শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী
Shyamoli Nasrin Chowdhury (cropped).jpg
জন্ম (1942-04-22) ২২ এপ্রিল ১৯৪২ (বয়স ৭৯)
জাতীয়তাবাংলাদেশী
পেশাশিক্ষাবিদ
দাম্পত্য সঙ্গীএ এফ এম আবদুল আলীম চৌধুরী (বি. ১৯৬৫১৯৭১)
পুরস্কারএকুশে পদক (২০০১)

শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী (জন্ম: ২২ এপ্রিল, ১৯৪২) একজন বাংলাদেশী শিক্ষাবিদ। শিক্ষাক্ষেত্রে অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ বাংলাদেশ সরকার তাকে ২০০১ সালে একুশে পদকে ভূষিত করে।[১]

প্ররম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

নাসরিন চৌধুরী ২২ এপ্রিল ১৯৪২ সালে শেরপুরের চন্দকোনা থানার বন্দটেকি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পরবর্তীতে পিতার কর্মস্থল ময়মনসিংহে এইচএসসি পাশ করার পর স্নাতকে ভর্তি হন টাংগাইল কুমুদিনী সরকারি মহিলা কলেজে। ১৯৬৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাস বিভাগে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

স্নাতকোত্তর শেষ করার পর নাসরিন চৌধুরী ১৯৬৪ সালে টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুরের অবস্থিত ভারতেশ্বরী হোমসে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৬৬ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারি উদয়ন হাই স্কুলে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন[২] এবং পরবর্তীতে একই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ হিসেবে পদোন্নতি পান। ২০০২ সালের ১লা জুলাই তিনি চাকরিচ্যুত হন।[২] পরবর্তী কয়েকজন সহকর্মী মিলে উদ্দীপন নামে একটি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন ঢাকার লালমাটিয়াতে যেখানে তিনি প্রধান শিক্ষিকা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[২] নারীদের নিয়ে কাজ করা “বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের” সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন।[৩]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৬৫ সালের ১২ ডিসেম্বর তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ড. আলীম চৌধুরীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।[২] ১৯৭১ সালের ১৫ই ডিসেম্বর আলীম চৌধরীকে জামায়াতের সশস্ত্র সংগঠন আল বদরের সদস্যরা ধরে নিয়ে যায়[২] এবং ১৮ ডিসেম্বর রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে তার মরাদেহ পাওয়া যায়। ২০১৩ সালে নাসরীন চৌধুরী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুন্যালে মানবতার বিরোদ্ধে অপরাধের দায়ে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে ১৩তম সাক্ষী হিসেবে সাক্ষ্য প্রদান করেন।[৪] তিনি তার অভিযোগে বলেন, আলবদরদের অন্যতম সংগঠক মওলানা আব্দুল মান্নান তার স্বামীকে হত্যায় সহযোগিতা করেন।[৫] নাসরিন চৌধুরীর দুকন্যা রয়েছে।[৬] তিনি পরবর্তীতে আলীম চৌধুরীর ছোট ভাই হাফিজ চৌধুরীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।[২]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "একুশে পদকপ্রাপ্ত সুধীবৃন্দ"। বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ জুন ২০, ২০১৬ 
  2. "মতামত"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ৮ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৮ 
  3. "Bangladesh Nari Progati Sangha Celebrates 25th Years of Struggle for Equality"bnps.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২৪ জুন ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৬ 
  4. "শ্যামলী নাসরীন চৌধুরীর স্মৃতিতে শহীদ আলীম চৌধুরী"একুশে টিভি। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৮ 
  5. "Al-Badr Mannan, whom we sheltered killed my husband-Shyamoli Nasrin Chowdhury"বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (ইংরেজি ভাষায়)। ৮ ডিসেম্বর ২০১৪। ২০১৬-০৮-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৬ 
  6. "Dr Alim's daughter testifies against Mueen-Ashraf"Dhaka Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। ৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৬ 

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]