হ্যারি কল্ডার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হ্যারি কল্ডার
হ্যারি কল্ডার.jpg
১৯৯৪ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে হ্যারি কল্ডার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামহ্যারি লটন কল্ডার
জন্ম(১৯০১-০১-২৪)২৪ জানুয়ারি ১৯০১
দক্ষিণ আফ্রিকা
মৃত্যু১৫ সেপ্টেম্বর ১৯৯৫(1995-09-15) (বয়স ৯৪)
কেপ টাউন, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাবোলার
সম্পর্কহেনরি কল্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
সারে দ্বিতীয় একাদশ
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা - - - -
রানের সংখ্যা - - - -
ব্যাটিং গড় - - - -
১০০/৫০ -/- -/- -/- -/-
সর্বোচ্চ রান - - - -
বল করেছে - - - -
উইকেট - - - -
বোলিং গড় - - - -
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - - -
সেরা বোলিং -/- -/- -/- -/-
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং -/– -/– -/– -/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৫ জুন ২০১৯

হ্যারি লটন কল্ডার (ইংরেজি: Harry Calder; জন্ম: ২৪ জানুয়ারি, ১৯০১ - মৃত্যু: ১৫ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৫) দক্ষিণ আফ্রিকান বংশোদ্ভূত বিখ্যাত ইংরেজ ক্রিকেট তারকা ছিলেন। বিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালীন ১৭ বছর বয়সে ১৯১৮ সালে উইজডেন কর্তৃক অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটারের সম্মাননা লাভ করেছিলেন হ্যারি কল্ডার[১] ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সম্মাননা লাভ করলেও একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে তিনি কোন প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেননি।

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

তার পিতা হেনরি কল্ডার উনবিংশ শতাব্দীর শেষদিকে ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে হ্যাম্পশায়ার এবং দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে ওয়েস্টার্ন প্রভিন্স ও ইস্টার্ন প্রভিন্সের পক্ষে দশটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়েছিলেন।

১৯১৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে পরিবারের সাথে ইংল্যান্ডে চলে আসেন। সারেভিত্তিক ক্রানলেই স্কুলে পাঁচ বছর পড়াশোনা করেছিলেন। সেখানে বিদ্যালয়ের প্রথম একাদশে অংশ নেন। তন্মধ্যে, তিন বছর দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন। ১৬ বছর বয়সী স্পিন বোলার হ্যারি কল্ডার বিদ্যালয় দলের পক্ষে অনেকগুলো উইকেট লাভে সক্ষমতা দেখান। ফলশ্রুতিতে ১৯১৮ সালে উইজডেন কর্তৃক আরও চারজন বিদ্যালয় বালকের সাথে তাকেও বর্ষসেরা ক্রিকেটারের সম্মাননায় ভূষিত করা হয়। প্রসঙ্গতঃ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন কোনরূপ প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত হয়নি। ১৯১৯ সালেও একইভাবে বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে পাঁচজন বিদ্যালয়ের বালককে মনোনীত করা হয়েছিল। তন্মধ্যে, তিনি সর্বকনিষ্ঠ ছিলেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

কোন প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাননি হ্যারি কল্ডার। তবে, ১৯২০ সালে সারের দ্বিতীয় একাদশের পক্ষে একটি খেলায় অংশ নিয়েছিলেন। স্টাফোর্ডশায়ারের বিপক্ষে ০ ও অপরাজিত ৬ রান তুলেছিলেন। এছাড়াও, চার ওভার বোলিং করে উইকেটবিহীন ছিলেন।[২] ১৯১৮ ও ১৯১৯ সালের বর্ষসেরা ক্রিকেটারের সম্মাননাপ্রাপ্ত বাদ-বাকী নয়জন বিদ্যালয়ের ছাত্র কমপক্ষে একটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়েছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯১৯ সালে পরিবারের সাথে দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রত্যাবর্তন করেন। তার পিতা তাকে ক্রিকেট খেলতে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। কিন্তু, তিনি গল্ফ ও টেনিসের দিকে ধাবিত হন। কারখানা ও ব্যাংকিং খাতে কাজ করেন। ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত তার অবস্থান অজানা ছিল। ঐ বছর ক্রিকেট ঐতিহাসিক রবার্ট ব্রুক কেপ টাউনের নিরাময় কেন্দ্রে তার অবস্থান সনাক্ত করতে সক্ষম হন। কল্ডার তার এই সম্মাননা প্রাপ্তি বিষয়টি জানতেন না। বিদ্যালয় ত্যাগ করার পর আর ক্রিকেট খেলেননি। কেবলমাত্র ব্রুকের কল্যাণেই তিনি এ স্বীকৃতির কথা জানতে পারেন। ১৫ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৫ তারিখে ৯৪ বছর বয়সে কেপ টাউনে হ্যারি কল্ডারের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Wisden's Five Cricketers of the Year"ESPNcricinfoESPN। ২৩ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ এপ্রিল ২০১৫ 
  2. "Staffordshire v Surrey Second XI in 1920"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০০৯ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]