আর্নল্ড ওয়ারেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আর্নল্ড ওয়ারেন
Arnold Warren c1908.jpg
আনুমানিক ১৯০৮ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে আর্নল্ড ওয়ারেন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআর্নল্ড ওয়ারেন[১]
জন্ম(১৮৭৫-০৪-০২)২ এপ্রিল ১৮৭৫
কডনর, ডার্বিশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু৩ সেপ্টেম্বর ১৯৫১(1951-09-03) (বয়স ৭৬)
কডনর, ইংল্যান্ড
ডাকনামএআর ওয়ারেন
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট
ভূমিকাফাস্ট বোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৪৩)
৩ জুলাই ১৯০৫ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৮৯৭ - ১৯২০ডার্বিশায়ার
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২৫৫
রানের সংখ্যা ৫,৫০৭
ব্যাটিং গড় ৭.০০ ১৩.৭৩
১০০/৫০ ০/০ ১/১১
সর্বোচ্চ রান ১২৩
বল করেছে ২৩৬ ৪২,৯৪২
উইকেট ৯৩৯
বোলিং গড় ১৮.৮৩ ২৪.৫৫
ইনিংসে ৫ উইকেট ৭২
ম্যাচে ১০ উইকেট ১৫
সেরা বোলিং ৫/৫৭ ৮/৬৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/০ ১৯৫/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২২ অক্টোবর ২০১৯
ফুটবল খেলোয়াড়ী জীবন
Arnold Warren 1902.jpg
১৯০২ সালে ব্রেন্টফোর্ডে অবস্থানকালীন আর্নল্ড ওয়ারেনের স্থিরচিত্র
মাঠে অবস্থান আউটসাইড রাইট
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
হিনর টাউন
রিপলি অ্যাথলেটিক
১৮৯৯ গ্লোসপ (০)
রিপলি অ্যাথলেটিক
১৯০১ ডার্বি কাউন্টি (২)
১৯০২ - ১৯০৩ ব্রেন্টফোর্ড ১৫ (২)
রিপলি অ্যাথলেটিক
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে।
† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

আর্নল্ড ওয়ারেন (ইংরেজি: Arnold Warren; জন্ম: ২ এপ্রিল, ১৮৭৫ - মৃত্যু: ৩ সেপ্টেম্বর, ১৯৫১) ডার্বিশায়ারের কডনর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও ফুটবলার ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯০৫ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ডার্বিশায়ার দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে ডানহাতে কার্যকরী ব্যাটিংশৈলী প্রদর্শন করেছেন এআর ওয়ারেন নামে পরিচিত আর্নল্ড ওয়ারেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৮৯৭ সাল থেকে ১৯০৫ সাল পর্যন্ত আর্নল্ড ওয়ারেনের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। দীর্ঘদেহী ডানহাতি ফাস্ট বোলার আর্নল্ড ওয়ারেন দীর্ঘ দূরত্ব নিয়ে বোলিং কর্মে অগ্রসর হতেন। দ্রুতিগতিসম্পন্ন বোলার হলেও ক্রিকেটবোদ্ধাদের অনেকেই তার সময়কালের অধিকতর দ্রুতগতির বোলার হিসেবে চিত্রিত করেছেন। দূর্বল কাউন্টি দলে খেলায় তার স্বাভাবিক ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শনে ব্যাঘাতের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাসত্ত্বেও, ১৯০৪ সালে ডার্বিশায়ারের প্রথম বোলার হিসেবে এক মৌসুমে ১০০ উইকেটের সন্ধানে পেয়েছিলেন। সর্বমোট তিনবার এ অর্জনের সাথে স্বীয় নামকে যুক্ত করেছিলেন।

মে, ১৮৯৭ সালে ডার্বিশায়ারের সদস্যরূপে ল্যাঙ্কাশায়ারের বিপক্ষে অভিষেক ঘটে তার।[২] ডার্বিশায়ারে অবস্থানকালে বিলি বেস্টউইকের সাথে বিপজ্জ্বনক ফাস্ট বোলিং জুটি গড়েছিলেন। তবে, খুব কম সময়ই একত্রে বোলিং না করার কারণে তেমন পরিচিতি পাননি।[২] বেস্টউইকের তুলনায় শ্রেয়তর বোলার এবং উন্নততর ব্যাটিং ও ফিল্ডিংয়ের কারণে দুজনের মধ্যে কেবলমাত্র তিনিই ইংল্যান্ডের পক্ষে টেস্ট ক্যাপ লাভ করেছিলেন।

ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি মারমূখী ভঙ্গীমায় অগ্রসর হতেন। নিজ নামের পার্শ্বে একটি শতরানের ইনিংস রয়েছে তার। ১৯১০ সালে ব্ল্যাকওয়েল ওয়ারউইকশায়ারের বিপক্ষে তিন ঘন্টারও কম সময় নিয়ে ১২৩ রানের দূর্দান্ত ইনিংস উপহার দেন। নবম উইকেটে জন চ্যাপম্যানের সাথে ২৮৩ রান তুলেছিলেন তিনি।[২] অদ্যাবধি এ সংগ্রহটি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে বিশ্বরেকর্ড হিসেবে স্বীকৃত।[২]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন আর্নল্ড ওয়ারেন। ৩ জুলাই, ১৯০৫ তারিখে লিডসে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল।

১৯০৫ সালে হেডিংলিতে সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের ৩য় টেস্ট খেলেছিলেন তিনি। দীর্ঘদেহী ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে দীর্ঘ দূরত্ব নিয়ে বোলিংয়ে অগ্রসর হতেন। ড্র হওয়া টেস্ট খেলাটির প্রথম ইনিংসে ৫/৫৭ ও ১/৫৬ পেয়েছিলেন।[৩] অস্ট্রেলিয়ার প্রধান ব্যাটিং মেরুদণ্ড ভেঙে দেন। ভিক্টর ট্রাম্পারের ন্যায় তারকা ব্যাটসম্যানকে উভয় ইনিংসে বিদেয় করলেও আর তাকে ইংল্যান্ড দলে রাখা হয়নি।[২]

ফুটবলে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

১৯০০-এর দশকে ডার্বি কাউন্টির পক্ষে ফুটবল লীগে ও ব্রেন্টফোর্ডের পক্ষে সাউদার্ন লীগে আউটসাইড রাইটে অংশগ্রহণ করেছিলেন।[১][৪][৫] এছাড়াও, হিনর টাউন ও রিপলি অ্যাথলেটিকের পক্ষে লীগ ফুটবলবিহীন খেলায় অংশ নেন।[১] স্থানীয় পানশালায় দাঙ্গা-হাঙ্গামায় জড়িত থাকার অপরাধে ছয় মাসের জন্যে কারাগারে অবস্থান করেন। এরফলে, ব্রেন্টফোর্ডের খেলোয়াড়ী জীবনের সমাপ্তি ঘটে।[৪]

বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

৪০ বছর অতিক্রান্ত হবার পরও সেনাবাহিনীতে যোগ্যতা না থাকায় মিথ্যের আশ্রয় নিয়ে বয়স গোপন করে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন রয়্যাল গ্যারিসন আর্টিলারিতে অন্তর্ভূক্ত হন।[২] ১৯১৭ সালে ফ্রান্সে গোলাবর্ষণে তিনি দেহের ঊর্ধ্বাংশে আঘাতপ্রাপ্ত হন। এরপর, ফেব্রুয়ারি, ১৯১৯ সালে তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেয়া হয়।[২] এ পর্যায়ে তিনি ল্যান্স বোম্বার্ডিয়ার পদবী ধারন করেছিলেন।[২]

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ছিলেন তিনি। মেরি নাম্নী এক রমণীর পাণিগ্রহণ করেন। জন ওয়ারেন নামের সন্তান নির্মাণকর্মী ছিলেন। ৩ সেপ্টেম্বর, ১৯৫১ তারিখে ৭৬ বছর বয়সে ডার্বিশায়ারের কডনর এলাকায় দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Joyce, Michael (২০১২)। Football League Players' Records 1888 to 1939। Nottingham: Tony Brown। পৃষ্ঠা 302। আইএসবিএন 190589161X 
  2. "Arnold Warren"www.codnor.info। সংগ্রহের তারিখ ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  3. "3rd Test: England v Australia at Leeds, Jul 3–5, 1905"espncricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১১ 
  4. Haynes, Graham (১৯৯৮)। A-Z Of Bees: Brentford Encyclopaedia। Yore Publications। পৃষ্ঠা 37–38। আইএসবিএন 1 874427 57 7 
  5. White, Eric, সম্পাদক (১৯৮৯)। 100 Years Of Brentford। Brentford FC। পৃষ্ঠা 357। আইএসবিএন 0951526200 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]