পিটার লোডার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
পিটার লোডার
P.J.Loader1954.png
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামপিটার জেমস লোডার
জন্ম(১৯২৯-১০-২৫)২৫ অক্টোবর ১৯২৯
ওয়ালিংটন, সারে, ইংল্যান্ড
মৃত্যু১৫ মার্চ ২০১১(২০১১-০৩-১৫) (৮১ বছর)
পার্থ, পশ্চিম অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৫১-১৯৬৩সারে সি.সি.সি
১৯৬৩ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৩ ৩৭১
রানের সংখ্যা ৭৬ ২৩১৪
ব্যাটিং গড় ৫.৮৪ ৮.৫০
১০০/৫০ –/– –/২
সর্বোচ্চ রান ১৭ ৮১
বল করেছে ২৬৬২ ৬২৫২২
উইকেট ৩৯ ১৩২৬
বোলিং গড় ২২.৫১ ১৯.০৪
ইনিংসে ৫ উইকেট ৭০
ম্যাচে ১০ উইকেট ১৩
সেরা বোলিং ৬/৩৬ ৯/১৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ১১৯/–
উৎস: ক্রিকইনফো, ২০ জানুয়ারি ২০১৭

পিটার জেমস লোডার (ইংরেজি: Peter Loader; জন্ম: ২৫ অক্টোবর, ১৯২৯ - মৃত্যু: ১৫ মার্চ, ২০১১) সারের ওয়ালিংটনে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ও আম্পায়ার ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ইংল্যান্ডের পক্ষে তেরো টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন তিনি। ঘরোয়া ক্রিকেটে সারে ও বেডিংটন ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষে খেলেছেন পিটার লোডার[১] পাতলা গড়নের অধিকারী লোডার বিশাল পেস ও বাউন্সারের সাহায্যে ফাস্ট-বোলার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলেছেন। বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তীকালে প্রথম ব্যক্তি হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে হ্যাট্রিক করেন তিন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সারের ওয়ালিংটন এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন পিটার লোডার।[২] সারের বোলিং আক্রমণের অন্যতম অংশীদার ছিলেন তিনি। ১৯৫২ থেকে ১৯৫৮ সময়কালে ধারাবাহিকভাবে সাতবার কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা বিজয়ে প্রভূতঃ ভূমিকা রাখেন। ১৯৫১ সালে তাঁর অভিষেক ঘটে। জুলাই, ১৯৫৩ সালে দলে নিজ স্থান পাকাপোক্ত করেন। উপর্যুপরি তিন খেলায় ৩৪ উইকেট পান।

সারের পক্ষে দুইবার ইনিংসে ৯ উইকেট পেয়েছেন। ১৯৫৩ সালে কেন্টের বিপক্ষে ৯/২৩ ও ১৯৫৮ সালে ওয়ারউইকশায়ারের বিপক্ষে ৯/১৭ লাভ করেন। সাতবার এক মৌসুমে শতাধিক উইকেট পেয়েছিলেন। তন্মধ্যে, সর্বশেষ শতাধিক উইকেট পেয়েছেন ১৯৬২ সালে।[৩]

ব্যাটসম্যান হিসেবে তেমন সফলতা না পেলেও ১৯৫৫ সালে ইয়র্কশায়ারের বিপক্ষে ৮১ রান তুলেন। দলীয় সংগ্রহ একপর্যায়ে ১১৯/৮ হলে তাঁর ইনিংসের কল্যাণে ২৬৮ রানে সারে দল অল-আউট হয়।[৩]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

ফ্রাঙ্ক টাইসন, ফ্রেড ট্রুম্যানব্রায়ান স্ট্যাদামের অসম্ভব ক্রীড়ানৈপুণ্যের কারণে লোডারকে ইংল্যান্ড দলে অনিয়মিত অবস্থায় দেখা যেতো। ১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে যান। কিন্তু কোন টেস্টেই অংশ নিতে দেখা যায়নি। ১৯৫৮-৫৯ মৌসুমে ১৯.৫০ গড়ে ২৬ উইকেট দখল করেন। কিন্তু নিজস্ব শেষ সিরিজে তিনি মাত্র সাত উইকেট পেয়েছিলেন। শুরুর দিকের খেলায় তীব্র রোদে পীড়িত হবার ফলে মাঠ ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন। পরের খেলায় শারীরিক অসুস্থতার কারণে খেলতে পারেননি। অস্ট্রেলিয়া একাদশের খেলায়ও ব্যথার কারণে মাঠ থেকে ফিরে আসেন। শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষিতে বেশ কয়েকদিন তাঁকে বিছানায় অবস্থান করতে হয়। কিন্তু পরের সপ্তাহেই প্রথম টেস্টে অংশ নেন। নিউ সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে আঘাতের কারণে খেলায় অংশ নেয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখেন। চতুর্থ টেস্টের পর পঞ্চম টেস্টে অংশগ্রহণের প্রাক্কালে তিনি ও স্ট্যাদামের গাড়ী দূর্ঘটনার পতিত হলে তিনি আর কখনো ইংল্যান্ডের পক্ষে খেলেননি। চাকিংয়ের কারণে অভিযুক্ত হলেও আম্পায়ার কর্তৃক কখনো অভিযুক্ত হননি। কেননা, তাঁর সাধারণ ডেলিভারীগুলোর তুলনায় বাউন্সারের বলগুলো বেশ দ্রুততর ছিল।

অর্জনসমূহ[সম্পাদনা]

১৯৫৭ সালে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে হেডিংলিতে ৬/৩৬ লাভ করেন।[৪] তাঁর এ হ্যাট্রিকটি টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বাদশ হ্যাট্রিক ছিল। লোডারের হ্যাট্রিকের দীর্ঘ আটত্রিশ বছর পর ডমিনিক কর্ক পরবর্তী ইংরেজ হিসেবে হ্যাট্রিক করেছিলেন।[৫] ১৯৫৮ সালে উইজডেন কর্তৃক অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে মনোনীত হন তিনি।[৬]

ক্রিকেট লেখক কলিন বেটম্যান লোডার সম্পর্কে মন্তব্য করেন যে, নিখুঁত বোলিংয়ের অধিকারী হিসেবে প্রতিপক্ষের ব্যাটিং মেরুদণ্ড ভেঙ্গে ফেলায় পারদর্শিতা দেখিয়েছেন।[২]

অবসর[সম্পাদনা]

১৯৬৩ সালে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার পার্থে চলে গেলে সারের সাথে তাঁর খেলোয়াড়ী জীবনের সম্পর্ক শেষ হয়ে যায়। ১৯৬৩-৬৪ মৌসুমে রাজ্যদলের পক্ষে একটি খেলায় অংশ নেন যা তাঁর প্রথম-শ্রেণীর শেষ মৌসুম ছিল।

খেলোয়াড়ী জীবন থেকে অবসর নেয়ার পর আম্পায়ারিংয়ের জগতে ঢুকে পড়েন তিনি। ২০০৭ সালে ওয়াকার শীর্ষ গ্রেড ক্রিকেটের আম্পায়ার হিসেবে অবসর নেন।

৮১ বছর বয়সে ১৫ মার্চ, ২০১১ তারিখে পার্থে তাঁর দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. About Beddington Cricket Club
  2. Bateman, Colin (১৯৯৩)। If The Cap Fits। Tony Williams Publications। পৃষ্ঠা 111। আইএসবিএন 1-869833-21-X 
  3. "Sports Obituaries – Peter Loader"The Daily Telegraph। ১৭ মার্চ ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১১ 
  4. Cricinfo.com
  5. Wisden Cricketers' Almanack, 1996 Edition, আইএসবিএন ৯৭৮-০-৯৪৭৭৬৬-৩১-৩.
  6. "Wisden Cricketers of the Year" (English ভাষায়)। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০২-২১ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]