এম এ ওয়াদুদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এম এ ওয়াদুদ
এম এ ওয়াদুদ.jpg
জন্ম১ আগস্ট, ১৯২৫
মৃত্যু২৮ আগস্ট ১৯৮৩
নাগরিকত্ব ব্রিটিশ ভারত
 পাকিস্তান
 বাংলাদেশ
মাতৃশিক্ষায়তনঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ঢাকা কলেজ
উল্লেখযোগ্য কর্ম
ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযোদ্ধ
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
দাম্পত্য সঙ্গীরহিমা ওয়াদুদ
সন্তানদীপু মনি সহ ২ জন
পুরস্কারএকুশে পদক (২০১৩)

এম এ ওয়াদুদ (১ আগস্ট ১৯২৫ – ২৮ আগস্ট ১৯৮৩) বাংলাদেশের একজন রাজনীতিবিদ, ভাষা আন্দোলন কর্মী ও মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন।[১] ভাষা আন্দোলনে অবদানের জন্য ২০১৩ সালে তাকে মরণোত্তর একুশে পদক প্রদান করা হয়।[২][৩]

জন্ম ও পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

এম এ ওয়াদুদ ১৯২৫ সালের ১ আগস্ট চাঁদপুর জেলা রাঢ়ির চর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার দুই সন্তান, একজন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি, অন্যজন জাওয়াদুর রহিম ওয়াদুদ টিপু।[১]

তিনি ঢাকা কলেজে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেন।[৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

এম এ ওয়াদুদ দৈনিক ইত্তেফাকসাপ্তাহিক ইত্তেফাক পত্রিকার সাথে প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে যুক্ত ছিলেন।[১]

ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ[সম্পাদনা]

এম এ ওয়াদুদ একজন ভাষা সৈনিক। তিনি ভাষা আন্দোলনের জন্য কয়েকবার জেল খেটেছেন। তিনি ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্বের অভিযোগে ১৯৪৮, ১৯৫২ ও ১৯৫৪ সালে জেল খেটেছেন। ১৯৪৯ সালে সালে ছাত্র আন্দোলনের নেতৃত্ব দেওয়ার কারণে বঙ্গবন্ধুসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত হন। এছাড়াও তিনি ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ করেছেন।[১]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক জীবনে তিনি আওয়ামী লীগের সদস্য ছিলেন। ১৯৫৩-৫৪ সালে তিনি প্রাদেশিক ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। দুই দুইবার ঢাকা নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও একবার প্রাদেশিক ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক ছিলেন। রাজনৈতিক জীবনে তিনি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীবঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ ছিলেন।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

এম এ ওয়াদুদ ১৯৮৩ সালের ২৮ অক্টোবর মৃত্যুবরণ করেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ভাষাবীর এম এ ওয়াদুদের ৯২তম জন্মবার্ষিকী আজ"জাগোনিউজ২৪.কম। ১ আগস্ট ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জানুয়ারি ২০২২ 
  2. "একুশে পদকপ্রাপ্ত সুধীবৃন্দ" (PDF)সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  3. আবদুল আলীম (২০২০)। ভাষাসংগ্রামী এম এ ওয়াদুদ। বাংলাদেশ: কথাপ্রকাশ। পৃষ্ঠা ১৪৪। 
  4. ড. মো. শাহিনুর রহমান (১ ফেব্রুয়ারি ২০২১)। "ভাষাসংগ্রামী এম এ ওয়াদুদ"দৈনিক ইত্তেফাক। ৩০ জানুয়ারি ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জানুয়ারি ২০২২