স্কোয়াশ (ক্রীড়া)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
স্কোয়াশ (ক্রীড়া)
Squash court.JPG
ক্রীড়া পরিচালনা সংস্থা বিশ্ব স্কোয়াশ ফেডারেশন
প্রথম খেলেছেন আনুমানিক ১৮৩০
নিবন্ধিত খেলোয়াড় হ্যাঁ
বৈশিষ্ট্যসমূহ
দলের সদস্য একক কিংবা দ্বৈত
বিভাগ র‌্যাকেট ক্রীড়া
সরঞ্জাম স্কোয়াশ বল, স্কোয়াশ র‌্যাকেট
মাঠ ইনডোর অথবা আউটডোর (গ্লাস কোর্ট সহযোগে)
অলিম্পিক না। তবে, ভবিষ্যতে ক্রীড়া বিষয় হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হবার সম্ভাবনা রয়েছে
দেশ বা অঞ্চল বিশ্বব্যাপী

স্কোয়াশ (ইংরেজি: Squash) এক ধরণের উচ্চগতিসম্পন্ন র‌্যাকেট ক্রীড়া। স্বচ্ছ কাঁচের চার-দেয়ালবিশিষ্ট ইনডোর অথবা আউটডোর কোর্টে দুইজন খেলোয়াড় র‌্যাকেট ও বল নিয়ে একে-অপরের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় লিপ্ত হন। এ খেলাটির মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে সম্মুখের দেয়ালে বলকে আঘাত করার মাধ্যমে প্রতিপক্ষীয় খেলোয়াড়কে পাশ কাটিয়ে মেঝেতে দুইবার স্পর্শ করানো অথবা বলকে খেলার বাইরে নিয়ে যাওয়া। এ ক্রীড়াটির উদ্ভব ঘটেছে আনুমানিক ১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে। বিশ্বব্যাপী এ ক্রীড়াটির সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারক প্রতিষ্ঠান হিসেবে রয়েছে বিশ্ব স্কোয়াশ ফেডারেশন

পাকিস্তানের জাহাঙ্গীর খান স্কোয়াশ ক্রীড়ার ইতিহাসে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছেন।[১][২][৩] মালয়েশিয়ার পেনাংয়ে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ও পেশাদার খেলোয়াড় নিকোল ডেভিড বর্তমানে বিশ্বের ১নং প্রমিলা স্কোয়াশ খেলোয়াড়ের মর্যাদা উপভোগ করছেন।

বিবরণ[সম্পাদনা]

একক ক্রীড়ায় দুইজন অথবা দ্বৈত ক্রীড়ায় চারজন খেলোয়াড় স্কোয়াশে অংশগ্রহণ করে থাকেন। অধিকাংশ ব্যক্তিই নরমাকৃতির বল বা ইংলিশ স্কোয়াশ খেলে থাকেন। শক্তবল সহযোগে আমেরিকান স্কোয়াশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিছু অংশে খেলা হয়। নরমবলের তুলনায় শক্তবল বেশ প্রাণবন্ত। এ কারণে খেলার ধরণ ও কৌশল পৃথক হয়ে থাকে।

খেলোয়াড়গণ ক্ষুদ্রাকৃতি রাবার দিয়ে তৈরী স্কোয়াশ বলে র‌্যাকেট দিয়ে আঘাত করেন। বলটিকে অবশ্যই সম্মুখের দেয়ালে নীচের অংশ বা টেলটেলের উপরে কিন্তু ঊর্ধ্বাংশ বা ফ্রন্ট ওয়াল লাইনের নীচে পাঠাতে হবে। এরফলে বলটি পার্শ্ববর্তী ও পিছনের দেয়ালের সীমানার লাল অংশ স্পর্শ করতে পারবে। শুরুতে খেলোয়াড়কে অবশ্যই বলকে সার্ভিস লাইনের উপরে আঘাতের পাশাপাশি সার্ভিস কোর্ট-লাইনের পিছনে পাঠানোর সক্ষমতা অর্জন করতে হবে।

উপকরণাদি[সম্পাদনা]

রাবার দিয়ে তৈরী স্কোয়াশ বলের ব্যাস প্রায় ১.৭৫ ইঞ্চি বা ৪.৪ সেন্টিমিটার। উষ্ণ অবস্থায় এটি বেশ কয়েকবার লাফিয়ে উঠে। আর্দ্রতা, পরিবেশ, খেলার মানের উপর নির্ভর করে বলে বিভিন্ন রংয়ের ফোঁটা দিয়ে চিহ্নিত করা হয়। তন্মধ্যে, অভিজ্ঞদের উপযোগী দুইটি হলুদ রং এবং শিক্ষানবীসদের জন্যে নীল রংয়ের ফোঁটা বলে দেয়া হয়। এছাড়াও, সবুজ কিংবা সাদা ফোঁটার বল গড়পড়তা হয়ে থাকে। তবে, লাল রংয়ের ফোঁটা দিয়ে তৈরী বল বেশ দ্রুতগামী হয়।[৪]

র‌্যাকেট দৈর্ঘ্যে ২৭ ইঞ্চি বা ৬৮.৬ সেন্টিমিটার হয়ে থাকে। এটি প্রায়শঃই টেনিসে ব্যবহৃত র‌্যাকেটের অনুরূপ। তবে এটি অধিকতর হাল্কা ও ছোট হয়। বেশ কয়েকবছর পূর্ব থেকে র‌্যাকেটের মাপ পরিবর্তিত হয়েছে যা বর্তমানে বেশ বড়।

প্রতিযোগিতা[সম্পাদনা]

ব্রিটিশ স্কোয়াশ র‌্যাকেটস অ্যাসোসিয়েশন যা বর্তমানে ইংল্যান্ড স্কোয়াশ ও র‌্যাকেটবল নামে পরিচিত সংস্থাটি ডিসেম্বর, ১৯৩০ সালে প্রথমবারের মতো প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক পদ্ধতিতে ব্রিটিশ ওপেন চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজন করে। এতে চার্লস রিড চ্যাম্পিয়ন হন। কিন্তু ১৯৩১ সালে নিজ মাঠ ও বিদেশে - উভয় স্থানেই ডন বুচারের কাছে পরাজিত হন। ১৯৪৭ সাল থেকে এ প্রতিযোগিতাটি নক-আউটভিত্তিতে পরিচালিত হচ্ছে।

পাকিস্তানের জাহাঙ্গীর খান পুরুষদের স্কোয়াশে একচেটিয়াভাবে প্রায় ২৫ বছর প্রাধান্য বিস্তার করেন। শেষ খেলায় অস্ট্রেলিয়ার রডনি মার্টিনকে ১৫-৫, ১৫-৮ এবং ১৫-১০ পয়েন্টের ব্যবধানে পরাভূত করেন। তাঁকে সর্বকালের সেরা স্কোয়াশ খেলোয়াড় হিসেবে গণ্য করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Greatest player"Squashsite। সংগৃহীত ২ মার্চ ২০১০ 
  2. Jahangir injury hastens final exit, The Independent, 24 September 1992
  3. Jahangir Khan hopes for squash's 2016 Olympic debut, Webindia123.com, 26 August 2008
  4. "Squash Balls". www.squashplayer.co.uk. Retrieved 2011-02-06.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Sports of the World Games program টেমপ্লেট:National Members of the World Squash Federation