লিয়ারি নদী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লিয়ারি
PK Karachi asv2020-02 img51 Lyari River.jpg
দেশপাকিস্তান
প্রদেশসিন্ধু প্রদেশ
শহরকরাচি
অববাহিকার বৈশিষ্ট্য
মূল উৎসবৃষ্টি পতন অঞ্চল
সিন্ধু প্রদেশ
মোহনাকরাচি
০ মি (০ ফু)
প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য
দৈর্ঘ্য৫০ কিমি (৩১ মা)
নিষ্কাশন


লিয়ারি নদী (উর্দু: لیاری ندی ‎‎) একটি ছোট নদী, যা পাকিস্তানের অতিমহানগরী করাচির উত্তর হতে পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়েছে। নদীটি ম্যানোরা চ্যানেল দিয়ে আরব সাগরে পতিত হয়েছে।[১] এটি করাচির প্রধান দুটি নদীর একটি। অন্য নদীটির নাম হল মালির নদী। লিয়ারি নদীটি প্রায় ৫০ কিলোমিটার বা ৩০ মাইল দীর্ঘ। মৌসুমী নদী হিসাবে এটি জলাবদ্ধ অঞ্চল থেকে বৃষ্টির সংগৃহীত পানি বহন করে থাকে।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

৭০-এর দশক অবধি নদীটির তীরে কৃষিকাজ হত। তখন নদীটি করাচি শহরের পানীয় জল এবং টাটকা মাছ এর উৎস ছিল।[৩] তবে ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ সাম্রাজ্য ভারতে উপনিবেশ গঠন করলে থেকে করাচিকে পাকিস্তানের রাজধানী হিসাবে ঘোষিত করা হয়। এ সময়, বিভিন্ন ভারতীয় রাজ্য তথা পাকিস্তানের অন্যান্য প্রদেশ থেকে আগত শরণার্থীদের একটি বিশাল অংশ এই শহরে বসবাস করতে এসেছিল। নগরীর অর্থনীতি, শিল্প এবং জনসংখ্যার দ্রুত বিকাশের সাথে সাথে নদীর বাস্তুতন্ত্রের রূপান্তর ঘটে এবং এটি ধীরে ধীরে নগর বর্জ্য, নর্দমা ও শিল্প বর্জ্যগুলোর দ্বারা দূষিত হতে থাকে।

নদী পুনঃজীবিতকরণ প্রকল্প[সম্পাদনা]

নদীর আশেপাশে বহু বিচ্ছিন্ন জনবসতি গড়ে উঠলে মাঝে মাঝে বন্যার ফলে মানুষ ও সম্পত্তির ক্ষতি হত। বিশেষত, ১৯৭৭ সালে মুষলধারে বৃষ্টিপাতের কারণে যে বন্যা বিপর্যয় হয়েছিল, তার পরে সরকার নদীর তীরে বন্যার বাঁধ তৈরির প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেছিল। ১৯৮৬ সালে শহরের মধ্য দিয়ে একটি এক্সপ্রেসওয়ে তৈরির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল যা লিয়ারি নদীর তীর ধরে গড়ে তোলা হবে। পরিকল্পনাটি পরিত্যাগ করা হয়েছিল কারণ একটি আনুমানিক ১ লাখ লোককে স্থানান্তরিত করতে হত। [৪] এ কারণে ১৯৯০-এর দশকে বন্যার ঘটনা অব্যাহত ছিল।

লিয়ারি এক্সপ্রেসওয়ে[সম্পাদনা]

লিয়ারি এক্সপ্রেসওয়ে - রুটের মানচিত্র

প্রকল্পটি নদীর উভয় তীরে চলমান এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের প্রসারিত একটি ১৫ কিলোমিটার বা ১০.২৫ মাইল প্রসারিত অংশটি উত্তর বাইপাসের একটি বাড়তি বা বিকল্প পথ হিসাবে করাচি শহর দিয়ে করাচি বন্দরের সাথে যোগ করা হয়েছে। কিন্তু কাজটি জনসম্মতি সম্মতি ছাড়াই ২০০২ সালে শুরু হয়েছিল। ফলে অপরিকল্পিত জনবসতির কারণে প্রচুর সংখ্যক বাড়িঘর এবং স্কুল ভেঙে ফেলা হয়েছিল। ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠী, সুশীল সমাজ এবং এনজিও দ্বারা এই প্রকল্পটির বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ উঠেছিল। যে কারণে অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত ব্যয় ছাড়াও কমপক্ষে দুই লাখ পরিবারকে উন্নয়ন সাইট থেকে বাস্তুচ্যুত করতে হয়।[৫] স্থানীয় কর্মী ও সংস্থাগুলোও বেশ কয়েকটি ব্যয়বহুল বিকল্প প্রস্তাব করেছিলেন। তবে সরকার প্রকল্পটি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে শহরের উপশহর হকের উপসাগর এবং তাইজার টাউনের উদ্দেশ্য নির্মিত অঞ্চলে স্থানান্তরিত করার জন্য স্থান পরিবর্তন পরিকল্পনা হিসাবে লিয়ারি এক্সপ্রেসওয়ে পুনর্বাসন প্রকল্পের সংযোজন সহ প্রকল্পটি অব্যাহত রেখেছে।

অন্যান্য উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ[সম্পাদনা]

লিয়ারি এক্সপ্রেসওয়ের উচ্ছেদ ও পুনর্বাসন ব্যতীত গুলবার্গ, উত্তর নাজিমবাদ, সদর, জামশেদ, গুলশান-ই-ইকবাল এবং লিয়াকতাবাদ প্রভৃতি নদীর তীরবর্তী অন্যান্য শহরেও লিয়ারি নদী উন্নয়ন[৬] প্রকল্পের আওতায় পুনর্বাসনের পরিকল্পনা করা হয়েছে।[৭]

দূষণ[সম্পাদনা]

এই নদীপথে আরব সাগরে প্রবাহিত হওয়া পানির আনুমানিক পরিমাণে ২০০ মিলিয়ন ইম্পেরিয়াল গ্যালন বা ৯,০৯.২১৮ মিলিয়ন লিটার[৮] এই নদীর মূল অবদান রয়েছে।[৯] এই নদীর স্বাদু পানির একমাত্র উৎস হল বৃষ্টিপাত। নদীর তীরে অবস্থিত চামড়ার ট্যানিং ইউনিট, ফার্মাসিউটিক্যালস, পেট্রোকেমিক্যালস, শোধনাগার, রাসায়নিক, টেক্সটাইল, কাগজ এবং সজ্জা, ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস এবং তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র সহ বিপুল সংখ্যক শিল্প নিয়মিত তাদের অপরিশোধিত শিল্প বর্জ্য নদীতে নিষ্কাশন করে। নদীর জলে ক্রমবর্ধমান পরিমাণে জৈব পুষ্টির অভাবের কারণে উপকূলীয় বালুচর বরাবর সামুদ্রিক বাস্তুসংস্থান আশংকাজনকভাবে প্রভাবিত হয়েছে।

জলোচ্ছ্বাসের প্রভাব ছড়িয়ে পড়েছে করাচি উপকূলে এমনকি ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চলেও[১০] এছাড়াও ক্ষতিকর প্রভাব প্রমাণিত হয়েছে জীববৈচিত্র্য এর সামুদ্রিক প্রজাতি করাচী মাছ হারবারসহ[১১] সবুজ সাগর কাছিম, সামুদ্রিক পাখি এবং সামুদ্রিক স্তন্যপায়ী প্রাণিদের উপর।[১২]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Rivers of Sindh
  2. S Nazneen and F Begum (1988) Hydrological studies of Lyari River. Pakistan Journal of Scientific and Industrial Research. Vol. 31, No. 1, pp. 26-29.
  3. R Asif (2002), Lyari Expressway: woes of displaced families. Dawn (newspaper). 8 August. Retrieved on 10 January, 2008
  4. Z Mustafa (2006), "Lyari Expressway: Boon or Bane", Dawn (newspaper). 8 March 2006. Retrieved on 10 January, 2008
  5. A Hasan (2005), The political and institutional blockages to good governance: The case of the Lyari expressway in Karachi, Environment and Urbanization, Vol. 17, No. 2, pp.127-141
  6. D E Dowall (1991), The Karachi Development Authority: Failing to Get the Prices Right. Land Economics, Vol. 67, No. 4, pp. 462-471
  7. Lyari Expressway in Pakistan: Violence and Evictions. Urban Resource Centre.
  8. N Burt (1997), Environmental Assessment and Protection of Karachi Harbour
  9. B U Haq, G Kullenberg, and J H Stel (eds.) (1997), Coastal Zone Management Imperative for Maritime Developing Nations (Coastal Systems and Continental Margins). Springer.
  10. M Beg, N Mahmood, S Naeem, and A Yousufzai (1984) Land-based pollution and the marine environment of Karachi coast. Pakistan Journal of Scientific and Industrial Research. Vol. 27, No. 4, pp.199-205.
  11. S Saifullah and M Moazzam (1978) Species Composition and Seasonal Occurrence of Centric Diatoms in a Polluted Marine Environment. Pakistan Journal of Botany Vol 10, No 1, p 53-64, June.
  12. A Hasan and S I Ahmad (2006), Some Observations on Birds and Marine Mammals of Karachi Coast. Zoological Survey of Pakistan, 17. pp. 15-20

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]