বাঁধ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বাঁধ বলতে এমন একটি প্রতিবন্ধক দেয়ালকে বোঝানো হয়, যেটি জলের প্রবাহকে বাধা দান করে। এটি মূলত কোন স্থানে কৃত্রিম উপায়ে জল ধরে রেখে এর নিকট বা দূরবর্তী এলাকায় সেচ বা পানীয় জলের কৃত্রিম উৎস হিসাবে ব্যবহার করা হয়। এছাড়া বন্যা নিয়ন্ত্রক বাঁধ কোন একটি এলাকাকে বন্যা বা প্লাবিত হওয়া থেকে রক্ষা করে। এছাড়া জলবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের একটি প্রধান অংশ হিসেবে বাঁধ তৈরি করা হয়।

কেরাপুজা বাঁধ, ভারতের কেরালা রাজ্যের একটি পৃথিবী বাঁধ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাচীন বাঁধ[সম্পাদনা]

বামদিকে ওয়েডডেন সাগর (উত্তর সমুদ্রের একটি অংশ) এবং নেদারল্যান্ডসের ডানদিকে আইজেএসমিলেয়ার সহ আফস্লুইডিজিক প্রারম্ভিক বাঁধ নির্মাণ মধ্যপ্রাচ্য এবং মেসোপটেমিয়াতে সংগঠিত হয়েছিল।এসময় বাঁধ টাইগ্রিসইউফ্রেটিস নদীর জলের স্তর নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ব্যবহার করা হত।

সবচেয়ে প্রাচীন বাঁধ হিসেবে জর্ডানের জাওয়া বাঁধ এর কথা জানা যায়। এটি জর্দানের রাজধানী আম্মান থেকে ১০০ কিলোমিটার (৬২ মাইল) উত্তরপূর্বে অবস্থিত। এই মাধ্যাকর্ষণ বাঁধটি ৯ মিটার উঁচু (৩০ ফুট) এবং ১ মিটার ব্যাপী (৩.৩ ফুট) পাথরের তৈরী যা ৩০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে নির্মিত হয়।[১][২]

খ্রিস্টপূর্ব ১৯ শতকে দ্বাদশ সাম্রাজ্যের সময়ে, ৩য় সেনোসার্ট, ৩য় এবং ৪র্থ আমেনেমহাট নামের ফারাও গণ ১৬ কিমি(৯.৯ মাইল) দীর্ঘ একটি খাল খনন করেন, যা নীলনদ এবং ফাইয়াম মরুদ্যানকে সংযুক্ত করেছিল।পূর্ব-পশ্চিম বরাবর হার-উর নামের দুটি বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছিল, যাদের মাধ্যমে বার্ষিক বন্যার সময় পানি সংরক্ষণ করা হত এবং পরবর্তীতে পার্শ্ববর্তী এলাকায় সরবরাহ করা হত।

কায়রোর দক্ষিণে প্রায় ২৫ কিলোমিটার (১৬ মাইল) দূরে ওয়াদি-আল-গারামিতে বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য ২৮০০ বা ২৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে সাদ আল-কাফারা নামক বাঁধটি তৈরী করা হয়। এটি একটি ভিন্নমুখকরণ বাঁধ যা মূলতঃ বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য বানান হয়েছিলো যা নির্মাণ চলাকালীন বা তার কিছু পরে ‌‌প্রবল বৃষ্টিপাতে ভেঙ্গে যায়।

প্রাচীন বিশ্বের স্থাপত্যকলার অন্যতম বিস্ময় ছিল মারিবের মহাবাঁধ, যা ইয়েমেনে অবস্থিত ছিল।এর নির্মাণ শুরু হয়েছিল খ্রিস্টপূর্ব ১৭৫০ থেকে ১৭০০ সালের মাঝামাঝি কোন এক সময়ে। এটি তৈরী হয়েছিল মাটি দ্বারা। প্রস্থচ্ছেদে এটি ছিল ত্রিকোণাকার, দৈর্ঘ্যে ৫৮০ মি ( ১৯০০ ফিট) , প্রকৃত উচ্চতায় ৪ মি ( ১৩ ফিট) । এটি দুই সারি পাথরের মাঝে তৈরী হয়েছিল, যাদের সাথে শক্তিশালী ভাবে বাঁধ টি জুড়ে দেয়া হয়েছিল। বিভিন্ন সময়ে এর সংস্কার করা হয়, যাদের মাঝে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল খ্রিস্টপূর্ব ৭৫০ সালের সংস্কার। এর ২৫০ বছর পর বাঁধটির উচ্চতা বৃদ্ধি করে ৭ মি (২৩ ফিট) এ উন্নীত করা হয়। সাবাদের রাজত্বের শেষে বাঁধটির নিয়ন্ত্রণ চলে যায় হিমইয়ারাইটদের (~১১৫ খ্রিস্টপূর্ব) হাতে, যারা এর কলেবর বৃদ্ধি করে। তাদের বানানো বাঁধ ছিল ১৪ মি (৪৬ ফিট) উঁচু এবং এতে ছিল অতিরিক্ত পানি বের হবার জন্য ৫ খানা পথ, ২ খানা শক্তিশালী জলকপাট ও বিতরণ চৌবাচ্চায় সংযোগকারী ১০০০ মি দীর্ঘ খাল। এই ব্যাপক সংস্কার ৩২৫ খ্রিষ্টাব্দ নাগাদ শেষ হয় এবং ২৫০০০ একর (১০০ বর্গকিমি) এলাকায় সেচকার্য সম্ভব করে তোলে।

খ্রিস্টপূর্ব ৩য় শতকের মাঝামাঝির পরের দিক নাগাদ বর্তমান ভারতের ঢোলাভিরা তে এক জটিল পানি ব্যবস্থাপনা স্থাপনা নির্মাণ করা হয়। এতে পানি সংগ্রহ ও সংরক্ষণের জন্য ১৬টি জলাধার, বাঁধ এবং নানা দৈর্ঘ্যের খাল অন্তর্ভুক্ত ছিল।

রোমান ইঞ্জিনিয়ারিং[সম্পাদনা]

রোমান বাঁধ নির্মাণকে "বিশাল আকারে ইঞ্জিনিয়ারিং নির্মাণ পরিকল্পনা এবং রোমানদের ক্ষমতা দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল।" [১৩] রোমান পরিকল্পনাকারীরা তত্কালীন বৃহত জলাধার বাঁধগুলির ধারণাটি চালু করেছিলেন যা শহুরে জনবসতির স্থায়ী জল সরবরাহকে নিরাপদ করতে পারে। শুকনো মরসুম। [14] তাদের ওয়াটার-প্রুফ হাইড্রোলিক মর্টার এবং বিশেষত রোমান কংক্রিটের আগে ব্যবহারের ফলে আগের চেয়ে নির্মিত আরও বড় বাঁধ কাঠামোর জন্য অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, [১৩] যেমন লেক হোমস বাঁধ, সম্ভবত date তারিখের বৃহত্তম পানির বাধা, [१,] এবং হরবাকা বাঁধ, রোমান সিরিয়ায় উভয়ই। সর্বোচ্চ রোমান বাঁধটি ছিল রোমের নিকটে সুবিয়াকো বাঁধ; এর রেকর্ড উচ্চতা 50 মিটার (160 ফুট) এর দুর্ঘটনাজনিত ধ্বংস না হওয়া অবধি সাফল্যমুক্ত ছিল ১৩০৫ সালে [১ 16]

রোমান প্রকৌশলীরা বাঁধ বাঁধ এবং গাঁথুনির মাধ্যাকর্ষণ বাঁধের মতো প্রাচীন স্ট্যান্ডার্ড নকশাগুলির রুটিন ব্যবহার করেছেন made [১]] এগুলি ছাড়াও, তারা আবিষ্কার করেছেন উচ্চতর ডিগ্রি, অন্যান্য প্রাথমিক বেসড বাঁধার নকশাগুলি প্রবর্তন করেছিলেন যা তখন পর্যন্ত অজানা ছিল। এর মধ্যে রয়েছে আর্চ-গ্র্যাভিটি বাঁধ, [১৮] আর্চ বাঁধ, [১৯]] বোত্রেস বাঁধ [২০] এবং একাধিক খিলান বোত্রে বাঁধ, [21] এগুলি সমস্তই দ্বিতীয় শতাব্দীর খ্রিস্টাব্দে পরিচিত এবং নিযুক্ত ছিল (রোমান বাঁধের তালিকা দেখুন)। রোমান ওয়ার্কফোর্সরাও প্রথম ছিল ইরানের ব্রিজ অব ভ্যালারিয়ার মতো বাঁধ সেতু নির্মাণকারী। [২২]

ইরানে, ব্যান্ড-ই কায়সারের মতো সেতু বাঁধগুলি জলচক্রের মাধ্যমে জলবিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য ব্যবহৃত হত, যা প্রায়শই জল উত্থাপন পদ্ধতি চালিত করে। প্রথমটির মধ্যে একটি ছিল দেজফুলের রোমান নির্মিত নির্মিত বাঁধ সেতু, [২৩] যা শহরের সমস্ত বাড়িতে জল সরবরাহের জন্য উচ্চতা 50 হাত উচ্চতা বাড়িয়ে তুলতে পারে। এছাড়াও বাঁক বাঁধগুলি পরিচিত ছিল known [২৪] মিলিং বাঁধগুলি চালু করা হয়েছিল যা মুসলিম প্রকৌশলীরা পাল-ই-বুলাইতি নামে অভিহিত করেছিলেন। প্রথমটি ইরানের করুণ নদীর তীরে শুস্তারে নির্মিত হয়েছিল এবং এর অনেকগুলি পরে ইসলামী বিশ্বের অন্যান্য অংশে নির্মিত হয়েছিল। [24] জলের চাকা এবং জলছবি চালানোর জন্য বাঁধের পেছন থেকে একটি বৃহত পাইপের মাধ্যমে জল পরিচালিত হয়েছিল [[২৫] দশম শতাব্দীতে আল-মুকাদ্দাসী পারস্যের কয়েকটি বাঁধের বর্ণনা দিয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন যে আহওয়াজের একটি 910 মিটার (3,000 ফুট) দীর্ঘ, [২ long] এবং এতে অনেক জল চাকা ছিল যা জলকে জলজালুতে প্রবাহিত করেছিল যার মধ্য দিয়ে এটি শহরের জলাশয়ে প্রবাহিত হয়েছিল। [২ 27] আর একটি, ব্যান্ড-ই-আমির বাঁধ, 300 টি গ্রামের জন্য সেচ সরবরাহ করেছিল। [২ 26]

[৩] এফলাতুন পিনার একটি বাঁধ ও জলমন্দির কনইয়া, তুরস্কে অবস্থিত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Günther Garbrecht: "Wasserspeicher (Talsperren) in der Antike", Antike Welt, 2nd special edition: Antiker Wasserbau (1986), pp.51–64 (52)
  2. S.W. Helms: "Jawa Excavations 1975. Third Preliminary Report", Levant 1977
  3. "The reservoirs of Dholavira". The Southasia Trust. December 2008. Archived from the original on 11 July 2011. Retrieved 27 February 2011.http://old.himalmag.com/component/content/article/1062-the-reservoirs-of-dholavira.html