লেন জনসন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লেন জনসন
Len Johnson 1950.jpg
১৯৫০ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে লেন জনসন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামলিওনার্ড যোসেফ জনসন
জন্ম(১৯১৯-০৩-১৮)১৮ মার্চ ১৯১৯
ইপ্সউইচ, কুইন্সল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু২০ এপ্রিল ১৯৭৭(1977-04-20) (বয়স ৫৮)
সিল্কস্টোন, কুইন্সল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৭৯)
৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮ বনাম ভারত
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৪৬/৪৭ - ১৯৫২/৫৩কুইন্সল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৫৬
রানের সংখ্যা ২৫ ১১৩৯
ব্যাটিং গড় ১৬.৭৫
১০০/৫০ ০/০ ০/৩
সর্বোচ্চ রান ২৫* ৭৫
বল করেছে ২৮২ ১৪৪০৮
উইকেট ২১৮
বোলিং গড় ১২.৩৩ ২৩.১৭
ইনিংসে ৫ উইকেট ১৬
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৩/৮ ৭/৪৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/০ ৩৫/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১০ মে, ২০২০

লিওনার্ড যোসেফ জনসন (ইংরেজি: Len Johnson; জন্ম: ১৮ মার্চ, ১৯১৯ - মৃত্যু: ২০ এপ্রিল, ১৯৭৭) কুইন্সল্যান্ডের ইপ্সউইচ এলাকায় জন্মগ্রহণকারী অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৪৮ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে কুইন্সল্যান্ড দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম বোলিং করতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন লেন জনসন

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৪৬-৪৭ মৌসুম থেকে ১৯৫২-৫৩ মৌসুম পর্যন্ত লেন জনসনের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়কালে কুইন্সল্যান্ডের প্রধান চালিকাশক্তিতে পরিণত করেছিলেন নিজেকে। ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম বোলার ও নিচেরসারিতে মারমুখী ভঙ্গীমায় খেলতেন তিনি।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষে সলোমন দ্বীপপুঞ্জের বোগেইনভিলে অস্ট্রেলিয়া সৈন্যদলের সদস্যরূপে খেলেন। এরপর, শেফিল্ড শিল্ডে কুইন্সল্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি।[১] ১৯৪৬-৪৭ মৌসুম থেকে ১৯৫২-৫৩ মৌসুম পর্যন্ত দলটির পক্ষে খেলেন।

১৯৪৭-৪৮ মৌসুমের প্রথমদিকে কুইন্সল্যান্ডের সদস্যরূপে সফররত ভারতীয় একাদশের বিপক্ষে সাত উইকেট নিয়ে জয়লাভে ভূমিকা রাখেন।[২] ১৯৫০ সালে অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় একাদশ দলের সদস্যরূপে নিউজিল্যান্ড গমন করেন। তবে, প্রতিভাবান হওয়া সত্ত্বেও একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছিলেন লেন জনসন। এ সফরে কেবলমাত্র একবার শতরানের সন্ধান পেয়েছিলেন তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন লেন জনসন। ৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৮ তারিখে মেলবোর্নে সফরকারী ভারত দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

১৯৪৭-৪৮ মৌসুমে ভারত দল অস্ট্রেলিয়া গমন করে। মেলবোর্নের এমসিজিতে সিরিজের চূড়ান্ত টেস্টে প্রথম ও শেষবারের মতো অংশ নেন তিনি। অপরাজিত ২৫ রান এবং ৩/৬৬ ও ৩/৮ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েছিলেন তিনি।[৩]

অবসর[সম্পাদনা]

ধারনা করা হয় যে, ১৯৪৮ সালে ইংল্যান্ড সফরে স্যাম লক্সটনকে তার স্থলাভিষিক্ত করা হয়েছিল। দুইবার তিনি নিজস্ব সেরা বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন। ১৯৪৯-৫০ মৌসুমে নিউ সাউথ ওয়েলস[৪] এবং ১৯৫১-৫২ মৌসুমে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৭/৪৩ পান।[৫] কুইন্সল্যান্ডের পক্ষে শেফিল্ড শিল্ডের ৪৩ খেলায় অংশ নিয়ে ১৭১ উইকেট লাভের মাধ্যমে খেলোয়াড়ী জীবনের ইতি টানেন। পরবর্তীতে তার গড়া রাজ্য দলের এ রেকর্ডটি রস ডানকানপিটার অ্যালান ভেঙে ফেলেন।

২০ এপ্রিল, ১৯৭৭ তারিখে ৫৮ বছর বয়সে কুইন্সল্যান্ডের সিল্কস্টোন এলাকায় লেন জনসনের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Len Johnson: Profile"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  2. "Queensland v Indians 1947–48"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  3. "Australia v India, Melbourne 1947–48"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  4. "Queensland v New South Wales 1949–50"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  5. "Queensland v Western Australia 1951–52"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]