডি পরিবার উত্তরাধিকারসূত্রে এই কার্যালয় অধিকার করত।
  3. ডাডুকোস, মশাল বহনকারী হিসাবে কাজ করা পুরুষেরা।
  4. ডাডোউকোউসা যাজিকা , ফিলেইডি এবং ইউমোলপিডি পরিবার উত্তরাধিকারসূত্রে এই কার্যালয় অধিকার করত।
  5. হিয়োরোফ্যান্টিডেস, দুজন বিবাহিত যাজিকা: একজন দেমেতেরকে ও আরেকজন পার্সিফোনকে সেবা করতেন।
  6. প্যানাজেইস ('পবিত্র') বা মেলিসা ('মৌমাছি'), যাজিকাদের একটি দল যারা পুরুষদের থেকে বিচ্ছিন্ন জীবন কাটাতেন।

হিয়েরোফ্যান্ট, মহাযাজিকা এবং ডাডুকোউসা যাজিকাদের সকলেই আসতেন ফিলেইডি এবং ইউমোলপিডি পরিবার থেকে, এবং হিয়েরোফ্যান্ট ও ডাডুকোউসা যাজিকাদের পদমর্যাদা সমান ছিল।[৪৫] রহস্যবাদের কার্যাদি পরিচালনা করার সময় মহাযাজিকাদেরকে দেবী দেমেতের এবং পার্সিফোনির ভূমিকা পালন করতে হত।

গোপন বিষয়সমূহ[সম্পাদনা]

নীচের রূপরেখাটি কেবল ক্ষুদ্র সারাংশ; এলিউসিনীয় রহস্য সম্পর্কে অনেক মূর্ত তথ্য কখনই লেখা হয়নি। উদাহরণস্বরূপ, কেবল দীক্ষিতরা জানতেন গোপন সিন্দুক কিস্টে -তে, এবং ঢাকনা যুক্ত ঝুড়ি ক্যালাথাসে কী আছে।

খ্রিস্টীয় তৃতীয় শতাব্দীর প্রথম দিকে লিখিত চার্চ পিতাদের একজন রোমের হিপ্পোলিটাস তার "সকল ধর্মদ্রোহিতার খণ্ডন" (Refutation of All Heresies) গ্রন্থে লেখেন, "এথেনীয়রা, এলিউসিনীয় আচারে কাউকে দীক্ষা দেবার সময় এমনভাবে তা করত যেন তাকে এই রহস্যের উচ্চতম স্তরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তাদের সামনে রহস্যবাদটির শক্তিশালী, অপূর্ব ও সবচেয়ে নিখুঁৎ রহস্যবাদী সত্য দান করা হত, যা হল: "শষ্যের একটি মঞ্জরিকে নীরবে কাটা হয়" ("an ear of grain in silence reaped.") । " [৪৬]

ক্ষুদ্রতর রহস্যবাদ[সম্পাদনা]

দুটি এলিউসিনীয় রহস্যবাদ ছিল - বৃহত্তর ও ক্ষুদ্রতর। থমাস টেইলরের মতে, "ক্ষুদ্রতর রহস্যবাদের নাটকীয় প্রদর্শনগুলো শরীরের ভিতরে বশীভূত অবস্থায় আত্মার রহস্যকে প্রতীকায়িত করত, তার ফলে রহস্যবাদী ও জাঁকজমকপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি, ইহকাল ও পরকাল আত্মার আশীর্বাদের মাধ্যমে বস্তুগত প্রকৃতির দূষণ থেকে পবিত্র হবার সময় এবং অবিরাবভাবে বৌদ্ধিক (আধ্যাত্মিক) দর্শনের বাস্তবতায় উন্নীত হবার সময় সেই আত্মার মহত্বকে বুঝতে পারা যায়।" প্লেটোর মতে, "রহস্যবাদটির চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ছিল ... আমাদেরকে সেই নীতিতে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া যেখান থেকে আমরা এসেছি, ... বৌদ্ধিক (আধ্যাত্মিক) শুভত্বের নিখুঁৎ উপভোগ"।[৪৭]

ক্ষুদ্রতর রহস্যবাদটি আরকন ব্যাসিলিয়াস (এথেন্সের প্রশাসন) পরিচালনায় ফেব্রুয়ারি বা মার্চের দিকে শীতকালের মাঝামাঝিতে অ্যাটিক দিনপঞ্জির ৮ম মাস অ্যান্থেস্টেরিয়া মাসে সংঘটিত হত। দীক্ষার জন্য যোগ্য হতে অংশগ্রহণকারীদেরকে দেমেতের ও পারসিফোনের কাছে একটি শূকরছানাকে উৎসর্গ করতে হত, এবং এরপর আচারগতভাবে ইলিসস নদীতে শুদ্ধ হতে হত। ক্ষুদ্রতর রহস্যবাদের অনুষ্ঠান শেষ হবার পর দীক্ষিত বা মিস্টাইগণ (mystai) বৃহত্তর রহস্যবাদে অংশগ্রহণ করার যোগ্য বলে বিবেচিত হত।

বৃহত্তর রহস্য[সম্পাদনা]

কারণ আপনার এথেন্স যেসব চমৎকার এবং ঐশ্বরিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে মানব জীবনে নিয়ে এসেছে এবং অবদান রেখেছে, আমার মতে এগুলোর মধ্যে রহস্যবাদগুলোর চেয়ে ভাল আর কিছুই নয়। কারণ তাদের মাধ্যমে আমরা আমাদের বর্বর এবং অসভ্য জীবনধারা থেকে বের হয়ে শিক্ষিত এবং পরিমার্জিত সভ্যতার অবস্থায় এসেছি; এবং এই অনুষ্ঠানগুলোকে যেকারণে "দীক্ষা" বা "সূচনা" বলা হয়, এর মাধ্যমেই আমরা আমাদের জীবনের সূচনার সত্যতাকে জানতে পারি, এবং আমরা কেবলমাত্র সুখীভাবে জীবনযাপন করতে শিখি না, সেই সাথে আমরা অধিকতর ভাল আশা নিয়ে মরতেও পারি।

সিসেরো, আইন ২, ১৪, ৩৬ (Laws II, xiv, 36)

বৃহত্তর রহস্যবাদ গ্রীষ্মকালের শেষে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের দিকে অ্যাটিক দিনপঞ্জির বিড্রোমিয়ন মাসে অনুষ্ঠিত হত, এবং ১০ দিন ধরে চলত।

প্রথম কার্যটি ছিল বিড্রোমিয়ন মাসের ১৪শ দিনে এলিউসিস থেকে এথেন্সের অ্যাক্রোপলিসের মন্দির এলিউসিনিয়নে পবিত্র বস্তুগুলো নিয়ে আসা।

বিড্রোমিয়নের ১৫শ দিনকে অ্যাগ্রিমস (জনসমাবেশ) বলা হত, সেদিনে হিয়েরোফ্যান্টেস যাজকগণ প্রোরেসিস (prorrhesis) নামক অনুষ্ঠান করত, এবং হিয়েরা-ডিউরো (শিকারকে এখানে আনো) নামক বলিদানের কার্য সম্পন্ন করত।

সমুদ্রাভিমুখে যাওয়া দীক্ষিতরা (halade mystai) পুরোহিতদের সাথে এথেন্স থেকে বিড্রোমিয়নের ১৬শ দিনে যাত্রা শুরু করে এবং ফ্যালেরামে গিয়ে সাগরে নিজেদের শরীর ধৌত করে।

১৭শ দিনে, অংশগ্রহণকারীগণ এপিডরিয়া (Epidauria) নামক উৎসবটির সূচনা করে, এই উৎসবটি অনুষ্ঠিত হয় চিকিৎসার দেবতা অ্যাসক্লেপিয়াসকে ভিত্তি করে, এবং এপিডরাসে প্রতিষ্ঠিত তার প্রধান মন্দির (স্যাংকচুয়ারি) এর নামে এই উৎসবের নামকরণ করা হয়েছে এপিডরিয়া।

এই "উৎসবের মধ্যে উৎসবটি" উদযাপন করা হয় এথেন্সে অ্যাসক্লোপিয়াসের তার কন্যা হাইজিয়াকে সাথে নিয়ে আসার পুরাণকে কেন্দ্র করে, এবং এই উৎসবে এলিউসিয়নের দিকে একটি মিছিল বের হয়, যে সময় দীক্ষাপ্রাপ্তরা বাসায় অবস্থান করেন (ত্যাগ স্বীকার), এবং সারারাত ধরে উৎসব চলে যা প্যানিকিস (pannykhís) নামে পরিচতি ছিল।[৪৮]

১৮শ দিনে কেরামেইকস (এথেনীয় সমাধিস্থল) থেকে এথেন্স থেকে এলিউসিসগামী ২১ কিলোমিটারের হিয়েরা হোডস (Hierá Hodós) বা পবিত্র রাস্তা ধরে মানুষ এলিউসিসের দিকে ব্রাকই নামক শাখা দোলাতে দোলাতে যাত্রা শুরু করে। একটি নির্দিষ্ট স্থানে তারা ইয়াম্বে (বা বাউবো) এর স্মৃতিতে অশ্লীল কৌতুক ও অশ্লীল শব্দে চিৎকার করতে থাকে, যা কন্যাহারা দুঃখী দেমেতেরের মুখে হাসি ফুটিয়েছিল। এই মিছিলে "ইয়াক্‌চ্‌, ও ইয়াক্‌চে!" (Íakch', O Íakche!) বলেও চিৎকার করা হয়, যা সম্ভবত ডায়োনিসাসের বিশেষণ বা আলাদা দেবতা পার্সিফোন বা দেমেতেরের পুত্র ইয়াকাসকে নির্দেশ করে চিৎকার করা হয়।[৪৯]

মাইলোনাস[৫০] ও কেরেনির[৫১] মতে এলিউসিসে পৌঁছানোর পর সারারাত ধরে জেগে প্যানিকিস (pannychis) অনুষ্ঠান পালন করা হয়। হয়তো এটি দেমেতেরের পার্সিফোনকে অনুসন্ধানকে স্মরণ অরেই করা হয়।

এক পর্যায়ে, দীক্ষাপ্রাপ্তদেরকে বিশেষ পানীয় কাইকিয়ন পান করানো হয়, যা বারলি ও পেনিরয়াল বা মেনথা পিউলেজিয়াম দ্বারা তৈরি। এই পানীয় সাইকোট্রপিক (মস্তিষ্কের অবস্থার পরিবর্তনকারী) প্রভাব তৈরি করত বলে ধারণা করা হয়।

টেলিস্টেরিয়নের অভ্যন্তরে[সম্পাদনা]

বিড্রোমিয়নের ১৯শ দিনে, দীক্ষাপ্রাপ্তরা টেলেস্টেরিয়ন নামক একটি বৃহৎ হলে প্রবেশ করে; এর কেন্দ্রে অ্যানাকটরন (Anaktoron) বা প্রাসাদ অবস্থিত যেখানে কেবল হিয়েরোফ্যান্টগণই প্রবেশ করতে পারেন, এবং যেখানে পবিত্র বস্তুসমূহকে রাখা হয়। মিস্টাইগণ টেলেস্টেরিয়নে প্রবেশ করার পূর্বে আবৃত্তি করে, "আমি উপবাস করেছি,আ মি কাইকিয়ন পান করেছি, আমি কিস্তে (বাক্স) থেকে গ্রহণ করেছি এবং কাজ করার পর তা আমি ক্যালাথাসে (মুক্ত ঝুড়ি) রেখে দিয়েছি।"[৫২]

এটি বহুলভাবে সমর্থিত যে, টেলেস্টেরিয়নের ভেতর তিনটি উপাদান থাকত:

  1. ড্রোমেনা (যা যা করা হত), দেমেতার বা পার্সিফোনের পুরাণের নাটকীয় পুনর্নির্মাণ
  2. ডেইকনুমেনা (যা যা দেখানো হত), পবিত্র বস্তুগুলি প্রদর্শন করা হত, যেখানে হিয়েরোফ্যান্ট একটি অপরিহার্য ভূমিকা পালন করতেন
  3. লেগোমেনা (যা যা বলা হত), ডেইকুমেনার সাথে হওয়া ভাষ্যসমূহ[৫৩]

সম্মিলিতভাবে, এই তিনটি উপাদান অ্যাপোরেতা (Aporrheta) (অপুনরাবৃত্তিযোগ্য) নামে পরিচিত ছিল; এগুলো প্রকাশ করার শাস্তি ছিল মৃত্যু।

এথেন্সের অ্যাথেনাগোরাস, সিসেরো এবং অন্যান্য প্রাচীন লেখকগণ লেখেন, এই অপরাধের জন্য মেলসের ডায়াগোরাসকে এথেন্সে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়;[৫৪] [৫৫] বিয়োগান্তক নাট্যরচয়িতা ঈস্কাইলাস তার কিছু নাটকের জন্য এই রহস্যবাদের কিছু গোপনীয়তা প্রকাশ করেছিলেন বলে তাকে অভিযুক্ত করা হয়, কিন্তু তাকে মুক্তি দেয়া হয়।[৫৬] রহস্যবাদটির এই কেন্দ্রীয় আচার প্রকাশে নিষেধাজ্ঞাটি চূড়ান্ত ছিল, যে কারণে সম্ভবত সেখানে কী ঘটেছিল সে বিষয়ে প্রায় কিছুই জানিনা।

চূড়ান্ত পর্যায়

এই রহস্যবাদের চূড়ান্ত পর্যায় নিয়ে দুটো আধুনিক তত্ত্ব রয়েছে।

কারও কারও মতে কেবল যাজকগণই পবিত্র রাতের দৃশ্যগুলোকে প্রকাশ করতে পারতেন, যেখানে মৃত্যুর পর জীবনের সম্ভাবনাকে প্রতিনিধিত্ব করা অগ্নি ও বিভিন্ন পবিত্র বস্তু ছিল।অন্যরা এই রহস্যবাদের ক্ষমতা ও এতদিন ধরে টিকে থাকার পেছনে কেবলমাত্র এই ব্যাখ্যাকে যথেষ্ট বলে মনে করেন না, তাদের মতে এই অভিজ্ঞতাগুলো অবশ্যই অভ্যন্তরীন ছিল, এবং কাইকিয়ন পানীয়ে শক্তিশালী মস্তিষ্ক পরিবর্তনকারী বা সাইকোএক্টিভ উপাদানের মাধ্যমে সেইসব অভিজ্ঞতা তৈরি করা হত (নিচে এনথিওজেনিক তত্ত্ব দেখুন)।

রহস্যবাদের এই বিভাগে সারারাত ধরে চলা অনুষ্ঠান বা ভোজনপ্যানিকিস ছিল[৫৭], যেখানে নৃত্য ও বিনোদনের ব্যবস্থা রাখা হত। নৃত্যগুলি রারীয় মাঠে (Rharian field) অনুষ্ঠিত হত, যা প্রথম ফসল জন্মানোর স্থান ছিল বলে মনে করা হত। এই রাতের শেষে বা পরের দিন সকালের প্রথমে একটি ষাঁড়কে বলি দেয়া হয়। সেদিন (২২শ বিড্রোমিয়ন) দীক্ষাপ্রাপ্তগণ বিশেষ পাত্র থেকে তর্পন বা লাইবেশন ঢেলে মৃতদেরকে সম্মান জানাতো।

বোয়েড্রোমিয়নের ২৩শ তারিখে, রহস্যবাদের সমাপ্তি ঘটত ও সকলে বাড়িতে ফিরে যেত।[৫৮]

পতন[সম্পাদনা]

১৭০ খ্রিস্টাব্দে দেমেতেরের মন্দিরকে সারমেশীয়রা ধ্বংস করে, কিন্তু মার্কাস অরেলিয়াস এর পুনর্নির্মাণ করেন। এরপরে অরেলিয়াসকে প্রথম কোন সাধারণ মানুষ হিসেবে আনাকটরনে প্রবেশ করতে দেয়া হয়। খ্রিস্টীয় ৪র্থ এবং ৫ম শতাব্দীতে খ্রিস্টধর্ম জনপ্রিয়তা লাভ করতে থাকার সাথে সাথে এলিউসিসের মর্যাদার পতন শুরু হয়। রোমের শেষ পৌত্তলিক সম্রাট জুলিয়ান প্রায় পঞ্চাশ বছর খ্রিস্টীয় শাসনের পর ৩৬১ থেকে ৩৬৩ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত শাসন করেন। জুলিয়ান এলিউসিনীয় রহস্যবাদ পুনঃস্থাপন করার চেষ্টা করেন, এবং তিনিই ছিলেন এই রহস্যবাদে দীক্ষাপ্রাপ্ত শেষ সম্রাট।[৫৯]

রোমান সম্রাট প্রথম থিওডোসিয়াস প্রায় ৩০ বছর পরে ৩৯২ খ্রিস্টাব্দে শেষ রোমান সাম্রাজ্যের পৌত্তলিক নির্যাতনের সময় আইন জারি করে সকল মন্দির বন্ধ করে দেন। গথদের রাজা প্রথম অ্যালারিকের অধীনে এরিয়ান খ্রিস্টানরা পুরনো পবিত্র স্থানগুলোকে অপবিত্র করলে এই রহস্যবাদের শেষ অবশিষ্টাংশ বিলুপ্ত হয়ে যায়।[৬০] [৬১] [৬২] গ্রিক দার্শনিকদের জীবনীকার ও ঐতিহাসিক ইউনেপিয়াস চতুর্থ শতাব্দীতে এলিউসিনীয় রহস্যবাদের সমাপ্তির কথা উল্লেখ করেছেন। ইউনেপিয়াস সর্বশেষ বৈধ হিয়েরোফ্যান্টের দ্বারা দীক্ষিত হয়েছিলেন, যিনি সম্রাট জুলিয়ান দ্বারা রহস্যবাদটির পুনপ্রতিষ্ঠার জন্য কমিশনপ্রাপ্ত হয়েছিলেন। পরবর্তীতে রহস্যবাদটির পতন ঘটে। ইউনাপিয়াসের মতে শেষ হিয়েরোফ্যান্ট একজন দখলদার ছিলেন, "তিনি থেস্পিয়াই এর লোক ছিলেন, এবং মিথ্রাসের রহস্যবাদের পুরোহিত ছিলেন।"

ঐতিহাসিক হ্যানস ক্লফটের মতে, এলিউসিনিয়ান রহস্যবাদের ধ্বংস হওয়া সত্ত্বেও, গ্রীক পল্লীতে এই সম্প্রদায়ের উপাদানগুলি টিকে ছিল। সেখানে দেমেতেরের অনুষ্ঠান ও ধর্মীয় কর্তব্যগুলো কৃষক ও রাখাল সম্প্রদায়ের মধ্য দিয়ে আংশিকভাবে সেইন্ট থেসালোনিকির দেমেত্রিয়াসে (সেইন্ট দেমেত্রিয়াস অফ থেসালোনিকি) স্থানান্তরিত হয়, যিনি ধীরে ধীরে কৃষির স্থানীয় পৃষ্ঠপোষক এবং পৌত্তলিক মাতৃদেবীর "উত্তরাধিকারীতে" পরিণত হন।[৬১]

শিল্প, সাহিত্য এবং সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

হাইনরিক সিয়েমিরাজকি: ফ্রাইনি ইন এলিউসিয়াস (১৮৮৯)

অনেক চিত্রকর্ম এবং মৃৎশিল্পের কাজ রয়েছে যা রহস্যবাদগুলোর বিভিন্ন দিককে চিত্রিত করে। ন্যাশনাল আর্কিওলজিকাল মিউজিয়াম অফ এথেন্সে প্রদর্শিত খ্রিস্টপূর্ব পঞ্চম শতাব্দীর শেষের দিকের এলিউসিনীয় রিলিফ তাদের মধ্যে একটি। সেখানে ট্রিপলেলেমাসকে দেমেতেরের কাছ থেকে বীজ গ্রহণ করতে এবং মানবজাতিকে ফসল ফলানোর জন্য কীভাবে ক্ষেত্রের কাজ করতে হবে তা শেখানো হচ্ছে, পার্সিফোন সেখানে তার মায়ের হাত ধরে আছেন এবং ট্রিপ্টোলেমাসের মাথায় হাত রেখেছেন তাকে রক্ষা করার জন্য।[৬৩] খ্রিস্টপূর্ব ৬ষ্ঠ থেকে ৪র্থ শতকের ফুলদানি এবং অন্যান্য রিলিফ ভাস্কর্যে ট্রিপ্টোলেমাসকে শস্যের মঞ্জরি ধরে থাকতে, ডানাযুক্ত সিংহাসন বা রথে বসে থাকতে, পার্সিফোন ও দেমেতের সহ পাইন মশাল দ্বারা ঘেরা অবস্থায় দেখা যায়।

খ্রিস্টপূর্ব ৭ম শতাব্দীর মধ্যভাগ এর প্রত্ন-অ্যাতিক স্মারক অ্যাম্ফোরার (মনুমেন্টাল প্রোটো-অ্যাটিক অ্যাম্ফোরা) ঘাড়ে (উপরের অংশ) পার্সিয়াসের দ্বারা মেডুসার শিরোশ্ছেদ এবং ওডিসিয়াসের দ্বারা পলিফেমসকে অন্ধ করা অঙ্কিত রয়েছে, এটি আর্কিওলজিকাল মিউজিয়াম অফ এলিউসিসে সংরক্ষিত রয়েছে যা এলিউসিসের প্রত্নস্থলে অবস্থিত।

একই জাদুঘরে নিনোয়ান ফলক পাওয়া যায় যেখানে দেমেতের ও তার সাথে পার্সিফোন ও ইয়াকাসকে চিত্রিত করা হয়েছে। তারপরে সেখানে দেখা যায়, দেমেতের কিস্তে এর উপর বসে আছেন এবং পার্সিফোন মশাল নিয়ে দীক্ষাপ্রাপ্তদেরকে তার সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন। দীক্ষাপ্রাপ্তদের প্রত্যেকে একটি করে ব্রাকই বা শাখা ধরে আছে। দীক্ষাপ্রাপ্তদের দ্বিতীয় সারির নেতৃত্ব দিচ্ছেন যাজক ইয়াকস, যিনি এই অনুষ্ঠানের জন্য মশাল ধরে আছেন। তিনি ওম্ফালসের (প্রাচীন গ্রিসের ধর্মীয় পাথর বা নিদর্শন) পাশে দাঁড়িয়ে আছেন এবং তার পাশে একজন অজানা নারী (সম্ভবত দেমেতেরের যাজিকা) কিস্টের উপর বসে আছেন, এই নারী হাতে একটি রাজদণ্ড (স্কেপ্টার) ও কাইকিয়নে পূর্ণ একটি পাত্র ধরে আছেন। প্যানিকিস অনুষ্ঠানও এখানে দেখানো হয়।

শেক্সপীয়ার এর দ্য টেম্পেস্ট-এ দেখা যায় মিরান্ডা ও ফার্দিনান্দের আনুগত্য স্বীকারকে উদযাপন করার জন্য প্রোসপেরো মাস্ক বা মুখোশধারীদের বিনোদন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন, এই আয়োজনে এলিউসিনীয় রহস্যবাদের আভাস পাওয়া যায়, যদিও এখানে দেবদেবীদের গ্রিক নামের বদলে রোমান নাম যেমন সেরেস, আইরিস, ডিস এবং অন্যান্য নাম ব্যবহার করা হয়। মজার বিষয় হচ্ছে, আলকেমিহার্মিসবাদের গুহ্য বৈশিষ্ট্যগুলো নাটকে নেয়ার ক্ষেত্রেও এর মাস্ক পর্বে এলিউসিনীয় রহস্যবাদের বিষয়গুলোকে টেনে আনতে হয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] [ উদ্ধৃতি প্রয়োজন ] কার্ল গুস্তাভ ইয়ং (১৮৭৫-১৯৬১) তার মনোবিশ্লেষণী চিকিৎসাকে দীক্ষা ও পুনর্জন্মভিত্তিক আধ্যাত্মিক অনুষ্ঠানে পুনর্বিন্যস্ত করার জন্য ১৯ শতক ও ২০ শতকের প্রথম দিকের জার্মান ও ফ্রান্সের সনাতন পাণ্ডিত্য থেকে বিভিন্ন শব্দ ও ব্যাখ্যা ধার করেছিলেন। এলিউসিনীয়বাদী রহস্য, বিশেষ করে দেবী কোরে (পার্সিফোন) এর বৈশিষ্ট্যগুলো তার রচনাসমূহে বিশেষভাবে চিত্রিত হয়েছে।[৬৪]

দিমিত্রিস লায়াকোসের পোইনা ডাম্নি এর ট্রিলোজি এর দ্বিতীয় গ্রন্থ উইথ দ্য পিপল ফ্রম দ্য স্যাক্রেড ব্রিজ গ্রন্থটি একটি সমসাময়িক, আভাঁ গার্দ নাটক যেখানে সামষ্টিক মুক্তিলাভের ধারণাকে সামনে আনার জন্য মৃতের ফিরে আসা ও রেভেনেন্ট (উপকথা অনুযায়ী যেসব মৃতদেহ জীবিতাবস্থায় ফিরে আসে) এর পুরাণের উপাদানগুলোকে এলিউসীয় রহস্যবাদ ও প্রারম্ভিক খ্রিস্টীয় ঐতিহ্যের সাথে মিশ্রিত করায় মনোনিবেশ করা হয়। রচনাটিতে পাতালপুরীতে মৃতের আবাসস্থল ও পৃথিবীতে তাদের পর্যায়ক্রমিক ফেরত আসাকে নির্দেশ করার জন্য ডালিম বা রক্তবীজের চিহ্নকে ব্যবহার করা হয়। [৬৫]

অ্যাক্টাভিও ভ্যাজকুয়েজের একতানিক কবিতা "এলিউসিস"-এ এলিউসিনীয় রহস্যবাদ এবং পাশ্চাত্য গুহ্য ঐতিহ্যকে (Western esoteric tradition) নিয়ে আসা হয়েছে। সোসিয়েদাদ জেনারেল দে অতোরেস ওয়াই এদিতোরেস এবং আরটিভিই সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা দ্বারা কমিশনপ্রাপ্ত হয়ে ২০১৫ সালে মাদ্রিদের টিয়েট্রো মনুমেন্টালে এটি আরটিভিই অর্কেস্ট্রা এর দ্বারা প্রথম সম্পাদিত হয় এবং অ্যাড্রিয়ান লিপারের দ্বারা প্রথম পরিচালিত হয়।

এনথিওজেনিক তত্ত্ব[সম্পাদনা]

অনেক পণ্ডিত প্রস্তাব করেন যে, এলিউসিনীয় রহস্যবাদের শক্তি এসেছিল কাইকিয়ন থেকে যাকে এনিথিওজেন বা সাইকাডেলিক এজেন্ট হিসেবে ব্যবহার করা হত।[৬৬] যাদুকরী বা ধর্মীয় উদ্দেশ্যে পোশন (potion, যাদুকরী, বিষাক্ত বা চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত তরল মিশ্রণ) বা ফিলট্রেসের (philtres, প্রেম ও কামনা তৈরির জন্য তৈরি পানীয়) ব্যবহার প্রাচীন পৃথিবী ও গ্রিসে সাধারণ ছিল।[৬৭] দীক্ষাপ্রাপ্তদেরকে উপবাসের মাধ্যমে (এই ঔষধের জন্য) সংবেদী করে তোলা হত এবং পরবর্তী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদেরকে প্রস্তুত করা হত (দেখুন সেট এবং সেটিং)। গভীর আধ্যাত্মিক ও বৌদ্ধিক বয়ান শোনানোর মাধ্যমে দীক্ষাপ্রাপ্তদের মনকে উপযোগী করা হত আর তারপর এতে শক্তিশালী সাইকোএক্টিভ বা মানসিক অবস্থার পরিবর্তনকারী ঔষধ প্রয়োগের মাধ্যমে তাদের মধ্যে এই রহস্যবাদের সাথে সম্পর্কিত আধ্যাত্মিক প্রভাবগুলোকে উদ্দীপিত করা হত।[৬৮] অন্যান্য পণ্ডিতরা এই দাবির পেছনে শক্তিশালী সাক্ষ্যপ্রমাণ না থাকায় এই রহস্যবাদের দীক্ষাদানের ক্ষেত্রে ব্যক্তিকেন্দ্রিক বৈশিষ্ট্যের বদলে সামষ্টিক বৈশিষ্ট্যে জোড় দেন।[৬৯] এনথিওজেনিক তত্ত্বের সমর্থনে অপ্রত্যক্ষ সাক্ষ্যপ্রমাণ হল আলকিবিয়াডেসকে একটি গোপন বাড়িতে "এলিউসিনীয় রহস্যবাদে" অংশগ্রহণের জন্য আংশিকভাবে নিন্দা করা হয়েছিল।[৭০]

অনেক সাইকোঅ্যাক্টিভ এজেন্টকে কাইকিয়নের উল্লেখযোগ্য উপাদান হিসেবে প্রস্তাব করা হয়েছে, যদিও কোন ঐকমত্য বা চূড়ান্ত প্রমাণ ছাড়াই তা করা হয়। এরমধ্যে রয়েছে যব বা রাই শস্যের একটি ছত্রাক পরজীবী এরগট, যাতে এলএসডি এবং এরগোনোভিন উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় অ্যালকালয়েড এরগোটামিন থাকে।[৬৮] যাইহোক, আধুনিক এরগট-পরজীবীতে আক্রান্ত যব ব্যবহার করে কাইকিয়ন প্রস্তুতির প্রচেষ্টায় একটি নিষ্পত্তিহীন ফলাফল পাওয়া গেছে, যদিও আলেকজান্ডার শালগিন এবং অ্যান শালগিন বলেছেন এরগনোভিন এবং এলএসএ উভয়ই এলএসডি এর প্রভাবের মত প্রভাব তৈরি করে। [৭১] [৭২]

সাইকোঅ্যাকটিভ মাশরুম হল আরেকটি প্রার্থী।টেরেন্স ম্যাককেনা অনুমান করেন যে রহস্যবাদগুলো বিভিন্ন ধরনের সিলোসাইবি-তে (Psilocybe) মনোনিবেশ করেছিল। এছাড়া অন্যান্য এনথিওজেনিক ছত্রাক, যেমন আমানিতা মাসকারিয়া-কেও (Amanita muscaria) প্রস্তাব করা হয়েছে।[৭৩] একটি সাম্প্রতিক অনুকল্প থেকে জানা যায় যে প্রাচীন মিশরীয়রা যবের উপর সিলোসাইবি কিউবেন্সিস (Psilocybe cubensis) চাষ করত এবং দেবতা ওসিরিসের কাল্টের ক্ষেত্রে একে ব্যবহার করত। [৭৪]

সাইকোঅ্যাকটিভ ঔষধের আরেক প্রার্থী হল পপি থেকে প্রাপ্ত একটি ওপিয়য়েড (আফিক জাতীয়)। দেবী দেমেতেরের কাল্ট হয়তো ক্রিট থেকে এলিউসিসে পপি গাছ নিয়ে এসেছিল, এটা নিশ্চিত যে ক্রিটে আফিম প্রস্তুত হত। [৭৫]

আরেকটি তত্ত্ব হচ্ছে কাইকিয়নের সাইকোঅ্যাক্টিভ এজেন্ট হচ্ছে ডিএমটি, যা ফ্যালারি (Phalaris) এবং/অথবা অ্যাকাসিয়া (Acacia) সহ ভূমধ্যসাগরের অনেক বন্য উদ্ভিদ থেকে তৈরি হয়।[৭৬] মৌখিকভাবে সক্রিয় হতে হলে (যেমন আয়াহুয়াস্কার মত) এটিকে অবশ্যই একটি মনোমাইন অক্সিডেজ ইনহিবিটর যেমন সিরিয়ান রু (Peganum harmala) এর সাথে একত্রিত করতে হবে, যা ভূমধ্যসাগর জুড়ে বেড়ে ওঠে।

অন্যথায়, জে নিগ্রো সানসনিজ (১৯৯৪), মাইলোনাস দ্বারা সরবরাহকৃত পৌরাণিক কাহিনী থেকে অনুকল্পায়ন করেন যে, এলিউসিসের রহস্যবাদ যোগাসনের "সংযমের" মত শ্বাস নিয়ন্ত্রণ দ্বারা প্ররোচিত মানব স্নায়ুতন্ত্রের প্রোপ্রিওসেপশন (শরীরের নড়াচড়ার প্রতি সচেতনতা ও বোধ) এর মধ্য দিয়ে দীক্ষাদানের সময় ভাবসমাধি (Trance) তৈরি করত।[৭৭] সানসোনিজ ধারণা করেন যে হিয়েরোফ্যান্ট কিস্তে নামক যে পবিত্র বস্তু ধারণ করা বাক্সটি উন্মুক্ত করতেন তা আসলে দীক্ষাপ্রাপ্তের করোটির একটি গুহ্য প্রতিনিধি, যেখানে পবিত্র আলো দেখা যেত এবং পবিত্র শব্দ শোনা যেত, কিন্তু এটা কেবল ভাবসমাধির অনুশীলনের নির্দেশনার পরেই হত। একইভাবে, কাল্ট প্রতিষ্ঠার সাথে সংশ্লিষ্ট ফল ডালিমের বীজ ভর্তি কক্ষ, ভাবসমাধি চলাকালীন সময়ে দীক্ষাপ্রাপ্তের হৃদপিণ্ডের প্রোপ্রিয়োসেপশনকেই গুহ্যভাবে বর্ণনা করে।

আধুনিক ধারাবাহিকতা[সম্পাদনা]

১৯৮৫ সাল থেকে, অ্যাকোয়ারিয়ান টাবারনাকল চার্চ বসন্ত রহস্য উৎসব হিসাবে এলিউসিনীয় রহস্যবাদের একটি আধুনিক ধারাবাহিকতা সঞ্চালিত করে আসছে। এই রহস্যবাদগুলো প্রতি বছর দেমেতের এবং পার্সিফোনের সম্মানে অনুষ্ঠিত হয়, এর মাধ্যমে লুকানো জ্ঞান অন্বেষণের দৃষ্টিকোণ থেকে সার্বজনীন ধারণা এবং সত্য অন্বেষণ করা হয়।

এটি প্রতি বছর ইস্টার এর সপ্তাহান্তে এটি অনুষ্ঠিত হয়। আধুনিক যুগে এটি প্রথম ১৯৮৫ সালেই অনুষ্ঠিত হয়।[৭৮]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Encyclopædia Britannica
  2. Martin P. Nilsson, Vol I, p. 470
  3. Dietrich (1975) The origins of Greek Religion. Bristol Phoenix Press pp. 166, 167
  4. Walter Burkert. (1985)Greek Religion. Harvard University Press. p. 285
  5. Ouvaroff, M. (alternatively given as Sergei Semenovich Uvarov, or Sergey Uvarov, 1786–1855) (Translated from the French by J. D. Price) Essay on the Mysteries of Eleusis, London : Rodwell and Martin, 1817 (Reprint: United States: Kessinger Publishing, 2004). Ouvaroff does write that fixing the earliest foundation date to the Eleusinian Mysteries is fraught with problems.
  6. Tripolitis, Antonia. Religions of the Hellenistic-Roman Age. Wm. B. Eerdmans Publishing Company, November 2001. pp. 16–21.
  7. Wasson, R. Gordon, Ruck, Carl, Hofmann, A., The Road to Eleusis: Unveiling the Secret of the Mysteries. Harcourt, Brace, Jovanovich, 1978.
  8. Elysion: The island of the happy dead (Hesiod: Works and days 166ff.).Eileithyia. A Minoan goddess of childbirth and divine midwifery: F.Schachermeyer(1967). Die Minoische Kultur des alten Kreta. W. Kohlhammer Stuttgart. pp. 141–142
  9. " Cretan dialect 'Eleuthia' would connect Eileithyia (or perhaps the goddess "Eleutheria") to Eleusis". Willets, p. 222.
  10. F.Schachermeyer (1967) Die Minoische Kultur des alten Kreta W.Kohlhammer Stuttgart, p. 141
  11. "In Laconia there is a temple of Demeter Eleusinia. The name was used very early, and cannot be an influence of the goddess of Eleusis": Nilsson, Vol I, pp.313-314
  12. "Henry George Liddell, Robert Scott, A Greek-English Lexicon, μυστήρι-ον"tufts.edu 
  13. "Henry George Liddell, Robert Scott, A Greek-English Lexicon, μυ^έω"tufts.edu 
  14. "Henry George Liddell, Robert Scott, A Greek-English Lexicon, μύστης"tufts.edu 
  15. "Henry George Liddell, Robert Scott, A Greek-English Lexicon, μυστικός"tufts.edu 
  16. Foley, Helene P., The Homeric "Hymn ro Demeter". Princeton University Press 1994. Also Vaughn, Steck. Demeter and Persephone. Steck Vaughn Publishing, June 1994
  17. Smith, William. A New Classical Dictionary of Greek and Roman Biography, Mythology and Geography Vol. II. Kessinger Publishing, LLC 2006.
  18. The Homeric Hymns translated by Jules Cashford, Penguin Books, 2003, p. 24.
  19. Similar ideas appear in many ancient agricultural societies: in the cult of Adonis in Phoenicia, the cult of Osiris in Egypt and the cult of Ariadne in Minoan Crete. Also in China: "There in the buried seed, the end of life is connected with a new beginning": The I Ching or book of changes, transl. Richard Wilhelm p.45
  20. Smith, 2006.
  21. Greene, William C. "The Return of Persephone". Classical Philology. University of Chicago Press 1946. pp. 105–106
  22. Nilsson, Vol I, p.470
  23. Nilsson, Vol I, pp. 474,475
  24. Nilsson, Martin P. Greek Popular Religion "The Religion of Eleusis" New York: Columbia University Press, 1947. pages 42–64
  25. Newton, Joseph Fort.The Builders p.24
  26. Kerenyi (1976), Dionysos. Archetypal image of indestructible life p.79
  27. Kerenyi, 1976 p.23
  28. " Persephone is probably the unnamable mistress of the labyrinth (Mycenean (Linear B) inscription : da-pu-ri-to-jo po-ti-ni-ja) " : Karl Kerenyi.Dionysos.Archetypal image of indestructible life.p 89,90.
  29. Burkert: Greek religion p.285
  30. Pausanias, 8.37.9
  31. Mycenean (Linear B) inscription :E-ne-si-da-o-ne
  32. Dietrich The origins of Greek Religion pp. 220, 221
  33. Pseudo Apollodorus Biblioteca IV.2
  34. Kevin Klinton (1993), Greek Sanctuaries: New Approaches, Routledge, p. 11
  35. Nilsson, Greek popular religion p.51
  36. Burkert(1985) p.285
  37. Wunderlich 1972 The secret of Creta p. 134
  38. Mylonas, George E. (১৯৬৬)। Mycenae and the Mycenaean Age। পৃষ্ঠা 159আইএসবিএন 978-0691035239 
  39. Chadwick: The Mycenean world P.92
  40. Burkert (1985)Greek Religion. Harvard University Press. p.42
  41. Mylonas, George E. "Eleusis and the Eleusinian Mysteries". Princeton University Press 1961, p. 239, 243.
  42. Kerenyi, Carl. Eleusis – Archetypal Image of Mother and Daughter. Bollingen Foundation 1967, p. 48.
  43. Apollodorus, 1.5.2.
  44. Smith, William. A Dictionary of Greek and Roman Antiquities, London, 1875.
  45. Pomeroy, Sarah B, Goddesses, whores, wives, and slaves: women in classical antiquity, Schocken Books, New York, 1995
  46. Hippolytus, Refutation of all Heresies, in ANF, vol. 5; 5, 3
  47. Taylor, p.49.
  48. Clinton, Kevin. "The Epidauria and the Arrival of Asclepius in Athens", in Ancient Greek Cult Practice from the Epigraphical Evidence, edited by R. Hägg. Stockholm, 1994.
  49. Iacchus (Iakchos) has been considered the divine name of the mystic Bacchus at Athens and Eleusis, derived from the boisterous festive song named for him, called Iacchus, and sung during the procession — or the personification of the ritual cry "Íakhe". See Smith, Iacchus; Aristophanes, Frogs 316 ff, 5th or 4th century BC; Plutarch, Life of Alcibiades 34. 3; Herodotus, Histories, 8. 65. 4; Arrian, Anabasis Alexandri, ii. 16; Virgil, Georgics, i. 166; and Plutarch, Themistocles, 15.
  50. Mylonas, G. E., 1961 Eleusis and the Eleusinian Mysteries, p.258
  51. Kerenyi, C. Eleusis: Archetypal Image of Mother and Daughter, p. 62
  52. According to Clement of Alexandria's Exhortation to the Greeks. See Meyer 1999, 18.
  53. See (e.g.) Brisson/Teihnayi 2004, 60
  54. Gagné, Renaud (২০০৯)। "Mystery Inquisitors: Performance, Authority, and Sacrilege at Eleusis" (ইংরেজি ভাষায়): 211–247। আইএসএসএন 0278-6656ডিওআই:10.1525/CA.2009.28.2.211 
  55. Filonik, Jakub (২০১৩)। "Athenian impiety trials: a reappraisal" (ইংরেজি ভাষায়): 46–51। আইএসএসএন 1128-8221ডিওআই:10.13130/1128-8221/4290 
  56. Aristotle, Nicomachean Ethics 1111a8-10.
  57. παννυχίς. Liddell, Henry George; Scott, Robert; পারসিয়াস প্রজেক্টে এ গ্রিক–ইংলিশ লেক্সিকন
  58. Boardman, Griffin, and Murray. The Oxford History of the Classical World. Oxford University Press 1986.
  59. "Eleusis: Pathways to Ancient Myth"। Calvin.edu। ২০১৭-১১-০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৯-১৫ 
  60. Rassias, Vlasis. Demolish Them. (in Greek) Athens 2000.
  61. Kloft (2010), p. 25.
  62. Rassias, Vlasis. Demolish Them. (in Greek) Athens 2000.
  63. "Timeline of Art History: Italian Peninsula, 1000 BC – 1 AD"The Metropolitan Museum of Art। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২৬, ২০০৭ 
  64. Richard Noll। "Mysteria: Jung and the Ancient Mysteries (1994) [uncorrected page proofs of a book cancelled prior to publication due to objections by the Jung family]"academia.edu 
  65. Julie Kovacs, The nightmare continues in With the People from the Bridge. Exercise Bowler, Issue 21, 2015. http://exercisebowler.com/issue21.htm
  66. Wasson, R. Gordon, Ruck, Carl, Hofmann, A., The Road to Eleusis: Unveiling the Secret of the Mysteries. Harcourt, Brace, Jovanovich, 1978.
  67. Collins, Derek. Magic in the Ancient Greek World. Wiley, 2008
  68. Wasson, et al..
  69. Burkert, op.cit. Ch.4
  70. Robin Waterfield,Why Socrates Died, Faber & Faber, 2009, p. 92.
  71. Shulgin & Shulgin. Tihkal. Transform Press, 1997.
  72. "Erowid Ergot Vault"। Erowid.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৯-১৫ 
  73. McKenna.
  74. Stephen R. Berlant (২০০৫)। "The entheomycological origin of Egyptian crowns and the esoteric underpinnings of Egyptian religion"। Journal of Ethnopharmacology: 275–88। ডিওআই:10.1016/j.jep.2005.07.028পিএমআইডি 16199133 
  75. Karl Kerenyi.Dionysos.Archetypal image of indestructible life.p 24
  76. Metzner, Ralph. "The Reunification of the Sacred and the natural". Eleusis Volume VIII, 1997. pp. 3–13
  77. Sansonese, J. Nigro. The Body of Myth. Rochester, 1994, pp. 195–215.
  78. "Archived copy"। ২০১৫-০৯-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-০৩ 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃস্থ সূত্র[সম্পাদনা]