অ্যাসোসিয়েশন ফুটবল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(ফুটবল (সকার) থেকে ঘুরে এসেছে)
এসোসিয়েশন ফুটবল
Football iu 1996.jpg
১০নং জার্সীধারী আক্রমণভাগের একজন খেলোয়াড় বলকে লাথি মারার মাধ্যমে বিপক্ষের গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে গোলপোস্টে বল ঢুকিয়ে গোল করার চেষ্টা করছে।
ক্রীড়া পরিচালনা সংস্থা ফিফা
উপনাম ফুটবল, সকার, ফুটি, দ্য বিউটিফুল গেম, দি ওয়ার্ল্ড গেম
প্রথম খেলেছেন ঊনবিংশ শতকের মধ্যকালে গ্রেট ব্রিটেন, নটিংহ্যামশায়ার, শেফিল্ড
বৈশিষ্ট্যসমূহ
শারীরিক সংস্পর্শ হ্যাঁ
দলের সদস্য প্রতি দলে ১১ জন
মিশ্রিত লিঙ্গ হ্যাঁ, পৃথক প্রতিযোগিতা
বিভাগ দলীয় খেলা, বল খেলা
সরঞ্জাম ফুটবল
মাঠ ফুটবল মাঠ
অলিম্পিক গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে ১৯০০-১৯২৮
পুণরায় প্রত্যাবর্তন ১৯৩৬ থেকে অদ্যাবধি
পারালিম্পিক না
দেশ বা অঞ্চল বিশ্বব্যাপী

এসোসিয়েশন ফুটবল (ইংরেজি: Association football), সকার বা সহজ ভাষায় ফুটবল একটি দলগত খেলা। তবে, ফুটবল নামেই এটি বৈশ্বিকভাবে ব্যাপক পরিচিত খেলা। কেবলমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডায় খেলাটি সকার নামে পরিচিত। এটি দুই দলের মধ্যে খেলা হয়, যার প্রতিটি দলে ১১ জন করে খেলোয়াড় থাকে। একবিংশ শতকে এসে ফুটবল খেলা দুই শতাধিক দেশের ২৫০ মিলিয়নেরও অধিক খেলোয়াড় খেলে থাকে। এরফলে ফুটবল বিশ্বের সর্বাধিক জনপ্রিয় ও প্রচলিত খেলা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।[১][২][৩][৪]

কোচ[সম্পাদনা]

ফুটবল খেলার স্তর এবং দেশভেদে কোচের ভূমিকা ও দায়িত্ব-কর্তব্যের রূপরেখা ভিন্নতর হতে পারে। যুব ফুটবলে কোচের প্রধান ভূমিকা হচ্ছে খেলোয়াড়দেরকে উদ্বুদ্ধ করা এবং তাদের দক্ষতাকে কাগজে-কলমে দেখিয়ে উত্তরণ ঘটানো। শারীরিক অথবা কৌশলগত উত্তরণের তুলনায় প্রাণবন্তঃ এবং সুন্দর খেলা উপহার দেয়াকে প্রাধান্য দেয়া।[৫] সাম্প্রতিক বছরগুলোয় বিভিন্ন দেশের ক্রীড়া নিয়ন্ত্রণ সংস্থাগুলো তাদের প্রশিক্ষণের ছকে এ সংক্রান্ত প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। কোচদেরকেও খেলোয়াড়দের উন্নয়ন এবং বিজয়ের লক্ষ্যে আনন্দ উপভোগের জন্যে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা অনুসরণ করতে বলেছে।

প্রতিযোগিতামূলক খেলায় তিনি মাঠের বাইরে কৌশলগত কারণে সুবিধাজনক যে-কোন জায়গায় অন্যান্য অতিরিক্ত খেলোয়াড় সহযোগে অবস্থান করতে পারেন; কিন্তু তাঁর ঐ অবস্থান আইন-কানুন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত নয়।[৬]

ঘরোয়া প্রতিযোগিতা[সম্পাদনা]

প্রত্যেক দেশের নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা প্রতি মৌসুমে ঘরোয়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। সাধারণত এতে বেশ কয়েকটি বিভাগ থাকে এবং দলগুলো পুরো মৌসুম জুড়ে খেলার ফলাফলের উপর ভিত্তি করে পয়েন্ট অর্জন করে থাকে। দলগুলোকে একটি তালিকায় তাদের অর্জিত পয়েন্টের ক্রমানুসারে সাজানো হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, দলগুলো প্রতি মৌসুমে তার লীগের অন্য সকল দলের সাথে ঘরের মাঠে এবং প্রতিদ্বন্দ্বীদের মাঠে ম্যাচ খেলে। এরপর মৌসুমের শেষে শীর্ষ দলটিকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়। শীর্ষ কয়েকটি দল এমনকি উপরের বিভাগে খেলার সুযোগও পেতে পারে। অনুরূপভাবে, একেবারে পয়েন্ট তালিকার নিচে মৌসুম শেষ করা কয়েকটি দল নিচের বিভাগে অবনমিত হয়। শীর্ষ এক বা একাধিক দল পরবর্তী মৌসুমে আন্তর্জাতিক ক্লাব প্রতিযোগিতায় খেলার সুযোগও পেতে পারে। এই নিয়মের প্রধান ব্যতিক্রম দেখা যায় লাতিন আমেরিকার কয়েকটি লীগে। বেশিরভাগ দেশেই লীগ ব্যবস্থার সাথে এক বা একাধিক "কাপ" প্রতিযোগিতা যুক্ত থাকে।

কিছু দেশের সর্বোচ্চ বিভাগে বিপুল পারিশ্রমিকে তারকা খেলোয়াড়েরা খেলেন। তেমনি কিছু দেশে এবং নিচু বিভাগের খেলোয়াড়েরা অ-পেশাদার এবং মৌসুমি হয়ে থাকতে পারেন। ইউরোপের শীর্ষ পাঁচটি লীগ হল - প্রিমিয়ার লীগ (ইংল্যান্ড), লা লিগা (স্পেন), সিরি এ (ইতালি), বুন্দেসলিগা (জার্মানি) এবং লিগ ১ (ফ্রান্স)। এই লীগগুলো বিশ্বের বেশিরভাগ শীর্ষ খেলোয়াড়কে আকর্ষণ করে এবং এদের প্রত্যেকটিতে খরচ হয় ৬০০ মিলিয়ন পাউন্ড-স্টার্লিং বা ৭৬৩ মিলিয়ন ইউরো বা ১.১৮৫ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।

রেফারী[সম্পাদনা]

একজন রেফারীর মাধ্যমে ফুটবল খেলা পরিচালিত হয়। তিনি খেলায় মূল কর্তৃপক্ষ হিসেবে যাবতীয় আইন-কানুন প্রয়োগ করেন। দুইজন সহকারী রেফারী বা লাইন্সম্যান এবং কখনো কখনো চতুর্থ রেফারীও তাঁকে খেলায় সহায়তা করে থাকেন। তবে ইউইএফএ ফুটবল প্রতিযোগিতায় ৬জন রেফারী অংশগ্রহণ করেন। দুইজন গোলপোস্টের বাইরে থেকে বলের অবস্থান চিহ্নিত করেন যে তা গোল লাইন অতিক্রম করেছে কি-না (এদেরকে গোললাইন রেফারীও বলা হয়)।

খেলা নির্দিষ্ট সময়ে সমাপণ কিংবা অতিরিক্ত সময় যুক্তকরণ তাঁর দায়িত্ব। মাঠে অবস্থানকালে যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় পরখপূর্বক খেলোয়াড় সংখ্যার সঠিকতা, অতিরিক্ত খেলোয়াড়ের সংশ্লিষ্টতা, ইত্যাদি ঘটনার বিবরণ নোটবহিতে লিপিবদ্ধসহ খেলাশেষে কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবেদন পেশ করেন। এছাড়াও, খেলোয়াড় আহত ও এর গুরুত্বতা অনুধাবনপূর্বক প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। মাঠে তিনি কোন খেলোয়াড়, এমনকি দলীয় কোচকে হলুদ কিংবা লাল কার্ডের প্রয়োগের মাধ্যমে যথাক্রমে সতর্কীকরণ, শাস্তি কিংবা বহিস্কার করতে পারেন।

বিশ্বব্যাপী ফুটবল খেলার মানোন্নয়নে সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী সংস্থা ফিফা ১৭টি আইনের কথা উল্লেখ করেছে। তন্মধ্যে ৫নং ধারার মাধ্যমে খেলা পরিচালনার জন্য রেফারী এবং সহকারী রেফারীর দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে তুলে ধরা হয়েছে।

যথাযথভাবে খেলা পরিচালনার জন্য প্রতিযোগিতা কর্তৃপক্ষ ইচ্ছে করলে রেফারীদের প্যানেল সৃষ্টি করতে পারেন। ২০০৬ সালে বিশ্বকাপে ফুটবলে আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষ ম্যাচ রেফারীকে সাহায্য করার জন্য ৫ম বিচারকের ব্যবস্থা রেখেছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Overview of Soccer"। Encyclopædia Britannica। সংগৃহীত 4 June 2008 
  2. Guttman, Allen (1993)। "The Diffusion of Sports and the Problem of Cultural Imperialism"। in Eric Dunning, Joseph A. Maguire, Robert E. Pearton। The Sports Process: A Comparative and Developmental Approach। Champaign: Human Kinetics। পৃ: 129। আইএসবিএন 0-88011-624-2। সংগৃহীত 26 January 2008। "the game is complex enough not to be invented independently by many preliterate cultures and yet simple enough to become the world's most popular team sport" 
  3. Dunning, Eric (1999)। "The development of soccer as a world game"Sport Matters: Sociological Studies of Sport, Violence and Civilisation। London: Routledge। পৃ: 103। আইএসবিএন 0-415-06413-9। সংগৃহীত 26 January 2008। "During the twentieth century, soccer emerged as the world's most popular team sport" 
  4. Mueller, Robert; Cantu; Van Camp, Steven (1996)। "Team Sports"Catastrophic Injuries in High School and College Sports। Champaign: Human Kinetics। পৃ: 57। আইএসবিএন 0-87322-674-7। সংগৃহীত 26 January 2008। "Soccer is the most popular sport in the world and is an industry worth over US$400 billion world wide. 80% of this is generated in Europe, though its popularity is growing in the United States. It has been estimated that there were 22 million soccer players in the world in the early 1980s, and that number is increasing. In the United States soccer is now a major sport at both the high school and college levels"  একের অধিক |first1= এবং |first= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  5. "Phase 1 – The FUNdamental Phase". Football Association of Ireland. 2009-06-12. Retrieved 2010-12-12.
  6. "Laws of the game (Law 3–Number of Players)". FIFA. Archived from the original on 13 September 2007. Retrieved 24 September 2007.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]