আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আনোয়ার হোসেন মঞ্জু
Anwar Hossain Manju at Rashtrapati Bhavan in New Delhi.jpg
পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়
কাজের মেয়াদ
৩ জানুয়ারি ২০১৮ – ২০১৯
পূর্বসূরীআনিসুল ইসলাম মাহমুদ
পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়
কাজের মেয়াদ
১২ জানুয়ারি ২০১৪ – ৩ জানুয়ারি ২০১৮
প্রধানমন্ত্রীশেখ হাসিনা
উত্তরসূরীআনিসুল ইসলাম মাহমুদ
যোগাযোগ মন্ত্রণালয়
কাজের মেয়াদ
২৩ জুন ১৯৯৬ – ১৫ জুলাই ২০০১
প্রধানমন্ত্রীশেখ হাসিনা
পূর্বসূরীআবদুল মতিন চৌধুরী
উত্তরসূরীনাজমুল হুদা
কাজের মেয়াদ
২৭ মার্চ ১৯৮৮ – ৬ অক্টোবর ১৯৯০
রাষ্ট্রপতিহুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ
পূর্বসূরীএম মতিউর রহমান
উত্তরসূরীঅলি আহমেদ
জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়
কাজের মেয়াদ
১৯৮৫ – ১৯৮৮
রাষ্ট্রপতিহুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ
পিরোজপুর-২ আসনের সাংসদ
কাজের মেয়াদ
১৯৮৬ – ১৯৮৮
পূর্বসূরীশাহ আলম
পিরোজপুর-৩ আসনের সাংসদ
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১৯৮৮-ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬

২০০১-২০০৬

২০১৪-চলমান
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1944-01-01) ১ জানুয়ারি ১৯৪৪ (বয়স ৭৬)
পিরোজপুর জেলা, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
(বর্তমান বাংলাদেশ)
নাগরিকত্বব্রিটিশ ভারত (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত)
পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ
রাজনৈতিক দলজাতীয় পার্টি (মঞ্জু)
জাতীয় পার্টি (এরশাদ)(১৯৯৬ সালের সালের পূর্বে)
প্রাক্তন শিক্ষার্থীজর্জটাউন ইউনিভার্সিটি
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু (জন্ম ১ জানুয়ারি ১৯৪৪) একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক, যিনি পিরোজপুর ২ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য এবং সাবেক পানিসম্পদ মন্ত্রী। এর পূর্বে তিনি আরও দুবার দুটি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী (যোগাযোগ মন্ত্রী ও বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের মন্ত্রী) ছিলেন। তিনি পিরোজপুর জেলার কাউখালী, ভান্ডারিয়া ও জিয়ানগর উপজেলা নিয়ে গঠিত পিরোজপুর ২ আসন[১] থেকে ৬ বারের (১৯৮৬,১৯৮৮, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১, ২০১৪) নির্বাচিত সংসদ সদস্য।

তিনি জাতীয় পার্টি র একটি অংশের নেতা। তার পিতা তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া একজন নামকরা রাজনীতিবিদ এবং দৈনিক ইত্তেফাক এর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। আনোয়ার হোসেন মঞ্জু ১৯৭২-১৯৭৫ সাল পর্যন্ত দৈনিক ইত্তেফাক এর সম্পাদক ছিলেন। তিনি ১৯৯৬-২০০১ সময়কালে আওয়ামী লীগ এর নেতৃত্বাধীন সরকারকে সমর্থন প্রদান করেন এবং সেসময় বাংলাদেশ সরকারের যোগাযোগ মন্ত্রী ছিলেন।

সংবিধান অনুযায়ী দশম জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে ৩ জানুয়ারী ২০১৯ তারিখে একাদশ সংসদের সংসদ সদস্য হিসেবে তিনি শপথবাক্য পাঠ করেন।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "EC BD" (PDF)। ১৬ জুন ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "শপথ নিলেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা"www.prothomalo.com। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৯