তুর্ক জাতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(তুর্কীয় জাতিসমূহ থেকে পুনর্নির্দেশিত)
তুর্ক জাতি
Map-TurkicLanguages.png
The countries and autonomous regions where a Turkic language has official status and/or is spoken by a majority.
মোট জনসংখ্যা
Approx. 140–160 million[১][২]
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চলসমূহ
 তুরস্ক ৫৭,৫০০,০০০–৬১,৫০০,০০০[৩]
 উজবেকিস্তান ২৫,২০০,০০০[৪]
 ইরান ১৫,০০০,০০০[৫]
 রাশিয়া ১২,৩০০,০০০[৬]
 কাজাখস্তান ১২,০০৯,৯৬৯[৭]
 চীন ১১,৬৪৭,০০০[৮]
 আজারবাইজান ৯,৭৮০,৭৮০[৯]
ইউরোপীয় ইউনিয়ন European Union ৫,৮৭৬,৩১৮
 তুর্কমেনিস্তান ৪,৫০০,০০০[১০]
 কিরগিজিস্তান ৪,৫০০,০০০[১১]
 আফগানিস্তান ৩,৫০০,০০০[১২]
 ইরাক ১,৫০০,০০০[১৩]
 তাজিকিস্তান ১,২০০,০০০[১৪]
 মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১,০০০,০০০+[১৫]
 সিরিয়া ৮০০,০০০-১,০০০,০০০+[১৬]
 পাকিস্তান ৫০০,০০০[১৭]
টেমপ্লেট:দেশের উপাত্ত North Cyprus North Cyprus ২৯৮,৮৬২[১৮]
 অস্ট্রেলিয়া ২৯৩,৫০০
 জর্জিয়া ২৮৪,৭৬১[১৯]
 Ukraine ২৭৫,৩০০[২০]
 সৌদি আরব ২২৪,৪৬০
 মলদোভা ১৫৮,৩০০[২১]
 মঙ্গোলিয়া ১০৬,৯৫৫[২২]
 ম্যাসেডোনিয়া ৭৭,৯৫৯[২৩]
ভাষা
Turkic languages
ধর্ম

Islam
(Sunni · Nondenominational Muslims · Cultural Muslim · Quranist Muslim · Alevi · Twelver Shia · Ja'fari)
Christianity
(Eastern Orthodox Christianity)
Judaism
(Djudios Turkos · Sabbataists · Karaites)
Irreligion
(Agnosticism · Atheism)

Animism, Tengrism, Shamanism, Mani

তুর্ক জাতি (ইংরেজি: Turkic peoples) উত্তর, মধ্য ও পশ্চিম ইউরেশিয়ায় অবস্থিত একটি জাতি, যারা তুর্কীয় ভাষা-পরিবারের বিভিন্ন ভাষায় কথা বলে। এই জাতির লোকেরা একটি সাধারণ ঐতিহাসিক পটভূমি এবং কতগুলি বিশেষ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের অংশীদার। তুর্ক বলতে তাই একটি বৃহত্তর জাতিকে বোঝায়, যার মধ্যে বর্তমানের কাজাখ, উজবেক, কিরগিজ, এবং তুর্কি জাতির লোকেরা, এবং অতীতের বুলগার, হুন, সেলজুক, উসমানীয়, তৈমুরীয়, ইত্যাদি জাতিগুলি অন্তর্ভুক্ত। [২৪][২৫]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ধারণা করা হয় আদি তুর্ক জাতিটি মধ্য এশিয়া থেকে সাইবেরিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত একটি এলাকায় বসবাস করত। কোন কোন ইতিহাসবেত্তা মনে করে হুনেরা ছিল একটি আদি তুর্ক জাতি। অন্যরা হুনদেরকে একটি মঙ্গোলীয় জাতি মনে করেন।[২৬] অটো মেনশেন-হেলফেনের ভাষাবৈজ্ঞানিক গবেষণায় হুনদের তুর্ক উৎসকে সমর্থন করা হয়েছে। [২৭][২৮] মধ্যযুগে তুর্ক জাতিগুলি এশিয়ার বেশিরভাগ এলাকা, ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যে ছড়িয়ে পড়ে।[২৯]

আদি বাসভূমি থেকে কবে তুর্করা ছড়িয়ে পড়া শুরু করে, তার সঠিক তারিখ নির্ণয় করা দুরূহ। ৬ষ্ঠ শতকে প্রথম তুর্ক শব্দ বিশিষ্ট রাষ্ট্রের আবির্ভাব ঘটে, যার নাম ছিল গিয়কতুর্ক (Göktürk) অর্থাৎ নীল তুর্ক। এর পরে ৮ম শতকে কার্লুক জাতি, উইঘুর জাতি, কিরগিজ জাতি, ওঘুজ তুর্ক জাতি, ইত্যাদি তুর্ক জাতির আবির্ভাব ঘটে। এই জাতিগুলি মঙ্গোলিয়া ও ট্রান্স-অক্সিয়ানার মধ্যবর্তী অঞ্চলে যখন বিভিন্ন রাষ্ট্র পত্তন করছিল, তখন তারা মুসলিমদের সংস্পর্শে আসে এবং ধীরে ধীরে ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত হতে শুরু করে। তবে এখনও ছোট ছোট তুর্ক দল আছে যারা অন্যান্য ধর্ম যেমন খ্রিস্টধর্ম, ইহুদী ধর্ম, বৌদ্ধ ধর্ম, জরথুষ্ট্রবাদ ইত্যাদিতে বিশ্বাসী।

সেলজুক তুর্কি সাম্রাজ্যের বিস্তৃতি

১০ম শতকের পর আব্বাসীয় খলিফাদের সময়ে তাদের সেনাবাহিনীর তুর্কী সেনারা গোটা মুসলিম সাম্রাজ্যের শাসক শ্রেণীতে (সিরিয়া ও মিশর বাদে) পরিণত হয়। ওঘুজ ও অন্যান্য গোত্রগুলি সেলজুক তুর্কদের অধীনে বিভিন্ন দেশ দখল করে এবং শেষ পর্যন্ত সমগ্র আব্বাসীয় সাম্রাজ্য ও বাইজেন্টীয় সাম্রাজ্য দখলে সক্ষম হয়। [২৯]

একই সময়ে কিরগিজ ও উইঘুরেরা একে অপরের সাথে ও চীনা সাম্রাজ্যের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত ছিল। কিরগিজ জাতির লোকেরা শেষ পর্যন্ত বর্তমান কিরগিজস্তান অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে। তাতার নামের একটি তুর্ক জাতি বর্তমান তাতারস্তান অঞ্চলে ভোলগা বুলগারদের (বুলগারেরাও তুর্ক জাতি) পদানত করে। রুশরা অনেক সময় এ জন্য বুলগারদের তাতার বলে ভুল করে। আদিবাসী তাতারেরা আসলে এশিয়ার অধিবাসী; ইউরোপীয় "তাতারেরা" প্রকৃতপক্ষে বুলগার জাতির লোক। অন্য বুলগারেরা ৭ম-৮ম শতকে ইউরোপে বর্তমান বুলগেরিয়া অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে এবং সেখানকার স্লাভ জাতির সাথে মিশে যায়। [২৯]

উসমানীয় সাম্রাজ্য, ১৬৮৩

মঙ্গোল আক্রমণের ফলে সেলজুক সাম্রাজ্যের অবনতি ঘটে এবং তার স্থলে নতুন প্রধান তুর্ক রাষ্ট্র হিসেবে উসমানীয় সাম্রাজ্যের আবির্ভাব ঘটে। উসমানীয় সাম্রাজ্য কেবল মধ্যপ্রাচ্য নয়, দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপ, দক্ষিণ-পশ্চিম রাশিয়ার কিয়দংশ এবং উত্তর আফ্রিকা দখলে সক্ষম হয়েছিল। [২৯]

মুঘল সাম্রাজ্য

অন্যদিকে ভারতে প্রতিষ্ঠিত হয় মুসলিম মুঘল সাম্রাজ্য। মুঘলেরা ১৬শ শতক থেকে ১৮শ শতকের মাঝামাঝি পর্যন্ত ভারতীয় উপমহাদেশের অধিকাংশ শাসনে সক্ষম হয়। বাবর নামের এক চাগাতাই তুর্ক রাজপুত্র মুঘল সাম্রাজ্যের পত্তন করেন। বাবর ছিলেন পিতার দিক থেকে তুর্ক সেনাপতি তৈমুর লঙ এবং মাতার দিক থেকে চেঙ্গিস খানের বংশধর। [৩০][৩১] মুঘল সাম্রাজ্যের শাসকেরা ক্ষমতাধর শাসক ছিলেন এবং সাত বংশ ধরে বুদ্ধিমত্তা ও প্রশাসনিক দক্ষতার পরিচয় দিয়েছিলেন। মুঘলেরা ভারতের হিন্দু ও মুসলিমদের একত্র করে একটি অখণ্ড ভারতবর্ষ গঠনেরও চেষ্টা চালান। [৩০][৩২][৩৩][৩৪]

উসমানীয় সাম্রাজ্য প্রশাসনিক অদক্ষতা, বলকান অঞ্চলে জাতীয়তাবাদের উন্মেষ এবং রুশ ও অস্ট্রো-হাঙ্গেরীয় সাম্রাজ্যের সাথে বারংবার যুদ্ধের ফলে ধীরে ধীরে দুর্বল হতে থাকে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর উসমানীয় সাম্রাজ্যের পতন ঘটে এবং আধুনিক বিশ্বে তুর্কদের প্রধান রাষ্ট্র হিসেবে বর্তমান তুরস্কের জন্ম হয়। [২৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Brigitte Moser, Michael Wilhelm Weithmann, Landeskunde Türkei: Geschichte, Gesellschaft und Kultur, Buske Publishing, 2008, p. 173
  2. Deutsches Orient-Institut, Orient, Vol. 41, Alfred Röper Publushing, 2000, p. 611
  3. "Turkey"। The World Factbook। সংগৃহীত ২১ ডিসেম্বর ২০১৪  "Population: 81,619,392 (July 2014 est.)" "Ethnic groups: Turkish 70–75%, Kurdish 18%, other minorities 7–12% (2008 est.)" 70% of 81.6m = 57.1m, 75% of 81.6m = 61.2m
  4. "Uzbekistan"। The World Factbook। সংগৃহীত ২১ ডিসেম্বর ২০১৪  "Population: 28,929,716 (July 2014 est.)" "Ethnic groups: Uzbek 80%, Russian 5.5%, Tajik 5%, Kazakh 3%, Karakalpak 2.5%, Tatar 1.5%, other 2.5% (1996 est.)" Assuming Uzbek, Kazakh, Karakalpak and Tartar are included as Turks, 80% + 3% + 2.5% + 1.5% = 87%. 87% of 28.9m = 25.2m
  5. "Azerbaijani (people)"Encyclopædia Britannica। সংগৃহীত ২৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  6. "Kazakhstan"। The World Factbook। সংগৃহীত ২১ ডিসেম্বর ২০১৪  "Population: 17,948,816 (July 2014 est.)" "Ethnic groups: Kazakh (Qazaq) 63.1%, Russian 23.7%, Uzbek 2.9%, Ukrainian 2.1%, Uighur 1.4%, Tatar 1.3%, German 1.1%, other 4.4% (2009 est.)" Assuming Kazakh, Uzbek, Uighur and Tatar are included as Turks, 63.1% + 2.9% + 1.4% + 1.3% = 68.7%. 68.7% of 17.9m = 12.3m
  7. ru:Этно-языковой состав населения России
  8. "China"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  9. "Azerbaijan"। The World Factbook। সংগৃহীত ৩০ জুলাই ২০১৬  "Population: 9,780,780 (July 2015 est.)"
  10. "Turkmenistan"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  11. "Kyrgyzstan"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  12. "Afghanistan"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  13. "Iraq"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  14. "Tajikistan"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  15. "Obama, recognize us"St. Louis American। সংগৃহীত ১৮ মার্চ ২০১৫ 
  16. Nahost-Informationsdienst (আইএসএসএন 0949-1856): Presseausschnitte zu Politik, Wirtschaft und Gesellschaft in Nordafrika und dem Nahen und Mittleren Osten. Autors: Deutsches Orient–Institut; Deutsches Übersee–Institut. Hamburg: Deutsches Orient–Institut, 1996, seite 33.
  17. "Pakistan"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  18. "Census.XLS" (PDF)। সংগৃহীত ২০১৪-০২-১৪ 
  19. "Georgia"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  20. "Results / General results of the census / National composition of population"All-Ukrainian Census, 2001। ডিসেম্বর ৫, ২০০১। সংগৃহীত ২০০৭-০৮-০৫ 
  21. "Moldova"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  22. "Mongolia"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  23. "Macedonia"। The World Factbook। সংগৃহীত ১৩ মে ২০১৪ 
  24. "Timur", The Columbia Encyclopedia, Sixth Edition, 2001-05, Columbia University Press.
  25. Encyclopaedia Britannica article: Consolidation & expansion of the Indo-Timurids, Online Edition, 2007.
  26. The Origins of the Huns
  27. Otto J. Maenchen-Helfen. The World of the Huns: Studies in Their History and Culture. University of California Press, 1973
  28. Otto Maenchen-Helfen, Language of Huns
  29. ২৯.০ ২৯.১ ২৯.২ ২৯.৩ ২৯.৪ Carter V. Findley, The Turks in World History, (Oxford University Press, October 2004) ISBN 0-19-517726-6
  30. ৩০.০ ৩০.১ Encyclopædia Britannica Article:Mughal Dynasty
  31. Encyclopædia Britannica Article:Babur
  32. the Mughal dynasty
  33. When the Moguls Ruled India...
  34. Babur: Encyclopædia Britannica Article