বন্দনা শিবা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বন্দনা শিবা
Dr. Vandana Shiva DS.jpg
২০১৪ সালে বন্দনা শিবা
জন্ম (1952-11-05) ৫ নভেম্বর ১৯৫২ (বয়স ৬৬)
দেরাদুন, উত্তরপ্রদেশ (অধুনা উত্তরাখণ্ড), ভারত
জাতীয়তাভারতীয়
যেখানের শিক্ষার্থীপাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়, চণ্ডীগড়
গুয়েলফ বিশ্ববিদ্যালয়
ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অন্টারিও
পেশাদার্শনিক, পরিবেশবাদী, লেখক, পেশাদার স্পিকার, সামাজিক কর্মী
পুরস্কাররাইট লাইভলিহুড পুরস্কার (১৯৯৩)
সিডনি শান্তি পুরস্কার (২০১০)
মিরোদি পুরস্কার (২০১৬)
ফুকুওকা এশিয়ান কালচার পুরস্কার (২০১২)
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট
ভিডিও বক্তব্য (২০১৪)

বন্দনা শিবা (জন্ম: ৫ নভেম্বর ১৯৫২) হচ্ছেন একজন ভারতীয় পণ্ডিত, পরিবেশবাদী সক্রিয় কর্মী, খাদ্য সার্বভৌমত্বের প্রবক্তা এবং পরিবর্তিত বিশ্বায়নের লেখিকা।[২] শিবা বর্তমানে দিল্লিতে বসবাস করেন, তিনি ২০টিরও অধিক বই লিখেছেন।[৩]

তিনি বিশ্বায়নের আন্তর্জাতিক ফোরামের অন্যতম নেতা ও বোর্ড সদস্য (জেরি ম্যান্ডার, রাফ নাদের, জেরেমি রিফকিনের সঙ্গে), এবং পরিবর্তন-বিশ্বায়ন আন্দোলন নামে পরিচিত বৈশ্বিক সংহতি আন্দোলনের একজন অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব।[৪] তিনি অনেক ঐতিহ্যবাহী প্রথাগুলোর বিজ্ঞতার জন্য যুক্তি দেখিয়েছেন, যেমন ভারতের বৈদিক ঐতিহ্যকে কেন্দ্র করে, বৈদিক ইকোলজি (র‍্যাঙ্কোর প্রাইম কর্তৃক প্রকাশিত) বইয়ে তার সাক্ষাৎকারে এটি স্পষ্ট। তিনি স্পেনের সমাজতান্ত্রিক দল থিংক ট্যাঙ্ক-এর ফান্ডাশন আইডিয়াসের বৈজ্ঞানিক কমিটির একজন সদস্য।[৫] তিনি অংশগ্রহণমূলক সমাজের জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থা'র একজন সদস্য।[৬] ১৯৯৩,সালে, তিনি রাইট লাইভলিহুড পুরস্কারে ভূষিত হন, যা বিকল্প নোবেল পুরস্কার হিসাবে পরিচিত।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

বন্দনা শিবা দেরাদুনে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা ছিলেন বন সংরক্ষক ও মা প্রকৃতিপ্রেমের সাথে একজন কৃষিজীবী। তিনি নৈনিতালের সেন্ট মেরী বিদ্যালয়ে[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] ও দেরাদুনের জিসাস এন্ড মেরী কনভেন্টে পড়াশুনা করেন।[৭]

২০০৭ সালে কোলন, জার্মানিতে বন্দনা শিবা

বন্দনা চন্ডীগড়ের পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিজ্ঞান বিষয়ে অধ্যয়ন করেন, ১৯৭২ সালে বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতক এবং ১৯৭৪ সালে বিজ্ঞানের স্নাতকোত্তর হন। [৮] তারপরে তিনি ১৯৭৭ সালে গুয়েলফ (অন্টারিও) বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান দর্শনে এমএ পড়তে, কানাডা যাবার আগে ভাবা পারমাণবিক গবেষণা কেন্দ্রে কাজ করেছিলেন, থিসিসের শিরোনামটি ছিল "চেঞ্জেস ইন দা কনসেপ্ট অফ পিরিয়ডিসিটি অফ লাইট "। [৮][৯] ১৯৭৮ সালে, তিনি ওয়েস্টার্ন অন্টারিও বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনশাস্ত্রে পিএইচডি অর্জন করেন এবং [১০] পদার্থবিদ্যা দর্শনের উপর মনোনিবেশ করেন। তার গবেষণা প্রবন্ধের শিরোনাম ছিল "হিডেন ভেরিয়েবলস এন্ড লোকালিটি ইন কোয়ান্টাম থিওরি", যার মধ্যে তিনি প্রচ্ছন্ন পরিবর্তনশীল তত্ত্বগুলির গাণিতিক ও দার্শনিক সংশ্লেষ নিয়ে আলোচনা করেছিলেন যা বেলের তত্ত্বের আওতার বহির্ভুত ছিল। [১১] পরে তিনি ব্যাঙ্গালোরে ভারতীয় বিজ্ঞান সংস্থা এবং ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট এ বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং পরিবেশগত নীতি সম্পর্কিত আন্তঃশিক্ষা গবেষণা চালিয়ে যান। [৭]

পেশা[সম্পাদনা]

কৃষি ও খাদ্যের ক্ষেত্রগুলিতে অগ্রগতি সম্পর্কে বন্দনা শিবা লিখেছেন এবং বিস্তৃতরূপে বক্তব্য রেখেছেন। যে ক্ষেত্রগুলির মধ্যে বন্দনা সক্রিয় কর্মীদের প্রচারের মাধ্যমে লড়াই চালিয়েছেন সেগুলি হল মেধা সম্পত্তি অধিকার, জীববৈচিত্র্য, জৈবপ্রযুক্তি, জীবনীতিশাস্ত্র এবং জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং। তিনি জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মাধ্যমে কৃষি উন্নয়নের অগ্রগতির বিরুদ্ধে প্রচার সহ আফ্রিকা, এশিয়া, ল্যাটিন আমেরিকা, আয়ারল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড এবং অস্ট্রিয়াতে, সবুজ আন্দোলনের মাটির কাছাকাছি সংগঠনগুলিকে সহায়তা করেছেন।

কর্মকাণ্ড[সম্পাদনা]

বন্দনা শিবা জীববৈচিত্র্য ও আদিবাসী জ্ঞান সুরক্ষা ও বিষয়গুলির সম্মানপ্রদর্শনে তার জীবনের বেশি সময় কাটিয়েছেন। তিনি উত্পাদনশীলতা, পুষ্টি, কৃষকের আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষিতে জীববৈচিত্র্য বিকাশে কাজ করেছেন এবং ২০০৩ সালে টাইম ম্যাগাজিনের দ্বারা তিনি 'এনভায়রনমেন্টাল হিরো' হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছিলেন। পাঞ্জাবের সহিংসতা, ইউনিয়ন কার্বাইডের কীটনাশক উত্পাদন কারখানা থেকে ভূপাল গ্যাস লিকের দুর্ঘটনার পর ১৯৮৪ সালে কৃষিক্ষেত্রে তার কাজ শুরু হয়েছিল। জাতিসংঘ বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য তার গবেষণার ফলস্বরূপ তার বই "দ্য ভাওলেন্স অফ গ্রীন রিভোলিউশন" প্রকাশিত হয়।[১২][১৩][১৪]

নির্বাচিত তালিকা[সম্পাদনা]

  • সিডস অফ ডেথ( মৃত্যুর বীজ): ২০১২ , জিএমও'র মিথ্যা কথা প্রকাশ করা [১৫]
  • এনাদার স্টোরি অফ ডেথ(অগ্রগতির আরেকটি গল্প ), ২০১২ [১৬]
  • দা ফার্মার এন্ড হিস প্রিন্স( কৃষক ও তাঁর রাজকুমার), ২০১৩ [১৭]
  • ক্রিয়েটিং ফ্রিডম: দা লটারি অফ বার্থ স্বাধীনতা সৃষ্টি: জন্মের লটারির), ২০১৩ [১৮]
  • পভার্টি ইনকর্পোরেটেড , ২০১৪ [১৯]
  • দ্য ট্রু কস্ট (আসল মূল্য), ২০১৫, চটজলদি ফ্যাশন এবং বস্ত্র শিল্প সম্পর্কে একটি তথ্যচিত্র।

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

  • ১৯৮১, সোশাল ইকনমিক এন্ড ইকোলজিকাল ইমপ্যাক্ট অফ সোশাল ফরেস্টারি ইন কোলার ( কোলারের সামাজিক বনায়নে, আর্থ-সামাজিক ও পরিবেশগত প্রভাব) ,বন্দনা শিবা, এইচ. সি. শরৎচন্দ্র, জে বন্দ্যোপাধ্যায়, ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট, বেঙ্গালুরু
  • ১৯৮৬, চিপকো: ইন্ডিয়াস সিভিলাইজেসানাল রেসপন্স টু দা ফরেস্ট ক্রাইসিস ( চিপকো:বন সংকটে ভারতের মানবসভ্যতার প্রতিক্রিয়া), জে বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বন্দনা শিবা ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ট্রাস্ট ফর আর্ট অ্যান্ড কালচারাল হেরিটেজ. পাব. INTACH দ্বারা
  • ১৯৮৭, দা চিপকো মুভমেন্ট এগেন্সট লাইমস্টোন কোয়ারিং ইন দুন ভ্যালি ( দুন উপত্যকায় চুনাপাথর খননের বিরুদ্ধে চিপকো আন্দোলন), জে বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বন্দনা শিবা লোকায়ন বুলেটিন, 5: 3, 1987, পিপি.  ১৯-২৫ অনলাইন
  • ১৯৮৮, স্টেইং অ্যালাইভ: উইমেন,ইকোলজি এন্ড সারভাইভাল ইন ইন্ডিয়া (জীবিত থাকা: নারী, বাস্তুসংস্থান এবং ভারতে বেঁচে থাকা), জেড প্রেস, নতুন দিল্লী, আইএসবিএন ০-৮৬২৩২-৮২৩-৩
  • ১৯৮৯, দা ভায়োলেন্স অফ গ্রিন রেভোলিউসান: ইকোলজিকাল ডিগ্রেডেসান এন্ড পলিটিকাল কনফ্লিক্ট ইন পাঞ্জাব ( সবুজ বিপ্লবের সহিংসতা: পাঞ্জাবে পরিবেশগত অবনতি এবং রাজনৈতিক সংঘাত, নটরাজ পাবলিশার্স, নয়া দিল্লি, আইএসবিএন ০-৮৬২৩২-৯৬৪-৭ এইচবি, আইএসবিএন ০-৮৬২৩২-৯৬৫-৫ পিবি
  • ১৯৯১, ইকোলজি এন্ড পলিটিকস অফ সারভাইভাল: কনফ্লিক্টস ওভার নাচরাল রিসোরসেস ইন ইন্ডিয়া ( বাস্তুসংস্থান এবং রাজনীতি থেকে বেঁচে থাকা: দ্বন্দ্ব উপর প্রাকৃতিক সম্পদ ভারতে, Sage Publications, হাজার Oaks, ক্যালিফোর্নিয়া, আইএসবিএন ০-৮০৩৯-৯৬৭২-১
  • ১৯৯২ সালে জীববৈচিত্র্য: সামাজিক এবং পরিবেশগত দৃষ্টিকোণ (সম্পাদক); জেড প্রেস, যুক্তরাজ্য
  • ১৯৯৩, নারী, বাস্তুসংস্থান এবং স্বাস্থ্য: পুনর্নির্মাণ সংযোগ (সম্পাদক), Dag হামারশোল্ড ফাউন্ডেশন এবং Kali মহিলাদের জন্য, নতুন দিল্লি
  • ১৯৯৩ সালে মনোকালচারস অফ দা মাইন্ড: বায়োডাইভার্সিটি , বায়োটেকনোলজি এন্ড এগ্রিকালচার মনের একক সংস্কৃতি: জীববৈচিত্র্য, জৈবপ্রযুক্তি এবং কৃষি), জেড প্রেস, নতুন দিল্লি
  • ১৯৯৩ ইকোফেমিনিসম( বাস্তু-নারীবাদ), মারিয়া মায়েস এবং বন্দনা শিবা, ফার্নউড প্রকাশনা, হ্যালিফ্যাক্স, নোভা স্কটিয়া, কানাডা, আইএসবিএন ১-৮৯৫৬৮৬-২৮-৮
  • ১৯৯৪ ক্লোস টু হোম: উইমেন রিকানেক্ট ইকোলজি, হেলথ এন্ড ডেভালপমেন্ট ওয়াল্ড ওয়াইড (ঘরের নিকট: বাস্তুসংস্থান, স্বাস্থ্য ও উন্নয়নে, নারী বিশ্বব্যাপী পুনরায় সংযোগ স্থাপন করে) আর্থস্ক্যান, লন্ডন, আইএসবিএন ০-৮৬৫৭১-২৬৪-৬
  • ১৯৯৫ সালে বায়োপলিটিক্স( জৈব রাজনীতি) (উইথ ইঙ্গান মোশার), জেড বুকস, যুক্তরাজ্য
  • ১৯৯৭, বায়োপাইরেসি: দা প্লান্ডার অফ নেচার এন্ড নলেজ(জৈব দখলদারি: প্রকৃতি ও জ্ঞান লুণ্ঠন)), সাউথ এন্ড প্রেস, কেমব্রিজ, ম্যাসাচুসেটস, আমি আইএসবিএন ১-৮৯৬৩৫৭-১১-৩
  • ২০০০, স্টোলেন হার্ভেস্ট: দা হাইজ্যাকিং অফ দা গ্লোবাল ফুড সাপ্লাই ( ফসল চুরি: বিশ্ব খাদ্য সরবরাহ ছিনতাই) , সাউথ এন্ড প্রেস, কেমব্রিজ, ম্যাসাচুসেটস, আইএসবিএন ০-৮৯৬০৮-৬০৮-৯
  • ২০০০, টুমরোস বায়োডাইভার্সিটি ( আগামীদিনের জীববৈচিত্র্য), টেমস অ্যান্ড হাডসন, লন্ডন, আইএসবিএন ০-৫০০-২৮২৩৯-০
  • ২০০১, পেটেন্টস, মিথস অ্যান্ড রিয়ালিটি( বিশেষ অধিকার, ভ্রান্ত ধারনাগুলি ও বাস্তবতা), পেঙ্গুইন ভারত
  • ২০০২, ওয়াটার ওয়ার্স; প্রাইভাটাইজেসান, প্লিউসান এন্ড প্রফিট ( জল বিবাদ ; বেসরকারিকরণ, দূষণ, এবং মুনাফা),সাউথ এন্ড প্রেস , কেমব্রিজ, ম্যাসাচুসেটস
  • ২০০৫ , ইন্ডিয়া ডিভাইডেড( বিচ্ছিন্ন ভারত ) সেভেন স্টোরিস প্রেস
  • ২০০৫, গ্লোবালাইজেসান নিউ ওয়ার্স: সিঁদ, ওয়াটার এন্ড লাইফ ফর্মস( বিশ্বায়ন এর নতুন লড়াই: বীজ, জল ও জীব বিন্যাস) উইমেনস আনলিমিটেড, নতুন দিল্লি, আইএসবিএন ৮১-৮৮৯৬৫-১৭-০
  • ২০০৫, আর্থ ডেমোক্রাসি; জাস্টিস, সাস্টেনাবিলিটি এন্ড পিস( পৃথিবীর গণতন্ত্র; বিচার, ধারণক্ষমতা এবং শান্তি), সাউথ এন্ড প্রেস, আইএসবিএন ০-৮৯৬০৮-৭৪৫-X
  • ২০০৭, ম্যানিফেস্টোস অন দা ফিউচার অফ ফুড এন্ড সিড ( ভবিষ্যতে খাদ্য ও বীজ), সম্পাদক, সাউথ এন্ড প্রেস, আইএসবিএন ৯৭৮-০-৮৯৬০৮-৭৭৭-৪
  • ২০০৭, ডেমোক্রেটাইসিং বায়োলজি: রিইনভেন্টিং বায়োলজি ফরম এ ফেমিনিস্ট( একজন নারীবাদী, ইকোলজিক্যাল এবং তৃতীয় বিশ্ব দৃষ্টিকোণ থেকে জীববিজ্ঞানের পুনঃ উদ্ভাবন, লেখক, দৃষ্টান্ত পাবলিশার্স আইএসবিএন ৯৭৮-১-৫৯৪৫১-২০৪-৯
  • ২০০৭, কার্গিল এন্ড কর্পোরেট হাইজ্যাক অফ ইন্ডিয়াস ফুড এন্ড এগ্রিকালচার, কার্গিল এবং কর্পোরেট দ্বারা ভারতের খাদ্য ও কৃষি অধিগ্রহণ), Navdanya/RFSTE, নতুন দিল্লি
  • ২০০৮, সয়েল নট অয়েল (মাটি নয়, তেল), সাউথ এন্ড প্রেস, আইএসবিএন ৯৭৮-০-৮৯৬০৮-৭৮২-৮
  • ২০১০, স্টেইং অ্যালাইভ (জীবনধারণ), সাউথ এন্ড প্রেস আইএসবিএন ৯৭৮-০-৮৯৬০৮-৭৯৩-৪
  • ২০১১, বায়োপাইরেসি: দা প্লান্ডার অফ নেচার এন্ড নলেজ(জৈব দখলদারি: প্রকৃতি ও জ্ঞান লুণ্ঠন) নটরাজ পাবলিশার্স, আইএসবিএন ৯৭৮-৮-১৮১৫৮-১৬০-০
  • ২০১১, মনোকালচারস অফ দা মাইন্ড: পার্সপেকটিভ অন বায়োডাইভার্সিটি ( মনের একক সংস্কৃতি:জীববৈচিত্র্যের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি), নটরাজ পাবলিশার্স, আইএসবিএন ৯৭৮-৮-১৮১৫৮-১৫১-৮
  • ২০১৩, মেকিং পিস উইথ দা আর্থ(পৃথিবীর সাথে শান্তি বানাতে) প্লুটো প্রেস আইএসবিএন ৯৭৮-০-৭৪৫৩-৩৩৭৬২

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

  • জৈব পাইরেসি
  • সবুজ বিপ্লব, ভারত
  • ভারতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি গবেষণা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Sustaining Life"Saving Species। ২৩ ডিসেম্বর ২০১১। BBC Radio 4। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জানুয়ারি ২০১৪ 
  2. Who's Who of Women and the Environment – Vandana Shiva ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৮ অক্টোবর ২০১২ তারিখে United Nations Environment Programme (UNEP)
  3. "Vandana Shiva's Publications"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০২-২৪ 
  4. Chattergee, D.K. (২০১১)। Encyclopedia of Global Justice, A-I Vol. 1আইএসবিএন 9781402091599। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১০-২২ 
  5. "Vandana Shiva-WOMAN OF ACTION"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১০-২২ 
  6. একটি অংশগ্রহণকারী সমাজের জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থা - অন্তর্বর্তীকালীন কমিটি 2012-09-25 উদ্ধার
  7. Joy Palmer, David Cooper, Peter Blaze Corcoran: Fifty Key Thinkers on the Environment. Routledge, 2002, আইএসবিএন ৯৭৮১১৩৪৭৫৬২৪৭, p. 313 উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "fifty" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  8. বেঞ্জামিন এফ। শিয়ারের, বারবারা এস। শিয়ারের: উল্লেখযোগ্য নারী ইন দ্য ফিজিক্যাল সায়েন্সেস: অ জীবনী অভিধান । গ্রিনউড প্রেস, 1997, পি। 364
  9. (গবেষণাপত্র)।  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  10. "Vandana Shiva's Crusade Against Genetically Modified Crops - The New Yorker"The New Yorker। ২৫ আগস্ট ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৫ 
  11. "Hidden variables and locality in quantum theory / by Vandana Shiva" (microform)। Faculty of Graduate Studies, University of Western Ontario, 1978। ১৮ জুলাই ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৯-২২ 
  12. Fight Droughts with Science: Better crops could ease India's monsoon worries, HENRY I. MILLER, Stanford University's Hoover Institution, The Wall Street Journal, 12 August 2009.
  13. "The Father Of The 'Green Revolution'"। University of Minnesota। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৮। ৫ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  14. Father of the Green Revolution - He Helped Feed the World! ja "Determining the Number Norman Borlaug - The Green Revolution", ScienceHeroes.com Tohtori Amy R. Piercen mukaan useimmat lukuisista arvioista yli miljardista ihmishengestä perustuvat ennustettuihin nälänhätiin, jotka jäivät toteutumatta, ja ovat epävarmoja. Piercen mukaan silti vaikutus kuolleisuuteen oli todella näin suuri, koska ravitsemus vaikuttaa niin voimakkaasti lapsikuolleisuuteen ja elinikään.
  15. সিয়াটেল কমিউনিটি মিডিয়া বেটার দিবস ফিল্মস - দিবস 19, মৃত্যুর বীজ - পুরস্কার জিতেছে - জিএমও-এর মিথ্যা তথ্য উন্মোচন - পার্ট 1 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে
  16. ডকুমেন্টারী স্বর্গ অন্য অগ্রগতি গল্প
  17. খাদ্য জার্নাল ভবিষ্যত 2 [ 2 ] শীতকালীন -2014 / 2015 - পৃষ্ঠা 95, 96 কৃষক এবং তার প্রিন্স
  18. হলিউড রিপোর্টার ক্রিয়েটিং ফ্রিডম: দ্য লটারি অফ জন্ম: চলচ্চিত্র পর্যালোচনা 6/21/2013 জন ডোপর
  19. সাম্প্রতিক প্রকাশের জন্য লং আইল্যান্ড এক্সচেঞ্জ : ২6 নভেম্বর, ২014, পোভার্টি, ইনক। এ। সিনামা আর্টস সেন্টার