সওদাগর (১৯৯১-এর চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সউদাগর
পরিচালকসুভাষ ঘাই
প্রযোজকঅশোক ঘাই
সুভাষ ঘাই
রচয়িতাশচীন ভৌমিক
সুভাষ ঘাই
কমলেশ পাণ্ডে
ভাষাহিন্দী

সওদাগর ১৯৯১ সালে সুভাষ ঘাই পরিচালিত ভারতীয় হিন্দি নাট্ট্য চলচ্চিত্র। এটি হিন্দি সিলভার স্কীনের দুই প্রবীণ ভার্সেটাইল অভিনেতা, দিলীপ কুমার এবং রাজ কুমার, মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। এটি ছিল তাদের একত্রে অভিনীত দ্বিতীয় ছবি এর র্পূবের ১৯৯৯ সালে পাইঘাম চলচ্চিত্রের পরে দুই অভিনেতা একসঙ্গে পূনরায় পর্দায় হাজির হয়েছিলেন। এটি বিবেক মুশরান ও মনীষা কৈরালার আত্মপ্রকাশ/ডেবিউ সিনেমা ছিল, পরবর্তীকালে মনীষা কৈরালা বলিউডের এক নামী অভিনেত্রী হয়েছিলেন। সিনেমাটিতে আরও অভিনয় করেছেন আমরিশ পুরী, অনুপম খের, ডালিপ তাহিল, গুলশান গ্রোভার, দিনা পাঠকজ্যাকি শ্রফ । সিনেমার গল্প বিখ্যাত নাটক রোমিও এবং জুলিয়েট দ্বারা প্রভাবিত ছিল এবং মান্ধারির ভূমিকা রোমিও এবং জুলিয়েটের ফ্রিয়ার লরেন্সের সমান ছিল।

ছবিটি পুরো ভারত জুড়ে সিলভার-জুবলী সাফল্য পেয়েছিল এবং সুপারহিট হয়েছিল। [১] সওদাগর পরিচালনার মাধ্যমে সুভাষ ঘাই পেয়েছিলেন তাঁর একমাত্র ফিল্মফেয়ার সেরা পরিচালক পুরষ্কার[২]

পটভূমি[সম্পাদনা]

মুভিটি শুরু হয়েছে মন্দড়ির সাথে, একজন বৃদ্ধ পঙ্গু ব্যক্তি, কিছু বাচ্চাকে দুটি বন্ধুর গল্প বলছে গল্পে দেখা যায়, বাড়িওয়ালার ছেলে রাজেশ্বর সিং এবং দরিদ্র ছেলে বীর সিংহের বন্ধু হয়েছিল। তারা একে অপরকে যথাক্রমে রাজু এবং বীরু বলে ডাকে। দুজনে বড় হওয়ার সাথে সাথে রাজু সিদ্ধান্ত নিল তার বোন পলিকান্তের বিয়ে বীরুর সাথে দিবে। এই বিয়েতে তাঁর বোন বা বীরের কোনও আপত্তি নেই।

যাইহোক, ভাগ্যক্রমে যা হয়, শ্বশুরবাড়ির লোকের যৌতুক দাবি করার কারণে কারণে একটি মেয়ের বিবাহ ব্যাহত হয়। তার সাথে বিয়ে দিয়ে মেয়ে এবং তার বাবা-মা'র মুখ বাঁচানোর জন্য সম্মান রাখে বীর। রাজু এই ঘটনা দেখে হতবাক, তার বোন, যিনি বীরুর উপর গোপনে ক্রাশ ছিলেন, তিনি আত্মহত্যা করেন। বিধ্বস্ত ও বিড়বিড়িত রাজু ঘোষণা করে যে যা ঘটেছিল তার জন্য বীরু একমাত্র দায়বদ্ধ এবং এখন সে তার শত্রু।

এই ঘটনার করেনে এই তারা তাদের অঞ্চলগুলি পৃথক চিহ্নিত করে । এক পর্যায় একটি উদ্বেগজনক এবং অলিখিত যুদ্ধের মতো সময় আসে: কেউ অন্যের অঞ্চল থেকে জীবিত প্রাণ হত্যা করতে পারে না, তবে অন্য ব্যক্তির ভূখণ্ডে প্রবেশ করলে সে তার নিজের ঝুতিকে এই কাজটি করবে। রাজার আত্মীয় চুনিয়া উভয় পক্ষকে যুদ্ধে রেখে রাজেশ্বরের অর্থ ছিনিয়ে নেওয়ার সুযোগ করে। চুনিয়ার বীরের পুত্র বিশালকে হত্যা করে এবং পরবর্তীকরা রাজু স্থীর করে যে তিনি বীরকে নির্মূল করতে কোনওভাবেই থামবে না।

বছরের পর বছর ধরে উত্তেজনা আরও বেড়ে যায়। প্রাক্তন বন্ধুদের মধ্যে সংঘর্ষগুলি পুলীশ কমিশনারের মাথাব্যথা হয়ে ওঠে।

এখানে রাজেশ্বরের নাতনী রাধা এবং বীরের নাতি ভাসু একে অপরের সাথে দেখা করেন। তাদের পরীবারের শত্রুতা সম্পর্কে রাধা এবং ভাসুর অজানা এবং তারা প্রেমে পড়ে যান। মান্ধারি যখন এই বিষয়টি জানতে পারে, তখন সে আনন্দের সাথে নিজের প্রতিশ্রুতি পূর্ণ করে এবং প্রেমীদের কাছে সত্য প্রকাশ করে। তারপরে, তিনি শত্রুতা শেষ করার তার পরিকল্পনা তৈরী করে, পরিকল্পনা অনুসারে রাধা বীরের বাড়িতে অনুপ্রবেশ করে, এবং ভাসু রাজেশ্বরে অনুপ্রবেশ করে। প্রেমীকযুগল এটি করতে সফল হয় এবং পুরানো বন্ধুদের কারণ দেখার চেষ্টা করে। বিশাল বিধবা আরতি রাধার আসল পরিচয় জেনে যায় তবে সে চুপ থাকে।

ইতিমধ্যে, চুনিয়া পুরোপুরি রাজেশ্বরের ঘাঁটিতে প্রবেশ করে। তিনি পুরো অঞ্চলটি জয় করতে আগ্রহী এমন ছায়াময় দলগুলির সাথে চুক্তি শুরু করেন। তিনি আবারও তাদের মাঝে আগুন লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, যা সে বীরুর অঞ্চল থেকে আমলা নামে এক কিশোরীকে অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যা করে করে।

তবে চুনিয়ার ভাগ্য বেশি দিন স্থায়ী হয় না। চুনিয়া যে লোকদের সাথে চুনিয়ার মোকাবেলা করেছিল তারা রাজেশ্বরে আক্রমণ করেছিল, চুনিয়ার আসল চেহারাটি প্রকাশ করেছিল। রাগী রাজেশ্বর এবং সহানুভূতিশীল বীর অবশেষে তাদের কয়েক দশকের শত্রুতা শেষ করে। এখানে, চুনিয়া মরিয়া হয়ে ওঠে এবং রাধা ও ভাসুকে বন্দী করে রেখেছে। চুনিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য উভয় পক্ষের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।

পরে, রাধা এবং ভাসু রক্ষা পায়, তবে তাদের দাদা যে মিলিত হয়েছে তা তাদের কাঝে অজানা। রাজু ও বীরু চুনিয়াকে মেরে ফেললেও প্রাণঘাতী আহত হয়। বন্ধুরা একে অপরের বাহুতে মারা যাওয়ার সাথে সাথে এই বন্ধুত্ব এবং শত্রুতার চূড়ান্ত অধ্যায়টি বন্ধ হয়ে যায়।

কুলীলব[সম্পাদনা]

সংঙ্গীত[সম্পাদনা]

ছবিটির সংগীত রচনা করেছিলেন লক্ষ্মীকান্ত-পেয়ারলালের কিংবদন্তী জুটি এবং গানের কথা লিখেছেন আনন্দ বক্সী।

ট্র্যাক তালিকা[সম্পাদনা]

# শিরোনাম সিঙ্গার (গুলি)
1 "ইলু ইলু" কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, মনহার উদাস, উদিত নারায়ণ
2 "ইমলি কা বুটা" মোহাম্মদ আজিজ, সাধনা সরগম
3 "সওদাগর সওদা কর" কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, মনহার উদাস, সুখবিন্দর সিং
4 "রাধা নাছেগি" লতা মঙ্গেশকর, মোহাম্মদ আজিজ
5 "মহব্বত কি কি" কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, সুরেশ ওয়াদকার
6 "ইমলি কা বুটা" - ভাঃ ২ সুदेश ভোঁসলে, মোহাম্মদ আজিজ
7 "দিওয়ানে তেরে নাম কে" সুখবিন্দর সিং
8 "তেরী যাদ এতি হৈ" লতা মঙ্গেশকর, সুরেশ ওয়াদকার

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Boxofficeindia.com"। Boxofficeindia.com। ১১ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০১২ 
  2. "Mukta Arts"। Mukta Arts। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০১২ 

বাহিঃ সংযোগ[সম্পাদনা]