সিনতাশতা সংস্কৃতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সিনতাশতা সংস্কৃতি
Andronovo culture.png
মানচিত্রে সিনতাশতা সংস্কৃতিকে লাল বর্ণের দ্বারা উপস্থাপিত করা হয়েছে, সেই সাথে যে স্থানে প্রাচীনতম স্পোকযুক্ত চাকার রথ পাওয়া গেছে তাকে ম্যাজেন্টা রং দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে। অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতির সর্বোচ্চ বিস্তৃতি দেখানো হয়ে কমলা রং দিয়ে। সংলগ্ন এবং উপরিপাতিত সংস্কৃতি যেমন আফানাসেভো সংস্কৃতি, স্রুবনায়া সংস্কৃতি, ব্যাক্ট্রিয়া-মার্জিয়ানা প্রত্নতাত্ত্বিক সমষ্টিকে দেখানো হয়েছে সবুজ রং দিয়ে।
সময়ব্রোঞ্জ যুগ
তারিখখ্রিস্টপূর্ব ২২০০-১৮০০ অব্দ
টাইপ সাইটসিনতাশতা
প্রধান স্থানসিনতাশতা
আরকাইম
পেত্রভকা
বৈশিষ্ট্যব্যাপকমাত্রায় কপার ও ব্রোঞ্জ ধাতববিদ্যা
দুর্গকৃত বসতি
বিস্ত্রিত অস্ত্র-সমাধি
এ পর্যন্তা জানা প্রাচীনতম রথ
পূর্বসূরীকর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি
পলতাভকা সংস্কৃতি
আবাশেভো সংস্কৃতি
উত্তরসূরীঅ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতি

সিনতাশতা সংস্কৃতি (Sintashta culture) সিনতাশতা-পেত্রভকা সংস্কৃতি (Sintashta-Petrovka culture)[১] বা সিনতাশতা-আরকাইম সংস্কৃতি (Sintashta-Arkaim culture) নামেও পরিচিত।[২] এটি খ্রিস্টপূর্ব ২২০০-১৮০০ অব্দের পূর্ব ইউরোপ এবং মধ্য এশিয়ার সীমান্তের উত্তর ইউরেশীয় স্তেপ অঞ্চলের একটি ব্রোঞ্জযুগীয় প্রত্নতাত্ত্বিক সংস্কৃতি[৩][৪] সংস্কৃতিটির নামকরণ করা হয়েছে রাশিয়ার চেলিয়াবিনস্ক ওব্লাস্টের সিনতাশতা নামের প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানের নামে।

সিনতাশতা সংস্কৃতি কর্ডেড ওয়েয়ার সংস্কৃতি থেকে আগত লোকদের পূর্ব দিকে অভিপ্রায়ণের প্রতিনিধিত্ব করে বলে মনে করা হয়। এটিকে ব্যাপকভাবে ইন্দো-ইরানীয় ভাষার উৎস্য হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এপর্যন্ত জানা প্রাচীনতম রথগুলো সিনতাশতা সমাধিগুলোতে পাওয়া গেছে এবং এই সংস্কৃতিটিকে সেই প্রযুক্তিটির উদ্ভবের শক্তিশালী প্রার্থী হিসাবে বিবেচনা করা হয়, যা সমগ্র পুরনো বিশ্বে (Old World, এশিয়া, ইউরোপ ও আফ্রিকার সমন্বয়ে গঠিত) ছড়িয়ে পড়ে এবং প্রাচীন যুদ্ধবিগ্রহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।[৫] সিনতাশতা বসতিগুলি তামা উত্তোলন এবং ব্রোঞ্জের ধাতববিদ্যার তীব্রতার জন্য উল্লেখযোগ্য, যা স্তেপ সংস্কৃতিতে অস্বাভাবিক ছিল।[৬]

উৎস[সম্পাদনা]

সিনতাশতা সংস্কৃতি তার দুই পূর্বগামী সংস্কৃতি পলতাভকা সংস্কৃতিআবাশেভো সংস্কৃতির মধ্যকার মিথোস্ক্রিয়া থেকে উদ্ভূত হয়। পরবর্তী জনবসতিগুলির নীচে সিনতাশতা সংস্কৃতির দেহাবশেষসমূহকে সনাক্তকরণের জটিলতার কারণে সংস্কৃতিটিকে সম্প্রতি অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতি থেকে আলাদা করা হয়।[২] এটি এখন "অ্যান্ড্রোনোভো দিগন্তের" অংশ হিসাবে স্বতন্ত্র সত্তা হিসাবে স্বীকৃত।[১] ২০১৫ সালে নেচার সাময়িকীতে প্রকাশিত একটি জিনতাত্ত্বিক গবেষণার ফলাফল অনুসারে, কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতির লোকেদের পূর্বমুখী অভিপ্রায়ণের ফলে সিনতাশতা সংস্কৃতির উদ্ভব হয়।[৭]

রূপতাত্ত্বিক তথ্য থেকে জানা যায় যে পলতাভকা সংস্কৃতি এবং ক্যাটাকম্ব সংস্কৃতির স্তেপ পূর্বপুরুষত্ব এবং নব্যপ্রস্তরযুগীয় বন্য-শিকারী-সংগ্রাহক পূর্বপুরুষত্বের মিশ্রণের ফল হিসেবে উদ্ভূত হয়।[ক]

প্রথম সিনতাশতা বসতি দেখা যায় খ্রিস্টপূর্ব ২২০০ অব্দে,[৩][৪] যখন জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ইতিমধ্যে শুষ্ক কাজাখ স্তেপ অঞ্চল আরও বেশি ঠাণ্ডা ও শুষ্ক হয়ে ওঠে। ইউরাল এবং উপরের তোবোল নদীর আশেপাশের জলাভূমি নিম্নভূমি, যা শীতকালীন বসবাসের জন্য অনুকূল ছিল, বেঁচে থাকার জন্য তাই ক্রমবর্ধমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। এই চাপের মধ্যেই পলতাভকা এবং আবাসেভো চারণজীবী উভয়ই নদীর উপত্যকার দুর্গগুলিতে স্থায়ীভাবে বসতি স্থাপন করে এবং আরও সুরক্ষিত পাহাড়ী চুড়ার স্থানগুলোতে আশ্রয় গ্রহণ করে।[৯]

ইউরাল-তোবোল স্তেপে সিনতাশতা সংস্কৃতির তাৎক্ষণিক পূর্বসূরী ছিল পলতাভকা সংস্কৃতি, তারা ছিল গবাদি পশু চারণজীবী ইয়াম্নায়া দিগন্তের একটি শাখা যারা খ্রিস্টপূর্ব ২৮০০ থেকে ২৬০০ অব্দে পূর্বের দিকে গমন করে। বেশ কয়েকটি সিনতাশতা শহর পুরানো পলতাভকা বসতিগুলির উপরে বা পলতাভকা সমাধিস্থলের নির্মিত হয়, এবং সিনতাশতা মৃৎশিল্পে পলতাভকা ছাঁচ বা নকশা প্রচলিত ছিল।[১০]

সিনতাশতা বস্তুগত সংস্কৃতিতে পরবর্তী আবাশেভো সংস্কৃতির প্রভাব দেখা যায়, যা ফাতায়ানোভো-বালানোভো সংস্কৃতি থেকে এসেছিল। সেই সংস্কৃতি আবার সিনতাশতা অঞ্চলের উত্তরে অবস্থিত বন্য-স্তেপ অঞ্চলে কর্ডেড অয়ার বসতিসমূহের একটি সমষ্টি যা প্রধাণত চারণজীবী ছিল।[১০]

সমাজ[সম্পাদনা]

ভাষাগত পরিচয়[সম্পাদনা]

সিনতাশতা সংস্কৃতির লোকেরা ইন্দো-ইরানীয় ভাষা পরিবারের পূর্বপুরুষ প্রত্ন-ইন্দো-ইরানীয় ভাষায় কথা বলে মনে করা হয়।[১১] এই সনাক্তকরণের প্রাথমিক ভিত্তি হল সিনতাশতা সংস্কৃতিতে প্রত্নতত্ত্বের দ্বারা প্রকাশিত মৃতদেহের সৎকার সংক্রান্ত আচারের সাথে বৈদিক সংস্কৃত ভাষায় নথিভূক্ত করা প্রাচীন ইন্দো-ইরানীয় মন্ত্র সংবলিত একটি ভারতীয় ধর্মগ্রন্থ ঋগ্বেদ বিভাগসমূহের মধ্যকার সাদৃশ্য।[১০] সিনতাশতা সংস্কৃতির সাথে স্কান্ডিনেভিয়ার নর্ডীয় ব্রোঞ্জ যুগের অনেক সাংস্কৃতিক সাদৃশ্য পাওয়া যায়।[খ]

ফিনো-উগ্রিক ভাষা এবং ইন্দো-ইরানীয় ভাষাসমূহের মধ্যে মিথোস্ক্রিয়ার ভাষাতাত্ত্বিক প্রমাণ পাওয়া যায়, যা ফিনো-উগ্রিক সংস্কৃতিতে ইন্দো-ইরানীয় প্রভাব প্রদর্শন করে। কথোপকথনের ভাষাগত প্রমাণ রয়েছে, ইন্দো-ইরানীয়দের ফিনো-ইউগ্রিক সংস্কৃতিতে প্রভাব প্রদর্শন করে। [১২]

সিনতাশতা সংস্কৃতি থেকে ইন্দো-ইরানীয়রা আনাতোলিয়া, ভারত ও ইরানে অভিপ্রায়ণ করা শুরু করে।[১৩][১৪] খ্রিস্টপূর্ব ৯ম শতাব্দী থেকে ইরানীয় ভাষাসমূহ সিথীয়দের সাথে পশ্চিমমুখী অভিপ্রায়ণের মাধ্যমে পুনরায় পন্টিক স্তেপে ফিরে আসে যেখান থেকে প্রত্ন-ইন্দো-ইউরোপীয়রা সব দিকে ছড়িয়ে পড়েছিল।[১৪]

যুদ্ধবিগ্রহ[সম্পাদনা]

সিনতাশতা সময়কালে বাস্তুসংস্থানিক চাপ এবং সম্পদের জন্য প্রতিযোগিতার কারণে সিনতাশতা সংস্কৃতির পূর্ববর্তী আবাশেভো সংস্কৃতি ইতিমধ্যে স্থানীয় আন্তঃগোত্র যুদ্ধের কারণে চিহ্নিত ছিল;[৯] এর ফলে সিনতাশতা সংস্কৃতিতে অভূতপূর্ব মাত্রায় দুর্গ নির্মাণ এবং সামরিক কৌশলে উদ্ভাবনসমূহ লক্ষ্য করা যায়, যেমন যুদ্ধরথের আবিষ্কার। গোত্রসমূহের মধ্যে বর্ধিত প্রতিযোগিতা সিনতাশতা সমাধিসমূহে আড়ম্বরপূর্ণ ত্যাগেরও (sacrifices) ব্যাখ্যা দিতে পারে, কেননা প্রতিদ্বন্দ্বী গোত্রগুলো দৃষ্টি আকর্ষণমূলক ভোগের মাধ্যমে একে অপরকে ছাড়িয়ে যাবার চেষ্টা করত, উত্তর আমেরিকার পতলাচ রীতিতেও এটি দেখা যায়।[৯]

সিনতাশতা সংস্কৃতির হস্তনির্মিত বস্তু যেমন বর্শার মাথা, তিনফলাযুক্ত তীরের মাথা, বাটালি বা খোদাই করার যন্ত্র, ধরনের যেমন স্পিয়ারহেডস, ট্রিলোবেড এ্যারহেডস, চিসেল এবং বড় শ্যাফট-হোল কুঠার এদের অঞ্চলের পূর্ব দিকে নিয়ে যাওয়া হয়।[১৫] অনেক সিনতাশতা সমাধি অস্ত্রশোভিত ছিল, যদিও পরবর্তিতে রথের সাথে যে যৌগিক ধনুক দেখা যায় তা এখানে অনুপস্থিত। সিনতাশতা সংস্কৃতির প্রত্নস্থলগুলোতে শিং এবং হাড়ের সন্ধান পাওয়া যায়, যা ধনুকের আসবাব (গ্রিপ, অ্যারো রেস্ট, বো এন্ড, স্ট্রিং লুপ) এর ব্যাখ্যা দেয়, কিন্তু এমন কোন চিহ্ন সেখানে পাওয়া যায় না যা ধনুকের বাঁকা অংশে কাঠ ছাড়া অন্য কোন কিছুর ব্যাবহারের ইঙ্গিত দেবে।[১৬] তীরের মাথাও পাওয়া যায় যেগুলো ধাতুর পরিবর্তে পাথর বা হাড় দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। এই তীরগুলো খাটো, ৫০ থেকে ৭০ সেন্টিমিটার লম্বা হত, আর তীরের সাথে সামঞ্জস্য রেখে তাদের ধনুকও তাই হয়তো খাটোই হত।

ধাতু উৎপাদন[সম্পাদনা]

সিনতাশতা অর্থনীতি ছিল তামার ধাতববিদ্যা ভিত্তিক। কাছাকাছি খনিগুলি (যেমন ভোরভস্কায়া ইয়ামা) থেকে কপার আকরিকগুলি সিনতাশতা বসতিগুলিতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তামা এবং আর্সেনিকীয় ব্রোঞ্জে প্রক্রিয়াজাত করার জন্য। এটি শিল্পমাত্রায় ঘটেছিল: সিনতাশতা সংস্কৃতির সিনতাশতা, আরকাইম এবং উস্তি প্রত্নস্থলগুলোর সমস্ত খননকৃত ভবনে ধাতু বিগলনের চুল্লি এবং স্ল্যাগের অবশেষ পাওয়া গেছে।[৯]

বেশিরভাগ সিনতাশতা ধাতু রক্ষিত ছিল মধ্য এশিয়ার বাক্ট্রিয়া-মার্জিয়ানা প্রত্নতাত্ত্বিক সমষ্টির (বিএমএসি) শহরগুলোয় রফতানির জন্য। সিনতাশতা এবং বিএমএএসি-র মধ্যে ধাতব বাণিজ্য প্রথমবারের মতো স্তেপ অঞ্চলকে নিকট প্রাচ্যের প্রাচীন নগর সভ্যতাসমূহের সাথে সংযুক্ত করেছিল: ইরান এবং মেসোপটেমিয়ার সাম্রাজ্য এবং নগর-রাজ্যগুলি ধাতবগুলির জন্য প্রায় অসীম বাজার সরবরাহ করেছিল। এই বাণিজ্যিক পথগুলি পরে সেই বাহনে পরিণত হয়েছিল যার মাধ্যমে ঘোড়া, রথ এবং শেষ পর্যন্ত ইন্দো-ইরানীয়-ভাষাভাষী লোকেরা স্তেপ অঞ্চল থেকে নিকট প্রাচ্যে প্রবেশ করেছিল।[১০][১০]

শারীরিক বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

সিনতাশতা সংস্কৃতির দেহাবশেষ থেকে প্রকাশিত হয়েছে যে, তারা ছিল দীঘল মস্তকের (dolichocephalic) ইউরোপীয়-সদৃশ (Europoid) মানুষ। সিনতাশতা খুলিগুলো তাদের পূর্ববর্তী ফাতিয়ানোভো-বালানোভো সংস্কৃতিআবাশেভো সগস্কৃতির লোকেদের মাথার খুলির মতই, গবেষণা অনুসারে চেহারা বা মাথার খুলির এই ধরনের উদ্ভব হয়েছে মধ্য ইউরোপে। সিনতাশতা সংস্কৃতির পরবর্তীতে আসা স্রুবনায়াঅ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতির মাথার খুলিও সিনতাশতা সংস্কৃতির খুলিগুলোর মতই। সিনতাশতা সংস্কৃতির সাথে সম্পর্কিত পতাপভকা সংস্কৃতির মাথার খুলি কম পরিমাণে দীঘল মস্তকের ছিল, সম্ভবত এর কারণ হচ্ছে এই সংস্কৃতির মানুষেরা ইয়াম্নায়া সংস্কৃতিপলতাভকা সংস্কৃতির লোকেদের উত্তরসুরি, যাদের মধ্যে একই রকম বলিষ্ঠ ইউরোপয়েড চেহারা দেখা যেত, এবং সিনতাশতার লোকেদের চেয়ে কম দীঘল মস্তকের ছিল। আবাশেভো, সিনতাশতা, অ্যান্দ্রোনোভো এবং স্রুবনায়া সংস্কৃতির শারীরিক বৈশিষ্ট্য পরবর্তিতে সিথীয়দের মধ্যে দেখা যায়।[গ]

জিনতত্ত্ব[সম্পাদনা]

অ্যালেনটফট (২০১৫) অনুসারে সিনতাশতা সংস্কৃতি সম্ভবত কমপক্ষে আংশিকভাবে কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি থেকে উদ্ভূত হয়েছে

নেচার সাময়িকীতে প্রকাশিত ২০১৫ সালের একটি গবেষণায়, সিনতাশতা সংস্কৃতি চার জন ব্যক্তির অবশেষ বিশ্লেষণ করা হয়েছিল। এদের একজন পুরুষ ওয়াই-ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ R1a এবং মাইটোকন্ড্রিয়াল হ্যাপ্লোগ্রুপ J1c1b1a এবং আরেকজন ওয়াই-ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ R1a1a1b এবং মাইটোকন্ড্রিয়াল হ্যাপ্লোগ্রুপ J2b1a2a বহন করে। নারী দুজন মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ U2e1e এবং U2e1h বহন করে।[৭][১৮] গবেষণায় কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি এবং সিনতাশতা সংস্কৃতির মানুষের মধ্যে ঘনিষ্ঠ অটোজোমগত জিনতাত্ত্বিক সম্পর্ক পাওয়া গেছে, যা "দুটি সংস্কৃতির একই জিনতাত্ত্বিক উৎসের প্রস্তাব দেয়" এবং নির্দেশ করে যে, "সিনতাশতা সংস্কৃতি সরাসরিভাবে কর্ডের অয়ার সংস্কৃতির লোকেদের পূর্বমুখী অভিপ্রায়ণের ফলে উদ্ভূত।"[৭] সিনতাশতা দেহাবশেষ এবং কর্ডেড অয়ার দেহাবশেষ উভয়ের মধ্যেই তুলনামূলকভাবে অধিক মাত্রায় মধ্য ইউরোপ থেকে উদ্ভূত পূর্বপুরুষত্ব ছিল এবং উভয়ই এরকম পূর্বপুরুষত্বের ক্ষেত্রে ইয়াম্নায়া সংস্কৃতির থেকে এবং পলতাভকা সংস্কৃতির বেশিরভাগ দেহাবশেষের থেকে ভিন্ন ছিল, যারা একই ভৌগোলিক অঞ্চলে সিনতাশতা সংস্কৃতির পূর্ববর্তী ছিল।[ঘ] বেল বিকার সংস্কৃতি, উনিটিসে সংস্কৃতি এবং সমসাময়িক স্ক্যান্ডিনেভীয় সংস্কৃতিগুলি কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতির সাথে জিনগতভাবে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত ছিল বলেও পাওয়া গেছে। কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি এবং এর সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত নর্ডীয় ব্রোঞ্জ যুগের মধ্যে উচ্চ ল্যাক্টোজ সহনশীলতা পাওয়া গেছে।[ঙ] সেই সাথে, গবেষণায় পাওয়া যায়, সিনতাশতা সংস্কৃতি এর পরবর্তিতে আসা অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতির সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কযুক্ত।[চ]

২০১৮ সালে সায়েন্স সাময়িকীতে প্রকাশিত একটি জিনতাত্ত্বিক গবেষণায়, সিনতাশতা সংস্কৃতির বেশ কয়েকটি সদস্যের অবশেষ বিশ্লেষণ করা হয়েছিল। পেত্রভকা বসতিতে সমাহিত দুজন নারীর অবশেষ থেকে মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ নিষ্কাশন করা হয়েছিল। দেখা গেছে তারা মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ U2 এবং U5 এর বাহক। দুর্গকৃত বসতি কামেনি আম্বার (Kamennyi Ambar) থেকে পাওয়া ৫০ জন ব্যক্তির দেহাবশেষ বিশ্লেষণ করা হয়। কোন একটি প্রত্নস্থল থেকে এটাই সব থেকে বড় প্রাচীন ডিএনএ নমুনা। এখান থেকে ৩০ জন পুরুষের ওয়াই-ডিএনএ নিষ্কাশন করা হয়। এদের মধ্যে আঠারোটি R1a এবং এর বিভিন্ন সাবক্লেড বহন করে (বিশেষত R1a1a1 এর সাবক্লেডগুলো), পাঁচজন R1b এর সাবক্লেড বহন করে (বিশেষত R1b1a1a এর সাবক্লেড), তিনজন R1 বহন করে, দুইজন Q1a এবং এর একটি সাবক্লেড বহন করে, একজন I2a1a1a, এবং একজন P1 বহন করে। মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ এর ক্ষেত্রে বেশিরভাগই হ্যাপ্লোগ্রুপ U এর সাবক্লেডের অন্তর্গত, যদিও হ্যাপ্লোগ্রুপ W, J, T, HK-ও দেখা যায়। সামারায় সমাহিত এক সিনতাশতার পুরুষকে ওয়াই-ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ R1b1a1a2 এবং মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ J1c1b1a বহন করতে দেখা গেছে। গবেষণার লেখকগণ আবিষ্কার করেন, সিনতাশতা জনগোষ্ঠীর লোকেরা কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি, স্রুবনায়া সংস্কৃতি, পতাপভকা সংস্কৃতি এবং অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতির লোকেদের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জিনতাত্ত্বিকভাবে সম্পর্কিত। এই লোকগুলোর মধ্যে ইয়াম্নায়া সংস্কৃতিমধ্য নব্যপ্রস্তরযুগের মধ্য ইউরোপীয় জনগোষ্ঠীর পূর্বপুরুষত্বের মিশ্রণ ছিল।[ছ][জ] অ্যান্দ্রোনোভোর উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের লোকেদেরকে সিনতাশতা সংস্কৃতির লোকেদের সাথে "জিনগতভাবে অত্যধিকভাবে একজাতীয়" এবং "জিনগতভাবে প্রায় অপৃথকায়নযোগ্য" হিসাবে দেখা গেছে। জিনগত উপাত্ত নির্দেশ করে যে, অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতি এবং এর পূর্বপুরুষ সিনতাশতা সংস্কৃতি শেষ পর্যন্ত স্তেপ অঞ্চলের স্তেপ পূর্বপুরুষত্ব যুক্ত মধ্য ইউরোপীয় জনগোষ্ঠীর পুনরায় স্তেপ অঞ্চলে অভিপ্রায়ণের ফল।[ঝ] কিছু সিনতাশতা অবশেষ খ্‌ভালিন্‌স্ক এ প্রাপ্ত প্রাথমিক নমুনাগুলোর সাথে সাদৃশ্য দেখায়।[৮]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. "রূপতাত্ত্বিক উপাত্ত নির্দেশ করে যে, ফেদোরভকা এবং আলাকুল এর কঙ্কালগুলো সিনতাশতা সংস্কৃতির সাথে সম্পর্কিত হতে পারে, যা নব্যপ্রস্তরযুগীয় বন্য শিকারী-সংগ্রাহক এবং স্তেপ চারণজীবীদের মিশ্রণকে নির্দেশ করে, যারা ক্যাটাকম্ব ও পলতাভকা সংস্কৃতির উত্তরসুরি ছিল।"[৮]
  2. "সিনতাশতা/অ্যান্দ্রোনোভো আচারের সাথে ঋগ্বেদে বর্ণিত আচারসমূহের মধ্যে অনেক মিল আছে, যা নর্ডীয় ব্রোঞ্জ যুগ পর্যন্ত দেখা যায়।"[৭]
  3. "ভারি বিস্তৃত মুখের প্রত্ন-ইউরোপয়েড টাইপ হল নিপার নদীর পশ্চিম তীর, ডনেটস ও ডন নদীর অঞ্চলে মারিওপোল-পরবর্তী সংস্কৃতিসমূহ যেমন স্রেডনি স্টগ সংস্কৃতি এবং পিট-গ্রেভ সংস্কৃতির লোকেদের বৈশিষ্ট্য... টিম্বার-গ্রেভ সংস্কৃতি বা স্রুবনায়া সংস্কৃতির (টিম্বার-গ্রেভ সংস্কৃতি স্রুবনায়া সংস্কৃতি নামেও পরিচিত) সময়কালে ইউক্রেইনের জনগোষ্ঠীর চেহারা ছিল মাল্টি-রোলার অয়ার সংস্কৃতি (ব্যাবিনো) এর দীঘল মস্তক (dolichocephalous) ও চিকন চেহারার জনগোষ্ঠী এবং ভোলগা অঞ্চলের টিম্বার-গ্রেভ বা স্রুবনায়া সংস্কৃতির অধিকতর ভারি ও বিস্তৃত চেহারার জনগোষ্ঠীর মাঝামাঝি... নৃতাত্ত্বিক তথ্যের সাহায্যে ভোলগা অঞ্চল থেকে ইউক্রেনে অভিপ্রায়ণের মাধ্যমে স্রুবনায়া সংস্কৃতি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। বেলোজারকা পর্যায়ের সময় (পশ্চিম ইউক্রেইনে) দীঘল মস্তক ও চিকন চেহারার ধরণটি ব্যাপকভাবে প্রাধান্য পায়। পন্টিক-স্তেপ অঞ্চল ও বন্য-স্তেপ অঞ্চলের স্রুবনায়া, বেলোজারকা এবং সিথীয় সংস্কৃতিসমূহের অবশেষগুলোর মাথার খুলির মধ্যে ঘনিষ্ঠ মিল পাওয়া গেছে... এটি ইরানীয় ভাষাভাষী সিথীয় জনগোষ্ঠী এবং ইউক্রেইনের স্রুবনায়া জনগোষ্ঠীর মধ্যকার জিনতাত্ত্বিক ধারাবাহিকতা প্রমাণ করে... স্রুবনায়া সংস্কৃতি ছিল নব্যপ্রস্তরযুগীয় নিপার-ডনেটস সংস্কৃতি ও স্রেডনি স্টগ সংস্কৃতির উত্তরসুরি। স্রুবনায়া সংস্কৃতির জনগোষ্ঠীর লোকেদের স্বতন্ত্র ইউরোপয়েড বৈশিষ্ট্য ছিল, তারা লম্বা ছিল, এবং তাদের ছিল ভারি ও বৃহৎ মাথার খুলি... পলতাভকা সংস্কৃতির সাথে প্রায় একইসাথে আবাসেভো সংস্কৃতির গোষ্ঠীগুলো বন্য-স্টেপ অঞ্চলে উপস্থিত হয়। আবাসেভানদের দীঘল মস্তক ও সরু চেহারা ছিল। এই জনগোষ্ঠীর শেকড় মধ্য ভোলগার ফাতায়ানোভো-বালানোভো সংস্কৃতিতে এবং মধ্য ইউরোপে... প্রাথমিক টিম্বার-গ্রেভ সংস্কৃতির (পটপভকা সংস্কৃতি) জনগোষ্ঠী ছিল বিভিন্ন পূর্বপুরুষগত উপাদানের মিশ্রণের ফলাফল। এই উপাদানগুলোর মধ্যে একটি ছিল খুব প্রভাবশালী, যার পূর্বসুরি ছিল পিট-গ্রেভ-পলতাভকা প্রকরণ। দ্বিতীয় প্রকরণটি ছিল দীঘল মস্তক ইউরোপয়েড প্রকরণ যা জিনতাত্ত্বিকভাবে সিনতাশতা জনগোষ্ঠীর সাথে সম্পর্কিত... স্তেপের নৃসাংস্কৃতিক প্রক্রিয়ায় আরেকটি গোষ্ঠীর অংশীদারিত্ব ছিল, তারা ছিল পকরভস্কি প্রকরণ (Pokrovskiy)। তারা ছিল দীঘল মস্তক ও চিকন চেহারার ইউরোপয়েড, যারা আবাশেভানদের নিকটস্থ ছিল, কিন্তু পতাপভকানদের থেকে ভিন্ন ছিল... স্রুবনায়া সংস্কৃতির বেশিরভাগ খুলি মাঝারি-প্রশস্ত চেহারার আর দীঘল মস্তকের। এখান থেকে স্রুবনায়া জনসংখ্যায় উল্লেখযোগ্য পরিমাণে পিট-গ্রেভ ও পলতাভকা উপাদানের ভূমিকা প্রমাণিত হয়... কেউ কেউ ইউরাল অঞ্চলের স্রুবনায়া সংস্কৃতির জনগণ এবং ইউরাল ও পশ্চিম কাজাখস্তানের আলাকুল সংস্কৃতির জনগণের মধ্যে জিনগত সংযোগ অনুমান করতে পারে যা সিনতাশতা সংস্কৃতির দীঘল মস্তকীয় সরু চেহারার সাথে সম্পর্কিত... অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতির জনগণের পশ্চিম অংশ স্রুবনায়া সংস্কৃতির জনগণের দীঘল মস্তক প্রকরণের।"[১৭]
  4. অ্যালেনটফট প্রমুখ (২০১৫) চারটি সিনতাশতা প্রত্নস্থল থেকে প্রাচীন ডিএনএ উদ্ধার করেন। এদের মধ্যে পাঁচটি নমুনাকে বিশ্লেষণ করা হয় যাদের মধ্যে মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ হ্যাপ্লোগ্রুপ U2|U2e, J1, J2 এবং N1a পাওয়া যায়। যে দুজন পুরুষ দেহাবশেষ পাওয়া যায় তাদের উভয়ই ওয়াই-ক্রোমোজোম ডিএনএ হ্যাপ্লোগ্রুপ R1a1 এর অন্তর্গত।[৭]
  5. "ইউরোপীয় শেষ নব্যপ্রস্তরযুগীয় এবং ব্রোঞ্জযুগীয় সংস্কৃতিসমূহ যেমন কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি, বেল বিকার সংস্কৃতি, ইনেটিসে সংস্কৃতি এবং স্ক্যান্ডিনেভীয় সংস্কৃতিসমূহ একে অপরের সাথে খুব সদৃশ ছিল... কর্ডেড অয়ার এবং সিনতাশতা সংস্কৃতির জনগোষ্ঠীর মধ্যে যে ঘনিষ্ঠ সাদৃশ্য পর্যবেক্ষণ করা যায় তা নির্দেশ করে তাদের জিনতাত্ত্বিক উৎস্য একই... ব্রোঞ্জযুগীয় ইউরোপীয়দের মধ্যে সর্বাধিক ল্যাক্টোজ সহনশীলতার হার পাওয়া যায় কর্ডেড কর্ডেয় অয়ার এবং তাদের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত স্ক্যান্ডিনেভীয় ব্রোঞ্জযুগীয় সংস্কৃতিসমূহে"[৭]
  6. "পরবর্তী ব্রোঞ্জ যুগে মধ্য এশিয়ায় উত্থিত অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতি জিনগতভাবে সিনতাশতা সংস্কৃতির জনগোষ্ঠীর সাথে নিবিড়ভাবে সম্পর্কিত ছিল, এবং ইয়াম্নায়া এবং আফানাসিয়েভো সংস্কৃতির লোকেদের সাথে এদের পার্থক্য ছিল স্পষ্ট। তাই অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতি ছিল সিনতাশতা সংস্কৃতির জিন পুলের অস্থায়ী ও ভৌগোলিক সম্প্রসারণ...সিনতাশতা/অ্যান্দ্রোনোভো আচারের মধ্যেও অনেক সাদৃশ্য রয়েছে, যা ঋগ্বেদে বর্ণিত হয়েছে, এবং এরকম সাদৃশ্য নর্ডিক ব্রোঞ্জযুগীয় সংস্কৃতিসমূহেও পাওয়া যায়।"[৭]
  7. "আমরা সিনতাশতা সংস্কৃতির দেহাবশেষগুলোর প্রধাণ গুচ্ছকে পর্যবেক্ষণ করেছি যা স্রুবনায়া, পতাপভকা ও অ্যান্দ্রোনোভো সংস্কৃতির সদৃশ ছিল, এবং একে ইয়াম্নায়া সম্পর্কিত আনাতোলীয় নব্যপ্রস্তরযুগীয় (ইউরোপীয় কৃষিবিদ-সম্পর্কিত) পূর্বপুরুষত্বের মিশ্রণ হিসেবে মডেল করা হয়।"[৮]
  8. "জিনতাত্ত্বিক বিশ্লেষণ ইঙ্গিত দেয় যে অ্যান্দ্রোনোভো সমষ্টির মধ্যে পড়া দেহাবশেষসমূহকে পতাপভকা, সিনতাশতা ও স্রুবনায়া সংস্কৃতির প্রধাণ গুচ্ছের সাথে সদৃশ, এবং একে ইয়াম্নায়া সম্পর্কিত প্রাথমিক ইউরোপীয় কৃষিবিদ সম্পর্কিত বা আনাতোলীয় কৃষিবিদ সম্পর্কিত পূর্বপুরুষত্ব হিসেবে মডেল করা হয়।"[৮]
  9. "এই গ্রুপের অনেক নমুনা ছিল কর্ডেড অয়ার, স্রুবনায়া, পেত্রভকা, সিনতাশতা এবং অ্যান্দ্রোনোভো সমষ্টির শিল্পকর্মের সাথে একত্রে সমাহিত ব্যক্তির দেহাবশেষ, যাদের সবকটিই স্তেপ_ইএমবিএ (প্রাথমিক মধ্য ব্রোঞ্জ যুগীয় স্তেপ জনগোষ্ঠী) পূর্বপুরুষত্ব এবং ইউরোপীয় মধ্য নব্যপ্রস্তরযুগীয় কৃষিবীদ (ইউরোপ_এমএন বা ইউরোপীয় মধ্য নব্যপ্রস্তরযুগীয়) জনগোষ্ঠী পূর্বপুরুষত্বের মিশ্রণের বাহক । এটি পূর্বের গবেষণার ফলাফলের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ যা পূর্ব ইউরোপীয় জনগোষ্ঠীর পশ্চিমমুখী অভিপ্রায়ণ এবং স্থানীয় ইউরোপীয় কৃষিবিদদের সাথে মিশ্রণ দেখায়, এছাড়া ইউরাল পর্বতমালার দিকে পূর্বমুখী পুনরাভিপ্রায়ণের ঘটনাও ছিল।"[১৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Koryakova 1998b.
  2. Koryakova 1998a.
  3. Chernykh, E. N., (2009). Formation of the Eurasian Steppe Belt Cultures: Viewed Through the Lens of Archaeometallurgy and Radiocarbon Dating, in B. Hanks & K. Linduff (eds.), Social Complexity in Prehistoric Eurasia: Monuments, Metals and Mobility, Cambridge University Press, pp. 128-133.
  4. Parpola, Asko, (2017). "Finnish vatsa - Sanskrit vatshá - and the formation of Indo-Iranian and Uralic languages", in SUSA/JSFOu 96, 2017, p. 249.
  5. Kuznetsov 2006.
  6. Hanks ও Linduff 2009.
  7. Allentoft 2015
  8. Narasimhan 2019
  9. Anthony 2007
  10. Anthony 2007.
  11. Mallory ও Mair 2008
  12. Kuzmina 2007
  13. Anthony 2007
  14. Beckwith 2009
  15. Rawson, Jessica (Autumn ২০১৫)। "Steppe Weapons in Ancient China and the Role of Hand-to-hand Combat": 49। 
  16. Bersenev, Andrey; Epimakhov, Andrey (২০১১)। "Bow and arrow. The Sintasha bow of the Bronze Age of the south Trans-Urals, Russia"। Bronze Age Warfare: Manufacture and Use of Weaponry। European Association of Archaeologists. Annual Meeting। Archaeopress। পৃষ্ঠা 175–186। আইএসবিএন 978-1-4073-0822-7 
  17. Kuzmina 2007, পৃ. 383-385।
  18. Mathieson 2015
  19. 2019 Narasimhan

উৎস্য[সম্পাদনা]

বহিঃস্থ সূত্র[সম্পাদনা]