ফ্রেড রিজওয়ে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফ্রেড রিজওয়ে
ফ্রেড রিজওয়ে.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম(১৯২৩-০৮-১০)১০ আগস্ট ১৯২৩
স্টকপোর্ট, চেশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু২ অক্টোবর ২০১৫(2015-10-02) (বয়স ৯২)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩৬৫)
২ নভেম্বর ১৯৫১ বনাম ভারত
শেষ টেস্ট৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২ বনাম ভারত
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৪৬–১৯৬১কেন্ট
১৯৫১–১৯৫২এমসিসি
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৩৪১
রানের সংখ্যা ৪৯ ৪,০৮১
ব্যাটিং গড় ৮.১৬ ১১.০০
১০০/৫০ –/– –/৯
সর্বোচ্চ রান ২৪ ৯৪
বল করেছে ৭৯৩ ৫৬,৬১৬
উইকেট ১,০৬৯
বোলিং গড় ৫৪.১৪ ২৩.৭৪
ইনিংসে ৫ উইকেট ৪১
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৮৩ ৮/৩৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩/– ২৩৪/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৮ এপ্রিল ২০১৬

ফ্রেডরিক রিজওয়ে (ইংরেজি: Fred Ridgway; জন্ম: ১০ আগস্ট, ১৯২৩ - মৃত্যু: ২ অক্টোবর, ২০১৫) চেশায়ারের স্টকপোর্ট এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট ইংরেজ ক্রিকেটার ছিলেন।[১] ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম বোলার ছিলেন। পাশাপাশি ডানহাতে ব্যাটিংয়ে পারদর্শী ছিলেন তিনি। ঘরোয়া কাউন্টি ক্রিকেটে কেন্টের প্রতিনিধিত্ব করেন ফ্রেড রিজওয়ে

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কেন্টের উদ্বোধনী বোলিং আক্রমণ বেশ দূর্বলমানের ছিল। জ্যাক মার্টিন মাঝে-মধ্যে সফলতা পেলেও তা দলের জন্য যথেষ্ট ছিল না। ১৯৪৬ সালে নিয়মিত খেলতে পারেননি রিজওয়ে। কিন্তু পরের মৌসুমে বৃষ্টি আক্রান্ত পীচে ইয়র্কশায়ারের বিপক্ষে ১২/৮৬ পরিসংখ্যান গড়েন।

১৯৪৮ সালে আঘাতের কারণে নিজেকে মেলে ধরতে না পারলেও ১৯৪৯ সালে রিজওয়ে তাঁর সেরা বছর পার করেন। ২২.৮৮ গড়ে ১০৫ উইকেট পান। এরফলে তিনি বেডসার, গ্ল্যাডউইনলেস জ্যাকসনের পর চতুর্থ সেরা পেস বোলারের মর্যাদা পান। ১৯৫০ সালে তাঁর আঘাত আরও দীর্ঘস্থায়ী ছিল। মৌসুমের শেষদিকে নটিংহ্যামশায়ারের বিপক্ষে নিজস্ব সেরা ৮/৩৯ লাভ করেন।[২] পরের বছর ৯০-এর অধিক উইকেট পান। এছাড়াও, সাসেক্সের বিপক্ষে[৩] ৯ম উইকেট জুটিতে ব্রায়ান এডরিচের সাথে রেকর্ডসংখ্যক ১৬১ রান তোলেন।[৪]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

অ্যালেক বেডসারসহ আরও কয়েকজন খেলোয়াড়ের ভারত সফরের অস্বীকারের কারণে রিজওয়ে স্বাভাবিকভাবেই অভিষেক ঘটে। ১৯৫১-৫২ মৌসুমে ভারত সফরে ইংল্যান্ডের পক্ষে পাঁচ টেস্টে অংশ নিয়েছিলেন। ব্রায়ান স্ট্যাদামের সাথে পেস বোলিং উদ্বোধনে নেমেছিলেন তিনি।[১] ঐ সফরে সর্বমোট সাতজন খেলোয়াড়ের টেস্ট অভিষেক ঘটেছিল। পাঁচ টেস্টের ঐ সফরে ৫৪.১৪ গড়ে তিনি মাত্র ৫ উইকেট পান।[৫]

ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবল খেলায়ও দক্ষ ছিলেন তিনি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তীকালে কেন্ট লীগে রামসগেট এফ.সি’র পক্ষে অর্ধ-পেশাদারী পর্যায়ে অংশ নেন।[৬]

অবসর[সম্পাদনা]

১৯৫৯ ও ১৯৬০ সালে আঘাতের কারণে তাঁর ক্রিকেট জীবন আরও সঙ্কুচিত হয়ে পড়ে। ফলশ্রুতিতে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে তাঁকে অবসর নিতে বাধ্য হতে হয়। অবসর পরবর্তীকালে মেইডস্টোনের বার্মিং এলাকায় বসবাস করেন। অতঃপর ৯২ বছর বয়সে ২ অক্টোবর, ২০১৫ তারিখে তাঁর দেহাবসান ঘটে।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bateman, Colin (১৯৯৩)। If The Cap Fits। Tony Williams Publications। পৃষ্ঠা 140। আইএসবিএন 1-869833-21-X 
  2. "Kent v Nottinghamshire 1950"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  3. Cricketarchive.com
  4. Cricketarchive.com
  5. Wisden 1953, pp. 776-77.
  6. "Ramsgate FC Website"। ৩১ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  7. "Kent and England bowler Ridgway dies"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১৫ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]