ফেরেশতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ফিরিশতা বা ফেরেশতা(ইংরেজি: Angels) ইসলামী বিশ্বাসমতে স্বর্গীয় দূত। এরা মানুষের ন্যায় ঈশ্বরের বা আল্লাহর আরেক সৃষ্টি। আরবিতে ফেরেশতাদের একবচনে মালাইক ও বহুবচনে মালাক বলে। ফেরেশতারা নভোমণ্ডল ও ভূমণ্ডলের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করেন। তারা সর্বদা ও সর্বত্র আল্লাহ্‌র উপাসনায় রত এবং আল্লাহর অবাধ্য হবার কোনো ক্ষমতা তাদের নেই। ফেরেশতারা নূর তথা আলোর তৈরি। রূহানিক জীব বলে তারা খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ করেন না। তারা সুগন্ধের অভিলাষী এবং পবিত্র স্থানে অবস্থান করেন। তারা যেকোনো স্থানে গমনাগমন ও আকৃতি পরিবর্তনের ক্ষমতা রাখেন। ইসলাম, খ্রিস্টান ও ইহুদী ধর্ম ছাড়া হিন্দু ধর্মেও ফেরেশতা তথা স্বর্গীয় দূতদের অস্তিত্ত্বের কথা বলা হয়েছে।

শ্রেণীবিন্যাস[সম্পাদনা]

ফেরেশতাদের সংখ্যা অগণিত। কোনো কোনো ইসলামী চিন্তাবিদ কাজের উপর ভিত্তি করে ফেরেশতাদের চৌদ্দটি শ্রেণীতে ভাগ করে থাকেন। যাদের মধ্যে চারজন উচ্চমর্যাদার ফেরেশতা বলা হয়ে থাকে।

  1. হামালাত আল-আরশ: যেসমস্ত ফেরেশতা আল্লাহর আরশ ধরে রাখে।
  2. জিবরাইল [আ.]: আল্লাহর দূত ও সর্বশ্রেষ্ঠ ফেরেশতা। এই ফেরেশতার নাম তিনবার, ইসলাম ধর্মের ধর্মগ্রন্থ কুরআন শরীফে উল্লেখ করা হয়েছে (সূরা ২:৯৭; ৯৮, ৬৬:৪)। সূরা ১৬:১০২ আয়াতে জিবরাইল ফেরেশতাকে পাকরূহ বা রুহুল কুদুস বলা হয়েছে। আল্লাহর আদেশ-নিষেধ এবং সংবাদ আদান-প্রদান যেসব ফেরেশতার দায়িত্ব, জিব্রাইল তাদের প্রধান। জিব্রাইল-ই আল্লাহর নবীদের বা বাণীবাহকদের কাছে গমনাগমন করেন।
  3. মিকাইল [আ.]: কুরআনের ২:৯৭ আয়াতে এই ফেরেশতার নাম উল্লেখ করা হয়েছে। ইনি বৃষ্টি ও খাদ্য উৎপাদনের দায়িত্বপ্রাপ্ত।
  4. ইসরাফিল [আ.]:এই ফেরেস্তা কিয়ামত বা বিশ্বপ্রলয় ঘোষণা করবেন। তার কথা কুরআন শরীফে বলা না হলেও হাদিসে উল্লেখ করা হয়েছে।
  5. আজরাইল [আ.]: তাকে কুরআনে মালাক আল-মাউত নামে অভিহিত করা হয়েছে। ইনি মৃত্যুর ফেরেশতা ও প্রাণ হরণ করেন।
  6. সাতটি বেহেশতের ফেরেশতাগণ।
  7. হাফাজা বা তত্ত্বাবধায়ক ফেরেশতাগণ।
  8. মুনকার ও নাকীর: কবরে প্রশ্নকারী ফেরেশতাদ্বয়।
  9. দারদায়িল
  10. মালিক: জাহান্নাম বা নরক তত্ত্বাবধানকারী ফেরেশতা।
  11. রেদওয়ান: জান্নাত বা স্বর্গ তত্ত্বাবধানকারী ফেরেশতা।
  12. জাবানিয়া: জাহান্নামে দায়িত্ব পালনকারী ফেরেশতাগণ।
  13. নিয়ম শৃংখলা পালনকারী ফেরেশতাগণ।

এছাড়াও বিশেষ দুজন ফেরেশতা কিরামুন ও কাতিবীন প্রতিজন মানুষের ভালো-মন্দ কাজের হিসাব রাখেন।

আল কুরআনে ফেরেশতাগণ[সম্পাদনা]

  • জিবরাইল [আ.] ও মিকাইল [আ.]-এর নাম আল কুরআনের সুরা বাকারাহ'র ৯৭-৯৮ নং আয়াতে উল্লেখ রয়েছে।
  • মালিক ফেরেশতার নাম ৪৩ নং সূরা আয-যুখরফে ৭৭ নং আয়াতে উল্লেখ আছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]