আব্দুল মান্নান ওয়াজিরাবাদি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আব্দুল মান্নান ওয়াজিরাবাদি
عبدالمنان وزیر آبادی
অন্য নামউস্তাদ-ই-পাঞ্জাব
ব্যক্তিগত
জন্ম
আব্দুল মান্নান

১৮৫১
ওয়াজিরাবাদ
মৃত্যু১৮ জুলাই ১৯১৬
ওয়াজিরাবাদ
মৃত্যুর কারণসাধারণ মৃত্যু
ধর্মইসলাম
নাগরিকত্বব্রিটিশ ভারতীয়
আখ্যাসুন্নি
ব্যবহারশাস্ত্রসালাফি
ধর্মীয় মতবিশ্বাসআতহারি
অন্য নামউস্তাদ-ই-পাঞ্জাব

মাওলানা হাফিজ আব্দুল মান্নান ওয়াজিরাবাদি[১][২][৩] (আবদুল মান্নান ওয়াজিরাবাদি[৪][৫] বা আব্দুল মানান ওয়াজিরাবাদি[৬]) (উর্দু: عبدالمنان وزیر آبادی; ১৮৫১- ১৮ জুলাই, ১৯১৬) ছিলেন একজন ধর্মীয় পণ্ডিত, আইনবিদ, মুফাসসির এবং মুহাদ্দিস। তিনি তৎকালীন সময়ে হাদিসের একজন সুপরিচিত পণ্ডিত ছিলেন।[৭] তিনি মুহাদ্দিস-ই-পাঞ্জাব বা ওস্তাদ-ই-পাঞ্জাব নামেও পরিচিত।[৮] তিনি আহলে হাদিস আন্দোলনের অন্যতম উল্লেখযোগ্য নেতা ছিলেন।[৬]

প্রাথমিক ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

মান্নান ওয়াজিরাবাদি ১২৬৭ হি. ১৮৫১ সালে পাকিস্তানের ঝিলাম জেলার কারোইলি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।[৩][৯][১০] মান্নান ওয়াজিরাবাদির বয়স যখন ৮ বছর, তখন তিনি কনজাঙ্কটিভাইটিস রোগে আক্রান্ত হন এবং এই রোগের কারণে দৃষ্টিশক্তি হারান।[৯][১১] তার পিতার নাম ছিল মুলক শারফুদ্দিন বিন নূর খান যিনি আওয়ান উপজাতির অন্তর্গত ছিলেন,[১২] যারা প্রধানত পাকিস্তানি পাঞ্জাবের উত্তর, মধ্য ও পশ্চিমাঞ্চলে বসবাস করে। তার পরিবার মূলত গজনির বাসিন্দা ছিল। পরে তারা পাঞ্জাবে চলে যায় এবং কৃষি ক্ষেত্রে কাজ শুরু করে।[১২] মান্নানের বয়স যখন বারো বছর তখন তার বাবা মারা যান।[১২] হাফিজ ওয়াজিরাবাদি তার গ্রামের মৌলভীর কাছ থেকে বাড়িতে কুরআন এবং ফার্সি শিক্ষা শুরু করেন। তিনি উচ্চশিক্ষার জন্য বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছিলেন এবং অবশেষে দিল্লিতে সৈয়দ নাজির হুসাইন দেহলভির নিকট এসেছিলেন।

সৈয়দ নাজিরের অধীনে ওয়াজিরাবাদি হাদিস ও কুরআনে তাফসীর শিক্ষা সম্পন্ন করেন।[৯] দিল্লিতে অবস্থানকালে তিনি দারুল উলুম দেওবন্দের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ কাসেম নানুতুবি এবং অন্যান্য বিশিষ্ট পণ্ডিতদের সাথেও সাক্ষাৎ করেন।[৯]

হাদিসের শিক্ষা শেষ করে তিনি অমৃতসরে মাওলানা আবদুল্লাহ গজনভীর কাছে চলে আসেন। মাওলানা গজনভী মান্নান ওয়াজিরাবাদিকে হাদীসের গভীর শিক্ষা দান করেন। কিছুদিন অবস্থান শেষে তিনি আবার ওয়াজিরাবাদে ফিরে আসেন। যেখানে তিনি মৃত্যুর আগ-পর্যন্ত অবস্থান করেন।[৯]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

মান্নান ওয়াজিরাবাদি ১৬ রমজান ১৩৩৪, ১৮ জুলাই ১৯১৬ সালে ওয়াজিরাবাদে মারা যান। তাকে ওয়াজিরাবাদ শিয়ালকোট রোডের কাছে চৌরঙ্গী কবরস্থানে সমাধিস্থ করা হয়েছে। তার মৃত্যুতে সানাউল্লাহ অমৃতসরী বলেছিলেন যে, আজ আরেকজন ইমাম বুখারি মারা গেছেন।[৯]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Kokoschka, Alina; Krawietz, Birgit; Tamer, Georges (২০১৩)। Islamic theology, philosophy and law: debating Ibn Taymiyya and Ibn Qayyim al-Jawziyyaআইএসবিএন 978-3-11-028540-6ওসিএলসি 865847104 
  2. Nadvī, Abulḥasan ʻAlī (১৯৯৩)। Saviours of Islamic Spirit (ইংরেজি ভাষায়)। Academy of Islamic Research and Publications। 
  3. "Biography of Hafiz Abdul Mannan Wazeerabadi | Umm-Ul-Qura Publications" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১৩ 
  4. History of the Dar Al-Ulum Deoband (ইংরেজি ভাষায়)। Idara-e Ihtemam, Dar al-Ulum। ১৯৮০। 
  5. Khan, Mofakhkhar Hussain (২০০১)। The Holy Qur'ãn in South Asia: A Bio-bibliographic Study of Translations of the Holy Qurʼãn in 23 South Asian Languages (ইংরেজি ভাষায়)। Bibi Akhtar Prakãs̆ani। 
  6. Khan, Hussain Ahmad (২০১৪-১২-১৯)। Artisans, Sufis, Shrines: Colonial Architecture in Nineteenth-Century Punjab (ইংরেজি ভাষায়)। Bloomsbury Publishing। আইএসবিএন 978-1-78673-946-9 
  7. "The man with a mission"Greater Kashmir (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-০৩-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১৩ 
  8. Heath, Deana; Mathur, Chandana (২০১০-১২-২২)। Communalism and Globalization in South Asia and Its Diaspora (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। আইএসবিএন 978-1-136-86787-3 
  9. Shahkar Islami Encyclopedia, Volume 25, Pages 1060-1061
  10. Ustad-e-Punjab page 112
  11. Ustad-e-Punjab p 42
  12. Ustad-e-Punjab p 41-42