প্রযুক্তির ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চাকা, চতুর্থ সহস্রাব্দ খ্রিস্টপূর্বাব্দের কিছু সময় আগে আবিষ্কার, অন্যতম সর্বজনীন এবং গুরুত্বপূর্ণ প্রযুক্তি। এই "উর মান" এর বিস্তারিত, আনুমানিক ২৫০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ, একটি সুমেরীয় রথ

প্রযুক্তির ইতিহাস হল সরঞ্জাম এবং কৌশল আবিষ্কারের ইতিহাস এবং মানবতার ইতিহাসের অন্য দিকগুলির অনুরূপ। প্রযুক্তি বলতে ভাষা এবং পাথুরে যন্ত্রগুলির মতো সরল পদ্ধতি থেকে জটিল জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ১৯৮০-এর দশকের তথ্য প্রযুক্তি পদ্ধতিগুলি বোঝা যায়। প্রযুক্তি শব্দটি গ্রিক শব্দ techne থেকে এসেছে, যার অর্থ শিল্প ও নৈপুণ্য, এবং লোগো শব্দের মানে শব্দ এবং বক্তৃতা। এটির প্রথম প্রয়োগ শিল্পের বর্ণনা করার জন্য ব্যবহৃত হয়, কিন্তু এটি এখন আমাদের চারপাশের পরিবেশকে প্রভাবিত করে এমন অগ্রগতি এবং পরিবর্তনগুলির বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়।[১]

নতুন জ্ঞান মানুষকে নতুন জিনিস তৈরি করতে সক্ষম করেছে আবার অপরভাবে, অনেক বৈজ্ঞানিক প্রচেষ্টা, প্রযুক্তিগুলি দ্বারা সম্ভব হয়েছে যা মানুষকে পূর্বে পৌঁছতে পারেনি এমন স্থানে ভ্রমণ করতে সহায়তা করেছে এবং বৈজ্ঞানিক যন্ত্র দ্বারা প্রকৃতি বিষয়ক গবেষণা আমরা স্বাভাবিক অনুভূতির অপেক্ষা আরো বিস্তারিতভাবে করতে পারি।

যেহেতু প্রযুক্তির বেশিরভাগই ব্যবহারিক বিজ্ঞান, প্রযুক্তিগত ইতিহাস বিজ্ঞানের ইতিহাসের সাথে সংযুক্ত। যেহেতু প্রযুক্তি সম্পদ ব্যবহার করে, প্রযুক্তিগত ইতিহাস অভেদ্যভাবে অর্থনৈতিক ইতিহাসের সাথে সংযুক্ত।

ঐ সম্পদগুলি থেকে, প্রযুক্তি, দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত প্রযুক্তিগত জিনিসপত্র সহ অন্যান্য সম্পদ উত্পাদন করে। একটি সমাজের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, প্রযুক্তির পরিবর্তন দ্বারা প্রভাবিত হয় এবং প্রযুক্তিকে প্রভাবিত করে। এটি অর্থনৈতিক বিকাশের একটি শক্তি এবং অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামরিক শক্তি ও সম্পদ বিকশিত এবং প্রকল্প করার একটি উপায়।

প্রযুক্তিগত অগ্রগতি পরিমাপ[সম্পাদনা]

সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত অনেক সমাজবিজ্ঞানী ও নৃবিজ্ঞানী সামাজিক তত্ত্ব তৈরি করেছেন। কিছুজন, লুইস এইচ মরগান, লেসলি হোয়াইট, এবং গেরহার্ড লেনস্কির ন্যায় ব্যক্তিরা প্রযুক্তিগত অগ্রগতিকে মানবিক সভ্যতার উন্নয়ন পরিচালনার অন্যতম প্রধান উপাদান হিসাবে ঘোষণা করেছিলেন। মরগ্যানের ধারণা অনুযায়ী, সামাজিক বিবর্তনের তিনটি প্রধান ধাপ (অসভ্যতা,আদিম সংস্কৃতি এবং সভ্যতা) প্রযুক্তিগত মাপকাঠি দ্বারা বিভক্ত করা যায়, যেমন আগুন। হোয়াইট দ্বারা যুক্তি দেওয়া হয়েছিল যে, সংস্কৃতির বিবর্তনটি যেটির দ্বারা বিচার করা উচিৎ তা হল শক্তি।[২]


হোয়াইটের জন্য, "সংস্কৃতির প্রাথমিক কাজ" হল "শক্তির সাজসরঞ্জাম এবং নিয়ন্ত্রণ।" হোয়াইট, মানুষের উন্নয়নকে পাঁচটি পর্যায়ে পৃথক করেছিলেন: প্রথমত, মানুষ তাদের নিজস্ব পেশী শক্তি ব্যবহার দ্বিতীয়ত, তারা গৃহপালিত পশুদের শক্তি ব্যবহার করে। তৃতীয়ত, তারা উদ্ভিদের শক্তি (কৃষি বিপ্লব) ব্যবহার করে। চতুর্থত, তারা প্রাকৃতিক সম্পদগুলির শক্তি ব্যবহার করতে শিখছে: কয়লা, তেল, গ্যাস। পঞ্চম, পারমাণবিক শক্তি উদ্ভাবন। হোয়াইট সূত্র পি = ই * টি চালু করেছে, যেখানে ই একটি ব্যয় করা শক্তির পরিমাপ, এবং টি শক্তি ব্যবহার করে কারিগরি কার্যাবলীর দক্ষতা পরিমাপ করে। তাঁর নিজের ভাষায়, "প্রতিবছর মাথাপিছু উতপাদনশীল শক্তির পরিমাণ বৃদ্ধি করা হয়, অথবা শক্তিকে কাজে লাগানোর উপকরণের দক্ষতা বৃদ্ধিতে সংস্কৃতি বৃদ্ধি পায়"। নিকোলাই করদশেভ তাঁর তত্ত্বকে ব্যাখ্যা করেন, যা কারাদশেভ স্কেল তৈরি করে, যা উন্নত সভ্যতার শক্তির ব্যবহারকে শ্রেণীবিন্যাস করে।

ধরন অনুযায়ী[সম্পাদনা]

বায়োটেকনোলজি[সম্পাদনা]

পুরকৌশল[সম্পাদনা]

যোগাযোগ[সম্পাদনা]

কম্পিউটিং[সম্পাদনা]

গ্রাহক প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী[সম্পাদনা]

শক্তি[সম্পাদনা]

বস্তু বিজ্ঞান[সম্পাদনা]

পরিমাপ[সম্পাদনা]

মেডিসিন[সম্পাদনা]

সামরিক[সম্পাদনা]

নিউক্লিয়ার[সম্পাদনা]

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

পরিবহন[সম্পাদনা]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

সম্পর্কিত ইতিহাস
সংশ্লিষ্ট অন্যান্য শাখা
সম্পর্কিত বিষয়গুলি

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "history of technology - Summary & Facts"। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৮ 
  2. Knight, Elliot; Smith, Karen। "American Materialism"The University of Alabama - Department of Anthropology। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৫ 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Brush, S. G. (1988). The History of Modern Science: A Guide to the Second Scientific Revolution 1800-1950. Ames: Iowa State University Press.
  • Bunch, Bryan and Hellemans, Alexander, (1993) The Timetables of Technology, New York, Simon & Schuster.
  • Derry, Thomas Kingston and Williams, Trevor I., (1993) A Short History of Technology: From the Earliest Times to A.D. 1900. New York: Dover Publications.
  • Greenwood, Jeremy (1997) The Third Industrial Revolution: Technology, Productivity and Income Inequality AEI Press.
  • Kranzberg, Melvin and Pursell, Carroll W. Jr., eds. (1967)Technology in Western Civilization: Technology in the Twentieth Century New York: Oxford University Press.
  • Landa, Manuel de, War in the Age of Intelligent Machines, 2001.
  • McNeil, Ian (১৯৯০)। An Encyclopedia of the History of Technology। London: Routledge। আইএসবিএন 0-415-14792-1 
  • Olby, R. C. et al., eds. (1996). Companion to the History of Modern Science. New York, Routledge.
  • Pacey, Arnold, (1974, 2ed 1994),The Maze of Ingenuity, The MIT Press, Cambridge, Mass, 1974, [2ed 1994, cited here]
  • Singer, C., Holmyard, E.J., Hall, A. R and Williams, T. I. (eds.), (1954–59 and 1978) A History of Technology, 7 vols., Oxford, Clarendon Press. (Vols 6 and 7, 1978, ed. T. I. Williams)
  • Wilson, George (১৮৫৫)। What is Technology?: an inaugural lecture delivered in the University of Edinburgh on November 7, 1855 (1 সংস্করণ)। Edinburgh: Sutherland and Knox। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]