বিডিআর বিদ্রোহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বিডিআর বিদ্রোহ
Army Tank pointing Towards BDR headquarters.jpg
তারিখ২৫ ফেব্রুয়ারি –২ মার্চ ২০০৯
অবস্থানঢাকা, বাংলাদেশ
অবস্থা বিডিয়ার জওয়ানদের আত্নসমপর্ন
যুধ্যমান পক্ষ

বাংলাদেশ বাংলাদেশ

বাংলাদেশ বাংলাদেশ

সেনাধিপতি

বাংলাদেশজেনারেল. মঈন উদ্দিন আহমেদ

বাংলাদেশমেজর.জেনারেল আসহাব উদ্দিন চৌধুরী
শক্তি
অজানা ১,২০০ বিদ্রোহী
হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতি
৫৭ নিহত,[১] ৬ নিখোজ[২] ৮ জন নিহত,[২] ২০০ জন বন্দী[৩]
৭ বেসামরিক নিহত[৪][৫]

বিডিআর বিদ্রোহ হলো ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পিলখানায় তৎকালিন বিডিআরদের একটি গ্রুপ দ্বারা সংগঠিত বিদ্রোহ। বিদ্রোহের পর সংস্থাটির নাম বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বা সংক্ষেপে বিজিবি করা হয়েছে। বর্তমানে বিজিবি নামে সংস্থাটি পরিচিত। এটি একটি আধা-সামরিক বাহিনী যার প্রধান কাজ বাংলাদেশর সীমানা পাহারা দেয়া। সে হিসেবে এরা সীমান্ত রক্ষী বাহিনাী নামেও পরিচিত। বিদ্রোহী বিডিআর সৈন্যরা পিলখানায় বিডিআর সদর দফতর দখল করে বিডিআরের মহাপরিচালক শাকিল আহমেদসহ ৫৬ জন অন্যান্য সেনা কর্মকর্তা ও ১৭ জন বেসামরিককে হত্যা করে। তারা বেসামরিক লোকদের উপর গুলি চালিয়েছিল, তাদের অনেক অফিসার এবং তাদের পরিবারকে জিম্মি করেছিল, স্থাপনা ও সম্পাদ ভাংচুর করেছিল এবং মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নিয়েছিল। বিদ্রোহের দ্বিতীয় দিনের মধ্যে বিডিআর ক্যাম্প আছে এমন অন্য ১২ শহর এবং শহরে অশান্তি ছড়িয়ে পড়েছিল।[৬][৭] সরকারের সাথে একাধিক আলোচনা ও আলোচনার পরে বিদ্রোহীরা অস্ত্র সমর্পণ করে এবং জিম্মিদের মুক্তি দেয়[৮] এ বিদ্রোহের অবসান ঘটে।[৯]

২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ১৬১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে; আরও ২৫ জন বিদ্রোহে জড়িত থাকার কারণে তিন থেকে দশ বছরের মধ্যে কারাদণ্ড পেয়েছিল। আদালত অভিযুক্ত ২৭৭ জনকেও খালাস দিয়েছিল। মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ ওয়াশিংটন, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এবং জাতিসংঘের মানবাধিকার হাইকমিশন[১০][১০][১১][১১] অভিযোগ অনুসারে এই বিচারগুলি আইনজীবিদেরকে বিচারকাযে পর্যাপ্ত সময় দেয়া হয়নি। "নিষ্ঠুর প্রতিশোধের আকাঙ্ক্ষাকে সন্তুষ্ট করার জন্য বিচার কাজ সাজানো হয়েছে" বলে অভিযোগ করা হয়েছে।[১০]

প্রথম দিন[সম্পাদনা]

২৫ শে ফেব্রুয়ারী ২০০৯-এ ধানমন্ডি এ সড়কের নিকটবর্তী সাতমসজিদ রোডের উপরে অবস্থিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মিমি জেডপিইউ -১৪.৫৫
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ এ আবাহনী মাঠের পাশে একটি ট্যাঙ্কের অ্যারে অপেক্ষা করছে
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ এ ধানমন্ডি রোডের পশ্চিম প্রান্ত থেকে স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে সাতমসজিদ রোডের উপরে ব্যারিকেড দেখা যায়,

বার্ষিক "বিডিআর সপ্তাহ" এর দ্বিতীয় দিনে শুরু হয়েছিল বিদ্রোহ,[১২] এর আগের দিন তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এটি উদ্বোধন করেছিলেন। "দরবার হল" মিলনায়তনে অধিবেশন শুরু হওয়ার সাথে সাথে বেশ কয়েকজন জওয়ান (প্রাইভেট) উচ্চ পদস্থ সেনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখেন, এবং বিডিআরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ বক্তব্য রাখছিলেন। তারা বিডিআর কমান্ড থেকে সেনা কর্মকর্তাদের অপসারণ এবং বিডিআর সৈন্যদের সমান অধিকারের দাবি জানিয়েছিল।[৬] এর পরপরই বিদ্রোহীরা মহাপরিচালক এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মিলনায়তনের অভ্যন্তরে জিম্মি হিসাবে গ্রহণ করে এবং পরে তাদের উপর গুলি চালায়। তারা সদর দফতরের প্রধান প্রবেশদ্বারগুলিতে ভারী অস্ত্রশস্ত্র প্রস্তুত করে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) বিডিআর সদর দফতরের আশেপাশে শক্ত অবস্থান গ্রহণ করে।[১৩]

বিডিআরের মহাপরিচালক শাকিল আহমেদ বিদ্রোহের প্রথম দিনেই হত্যার শিকার হন। আরো কয়েক ডজন বিডিআর সিনিয়র কমান্ডারকে হত্যা করা হয়, যখন বিদ্রোহীরা অফিসারদের বাসভবনে হামলা করে, তখনই আহমদকে হত্যা করে। তারা আহমেদের বাড়িতেও অভিযান চালিয়ে মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে।[৬][১৪] অতিরিক্ত ক্রসফায়ারে ৭ জন বেসামরিক লোককে হত্যা করা হয়।[৪][১৫]

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ ফেব্রুয়ারি সেনাবাহিনী অফিসার হত্যা, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে লুটপাট ও অন্যান্য অপরাধের সাথে জড়িত ব্যতীত বিদ্রোহীদের জন্য সাধারণ ক্ষমার প্রস্তাব দেন।[১৬]

বিদ্রোহীরা বিডিআরের উচ্চ পদস্থ পদগুলো থেকে নিয়মিত সেনা কর্মকর্তাদের প্রত্যাহারসহ ২২ দফা দাবি উত্থাপন করে। পরিবর্তে, তারা চেয়েছিলেন আসল বিডিআর সদস্যদের পদ থেকে পদোন্নতি দিয়ে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা করা হোক। তাদের দাবি, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস পরীক্ষার ভিত্তিতে তাদের কর্মকর্তাদের বাছাই করা হোক। বেসরকারী টেলিভিশনগুলোর সাথে কথা বলার সময় বিডিআর জওয়ানরা অভিযোগ করেছিল যে বিডিআরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অপারেশন ডাল-ভাত কর্মসূচি থেকে সেনা কর্মকর্তাদের বেতন বোনাস আত্মসাৎ করার এবং ২০০৮ সালে ২৯ শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে অতিরিক্ত দায়িত্ব থেকে ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিল। অপারেশন ডাল-ভাত হ'ল বিডিআর দ্বারা পরিচালিত একটি কল্যাণ কর্মসূচি যা দরিদ্রদের জন্য চাল এবং অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস সরবরাহ করে।[১৭] অন্যান্য দাবির মধ্যে ছিলো শতভাগ রেশনিং কার্যক্রম শান্তিরক্ষা মিশনে বিডিআর সৈন্যের পরিচয় এবং বিডিআর সদস্যদের সামগ্রিক কল্যাণ।[১৮]

দ্বিতীয় দিন[সম্পাদনা]

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন কিছু বিদ্রোহীকে এই আশ্বাস দিয়ে অস্ত্র ছেড়ে দিতে রাজি করেছিলেন যে সেনাবাহিনী বিডিআর সদর দফতরে যাবে না।[১২] ফলস্বরূপ, বিদ্রোহীরা তাদের অস্ত্র সমর্পণ করে এবং জিম্মিদের মুক্তি দিতে শুরু করে।[১৬] তবে, ঢাকা যেমন ঘটছিল, বিডিআরের অন্যান্য সদস্যদের বিদ্রোহ কমপক্ষে আরও ১২ টি শহরে থাকা বিডিআর ক্যাম্পগুলোতেও এমনটি শুরু হয়েছে। এরমধ্যে চট্টগ্রামফেনী, ভারতের সঙ্গে পূর্ব সীমান্তে মধ্যে রাজশাহী উত্তর-পশ্চিমে এবং সিলেট উত্তর উল্লেখযোগ্য।[৭]

২৬ ফেব্রুয়ারী ২০০৯-এ আবাহনী মাঠের নিকটবর্তী ট্যাঙ্কগুলির পিছনে সেনাবাহিনীর একত্র

২৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে, ৪৬টিরও বেশি স্থানে বিডিআর ফাঁড়িতে দুর্দান্ত আন্দোলনের লক্ষণ দেখা গেছে। বিডিআর জওয়ানরা দাবি করেছিল যে সাতক্ষীরা, দিনাজপুর, নওগাঁ ও নেত্রকোনায় যশোর বিডিআর গ্যারিসনের পাশাপাশি বড়বড় বিডিআর প্রতিষ্ঠানগুলো দখল করে। [১৯] সেনাবাহিনী অবস্থান নেওয়ায় সেনা ট্যাঙ্ক এবং এপিসি বাইরে আনা হয়েছিল, তবে বিডিআরের উচ্চ পদস্থ সেনা কর্মকর্তারা জিম্মি থাকায় তারা অভিযান করতে পারেনি। বিডিআর সদর দফতরের অভ্যন্তরে ভারী অস্ত্র ছিল যা বিদ্রোহীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ছিল। তারা রাস্তায় ট্যাঙ্কগুলি নেমে সেনাবাহিনী চূড়ান্ত হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। প্যারাট্রুপস এবং কমান্ডো প্রস্তুত ছিল।

গণমাধ্যমের টিকার অনুসারে, প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার পরে এবং বিডিআর কর্মীদের আশ্বাস দিয়েছিলেন যে তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হবে না বলে বিডিআর সদস্যরা আবারও অস্ত্র সমর্পণ শুরু করেন। তবে তিনি বিদ্রোহীদের অবিলম্বে অস্ত্র না দিয়ে এবং সমস্ত শত্রুতা বন্ধ না করা হলে "কঠোর পদক্ষেপ" সম্পর্কে সতর্কও করেছিলেন।[২০] শেখ হাসিনার ভাষণের পরে সেনাবাহিনী বিডিআর সদর দফতরের সামনে ট্যাঙ্ক মোতায়েন করেছিল।[২১] এর পরে, বিদ্রোহীরা তাদের অস্ত্র সমর্পণ করে প্রধানমন্ত্রীর মিডিয়া মুখপাত্রের বর্ণনা অনুসারে।[২২] আত্মসমর্পণের পরে সশস্ত্র পুলিশ ব্যাটালিয়ন বিডিআর সদর দফতর দখল করে।[২৩]

তৃতীয় দিন[সম্পাদনা]

২৭ফেব্রুয়ারি বেসামরিক পোশাকে পিলখানায় তাদের সদর দফতর থেকে পালানোর চেষ্টা করতে গিয়ে প্রায় ২০০ বিদ্রোহীকে গ্রেপ্তার করা হয়।[২৪] সেনাবাহিনীর ট্যাঙ্ক এবং সৈন্যরা বিডিআরের সদর দফতরে প্রবেশ করেছিল।[২৫] স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আশ্বাস দিয়েছিলেন যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে সেনাবাহিনী প্রবেশ করেছে। তিনি আরও বলেছিলেন, বিডিআর সদস্যদের সদর দফতরের একটি নিরাপদ স্থানে রাখা হয়েছিল এবং সেনাবাহিনী উদ্ধার ও তল্লাশি অভিযানে সহায়তা করতে প্রবেশ করেছে।[২৬] বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ট্যাঙ্কগুলি ঢাজুড়ে একটি শক্তির শোতে গড়িয়ে পড়ে, যা বাকি বিদ্রোহীদের অস্ত্র জমাতে এবং আত্মসমর্পণ করতে রাজি করেছিল।[২৭] ঢাকার বাইরে কমপক্ষে ১২ বিডিআর ঘাঁটিতে বিদ্রোহ বাতিল করা হয়েছে কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়। সদর দফতরের ভিতরে নিখোঁজ কর্মীদের অনুসন্ধান অব্যাহত থাকায় আরও ৪২ জন মরদেহ পাওয়া গিয়েছিল। প্রথমে ধারণা করা হয়েছিল যে ১৩০ জনেরও বেশি নিয়মিত সেনা কর্মকর্তা বিদ্রোহীদের হাতে নিহত হয়েছেন।[২৮] ২৭ ফেব্রুয়ারি অবধি বিডিআর প্রধান মেজরের মরদেহসহ সরকারি মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে[২৯] ৫৪।[২৯] বিডিআর প্রধান জেনারেল শাকিল আহমেদকে ৪১ জন সেনা কর্মকর্তার তথ্য প্রথম দিকে পাওয়া গেছে। বিডিআর হাসপাতালের কাছে ভিতরে একটি গণকবর পাওয়া গেছে। সাত ফুট গভীর গর্তের মধ্যে মোট ৪২ জন অফিসারকে মাটিচাপা দেয় বিদ্রোহীরা। কিছু লাশ ড্রেন টানেলের মধ্যে ফেলে দেওয়া হয়েছিল। যে ৫৮ টি লাশ পাওয়া গেছে তার মধ্যে ৫২ জন সেনা কর্মকর্তা। ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু করে সরকার তিন দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করে।[৩০]

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ এ বিকেলে মিডিয়া কর্মী, সশস্ত্র বাহিনী এবং জনগণের সদস্যরা ৪ র্থ বাংলাদেশ রাইফেলসের প্রধান প্রবেশদ্বারটি দিয়ে অপেক্ষা করছিলেন।

চতুর্থ দিন[সম্পাদনা]

বিডিআর প্রধানের স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করা হওয়ায় আরও তিনটি গণকবর পাওয়া গেছে। মৃতদেহগুলির অনেকগুলিই খারাপভাবে পচে গিয়েছিল এবং তাদের সনাক্তকরণ কঠিন ছিল। মিলিটারি ইন্টেলিজেন্স (এমআই) ঘোষণা করেছে যে বিডিআর সদর দফতরে বিদ্রোহের মৃতদেহের সংখ্যা ৬৩ জন, এবং ৭২ সেনা কর্মকর্তা এখনও নিখোঁজ রয়েছেন। ৬৩ টি লাশের মধ্যে ৪৭ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। সেনাবাহিনী যারা লাশ না পাওয়া পর্যন্ত মারা গিয়েছিল তাদের জানাজা স্থগিত করেছিল। আধাসামরিক সদস্যরা বাহিনী বিদ্রোহ থেকে বেঁচে যান।[৩১]

সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত বিডিআরের পরিচালকবিগ্রেডিয়ার জেনারেল মঈনুল হোসেন বলেন, তাদের তাত্ক্ষণিক কাজ হবে আধাসামরিক বাহিনীর "কমান্ড কাঠামো পুনরুদ্ধার"।[৩২]

জেনারেল সেনাবাহিনীর সেকেন্ড-ইন-কমান্ড এমএ মুবিন বলেছেন, হত্যাকারীদের শাস্তি দেওয়া হবে। এএফপি জানিয়েছে, "বিডিআর সেনারা যারা এই বর্বর ও ভয়াবহ কান্ডে অংশ নিয়েছিল তাদের ক্ষমা করা যাবে না এবং তাদেরকে ক্ষমা করা হবে না", তিনি এ বক্তব্যটি বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছে।[৩৩]

বিদ্রোহের পরে যারা কোনো প্রকার ছাড় বা অনুমতি ছাড়াই তাদের কর্মস্থল থেকে অনুপস্থিত ছিলেন তাদেরকে বাংলাদেশ রাইফেলস (বিডিআর) সদস্যদের বিডিআর সদর দফতর বা নিকটতম সেক্টর সদর দফতর বা ব্যাটালিয়নের সদর দফতর বা থানায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছিল। এ আহবানে প্রায় ১০০ জন সাড়া দিয়েছেন।[৩৪]

হতাহত[সম্পাদনা]

মোট ৭৪ জন নিহত হয়েছিল।[৩৫] তাদের মধ্যে ৫৭ জন সেনা কর্মকর্তা বিডিআর পদে পদে পদে ছিলেন। বিডিআরের প্রধান, ডেপুটি চিফ এবং ১৬ সেক্টর কমান্ডার বিদ্রোহের সময় মারা গিয়েছিলেন।[৩৬]

পরিণাম[সম্পাদনা]

২ মার্চ ২০০৯ তারিখে ৪৯ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ও জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল, তাদের পুরো সেনা সম্মান দিয়ে সমাহিত করা হয়েছিল; নিহত মহাপরিচালকের স্ত্রীকেও একই দিন সমাধিস্থ করা হয়েছিল।[৩৭][৩৮][৩৯] সরকার বিদ্রোহের পেছনের কারণগুলি নির্ধারণের জন্য তৎকালিন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনকে সভাপতিত্ব করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেই তার নিজের মন্ত্রণালয়ের একটি ঘটনার তদন্তের দায়িত্ব নেয়ায় বিরোধীদল ও সুশীলদের পক্ষ থেকে বিষয়টির নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, এর কারণে পুরো ঘটনাটি নিরপেক্ষভাবে তদন্ত হবে না। তারা এ তদন্ত কমিটি সংস্কারের পক্ষে জোর দাবি জানিয়েছিলেন। [৪০] বাংলাদেশ সেনাবাহিনী একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করে যা ৩ মার্চ থেকে কার্যক্রম শুরু করে। সেনাবাহিনী, র‌্যাব এবং পুলিশের সহায়তায় বিডিআর বিদ্রোহীদের ধরতে "অপারেশন রিবেল হান্ট" শুরু করে।[৪১] সরকার বাংলাদেশ রাইফেলসের নাম ও কাঠামো পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য সারা দেশে সেনা মোতায়েন করা হয়। তদন্তে সহায়তা করার জন্য সরকার এফবিআই এবং স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের কাছে সাহায্য চায়।[৪২]

সেনাবাহিনীর উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী[সম্পাদনা]

২০০৯ সালের ১ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেনাকুঞ্জ সেনা কমিউনিটি সেন্টারে গিয়ে সেনা সদস্যদের পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করেন।

বিচার ও সাজা[সম্পাদনা]

প্রথম গ্রেফতারের পরেই ৩৭তম তম রাইফেলস ব্যাটালিয়নের সদস্যদের বিচার করা হয়েছিল ১৩ নভেম্বর ২০১০ সালে। তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্রাগার থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ লুট করা এবং তাদের অস্ত্র গুলি চালানো, নগরীতে আতঙ্ক সৃষ্টি করা, বিডিআর ডিজি মেজরের লাশের ওপর ন্যাক্কারজনক আচরণে অভিযোগ আনা হয়েছিল। তারা জেনারেল শাকিল আহমেদকে নিয়ে গণমাধ্যমের সামনে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন বলে আদালতে অভিযোগ উত্থাপন করা হয়। [৪৩] ৩৯ তম রাইফেলস ব্যাটালিয়নের বিডিআর সদস্যদের বিরুদ্ধে আগ্নেয়াস্ত্র লুট করা, গুলি চালানো এবং ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা বিদ্রোহীদের পক্ষ নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ করা হয়েছিল।[৪৪] ২০১১ সালের জানুয়ারী পর্যন্ত হাজার হাজার বিদ্রোহের জন্য বাংলাদেশে বিচার হয়েছে।[৪৫]

বিদ্রোহীদের ওপর রিমান্ডে নির্যাতন শারিরীক নির্যাতন বৈদ্যুতিক শকসহ প্রায় ৫০ জনের কারাগারেই মৃত্যু হয়। এছাড়া আত্মহত্যাসহ আরও অনেকগুলি মামলায় হেফাজতে তাদের ব্যাপক নির্যাতনের অভিযোগ উঠে। নির্যাতনের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের কনভেনশনের পক্ষ হলেও এই নিরাপত্তা বাহিনী বাংলাদেশে নির্যাতন নিয়মিত ব্যবহার করে। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এবং অন্যান্যরা দীর্ঘদিন ধরে তার সেনাবাহিনী, র‌্যাব এবং দেশের প্রধান গোয়েন্দা সংস্থা, বাহিনী গোয়েন্দা অধিদপ্তর জেনারেলসহ তার সুরক্ষা বাহিনী দ্বারা বাংলাদেশে নির্যাতনের পদ্ধতিগত ব্যবহারের নথিভুক্ত করেছে।[১১][৪৬]

প্রায় ৬ হাজার সৈন্যকে গণ-বিচারে আদালত দোষী সাব্যস্ত করে এবং বিদ্রোহে অংশ নেওয়ার জন্য জরিমানা সহ চার মাস থেকে সাত বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের দণ্ড দেয়া হয়।[৪৭][৪৮] ৮৮২ জন সেনা যারা তাদের সিনিয়র অফিসারদের হত্যা করেছিল বলে অভিযোগ করা হয়েছিল এবং তাদের হত্যা, নির্যাতন, ষড়যন্ত্র এবং অন্যান্য অপরাধের জন্য একটি বেসামরিক আদালতে বিচার করা হয়েছিল।[৪৯]

৫ নভেম্বর ২০১৩, ঢাকা মহানগর দায়রা আদালত ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ১৬১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে; ২৫৬ জনকে তিন থেকে দশ বছরের মধ্যে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে, এবং ২৭৭ জনকে খালাস দেওয়া হয়েছে।[৩৫][৫০][৫১] দোষী সাব্যস্ত হওয়া আইনজীবীদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে তারা এই রায়ে আপিল করবেন।[৫২] কারাগারে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সংসদ সদস্য নাসিরউদ্দিন আহমেদ পিন্টুও ছিলেন।[৫৩]

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের একজন মুখপাত্র এই গণ-বিচারকে "আন্তর্জাতিক আইনি মানদণ্ডের বিরোধী" হিসাবে বর্ণনা করেছেন।[৫২] মানবাধিকার বিষয়ক জাতিসংঘের হাই কমিশনার নাভি পিলি এই বিচারের ত্রুটিগুলির দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন এবং এটিকে "আইনজীবীদের পর্যাপ্ত ও সময়োপযোগী সহযোগিতা না করাসহ জাতীয় অনিয়মের সাথে দাঙ্গা" বলে অভিহিত করেছেন।[১০] অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের একজন মুখপাত্র এই বাক্যগুলির নিন্দা করে বলেছেন যে "নিষ্ঠুর প্রতিশোধের ইচ্ছা পূরণ করার জন্যই বিচার কার্যক্রমকে সাজানো হয়েছে"। তাদের অনুমান অনুসারে অভিযুক্তদের মধ্যে কয়েকজন মারা গেছেন বলে জানা গেছে। [৪৯]

বিদ্রোহীদের উপর অন্যায়ভাবে গণ-বিচারের রায় দেওয়া হয়েছে, যা অপরাধ নির্ধারণের জন্য কিছুই করেনি এবং গণ-মৃত্যুদণ্ডের রায় দেওয়া হয়েছে, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এক প্রতিবেদনে বলেছে যে "প্রায় ,৬ হাজার সন্দেহভাজনদের গণ-বিচারের বিষয়টি ন্যায্য বিচারের উদ্বেগ উত্থাপন করে"। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ-এর এশিয়া পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামস বলেছিলেন, "ভয়াবহ সহিংসতার জন্য দায়ী যারা dead৪ জন নিহত হয়েছেন তাদের বিচারের জন্য বিচার করা উচিত, তবে নির্যাতন ও অন্যায় বিচারের দ্বারা নয়।" "বিদ্রোহের বিষয়ে সরকারের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া ছিল আনুপাতিকভাবে এবং জনবহুল অঞ্চলে সেনাবাহিনীকে অপ্রতিরোধ্য শক্তি প্রয়োগের দাবি অস্বীকার করে জীবন বাঁচানো হয়েছিল। তবে তার পর থেকে এটি শারীরিক নির্যাতন ও গণ-পরীক্ষার মাধ্যমে যথাযথ প্রতিশোধ নিতে সুরক্ষা বাহিনীকে মূলত সবুজ সংকেত দিয়েছে। "[১১]

নিহত সেনা কর্মকর্তা[সম্পাদনা]

  1. মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ
  2. ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জাকির হোসেন
  3. ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ আব্দুল বারী
  4. কর্নেল মো. মজিবুল হক
  5. কর্নেল মো. আনিস উজ জামান
  6. কর্নেল মোহাম্মদ মসীউর রহমান
  7. কর্নেল কুদরত ইলাহী রহমান শফিক
  8. কর্নেল মোহাম্মদ আখতার হোসেন
  9. কর্নেল মো. রেজাউল কবীর
  10. কর্নেল নাফিজ উদ্দীন আহমেদ
  11. কর্নেল কাজী এমদাদুল হক
  12. কর্নেল বিএম জাহিদ হোসেন
  13. কর্নেল সামসুল আরেফিন আহাম্মেদ
  14. কর্নেল মো. নকিবুর রহমান
  15. কর্নেল কাজী মোয়াজ্জেম হোসেন
  16. কর্নেল গুলজার উদ্দিন আহমেদ
  17. কর্নেল মো. শওকত ইমাম
  18. কর্নেল মো. এমদাদুল ইসলাম
  19. কর্নেল মো. আফতাবুল ইসলাম
  20. লেফটেন্যান্ট কর্নেল এনশাদ ইবন আমিন
  21. লেফটেন্যান্ট কর্নেল শামসুল আজম
  22. লেফটেন্যান্ট কর্নেল কাজী রবি রহমান, এনডিসি
  23. লেফটেন্যান্ট কর্নেল গোলাম কিবরিয়া মোহাম্মদ
  24. লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. বদরুল হুদা
  25. লেফটেন্যান্ট কর্নেল এলাহী মঞ্জুর চৌধুরী
  26. লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. এনায়েতুল হক, পিএসসি
  27. লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু মুছা মো. আইউব
  28. লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. সাইফুল ইসলাম
  29. লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোঃ লুৎফর রহমান
  30. লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ সাজ্জাদুর রহমান
  31. লেফটেন্যান্ট কর্নেল লুৎফর রহমান খান
  32. মেজর মো. মকবুল হোসেন
  33. মেজর মো. আব্দুস সালাম খান
  34. মেজর হোসেন সোহেল শাহনেওয়াজ
  35. মেজর কাজী মোছাদ্দেক হোসেন
  36. মেজর আহমেদ আজিজুল হাকিম
  37. মেজর মোহাম্মদ সালেহ
  38. শহীদ মেজর কাজী আশরাফ হোসেন
  39. মেজর মাহমুদ হাসান
  40. মেজর মুস্তাক মাহমুদ
  41. মেজর মাহমুদুল হাসান
  42. মেজর হুমায়ুন হায়দার
  43. মেজর মোঃ আজহারুল ইসলাম
  44. মেজর মো. হুমায়ুন কবীর সরকার
  45. মেজর মোঃ খালিদ হোসেন
  46. মেজর মাহবুবুর রহমান
  47. মোঃ মিজানুর রহমান
  48. মেজর মোহাম্মদ মাকসুম-উল-হাকিম
  49. মেজর এস এম মামুনুর রহমান
  50. মেজর মোঃ রফিকুল ইসলাম
  51. মেজর সৈয়দ মো. ইদ্রিস ইকবাল
  52. মেজর আবু সৈয়দ গাযালী দস্তগীর
  53. মেজর মুহাম্মদ মোশারফ হোসেন
  54. মেজর মোহাম্মদ মমিনুল ইসলাম সরকার
  55. মেজর মোস্তফা আসাদুজ্জামান
  56. মেজর তানভীর হায়দার নূর
  57. ক্যাপ্টেন মোঃ মাজহারুল হায়দার

.[৫৪]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "657 jailed for Peelkhana mutiny, 9 freed"bdnews24.com। ২৭ জুন ২০১১। ১৯ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১৫ 
  2. Julfikar Ali Manik (3 March 2009) "6, not 72, army officers missing", দ্য ডেইলি স্টার Internet edition. Retrieved 6 November 2013
  3. "Bangladesh mutineers 'arrested'"বিবিসি নিউজ। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০১০ 
  4. "Dhaka mutineers surrender weapons, troops move in"। Reuters। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  5. "Dozens killed in Bangladesh mutiny - World news - South and Central Asia | NBC News"। MSNBC। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১২ 
  6. "আর্কাইভকৃত অনুলিপি" বিডিআর জওয়ানদের বিদ্রোহ নিহতের সংখ্যা ১৫ বলে দাবি * মহাপরিচালক শাকিল বেঁচে নেই * জিম্মি কর্মকর্তাদের পরিণতি অজানাদৈনিক প্রথম আলো। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। পৃষ্ঠা 1। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ 
  7. "Bangladesh guard mutiny 'spreads'"। বিবিসি নিউজ। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০১০ 
  8. "Bangladesh guard mutiny 'is over'"। বিবিসি নিউজ। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  9. "অবশেষে আত্মসমর্পণ"। প্রথম আলো। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  10. "UN's Pillay slams Bangladesh death sentences over mutiny"। বিবিসি নিউজ। ৬ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৩ 
  11. "হিউম্যান রাইটস ওয়াচ Report on Bangladesh Rifles Mutiny Trial"। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। ৪ জুলাই ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১৪ 
  12. Saeed Ahmed (২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯)। "Dozens feared dead in Bangladesh mutiny"। CNN। 
  13. Mark Dummett (২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯)। "Bangladesh becomes battle zone"। বিবিসি নিউজ। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  14. "Bangladesh Says Security Unit Uprising Leaves 49 Dead (Update2)"Bloomberg। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  15. "Bangladesh troops find mass grave"। বিবিসি নিউজ। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০১০ 
  16. "Bangladesh mutineers lay down arms"। আল জাজিরা। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  17. Shariful Islam; Sharier Khan (৬ নভেম্বর ২০১৩)। "Tragedy sowed by Operation Dal-Bhat"দ্য ডেইলি স্টার 
  18. ক্ষুব্ধ জওয়ানদের দাবি ও নানা অভিযোগদৈনিক প্রথম আলো। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  19. "Reports of BDR mutiny across the country"। bdnews24.com। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  20. "Go back to barracks right now or I'll take any step: PM"দ্য ডেইলি স্টার। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  21. "Tanks deployed over Dhaka mutiny"। বিবিসি নিউজ। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  22. "Tanks deployed over Dhaka mutiny"। Reuters। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  23. "BDR mutiny over as tanks roll in"দ্য ডেইলি স্টার। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  24. "Bangladesh mutineers 'arrested'"। বিবিসি নিউজ। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  25. "Army joins search at BDR HQ'"দ্য ডেইলি স্টার। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  26. "Troops enter BDR HQ at PM's instruction: Sahara"দ্য ডেইলি স্টার। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  27. "Bangladesh mutiny ends after tanks enter capital"The Jerusalem Post 
  28. "42 more bodies retrieved from BDR headquarters"দ্য ডেইলি স্টার। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  29. "Death toll hits 54 in Bangladesh mutiny"। ইয়াহু! নিউজ। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। ৪ মার্চ ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  30. গণকবরে ৩৮ সেনা কর্মকর্তার লাশ:তিন দিনের জাতীয় শোক, রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন হবে, উদ্ধারকাজ এখনো চলছেদৈনিক প্রথম আলো। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  31. "72 officers still remain missing"দ্য ডেইলি স্টার। ১ মার্চ ২০০৯। 
  32. "BDR chief to get command structure restored first"দ্য ডেইলি স্টার। ১ মার্চ ২০০৯। 
  33. "New Bangladesh graves discovered"। বিবিসি নিউজ। ১ মার্চ ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  34. "BDR deserters given 24 hours to rejoin"দ্য ডেইলি স্টার। ১ মার্চ ২০০৯। 
  35. "Bangladesh sentences 152 to death for 2009 mutiny"USA Today। ৫ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৩ 
  36. "Betrayal and slaughter – BDR chief, wife killed"দ্য টেলিগ্রাফ। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  37. Parveen Ahmed (২ মার্চ ২০০৯)। "Bangladesh holds state funeral for slain officers"। ঢাকা: ইয়াহু! নিউজ 
  38. Anis Ahmed (২ মার্চ ২০০৯)। "Bangladesh lowers army death toll in mutiny"Reuters, UK। ৩ মার্চ ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  39. Joe Rubin (৬ মার্চ ২০০৯)। "The Business of Bribes: Bangladesh: The Mystery of a Mutiny"Frontline। PBS। 
  40. বিডিআর বিদ্রোহ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে বাদ দিয়ে ১১ সদস্যের তদন্ত কমিটিদৈনিক প্রথম আলো। ৩ মার্চ ২০০৯। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  41. "Hunt for BDR rebels kicks off"দ্য ডেইলি স্টার। ২ মার্চ ২০০৯। 
  42. বিডিআর সদর দপ্তরের ঘটনার তদন্ত : এফবিআইসহ বিদেশি সংস্থার সাহায্য নেওয়ার উদ্যোগপ্রথম আলো। ৩ মার্চ ২০০৯। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  43. "Trial of 44 Rajshahi BDR mutineers begins"দ্য ডেইলি স্টার 
  44. "4 more arrested from 39 Rifles Battalion"। bdnews24.com। ৩০ অক্টোবর ২০১০। ২ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  45. "Troops in Dhaka court over mutiny"। আল জাজিরা। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১২ 
  46. "Bangladesh tries 800 soldiers for bloody 2009 mutiny"। বিবিসি নিউজ। 
  47. "Bangladesh convicts hundreds in mutiny case"। আল জাজিরা। ৫ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৩ 
  48. "46 BDR jawans of 29 Rifles Battalion jailed ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৫ এপ্রিল ২০১২ তারিখে" unbconnect.com
  49. "Bangladesh to execute 152 soldiers for mutiny crimes"। বিবিসি নিউজ। ৫ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৩ 
  50. Julfikar Ali Manik; Ellen Barry (৫ নভেম্বর ২০১৩)। "152 Bangladeshi Border Guards Get Death Penalty Over Revolt"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  51. Julhas Alam (৫ নভেম্বর ২০১৩)। "Bangladesh sentences 152 to death for 2009 mutiny"The Washington Post। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  52. Buncomb, Andrew (৫ নভেম্বর ২০১৩)। "152 former paramilitary soldiers sentenced to death in Bangladesh for killing 74 in mutiny"The Independent। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৩ 
  53. "Ex-BNP MP Nasiruddin Pintu dies"দ্য ডেইলি স্টার। ৩ মে ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৬ 
  54. "Officers, soldiers who were killed"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৩-১১-০৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]