বাংলার খিলজি রাজবংশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বাংলার খিলজি রাজবংশ

১২০৪ খ্রিস্টাব্দ–১২৩১ খ্রিস্টাব্দ
আনুমানিক ১২৩০ খ্রিস্টাব্দে বাংলার খলজি রাজবংশ ও আশেপাশের রাষ্ট্রসমূহের অবস্থান।[১]
রাজধানীলখনৌতি
ধর্ম
সুন্নি ইসলাম
সরকাররাজতন্ত্র
ঐতিহাসিক যুগভারতের আদি মধ্যযুগীয় রাজ্যসমূহ
• প্রতিষ্ঠা
১২০৪ খ্রিস্টাব্দ
• বিলুপ্ত
১২৩১ খ্রিস্টাব্দ
পূর্বসূরী
উত্তরসূরী
সেন রাজবংশ
ঘুরি সাম্রাজ্য
মামলুক সালতানাত (দিল্লি)

খিলজি রাজবংশ বা (বানানভেদে) খলজি রাজবংশ (বাংলা: খলজী খান্দান, ফার্সি: خاندان خلجی‎‎) বাংলায় মুসলিম শাসনের ভিত্তি স্থাপনকারী প্রথম রাজবংশ। বর্তমান আফগানিস্তানের গারমসির অঞ্চল থেকে আগত রাজবংশটি মুহাম্মাদ বিন বখতিয়ার খলজী দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। তিনি ছিলেন তুর্কি-আফগান[২][৩]ঘুরি সাম্রাজ্যের সেনাপতি। খিলজিদের শাসন ১২০৪ থেকে ১২৩১ সাল পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। তবে ১২২৭ সালে নাসিরুদ্দিন মাহমুদের দ্বারা অন্তর্বর্তীকালীন সময়টুকু বাদে। ইওয়াজ খিলজির শাসনামলে বাংলা তার প্রথম নৌবাহিনী, বন্যা প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এবং গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোডের সাথে সংযোগের মতো বড় উন্নয়নের অভিজ্ঞতা লাভ করে।

প্রতিষ্ঠা[সম্পাদনা]

খালাজরা ছিল তুর্কি বংশোদ্ভূত একটি উপজাতি যারা তুর্কিস্তান থেকে অভিবাসনের পর ২০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে আফগানিস্তানে বসতি স্থাপন করেছিল। অনেক সদস্যই তাদের উৎপত্তিস্থল গারমসিরে খুঁজে পান এবং মুহাম্মাদ বখতিয়ার খলজির নেতৃত্বে তারা ঘুরি সাম্রাজ্যের প্রাদেশিক দিল্লি সেনাবাহিনীতে নিযুক্ত হতে চেয়েছিলেন।[৪][৫][৬][৭][৮][৯] দিল্লির গভর্নর কুতুবুদ্দিন আইবেক কর্তৃক পদমর্যাদা প্রত্যাখ্যান করার পর খলজিরা পূর্ব দিকে অগ্রসর হয় যেখানে তারা বিভিন্ন সৈন্য প্লাটুনের নেতৃত্ব দেয় এবং উত্তর ভারতে তাদের জমি-জমি দেওয়া হয়।[১০]

অল্প সময়ের মধ্যে, খলজিরা প্রতিষ্ঠিত হয় এবং মুহাম্মদ বখতিয়ার খলজি সফলভাবে পূর্ব দিকে অভিযান চালাতে শুরু করেন। ১২০০ খ্রিস্টাব্দে বিহারকে পরাধীন করার পর,[১১] তার বাহিনী তিন বছর পর বাংলার নবদ্বীপে প্রবেশ করে। খলজি ১২০৩ সালে লক্ষ্মণসেনকে পরাজিত করেন, যা বাংলায় মুসলিম শাসনের সূচনা করে।[১২] পরবর্তীকালে, খলজি রাজধানী এবং প্রধান শহর লখনৌতি (গৌড়)[১৩] জয় করতে যান এবং বাংলার অনেক অংশ জয় করেন।[১৪]

প্রশাসন[সম্পাদনা]

মুহম্মদ বখতিয়ার খলজির ২০ শতকের প্রথম দিকের চিত্র।

মুহম্মাদ বখতিয়ার খলজি তার উপজাতিদেরকে ঘুরি রাজবংশ এবং এর প্রাদেশিক দিল্লির গভর্নরদের (যারা পরে দিল্লি সালতানাতের স্বাধীন মামলুক রাজবংশ গঠন করেছিলেন) থেকে প্রত্যাখ্যানের প্রতিক্রিয়া হিসাবে বাংলার নিয়ন্ত্রণ নিতে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। দিল্লি ও বাংলার মধ্যে যথেষ্ট ভৌগোলিক দূরত্বের পরিপ্রেক্ষিতে খলজিরা তাদের নিজস্ব প্রশাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করে নিজস্ব একটি স্বাধীন অঞ্চল তৈরি করেছিল। রাজবংশের উদ্বোধনী শাসক হিসাবে বখতিয়ারের সাথে, বিজিত অঞ্চলটি জায়গীরে ভাগ করা হয়েছিল যা অন্যান্য খলজি উপজাতিদের দেওয়া হয়েছিল। ইওয়াজ খলজিকে কাঙ্গোরি এবং আলি মর্দান খলজিকে দেবকোটে শাসন করার জন্য নিযুক্ত করা হয়েছিল।

বখতিয়ার তার তিব্বত অভিযান খুব দেরিতে শুরু করেননি। আর তাই রাজধানী লখনৌতি/গৌড় মুহম্মদ শিরান খলজির হাতে অর্পণ করেন। তিব্বত অভিযান ব্যর্থ হলে তিনি বাংলায় ফিরে আসেন এবং অসুস্থতার ফলে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর ফলে তিন খলজি গভর্নরের মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব শুরু হয় এবং দিল্লির মামলুক সুলতানদের আক্রমণ হয়। অবশেষে দিল্লির সাথে যুদ্ধে মুহাম্মদ শিরান নিহত হন এবং আলি মর্দান খলজি অভিজাতদের দ্বারা নিহত হন। এর ফলে ইওয়াজ খলজি রাজবংশের শাসক হিসেবে জনসমর্থন নিয়ে ফিরে আসেন।

সংঘর্ষ না থাকায় ইওয়াজ খলজি তার শাসক হিসাবে অঞ্চলটিকে উল্লেখযোগ্যভাবে বিকাশ করতে সক্ষম হন। তিনি বাংলার প্রথম নৌবাহিনী প্রতিষ্ঠা করেন, বন্যা প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা উদ্ভাবন করেন এবং লখনৌতিকে গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোডের সাথে যুক্ত করেন। তিনিই প্রথম খলজি শাসক যিনি আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন, যদিও তিনি দিল্লির সুলতান ইলতুৎমিশের সাথে বেশ কয়েকবার দ্বন্দ্বে পড়েছিলেন এবং তার সার্বভৌমত্বের বিরোধিতা করেছিলেন। খলজি শেষ পর্যন্ত ১২২৭ সালে সুলতানের পুত্র নাসিরুদ্দিন মাহমুদের হাতে যুদ্ধে নিহত হন যিনি বাংলাকে দিল্লি সালতানাতের একটি প্রদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন। দিল্লী দখলের কয়েক বছর পর আলাউদ্দিন দৌলত শাহ বিন মওদুদ খলজি ১২২৯ সালে খলজি উপজাতির নিয়ন্ত্রণ ফিরিয়ে নেন, তারপরে মালিক বলকা খলজী আঠারো মাস ধরে এই অঞ্চলটি দখল করেন এবং অবশেষে ১২৩১ সালে দিল্লির কাছে আত্মসমর্পণ করেন।[১৫]

সামরিক অভিযান[সম্পাদনা]

লক্ষ্মণসেনের বিরুদ্ধে প্রাথমিক যুদ্ধ এবং অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব ছাড়াও খলজিরা বহু বহিরাগত অভিযান শুরু করেছিল এবং প্রায়ই প্রতিবেশী রাজ্যগুলোর আক্রমণের সম্মুখীন হয়েছিল। ১২০৬ সালে বখতিয়ার তিব্বত জয় করার প্রয়াসে একটি সৈন্য সংগ্রহ করেন এবং পথে উপজাতি প্রধান আলি মেচের সমর্থন লাভ করতে সক্ষম হন। তবে অভিযান ব্যর্থ হয়। ১২০৮ সালে কুতুবুদ্দিন আইবেক আওধের গভর্নর কায়মাজ রুমিকে ভূখণ্ড পুনর্গঠনের প্রচেষ্টায় মুহাম্মদ শিরান খলজিকে সিংহাসনচ্যুত করার জন্য পাঠান। ইওয়াজ খলজির রাজত্বকালে বঙ্গ, তিরহুত এবং উৎকাল জুড়ে আক্রমণ চালানো হয়েছিল এবং খলজি অঞ্চলটি তার সর্বাধিক পরিমাণে প্রসারিত হয়েছিল।[১৫]

সাংস্কৃতিক প্রভাব[সম্পাদনা]

খলজিরা ছিল প্রথম মুসলিম রাজবংশ যারা বাংলায় শাসন করেছিল এবং এই অঞ্চলে মুসলিম সংস্কৃতিকে প্রভাবিত করতে ভূমিকা পালন করেছিল। ইওয়াজ খলজি খলজি বাংলায় ইসলামি শিক্ষার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। তিনি মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন এবং উলামাদের (ইসলামী পণ্ডিত ও শিক্ষকদের) পেনশন দিয়েছিলেন। ১২২১ সালে বীরভূমে মুসলিম ধর্ম প্রচারক মখদুম শাহের জন্য মারাগেহের ইবনে মুহাম্মদ একটি খানকাহ নির্মাণ করেছিলেন। এতে বাংলার একজন মুসলিম শাসকের কথা উল্লেখ করা প্রাচীনতম পাথরের শিলালিপি রয়েছে। খলজি মধ্য এশিয়া থেকে জালালুদ্দীন বিন জামালুদ্দিন গজনভির মতো মুসলিম প্রচারকদের বাংলায় আসার এবং তার দরবারে বক্তৃতা দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিলেন। [১০]

মুদ্রা[সম্পাদনা]

বাংলার খলজি রাজবংশ তার ঘোড়ায় সশস্ত্র শাসকের যুদ্ধের চিত্র সহ একটি উদ্ভাবনী মুদ্রা ব্যবহার করেছিল। কিংবদন্তিগুলি সাধারণত দ্বিভাষিক ছিল, নাগরী লিপি এবং আরবি লিপি ব্যবহার করে।

শাসকদের তালিকা[সম্পাদনা]

উপাধি ব্যক্তিগত নাম রাজত্বকাল
মালিকুল গাজী ইখতিয়ারুদ্দিন



ملک الغازی اختیار الدین
মুহাম্মাদ বিন বখতিয়ার খলজি



محمد بختیار خلجی
১২০৪-১২০৬
মালিক ইযযুদ্দিন



ملک عز الدین
মুহাম্মাদ শিরাণ খলজি



محمد شیران خلجی
১২০৬-১২০৮
মালিক হুসামুদ্দিন



ملک حسام الدین
ইওয়াজ বিন হুসাইন খলজি



عوض بن حسین خلجی
১২০৮-১২১০
মালিক রুকনুদ্দিন



ملک ركن الدین
আলি বিন মর্দান খলজি



علی بن مردان خلجی
১২১০-১২১২
সুলতান গিয়াসউদ্দীন



سلطان غیاث الدین
ইওয়াজ শাহ



عوض شاه
১২১২-১২২৭
নাসিরউদ্দিন মাহমুদ কর্তৃক অন্তর্বর্তীকালীন
সুলতান আলাউদ্দিন



سلطان علاء الدین
দাওলাত শাহ বিন মওদুদ খলজী



دولت شاه بن مودود خلجی
১২২৯-১২৩০
ইখতিয়ারউদ্দিন



اختیار الدین
বলকা খলজি



بلکا خلجی
১২৩১
  • রূপালী ছায়াযুক্ত সারি দ্বিতীয় মেয়াদ নির্দেশ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Schwartzberg, Joseph E. (১৯৭৮)। A Historical atlas of South Asia। Chicago: University of Chicago Press। পৃষ্ঠা 147। আইএসবিএন 0226742210 
  2. Know Your State West Bengal। Arihant Experts। ২০১৯। পৃষ্ঠা 15। 
  3. Chandra, Satish (২০০৪)। Medieval India: From Sultanat to the Mughals-Delhi Sultanat (1206-1526)। পৃষ্ঠা 226। 
  4. the Khiljī tribe had long been settled in what is now Afghanistan .
  5. Satish Chandra (২০০৪)। Medieval India: From Sultanat to the Mughals-Delhi Sultanat (1206-1526) - Part One। Har-Anand। পৃষ্ঠা 41। আইএসবিএন 978-81-241-1064-5 
  6. The History of Bengal। Academica Asiatica। ১৯৭৩। পৃষ্ঠা 3, 8। ওসিএলসি 924890 
  7. Ashirbadi Lal Srivastava (১৯৬৬)। The History of India, 1000 A.D.-1707 A.D. (Second সংস্করণ)। Shiva Lal Agarwala। পৃষ্ঠা 98। ওসিএলসি 575452554 
  8. Abraham Eraly (২০১৫)। The Age of Wrath: A History of the Delhi Sultanate। Penguin Books। পৃষ্ঠা 126। আইএসবিএন 978-93-5118-658-8 
  9. Radhey Shyam Chaurasia (২০০২)। History of medieval India: from 1000 A.D. to 1707 A.D.। Atlantic। পৃষ্ঠা 28। আইএসবিএন 81-269-0123-3 
  10. Minhāju-s Sirāj (১৮৮১)। Tabaḳāt-i-nāsiri: a general history of the Muhammadan dynastics of Asia, including Hindustān, from A.H. 194 (810 A.D.) to A.H. 658 (1260 A.D.) and the irruption of the infidel Mughals into Islām। Bibliotheca Indica #78। Royal Asiatic Society of Bengal (printed by Gilbert & Rivington)। পৃষ্ঠা 548। 
  11. The History of Bengal। Academica Asiatica। ১৯৭৩। পৃষ্ঠা 3। ওসিএলসি 924890 
  12. "District Website of Nadia"। Government of West Bengal। 
  13. The History of Bengal। Academica Asiatica। ১৯৭৩। পৃষ্ঠা 8। ওসিএলসি 924890 
  14. Sen, Amulyachandra (১৯৫৪)। Rajagriha and Nalanda। Institute of Indology। Calcutta Institute of Indology, Indian Publicity Society। পৃষ্ঠা 52। ওসিএলসি 28533779 
  15. Rajadhyaksha, P. L. Kessler and Abhijit। "Kingdoms of South Asia - Indian Kingdom of Bengal"www.historyfiles.co.uk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-২২ 
  16. Flood, Finbarr B. (২০ মার্চ ২০১৮)। Objects of Translation: Material Culture and Medieval "Hindu-Muslim" Encounter (ইংরেজি ভাষায়)। Princeton University Press। পৃষ্ঠা 115–117। আইএসবিএন 978-0-691-18074-8 
  17. Goron, Stan; Goenka, J. P.; Robinson (numismatist.), Michael (২০০১)। The Coins of the Indian Sultanates: Covering the Area of Present-day India, Pakistan, and Bangladesh (ইংরেজি ভাষায়)। Munshiram Manoharlal। আইএসবিএন 978-81-215-1010-3Obverse: horseman to left holding a mace, margin with date in Nagari Samvat 1262 Bhadrapada . Reverse : legend in Nagari śrīmat mahamada sāmaḥ . Issued in AD 1204 
  18. Kundra, D. N.; Prakashan, Goyal Brothers (১ ডিসেম্বর ২০১৯)। I.C.S.E. History & Civics for Class IX (ইংরেজি ভাষায়)। Goyal Brothers Prakashan। পৃষ্ঠা 176। আইএসবিএন 978-93-88676-77-9 
পূর্বসূরী
সেন রাজবংশ
খিলজি বাংলা
১২০৪-১২৩১
উত্তরসূরী
মামলুক বাংলা