ফ্রান্সিস ড্রেক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
স্যার ফ্রান্সিস ড্রেক
— জলদস্যু —
1590 or later Marcus Gheeraerts, Sir Francis Drake Buckland Abbey, Devon.jpg
ষোড়শ শতকে ফ্রান্সিস ড্রেকের অঙ্কিত তৈলচিত্র
ডাকনাম এল দ্রাকে (স্প্যানিশ), দ্রাকো (লাতিন, "ড্রাগন")
ধরন Privateer
জন্ম ফেব্রুয়ারি-মার্চ ১৫৪০
জন্মস্থান ডেভন, ইংল্যান্ড
মৃত্যু ২৭শে জানুয়ারি, ১৫৯৬ (৫৫ বছর)
মৃত্যুর স্থান পোর্তোবেলো, কোলন, পানামা
আনুগত্য ইংল্যান্ড
কার্যকাল ১৫৬৩ – ১৫৯৬
স্থান ভাইস অ্যাডমিরাল
অপারেশনের বেজ ক্যারিবিয়ান সাগর
কমান্ড গোল্ডেন হাইন্ড (পূর্বে প্যালিকেন নামে পরিচিত ছিল)
যুদ্ধসমূহ অ্যাংলো-স্প্যানিশ যুদ্ধ (১৫৮৫)
গ্রেভলাইন্সের যুদ্ধ

স্যার ফ্রান্সিস ড্রেক (জন্ম: ফেব্রুয়ারি-মার্চ ১৫৪০-মৃত্যু: ২৭শে জানুয়ারি, ১৫৯৬) (ইংরেজি: Francis Drake) মহারাণী প্রথম এলিজাবেথের আমলের একজন ইংরেজ নৌ-সেনাপতি, সমুদ্র-অভিযাত্রী ও রাজনীতিবিদ। তিনি সমুদ্র-পথে বিশ্ব-ভ্রমণকারী ২য় ব্যক্তি (ফার্ডিনান্ড ম্যাগেলান-এর পর)। স্পেনিয়ার্ডদের সাথে ব্রিটিশদের নৌ-যুদ্ধে তিনি ব্রিটিশ নৌসেনাদের নেতৃত্ব দেন।

নিজ দেশ ইংল্যান্ডে তিনি একজন জাতীয় বীর হিসেবে পরিচিত থাকলেও অন্যান্য দেশে তাঁকে "জলদস্যু", "যুদ্ধবাজ", "ক্রীতদাস ব্যবসায়ী" প্রভৃতি হিসেবে সম্বোধন করা হতো; এমন-কি তাঁকে ধরিয়ে দেবার জন্য স্পেনের তৎকালীন রাজা পুরষ্কার পর্যন্ত ঘোষণা করেছিলেন।

জন্ম ও শৈশব[সম্পাদনা]

ফ্রান্সিস ড্রেক ১৫৪০ সালে ইংল্যান্ডের ডেভন অঞ্চলে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম এডমুন্ড ড্রেক (Edmund Drake) ও মাতার নাম মেরি মেলোয়ে (Mary Mylwaye)।

সমুদ্র যাত্রা[সম্পাদনা]

ফ্রান্সিস ড্রেক ২৩ বছর বয়সে প্রথম সমুদ্র যাত্রা করেন।

বিশ্ব-ভ্রমণ[সম্পাদনা]

১৫৭৭ সালে ইংল্যান্ডের প্লাইমাউথ বন্দর থেকে "প্যালিক্যান" নামক একটি জাহাজে করে তিনি বিশ্ব ভ্রমণে বের হোন এবং ১৫৮০ সালে ফিরে আসেন।

সম্মননা[সম্পাদনা]

১৫৮১ সালে নৌপথে বিশ্ব-ভ্রমন করার মাধ্যমে স্পেনিয়ার্ডদের সাথে সমুদ্র যাত্রায় প্রতিদ্বন্দিতার দ্বারা ইংরেজদের রাজ্য জয়ে বিশেষ অবদান রাখার জন্য রাণী ১ম এলিজাবেথ তাঁকে নাইটহুড উপাধী দেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]